রাজশাহী , বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
হামলার ভয়ে হল ছাড়ছেন রাবি শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কার আন্দোলন: বৃহস্পতিবারের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা রাবির বঙ্গবন্ধু হলে অগ্নিসংযোগ, শহরে খণ্ড খণ্ড বিক্ষোভ লাঠিসোঁটা নিয়ে রাবিতে বিক্ষোভ, বঙ্গবন্ধু হলে ভাঙচুর, বাইকে আগুন রাজশাহীতে ৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন রাবিতে হলে ঢুকে মোটরসাইকেলে আগুন, ব্যাপক ভাঙচুর চট্টগ্রামে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ ঢাকা, চট্টগ্রাম, বগুড়া ও রাজশাহীতে বিজিবি মোতায়েন যুক্তরাষ্ট্রের বক্তব্যের প্রতিবাদ জানাল বাংলাদেশ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী কোটা আন্দোলনকারীদের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা এবার ঢামেকে আহত আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা হলে ফেরার অনুরোধ প্রত্যাখ্যান আন্দোলনকারীদের হামলা-সংঘর্ষের পর ঢাবি ক্যাম্পাসে ‘অ্যাকশনে’ যাবে পুলিশ শহীদুল্লাহ হলের সামনে ফের সংঘর্ষ, ৪ ককটেল বিস্ফোরণ চট্টগ্রামে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ ঢাবিতে কোটা আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা, আহত অন্তত ৮০ ঢাবিতে আন্দোলনকারী-ছাত্রলীগ মুখোমুখি, ইট-পাটকেল নিক্ষেপ রাজাকারের নাতিরা সব পাবে, মুক্তিযোদ্ধার নাতিপুতিরা কিছুই পাবে না?

নাচোলে সহকারী কমিশনার (ভূমি) না থাকাই সেবা পেতে জনগনের চরম ভোগান্তি

  • আপডেটের সময় : ১১:৫৭:৩৬ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮
  • ৩০০ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

নিজস্ব প্রতিবেদক: চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোলে দীর্ঘদিন থেকেই সহকারী কমিশনার(ভূমি)ও কানুনগোর ২টি পদই শূন্য রয়েছে।ফলে ভূমি সংক্রান্ত কাজের জন্য উপজেলার সাধারন মানুষ চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন।উপজেলার ভূমি কার্যালয় সূত্রে জানা যায়,২০১৭ সালের ০৯ জানুয়ারি সহকারী কমিশনার (ভূমি) হিসেবে পাপিয়া সুলতানা যোগদান করেন।কিন্তু তিনি ৬ মাস দায়িত্ব পালন করার মাথায় মাতৃকালিন ছুটিতে চলে যান।

পরে তিনি মাতৃকালিন ছুটিতে থাকা অবস্থায় গত ৬ জুন ২০১৮ ইং অন্যত্র বদলি হয়ে যান।এর পর থেকে প্রায় ১ বছর ধরে পদটি শূন্য রয়েছে।একই সঙ্গে কানুনগোর পদটি ও শূন্য রয়েছে।খারিজ সংক্রান্ত কাজে বেশি সময় লাগার কারনে জমির মালিকের প্রয়োজনমতো তাদের জমি কেনাবেচা করতে পারছেন না। এই সুযোগে এক শ্রেনীর দালাল জমির মালিকের ভূমি সংক্রান্ত কাজ দ্রুত করে দেওয়ার লোভ দেখিয়ে অতিরিক্ত টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।ফলে জমির মালিকেরা চরম আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছেন।

Trulli

পৌর এলাকার মুজিবর রহমান বলেন,সহকারী কমিশনার (ভূমি) পদটি শূন্য থাকায় জমির খাজনা ও খারিজ নিয়ে মানুষকে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।উপজেলার মাক্তাপুর গ্রামের আরিপ হোসেন জানান,সহকারি কমিশনার (ভূমি) না থাকায় আমরা মিসকেস ও রেকর্ড সংশোধন করতে পারছিনা।উপজেলার সিংরইল গ্রামের রহিম জানান,সহকারি কমিশনার (ভূমি) না থাকায় আমরা অর্পিত সম্পত্তি অবমুক্তির ক্ষেত্রে ভূমি কর প্রদান করতে পারছিনা।

কসবা ইউপির জালাল উদ্দিন জানান, ৮ মাস পূর্বে জমি খারিজ করতে দিলেও এখন পর্যন্ত খারিজ হয়নি।বিশেষ করে এক শ্রেনীর দালালদের খপ্পরে পড়ে অনেক টাকা পয়সা খোয়াচ্ছেন জমির মালিকেরা।ভূমি অফিস খোলার সঙ্গে সঙ্গে দালালেরা অফিস এলাকা দখলে নেন।এই সময় সাধারন মানুষ দালালদের খপ্পরে পড়েন।বর্তমান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাবিহা সুলতানা অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকলেও প্রশাসনিক নানা কাজ কর্মের কারনে বেশি সময় ব্যস্ত থাকায় নির্ধারিত তারিখে ভূমি সংক্রান্ত কাজ করতে মাঝে মধ্যেই বিলম্ব হয়।

