রাজশাহী , বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
ছাত্রশিবির-ছাত্রদল এবং বহিরাগতরা ঢাবির হলে তাণ্ডব চালিয়েছে: মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী হল ছাড়বেন না রাবি শিক্ষার্থীরা, তিন দাবিতে বিক্ষোভ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা ঢাবির সব হল সাধারণ শিক্ষার্থীদের দখলে এবার সিটি কর্পোরেশন এলাকায় প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা হামলার ভয়ে হল ছাড়ছেন রাবি শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কার আন্দোলন: বৃহস্পতিবারের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা রাবির বঙ্গবন্ধু হলে অগ্নিসংযোগ, শহরে খণ্ড খণ্ড বিক্ষোভ লাঠিসোঁটা নিয়ে রাবিতে বিক্ষোভ, বঙ্গবন্ধু হলে ভাঙচুর, বাইকে আগুন রাজশাহীতে ৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন রাবিতে হলে ঢুকে মোটরসাইকেলে আগুন, ব্যাপক ভাঙচুর চট্টগ্রামে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ ঢাকা, চট্টগ্রাম, বগুড়া ও রাজশাহীতে বিজিবি মোতায়েন যুক্তরাষ্ট্রের বক্তব্যের প্রতিবাদ জানাল বাংলাদেশ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী কোটা আন্দোলনকারীদের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা এবার ঢামেকে আহত আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা হলে ফেরার অনুরোধ প্রত্যাখ্যান আন্দোলনকারীদের হামলা-সংঘর্ষের পর ঢাবি ক্যাম্পাসে ‘অ্যাকশনে’ যাবে পুলিশ

উৎসবমুখর হোক বাঙালির ‘হালখাতা’

  • আপডেটের সময় : ০৬:৫৭:১৮ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০১৯
  • ৬৪ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ঢাকা প্রতিনিধি: ‘হালখাতা’ আবহমান বাংলার চিরায়ত সংস্কৃতি। প্রযুক্তির ছোঁয়ায় বাংলা সনের প্রথম দিনে দোকানের হিসাব আনুষ্ঠানিক হালনাগাদের এ প্রক্রিয়ায় এখন ভাটা পড়েছে। তবে শহর কিংবা গ্রামে এখনো ছোট পরিসরে পালন করেন কিছু ব্যবসায়ী। হালখাতার অতীত-বর্তমান নিয়ে লিখেছেন মজিবর রহমান নাহিদ-

ছোটবেলা থেকেই বৈশাখের শুরুতে ‘হালখাতা’ উৎসবের আমেজ দেখতাম অনেকের মাঝে। পুরনো বছরের সব হিসাব শেষ করে নতুন হিসাব খোলা হয় যে খাতায়, তা-ই ‘হালখাতা’। দিনটি উপলক্ষে ক্রেতা-বিক্রেতার মিলনমেলায় রূপ নেয়। শহরের চেয়ে গ্রামে এর আমেজটা বরাবরই বেশি দেখেছিলাম। সেই লাল-নীল-খয়েরি রঙের কাগজ দিয়ে দোকান সাজানো, মাইকে বাংলা গান বাজানো, ক্রেতাদের আপ্যায়নই ছিলো হালখাতার মূল আকর্ষণ।

Trulli

বাংলা বছর শুরুর আগেই দোকানিরা বিক্রেতা ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের হাতে পৌঁছে দিতেন হালখাতার কার্ড। বিভিন্ন রকমের কার্ড আদান-প্রদানেও ছিলো একরকম আনন্দ। হালখাতার দিনে মূলত ব্যবসায়ীরা তাদের পুরনো বছরের হিসাবের খাতাটা বন্ধ করে নতুন বছর উপলক্ষে নতুন খাতা খোলেন। আর এ নতুন হিসাবের খাতার সাথে পুরনো সব দেনা-পাওনার সমাপ্তি ঘটানো হয়। দেনাদাররা খুব আগ্রহের সাথেই এসে দিয়ে যায় পাওনা টাকা। অংশ নেয় আপ্যায়নে।

