রাজশাহী , বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
হামলার ভয়ে হল ছাড়ছেন রাবি শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কার আন্দোলন: বৃহস্পতিবারের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা রাবির বঙ্গবন্ধু হলে অগ্নিসংযোগ, শহরে খণ্ড খণ্ড বিক্ষোভ লাঠিসোঁটা নিয়ে রাবিতে বিক্ষোভ, বঙ্গবন্ধু হলে ভাঙচুর, বাইকে আগুন রাজশাহীতে ৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন রাবিতে হলে ঢুকে মোটরসাইকেলে আগুন, ব্যাপক ভাঙচুর চট্টগ্রামে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ ঢাকা, চট্টগ্রাম, বগুড়া ও রাজশাহীতে বিজিবি মোতায়েন যুক্তরাষ্ট্রের বক্তব্যের প্রতিবাদ জানাল বাংলাদেশ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী কোটা আন্দোলনকারীদের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা এবার ঢামেকে আহত আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা হলে ফেরার অনুরোধ প্রত্যাখ্যান আন্দোলনকারীদের হামলা-সংঘর্ষের পর ঢাবি ক্যাম্পাসে ‘অ্যাকশনে’ যাবে পুলিশ শহীদুল্লাহ হলের সামনে ফের সংঘর্ষ, ৪ ককটেল বিস্ফোরণ চট্টগ্রামে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ ঢাবিতে কোটা আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা, আহত অন্তত ৮০ ঢাবিতে আন্দোলনকারী-ছাত্রলীগ মুখোমুখি, ইট-পাটকেল নিক্ষেপ রাজাকারের নাতিরা সব পাবে, মুক্তিযোদ্ধার নাতিপুতিরা কিছুই পাবে না?

আপনার ঘরে আজ ওই খুনিদের আনাগোনা কাদের সিদ্দিকী ভাই

  • আপডেটের সময় : ০৮:৪৭:৪০ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮
  • ১০৭ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

জনপদ ডেস্ক:
কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীর কাছে খোলা চিঠি লিখেছেন বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদে ফাঁসির মঞ্চ থেকে বেঁচে যাওয়া প্রতিরোধযোদ্ধা মুজিব সৈনিক বিশ্বজিত নন্দী। সেখানে কাদের সিদ্দিকী ক্ষমতায় যেতে পারলে তার জীবনের ১৩টা বছর ফিরিয়ে দেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন ময়মনসিংহের মুক্তাগাছার এই কৃতিসন্তান।

শ্রদ্ধেয় কাদের ভাই,
সালাম নিবেন। জানি, আমাকে এখন আপনি চিনতে পারবেন না। আমি মুক্তাগাছার গোবিন্দপুর গ্রামের বিশ্বজিৎ নন্দী। পিতা হত্যার প্রতিশোধ নিব বলে, আপনার সাথে অস্ত্র হাতে প্রতিরোধ যুদ্ধে নেমেছিলাম। আপনি বলতেন, “পিতা হত্যার প্রতিশোধ না নিয়ে ঘরে ফিরবেন না।” অথচ আপনি আজ কেবল ঘরেই ফিরেননি, আপনার ঘরে আজ ওই খুনিদের আনাগোনা। একত্রে বসে পরিকল্পনা করেন, কিভাবে মুজিব কন্যার পতন ঘটাবেন।

Trulli

১৯৭৬ সালের ১৮ আগস্ট দিনটির কথা কী মনে আছে? অপারেশনে পাঠিয়েছিলেন মুক্তাগাছায়! সেনাবাহিনী আমাদের চারদিক থেকে ঘিরে ফেলেছিল।

আমাদের আত্মসর্মপণের নির্দেশ দেয়। কিন্তু আত্মসমর্পণের মাধ্যমে আরেকটি কলঙ্কের ইতিহাস হোক, তা চাইনি বলে, টানা ৮ ঘণ্টা যুদ্ধ চালাতে গিয়ে সহযোদ্ধা পাঁচজনের মৃত্যু হয়। হাতে-পায়ে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় আমাকে গ্রেফতার করা হয়। অথচ আজ আপনিই ওদের কাছে আত্মসমর্পণ করে বসে আছেন।