ফলে জনগনের ভোগান্তি দিন দিন বেড়েই চলেছে।উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাবিহা সুলতানা বলেন, আমার দপ্তর থেকে প্রায় আড়াই লাখ মানুষের রাষ্ট্রীয় সুযোগ সুবিধা নিস্চিত করার পর কর্তৃপক্ষেত নির্দেশে আমাকে ভূমি অফিসের অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করতে হয়।প্রশাসনিক কাজে ব্যস্ত থাকায় জনগনকে সেবা দিতে কিছুটা কমতি হলেও সাধ্য অনুযায়ী চেষ্টা করছি।তবে সরকারি কমিশনার(ভূমি) শূন্য পদে লোক দিলে সামান্যতম জন ভোগান্তি হবে না বলে তিনি জানান।

Adds Banner_2024

নাচোলে সহকারী কমিশনার (ভূমি) না থাকাই সেবা পেতে জনগনের চরম ভোগান্তি

আপডেটের সময় : ১১:৫৭:৩৬ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক: চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোলে দীর্ঘদিন থেকেই সহকারী কমিশনার(ভূমি)ও কানুনগোর ২টি পদই শূন্য রয়েছে।ফলে ভূমি সংক্রান্ত কাজের জন্য উপজেলার সাধারন মানুষ চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন।উপজেলার ভূমি কার্যালয় সূত্রে জানা যায়,২০১৭ সালের ০৯ জানুয়ারি সহকারী কমিশনার (ভূমি) হিসেবে পাপিয়া সুলতানা যোগদান করেন।কিন্তু তিনি ৬ মাস দায়িত্ব পালন করার মাথায় মাতৃকালিন ছুটিতে চলে যান।

পরে তিনি মাতৃকালিন ছুটিতে থাকা অবস্থায় গত ৬ জুন ২০১৮ ইং অন্যত্র বদলি হয়ে যান।এর পর থেকে প্রায় ১ বছর ধরে পদটি শূন্য রয়েছে।একই সঙ্গে কানুনগোর পদটি ও শূন্য রয়েছে।খারিজ সংক্রান্ত কাজে বেশি সময় লাগার কারনে জমির মালিকের প্রয়োজনমতো তাদের জমি কেনাবেচা করতে পারছেন না। এই সুযোগে এক শ্রেনীর দালাল জমির মালিকের ভূমি সংক্রান্ত কাজ দ্রুত করে দেওয়ার লোভ দেখিয়ে অতিরিক্ত টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।ফলে জমির মালিকেরা চরম আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছেন।

Trulli

পৌর এলাকার মুজিবর রহমান বলেন,সহকারী কমিশনার (ভূমি) পদটি শূন্য থাকায় জমির খাজনা ও খারিজ নিয়ে মানুষকে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।উপজেলার মাক্তাপুর গ্রামের আরিপ হোসেন জানান,সহকারি কমিশনার (ভূমি) না থাকায় আমরা মিসকেস ও রেকর্ড সংশোধন করতে পারছিনা।উপজেলার সিংরইল গ্রামের রহিম জানান,সহকারি কমিশনার (ভূমি) না থাকায় আমরা অর্পিত সম্পত্তি অবমুক্তির ক্ষেত্রে ভূমি কর প্রদান করতে পারছিনা।

কসবা ইউপির জালাল উদ্দিন জানান, ৮ মাস পূর্বে জমি খারিজ করতে দিলেও এখন পর্যন্ত খারিজ হয়নি।বিশেষ করে এক শ্রেনীর দালালদের খপ্পরে পড়ে অনেক টাকা পয়সা খোয়াচ্ছেন জমির মালিকেরা।ভূমি অফিস খোলার সঙ্গে সঙ্গে দালালেরা অফিস এলাকা দখলে নেন।এই সময় সাধারন মানুষ দালালদের খপ্পরে পড়েন।বর্তমান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাবিহা সুলতানা অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকলেও প্রশাসনিক নানা কাজ কর্মের কারনে বেশি সময় ব্যস্ত থাকায় নির্ধারিত তারিখে ভূমি সংক্রান্ত কাজ করতে মাঝে মধ্যেই বিলম্ব হয়।

ফলে জনগনের ভোগান্তি দিন দিন বেড়েই চলেছে।উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাবিহা সুলতানা বলেন, আমার দপ্তর থেকে প্রায় আড়াই লাখ মানুষের রাষ্ট্রীয় সুযোগ সুবিধা নিস্চিত করার পর কর্তৃপক্ষেত নির্দেশে আমাকে ভূমি অফিসের অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করতে হয়।প্রশাসনিক কাজে ব্যস্ত থাকায় জনগনকে সেবা দিতে কিছুটা কমতি হলেও সাধ্য অনুযায়ী চেষ্টা করছি।তবে সরকারি কমিশনার(ভূমি) শূন্য পদে লোক দিলে সামান্যতম জন ভোগান্তি হবে না বলে তিনি জানান।