রাজশাহী , মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

শিলিগুড়ি ভ্রমণ…

  • আপডেটের সময় : ০৫:৪৮:৪৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২২ জানুয়ারী ২০১৯
  • ১৩৭ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

জনপদ ডেস্কঃ উত্তর-পূর্ব ভারতের প্রবেশদ্বার, শিলিগুড়ি ভারতের পশ্চিমবঙ্গে অবস্থিত। শিলিগুড়ি খুব সুন্দরভাবে উত্তর পূর্ব হিমালয় ও পশ্চিমবঙ্গের ডুয়ার্স অঞ্চলের মধ্যে অবস্থান করে আছে।

দার্জিলিং, কালিম্পং, ডুয়ার্স, গ্যাংটক ছাড়াও বিভিন্ন পর্যটক আকর্ষণ অন্বেষণের ভিত্তি হিসাবে এই শহর কাজ করে। প্রকৃতির বিস্ময়কর দৃশ্য দ্বারা আপনি যদি নিজেকে ভাসিয়ে নিয়ে যেতে চান, তাহলে শিলিগুড়ি ভ্রমণ করুন।

Trulli

উত্তর পশ্চিমবঙ্গের এক অন্যতম মূল শহর, শিলিগুড়ির শহুরে বসতি বেড়ে চলেছে। সামান্য পর্যটন আকর্ষণের সঙ্গে যদিও এটি একটি দ্রুত উন্নয়নশীল আধুনিক শহর, তাও পশ্চিমবঙ্গের দার্জিলিং, কালিম্পং এবং ডুয়ার্স অঞ্চল ছাড়াও গ্যাংটক ও সিকিমের অন্যান্য অংশগুলি অন্বেষণ করার জন্য মানুষ শিলিগুড়ি ভ্রমণ করতে আসেন। সফরের শুরুতে বা শেষে কেনাকাটা বা থাকার ব্যবস্থার দিক দিয়ে শিলিগুড়ি একটি ভাল জায়গা।

শিলিগুড়ি পৌঁছনোর উপায়
কৌশলগতভাবে পশ্চিমবঙ্গের উত্তরাঞ্চলে অবস্থিত, শিলিগুড়ি রাজ্যের এক প্রধান শহর। শিলিগুড়ি ভারতের উত্তর পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলির যোগাযোগের কেন্দ্রবিন্দু হিসেবে কাজ করে।

একটি মূল বাণিজ্য কেন্দ্র হিসাবে, এই শহর বিমান, সড়ক ও রেল পথের একটি উন্নত পরিবহন জালবিন্যাস দ্বারা সু-সজ্জিত। আপনি যদি পশ্চিমবঙ্গের দার্জিলিং, কালিম্পং এবং সিকিমের গ্যাংটক এর মত শহরগুলি ভ্রমণ করতে আসেন, শিলিগুড়ি হল এই প্রতিটি জায়গার প্রবেশদ্বার।

বিমানপথ দ্বারা
বাগডোগরায় একটি অভ্যন্তরীণ বিমানবন্দর আছে যা শহরের কেন্দ্র থেকে প্রায় ১৭ কিমি দূরে অবস্থিত। বাগডোগরা বিমানবন্দর দিল্লি, কলকাতা ও গুয়াহাটির সাথে নিয়মিত বিমান দ্বারা সংযুক্ত।
বেশ কিছু সরকারি ও বেসরকারি বিমান পরিবহন সংস্থা এই বিমানবন্দরে পরিষেবা প্রদান করে। এই অঞ্চলে একটি বিমানঘাঁটি রয়েছে, যেখান থেকে গ্যাংটক, সিকিমের নিয়মিত হেলিকপ্টার পরিষেবা পাওয়া যায়।

রেলপথ দ্বারা
শিলিগুড়িতে তিনটি গুরুত্বপূর্ণ রেলওয়ে স্টেশন আছে; শিলিগুড়ি টাউন, শিলিগুড়ি জংশন এবং নিউ জলপাইগুড়ি জংশন। নিউ জলপাইগুড়ি রেলওয়ে স্টেশন বর্তমানে এই অঞ্চলের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ স্টেশন। এটি দেশের প্রতিটি প্রধান রেলপথের সাথে সংযুক্ত।

সড়কপথ দ্বারা
শিলিগুড়ি একটি গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্য কেন্দ্র তথা ভারতের উত্তর-পূর্বের প্রবেশদ্বার। একটি বিস্তৃত সড়ক জালবিন্যাস শিলিগুড়িকে কলকাতার সাথে সংযুক্ত করে,যা দেশের বাকি অংশের সাথেও সংযোগস্থাপনের একটি প্রধান বিন্দু। শিলিগুড়ি, সড়ক দ্বারা ভারতীয় রাজ্য গ্যাংটক ও নেপাল ও ভুটান দেশের সাথে সংযুক্ত। জাতীয় মহাসড়ক ৩১,৩১-এ, ৩১-ডি এবং ৫৫ শিলিগুড়িকে প্রতিবেশী শহর এবং রাজ্যের সঙ্গে সংযুক্ত করে।