ইতিহাস বলে, তৎকালীন ভারতবর্ষে ১৫৮৪ খ্রিস্টাব্দের ১০-১১ মার্চ সম্রাট আকবরের বাংলা সন প্রবর্তনের পর থেকেই ‘হালখাতা’র প্রচলন হয়। পশ্চিমবঙ্গেও অনুষ্ঠানটি বেশ ঘটা করে পালন করা হয়। ১৯ শতকের দিকে ঢাকার ইসলামপুরে পহেলা বৈশাখে হালখাতা উৎসব পালন করা শুরু হয়। কালের বিবর্তনে হারিয়ে হাচ্ছে বাঙালির ঐতিহ্য হালখাতা।

অতীতের মতো সারাদেশে একযোগে এ উৎসব পালিত না হলেও কিছু কিছু জায়গায় হালখাতার প্রচলন এখনও আছে। বড় পরিসরে না হলেও ছোট পরিসরে কিছু কিছু ব্যবসায়ী টিকিয়ে রেখেছেন এ হালখাতা। বর্তমানে আমাদের দেশে হিসাব রাখার জন্য ব্যবহৃত লাল মোড়কের বিশেষ খাতার পরিবর্তে এখন হিসাব সংরক্ষণ করা হয় কম্পিউটারে।

বর্তমানে প্রায় সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠানেই কম্পিউটার রয়েছে। খাতার কাজ এখন কম্পিউটারই করছে। আগে বিভিন্ন পণ্য বিক্রির জন্য হাতে লেখা টালি (স্লিপ) ক্রেতাদের দেওয়া হতো। এখন কম্পিউটারাইজড স্লিপ দেওয়া হয়। ফলে খাতা রাখার খুব একটি প্রয়োজন হয় না। টালি খাতা প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানেও নেই আগের মতো কর্মব্যস্ততা। চাহিদা কমে যাওয়ায় বাপ-দাদা সূত্রে পাওয়া এ পেশা পরিবর্তন করে নতুন পেশা গ্রহণ করেছেন অনেকেই।

হালখাতা আমাদের ঐতিহ্য, হালখাতা আমাদের উৎসব। আমরা চাই কালের বিবর্তনে এটি হারিয়ে না গিয়ে সব শ্রেণির ব্যবসায়ীর উদ্যোগে আবার অতীতের মতো ফিরে আসুক হালখাতা। সবাইকে বাংলা নববর্ষ ১৪২৬ এর অগ্রিম শুভেচ্ছা।

লেখক: ক্রীড়া সম্পাদক, নিউজ এডিটরস্ কাউন্সিল বরিশাল।

***** প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব। বাংলার জনপদ-এর সম্পাদকীয় নীতি/মতের সঙ্গে লেখকের মতামতের অমিল থাকতেই পারে। তাই এখানে প্রকাশিত লেখার জন্য বাংলার জনপদ কর্তৃপক্ষ লেখকের কলামের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে আইনগত বা অন্য কোনও ধরনের কোনও দায় নেবে না।#

Adds Banner_2024

উৎসবমুখর হোক বাঙালির ‘হালখাতা’

আপডেটের সময় : ০৬:৫৭:১৮ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০১৯

ঢাকা প্রতিনিধি: ‘হালখাতা’ আবহমান বাংলার চিরায়ত সংস্কৃতি। প্রযুক্তির ছোঁয়ায় বাংলা সনের প্রথম দিনে দোকানের হিসাব আনুষ্ঠানিক হালনাগাদের এ প্রক্রিয়ায় এখন ভাটা পড়েছে। তবে শহর কিংবা গ্রামে এখনো ছোট পরিসরে পালন করেন কিছু ব্যবসায়ী। হালখাতার অতীত-বর্তমান নিয়ে লিখেছেন মজিবর রহমান নাহিদ-

ছোটবেলা থেকেই বৈশাখের শুরুতে ‘হালখাতা’ উৎসবের আমেজ দেখতাম অনেকের মাঝে। পুরনো বছরের সব হিসাব শেষ করে নতুন হিসাব খোলা হয় যে খাতায়, তা-ই ‘হালখাতা’। দিনটি উপলক্ষে ক্রেতা-বিক্রেতার মিলনমেলায় রূপ নেয়। শহরের চেয়ে গ্রামে এর আমেজটা বরাবরই বেশি দেখেছিলাম। সেই লাল-নীল-খয়েরি রঙের কাগজ দিয়ে দোকান সাজানো, মাইকে বাংলা গান বাজানো, ক্রেতাদের আপ্যায়নই ছিলো হালখাতার মূল আকর্ষণ।