যৌবনের ১৩টা বছর আমি কাটিয়েছি কারাগারে। ৭ বছর ছিলাম কনডেম সেলে। যে জিয়ার হয়ে আজ আপনি মাঠঘাট চষে বেড়াচ্ছেন, সে জিয়ার সামরিক আদালতে ১৯৭৭ সালের ১৮ মে আমার ফাঁসির রায় হয়।

আমি বিশ্বজিৎ ওদের চোখে অপরাধী হলেও, আপনি এখন ওদের কাছে মহামানব। ভালো থাকবেন হে মহামানব।

ক্ষমতায় গিয়ে, যদি পারেন, আমার জীবন থেকে হারিয়ে যাওয়া সেই ১৩টা বছর ফিরিয়ে দিবেন। তা না হলে, আপনি আমার কাছে বাকি জীবনটা বিশ্বাসঘাতক হয়েই থাকবেন।

ইতি
বিশ্বজিৎ নন্দী
টাঙ্গাইল।

Adds Banner_2024

আপনার ঘরে আজ ওই খুনিদের আনাগোনা কাদের সিদ্দিকী ভাই

আপডেটের সময় : ০৮:৪৭:৪০ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮

জনপদ ডেস্ক:
কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীর কাছে খোলা চিঠি লিখেছেন বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদে ফাঁসির মঞ্চ থেকে বেঁচে যাওয়া প্রতিরোধযোদ্ধা মুজিব সৈনিক বিশ্বজিত নন্দী। সেখানে কাদের সিদ্দিকী ক্ষমতায় যেতে পারলে তার জীবনের ১৩টা বছর ফিরিয়ে দেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন ময়মনসিংহের মুক্তাগাছার এই কৃতিসন্তান।

শ্রদ্ধেয় কাদের ভাই,
সালাম নিবেন। জানি, আমাকে এখন আপনি চিনতে পারবেন না। আমি মুক্তাগাছার গোবিন্দপুর গ্রামের বিশ্বজিৎ নন্দী। পিতা হত্যার প্রতিশোধ নিব বলে, আপনার সাথে অস্ত্র হাতে প্রতিরোধ যুদ্ধে নেমেছিলাম। আপনি বলতেন, “পিতা হত্যার প্রতিশোধ না নিয়ে ঘরে ফিরবেন না।” অথচ আপনি আজ কেবল ঘরেই ফিরেননি, আপনার ঘরে আজ ওই খুনিদের আনাগোনা। একত্রে বসে পরিকল্পনা করেন, কিভাবে মুজিব কন্যার পতন ঘটাবেন।

Trulli

১৯৭৬ সালের ১৮ আগস্ট দিনটির কথা কী মনে আছে? অপারেশনে পাঠিয়েছিলেন মুক্তাগাছায়! সেনাবাহিনী আমাদের চারদিক থেকে ঘিরে ফেলেছিল।

আমাদের আত্মসর্মপণের নির্দেশ দেয়। কিন্তু আত্মসমর্পণের মাধ্যমে আরেকটি কলঙ্কের ইতিহাস হোক, তা চাইনি বলে, টানা ৮ ঘণ্টা যুদ্ধ চালাতে গিয়ে সহযোদ্ধা পাঁচজনের মৃত্যু হয়। হাতে-পায়ে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় আমাকে গ্রেফতার করা হয়। অথচ আজ আপনিই ওদের কাছে আত্মসমর্পণ করে বসে আছেন।

যৌবনের ১৩টা বছর আমি কাটিয়েছি কারাগারে। ৭ বছর ছিলাম কনডেম সেলে। যে জিয়ার হয়ে আজ আপনি মাঠঘাট চষে বেড়াচ্ছেন, সে জিয়ার সামরিক আদালতে ১৯৭৭ সালের ১৮ মে আমার ফাঁসির রায় হয়।

আমি বিশ্বজিৎ ওদের চোখে অপরাধী হলেও, আপনি এখন ওদের কাছে মহামানব। ভালো থাকবেন হে মহামানব।

ক্ষমতায় গিয়ে, যদি পারেন, আমার জীবন থেকে হারিয়ে যাওয়া সেই ১৩টা বছর ফিরিয়ে দিবেন। তা না হলে, আপনি আমার কাছে বাকি জীবনটা বিশ্বাসঘাতক হয়েই থাকবেন।

ইতি
বিশ্বজিৎ নন্দী
টাঙ্গাইল।