তেনজিং নোরগে সেন্ট্রাল বাস টার্মিনাস বেসরকারি এবং সরকারি মালিকানাধীন বাসের একটি প্রধান কেন্দ্রস্থল।

এছাড়াও ভুটানের রাজকীয় সরকার শিলিগুড়ি থেকে তার সীমান্ত শহর ফুন্টসোলিং পর্যন্ত বাস পরিষেবা প্রদান করে।

ভাড়ার জিপ গাড়িগুলিও এই শহরকে তার প্রতিবেশী শৈল শহর দার্জিলিং, কালিম্পং, গ্যাংটক, কার্শিয়াং ইত্যাদির সাথে সংযুক্ত করে। সিকিম সরকারের সিকিম রাষ্ট্রায়ত্ত পরিবহন, বাস স্টেশন থেকে সিকিমের বিভিন্ন গন্তব্যস্থলে বাস পরিচালনা করে।

শিলিগুড়িতে কেনাকাটা
শিলিগুড়ি শুধু একটি পর্যটন গন্তব্য নয়, কিন্তু একটি আধুনিক শহর এবং একটি গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্য কেন্দ্র হওয়ায় শিলিগুড়িতে কেনাকাটার চমৎকার সুযোগ রয়েছে।

একটি বিমানবন্দর, রেল স্টেশন এবং চমৎকার সড়ক পথ সহ এই শহর নেপাল, ভুটান ও তিব্বতের মত দেশগুলির ও উত্তর-পূর্ব ভারতীয় রাজ্যগুলির জন্য একটি প্রধান বানিজ্যিক কেন্দ্র হিসেবে কাজ করে। এই এলাকার প্রধান ব্যবসা হল ঐতিহ্যবাহী হস্তশিল্প এবং শিলিগুড়িতে কেনাকাটার জন্য এইগুলি সেরা।

শিলিগুড়িতে কেনাকাটা করার জন্য দার্জিলিং চা হল সবচেয়ে জনপ্রিয় উপকরণ। দার্জিলিং চা তর্কসাপেক্ষ ভাবে বিশ্বের সেরা এবং তার চমৎকার সুগন্ধের জন্য বিখ্যাত। খাঁটি দার্জিলিং চা কেনার জন্য শিলিগুড়ি অবশ্যই একটি আদর্শ জায়গা।

আপনি শিলিগুড়িতে কেনাকাটা করার সময় তিব্বত বা ভুটানের পশমী বস্ত্র কিনতে পারেন। আপনি এই শহরের যে কোন জায়গায় তিব্বত বা ভুটানের হরেক রকমের পশমী বস্ত্র পাবেন।

এছাড়াও শিলিগুড়িতে কেনাকাটা করার সময় আপনি সিকিমের কিছু হস্তশিল্প ও অলঙ্কৃত ক্ষুদ্র মূর্তি কিনতে পারেন, যা একটি উপহার হিসাবে বন্ধু এবং আত্মীয়দের দেওয়া যেতে পারে।

উত্তর-পূর্ব হিমালয় অঞ্চলের সমৃদ্ধ বনাঞ্চল কাঠের জন্য একটি ভাল উৎস এবং ঐতিহ্যগতভাবে এই অঞ্চলের অধিবাসীরা কাষ্ঠ শিল্পে দক্ষ হয়। এছাড়াও আপনি শিলিগুড়িতে আসবাবপত্র, সামগ্রী,শিল্পজাত জিনিস কেনাকাটা করতে পারেন, যা এইসব জিনিসপত্র কেনাকাটার প্রধান বানিজ্যিক কেন্দ্র।

হিল কার্ট রোড এবং সেবক রোডে বহু কেনাকাটার স্থল, শপিং মল ও পথিপার্শ্বস্থ দোকানে আপনি অনেককিছু কেনাকাটা করতে পারেন।

শিলিগুড়িতে একটি বাজার আছে যেখানে বৈদ্যুতীক সামগ্রী পাওয়া যায় যেগুলি বেশীর ভাগই চোরাই। আপনি যদি গ্যাজেট প্রেমী হন, তাহলে আপনি হংকং বাজারে আসতে পারেন যেটি খুবই জনপ্রিয়।

শিলিগুড়িতে পরিদর্শনযোগ্য স্থান
কাঞ্চনজঙ্ঘা স্টেডিয়াম
হংকং বাজার
জলদাপাড়া
গরুমারা
কোচবিহার
মিরিক
কালিঝোড়া
মহানন্দা নদীবক্ষস্হ সুকনা।