Trulli

বাংলা বছর শুরুর আগেই দোকানিরা বিক্রেতা ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের হাতে পৌঁছে দিতেন হালখাতার কার্ড। বিভিন্ন রকমের কার্ড আদান-প্রদানেও ছিলো একরকম আনন্দ। হালখাতার দিনে মূলত ব্যবসায়ীরা তাদের পুরনো বছরের হিসাবের খাতাটা বন্ধ করে নতুন বছর উপলক্ষে নতুন খাতা খোলেন। আর এ নতুন হিসাবের খাতার সাথে পুরনো সব দেনা-পাওনার সমাপ্তি ঘটানো হয়। দেনাদাররা খুব আগ্রহের সাথেই এসে দিয়ে যায় পাওনা টাকা। অংশ নেয় আপ্যায়নে।

ইতিহাস বলে, তৎকালীন ভারতবর্ষে ১৫৮৪ খ্রিস্টাব্দের ১০-১১ মার্চ সম্রাট আকবরের বাংলা সন প্রবর্তনের পর থেকেই ‘হালখাতা’র প্রচলন হয়। পশ্চিমবঙ্গেও অনুষ্ঠানটি বেশ ঘটা করে পালন করা হয়। ১৯ শতকের দিকে ঢাকার ইসলামপুরে পহেলা বৈশাখে হালখাতা উৎসব পালন করা শুরু হয়। কালের বিবর্তনে হারিয়ে হাচ্ছে বাঙালির ঐতিহ্য হালখাতা।

অতীতের মতো সারাদেশে একযোগে এ উৎসব পালিত না হলেও কিছু কিছু জায়গায় হালখাতার প্রচলন এখনও আছে। বড় পরিসরে না হলেও ছোট পরিসরে কিছু কিছু ব্যবসায়ী টিকিয়ে রেখেছেন এ হালখাতা। বর্তমানে আমাদের দেশে হিসাব রাখার জন্য ব্যবহৃত লাল মোড়কের বিশেষ খাতার পরিবর্তে এখন হিসাব সংরক্ষণ করা হয় কম্পিউটারে।

বর্তমানে প্রায় সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠানেই কম্পিউটার রয়েছে। খাতার কাজ এখন কম্পিউটারই করছে। আগে বিভিন্ন পণ্য বিক্রির জন্য হাতে লেখা টালি (স্লিপ) ক্রেতাদের দেওয়া হতো। এখন কম্পিউটারাইজড স্লিপ দেওয়া হয়। ফলে খাতা রাখার খুব একটি প্রয়োজন হয় না। টালি খাতা প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানেও নেই আগের মতো কর্মব্যস্ততা। চাহিদা কমে যাওয়ায় বাপ-দাদা সূত্রে পাওয়া এ পেশা পরিবর্তন করে নতুন পেশা গ্রহণ করেছেন অনেকেই।

হালখাতা আমাদের ঐতিহ্য, হালখাতা আমাদের উৎসব। আমরা চাই কালের বিবর্তনে এটি হারিয়ে না গিয়ে সব শ্রেণির ব্যবসায়ীর উদ্যোগে আবার অতীতের মতো ফিরে আসুক হালখাতা। সবাইকে বাংলা নববর্ষ ১৪২৬ এর অগ্রিম শুভেচ্ছা।

লেখক: ক্রীড়া সম্পাদক, নিউজ এডিটরস্ কাউন্সিল বরিশাল।

***** প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব। বাংলার জনপদ-এর সম্পাদকীয় নীতি/মতের সঙ্গে লেখকের মতামতের অমিল থাকতেই পারে। তাই এখানে প্রকাশিত লেখার জন্য বাংলার জনপদ কর্তৃপক্ষ লেখকের কলামের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে আইনগত বা অন্য কোনও ধরনের কোনও দায় নেবে না।#