Adds Banner_2024

শিলিগুড়ি ভ্রমণ…

আপডেটের সময় : ০৫:৪৮:৪৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২২ জানুয়ারী ২০১৯

জনপদ ডেস্কঃ উত্তর-পূর্ব ভারতের প্রবেশদ্বার, শিলিগুড়ি ভারতের পশ্চিমবঙ্গে অবস্থিত। শিলিগুড়ি খুব সুন্দরভাবে উত্তর পূর্ব হিমালয় ও পশ্চিমবঙ্গের ডুয়ার্স অঞ্চলের মধ্যে অবস্থান করে আছে।

দার্জিলিং, কালিম্পং, ডুয়ার্স, গ্যাংটক ছাড়াও বিভিন্ন পর্যটক আকর্ষণ অন্বেষণের ভিত্তি হিসাবে এই শহর কাজ করে। প্রকৃতির বিস্ময়কর দৃশ্য দ্বারা আপনি যদি নিজেকে ভাসিয়ে নিয়ে যেতে চান, তাহলে শিলিগুড়ি ভ্রমণ করুন।

Trulli

উত্তর পশ্চিমবঙ্গের এক অন্যতম মূল শহর, শিলিগুড়ির শহুরে বসতি বেড়ে চলেছে। সামান্য পর্যটন আকর্ষণের সঙ্গে যদিও এটি একটি দ্রুত উন্নয়নশীল আধুনিক শহর, তাও পশ্চিমবঙ্গের দার্জিলিং, কালিম্পং এবং ডুয়ার্স অঞ্চল ছাড়াও গ্যাংটক ও সিকিমের অন্যান্য অংশগুলি অন্বেষণ করার জন্য মানুষ শিলিগুড়ি ভ্রমণ করতে আসেন। সফরের শুরুতে বা শেষে কেনাকাটা বা থাকার ব্যবস্থার দিক দিয়ে শিলিগুড়ি একটি ভাল জায়গা।

শিলিগুড়ি পৌঁছনোর উপায়
কৌশলগতভাবে পশ্চিমবঙ্গের উত্তরাঞ্চলে অবস্থিত, শিলিগুড়ি রাজ্যের এক প্রধান শহর। শিলিগুড়ি ভারতের উত্তর পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলির যোগাযোগের কেন্দ্রবিন্দু হিসেবে কাজ করে।

একটি মূল বাণিজ্য কেন্দ্র হিসাবে, এই শহর বিমান, সড়ক ও রেল পথের একটি উন্নত পরিবহন জালবিন্যাস দ্বারা সু-সজ্জিত। আপনি যদি পশ্চিমবঙ্গের দার্জিলিং, কালিম্পং এবং সিকিমের গ্যাংটক এর মত শহরগুলি ভ্রমণ করতে আসেন, শিলিগুড়ি হল এই প্রতিটি জায়গার প্রবেশদ্বার।

বিমানপথ দ্বারা
বাগডোগরায় একটি অভ্যন্তরীণ বিমানবন্দর আছে যা শহরের কেন্দ্র থেকে প্রায় ১৭ কিমি দূরে অবস্থিত। বাগডোগরা বিমানবন্দর দিল্লি, কলকাতা ও গুয়াহাটির সাথে নিয়মিত বিমান দ্বারা সংযুক্ত।
বেশ কিছু সরকারি ও বেসরকারি বিমান পরিবহন সংস্থা এই বিমানবন্দরে পরিষেবা প্রদান করে। এই অঞ্চলে একটি বিমানঘাঁটি রয়েছে, যেখান থেকে গ্যাংটক, সিকিমের নিয়মিত হেলিকপ্টার পরিষেবা পাওয়া যায়।

রেলপথ দ্বারা
শিলিগুড়িতে তিনটি গুরুত্বপূর্ণ রেলওয়ে স্টেশন আছে; শিলিগুড়ি টাউন, শিলিগুড়ি জংশন এবং নিউ জলপাইগুড়ি জংশন। নিউ জলপাইগুড়ি রেলওয়ে স্টেশন বর্তমানে এই অঞ্চলের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ স্টেশন। এটি দেশের প্রতিটি প্রধান রেলপথের সাথে সংযুক্ত।

সড়কপথ দ্বারা
শিলিগুড়ি একটি গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্য কেন্দ্র তথা ভারতের উত্তর-পূর্বের প্রবেশদ্বার। একটি বিস্তৃত সড়ক জালবিন্যাস শিলিগুড়িকে কলকাতার সাথে সংযুক্ত করে,যা দেশের বাকি অংশের সাথেও সংযোগস্থাপনের একটি প্রধান বিন্দু। শিলিগুড়ি, সড়ক দ্বারা ভারতীয় রাজ্য গ্যাংটক ও নেপাল ও ভুটান দেশের সাথে সংযুক্ত। জাতীয় মহাসড়ক ৩১,৩১-এ, ৩১-ডি এবং ৫৫ শিলিগুড়িকে প্রতিবেশী শহর এবং রাজ্যের সঙ্গে সংযুক্ত করে।

তেনজিং নোরগে সেন্ট্রাল বাস টার্মিনাস বেসরকারি এবং সরকারি মালিকানাধীন বাসের একটি প্রধান কেন্দ্রস্থল।

এছাড়াও ভুটানের রাজকীয় সরকার শিলিগুড়ি থেকে তার সীমান্ত শহর ফুন্টসোলিং পর্যন্ত বাস পরিষেবা প্রদান করে।

ভাড়ার জিপ গাড়িগুলিও এই শহরকে তার প্রতিবেশী শৈল শহর দার্জিলিং, কালিম্পং, গ্যাংটক, কার্শিয়াং ইত্যাদির সাথে সংযুক্ত করে। সিকিম সরকারের সিকিম রাষ্ট্রায়ত্ত পরিবহন, বাস স্টেশন থেকে সিকিমের বিভিন্ন গন্তব্যস্থলে বাস পরিচালনা করে।

শিলিগুড়িতে কেনাকাটা
শিলিগুড়ি শুধু একটি পর্যটন গন্তব্য নয়, কিন্তু একটি আধুনিক শহর এবং একটি গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্য কেন্দ্র হওয়ায় শিলিগুড়িতে কেনাকাটার চমৎকার সুযোগ রয়েছে।

একটি বিমানবন্দর, রেল স্টেশন এবং চমৎকার সড়ক পথ সহ এই শহর নেপাল, ভুটান ও তিব্বতের মত দেশগুলির ও উত্তর-পূর্ব ভারতীয় রাজ্যগুলির জন্য একটি প্রধান বানিজ্যিক কেন্দ্র হিসেবে কাজ করে। এই এলাকার প্রধান ব্যবসা হল ঐতিহ্যবাহী হস্তশিল্প এবং শিলিগুড়িতে কেনাকাটার জন্য এইগুলি সেরা।

শিলিগুড়িতে কেনাকাটা করার জন্য দার্জিলিং চা হল সবচেয়ে জনপ্রিয় উপকরণ। দার্জিলিং চা তর্কসাপেক্ষ ভাবে বিশ্বের সেরা এবং তার চমৎকার সুগন্ধের জন্য বিখ্যাত। খাঁটি দার্জিলিং চা কেনার জন্য শিলিগুড়ি অবশ্যই একটি আদর্শ জায়গা।

আপনি শিলিগুড়িতে কেনাকাটা করার সময় তিব্বত বা ভুটানের পশমী বস্ত্র কিনতে পারেন। আপনি এই শহরের যে কোন জায়গায় তিব্বত বা ভুটানের হরেক রকমের পশমী বস্ত্র পাবেন।

এছাড়াও শিলিগুড়িতে কেনাকাটা করার সময় আপনি সিকিমের কিছু হস্তশিল্প ও অলঙ্কৃত ক্ষুদ্র মূর্তি কিনতে পারেন, যা একটি উপহার হিসাবে বন্ধু এবং আত্মীয়দের দেওয়া যেতে পারে।

উত্তর-পূর্ব হিমালয় অঞ্চলের সমৃদ্ধ বনাঞ্চল কাঠের জন্য একটি ভাল উৎস এবং ঐতিহ্যগতভাবে এই অঞ্চলের অধিবাসীরা কাষ্ঠ শিল্পে দক্ষ হয়। এছাড়াও আপনি শিলিগুড়িতে আসবাবপত্র, সামগ্রী,শিল্পজাত জিনিস কেনাকাটা করতে পারেন, যা এইসব জিনিসপত্র কেনাকাটার প্রধান বানিজ্যিক কেন্দ্র।

হিল কার্ট রোড এবং সেবক রোডে বহু কেনাকাটার স্থল, শপিং মল ও পথিপার্শ্বস্থ দোকানে আপনি অনেককিছু কেনাকাটা করতে পারেন।

শিলিগুড়িতে একটি বাজার আছে যেখানে বৈদ্যুতীক সামগ্রী পাওয়া যায় যেগুলি বেশীর ভাগই চোরাই। আপনি যদি গ্যাজেট প্রেমী হন, তাহলে আপনি হংকং বাজারে আসতে পারেন যেটি খুবই জনপ্রিয়।

শিলিগুড়িতে পরিদর্শনযোগ্য স্থান
কাঞ্চনজঙ্ঘা স্টেডিয়াম
হংকং বাজার
জলদাপাড়া
গরুমারা
কোচবিহার
মিরিক
কালিঝোড়া
মহানন্দা নদীবক্ষস্হ সুকনা।