রাজশাহী , মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

বাংলাদেশে পর্যটন শিল্পের বিকাশ

  • আপডেটের সময় : ০৬:০৮:৫১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩
  • ৫ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বাংলাদেশ ষড়ঋতুর দেশ। এখানে প্রতিটি ঋতু তার স্বতন্ত্র্য বৈচিত্র্য নিয়ে হাজির হয়। এ দেশের প্রাকৃতিক রূপবৈচিত্র্য তাই পৃথিবীর অন্য দেশ থেকে আলাদা। বাংলাদেশে আছে পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজার, কুয়াকাটা, পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট সুন্দরবন, পার্বত্য অ লের পাহাড় মেঘের অকৃত্রিম সৌন্দর্য, সিলেটের চা বাগন এবং সবুজ অরণ্য। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি আমাদের এই বাংলাদেশ। পর্যটন শিল্পে বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে এক অপার সম্ভাবনার নাম।

প্রতি বছর লাখ লাখ দেশি-বিদেশি পর্যটক বাংলাদেশের অপূর্ব সৌন্দর্য এবং ঐতিহাসিক দর্শনীয় স্থানসমূহ উপভোগ করতে আসে। বাংলাদেশের সার্বিক উন্নয়ন তথা অর্থনৈতিক, সামাজিক এবং সাংস্কৃতিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে পর্যটন খাত গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করছে। এ বাস্তবতার নিরীখে সরকার জাতীয় পর্যটন নীতিমালা-২০১০ এর মাধ্যমে পর্যটনকে শিল্প হিসেবে ঘোষণা করেছে। পর্যটন শিল্প বর্তমান বিশ্বের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের অন্যতম প্রধান হাতিয়ার হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছে।

Trulli

১৯৮০ সাল থেকে বিশ্বব্যাপী ২৭ সেপ্টেম্বর বিশ্ব পর্যটন দিবস হিসেবে পালিত হচ্ছে। প্রতি বছরের ন্যায় এবারও নানা আয়োজনে দিবসটি পালিত হতে যাচ্ছে। এ বছর ২০২৩ সালের বিশ্ব পর্যটন দিবসের প্রতিপাদ্য বিষয় ঞড়ঁৎরংস ধহফ এৎববহ ওহাবংঃসবহঃ ‘পর্যটন এবং সবুজ বিনিয়োগ’। দিবসটির প্রধান উদ্দেশ্য হচ্ছে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ও পর্যটন কেন্দ্রের সাথে সেতুবন্ধন গড়ে তোলা।

পৃথিবীর অনেক দেশের বৈদেশিক মুদ্রা উপার্জনের প্রধান খাত পর্যটন শিল্প। থাইল্যান্ড, শ্রীলংকা, মালদ্বীপ, সুইজারল্যান্ড, মরিশাসসহ বিশ্বের অনেক দেশের জিডিপি’র একটি বড় অংশ পর্যটন খাত থেকে আসে। বিশ্বের অন্যতম পর্যটনবান্ধব দেশ হয়েও কিছু অব্যবস্থাপনার কারণে বাংলাদেশে পর্যটন শিল্পের বিকাশ আশানুরূপ হয়নি। বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের (ডব্লিউইএফ) ‘ভ্রমণ ও পর্যটন প্রতিযোগী সক্ষমতা প্রতিবেদন-২০১৭’ অনুযায়ী, ১৩৬টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১২৫তম। তবে বর্তমান সরকার পর্যটন শিল্পের বিকাশ ও উন্নয়নকে গতিশীল করতে ২০২৫ সালের মধ্যে পর্যটন শিল্পের সর্বোচ্চ বিকাশে স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। এরমধ্যে কক্সবাজারে পর্যটন অবকাঠামো নির্মাণে ২৫টি প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে। প্রকল্পগুলোর মধ্যে রয়েছে কক্সবাজার বিমানবন্দর উন্নয়ন, আধুনিক হোটেল-মোটেল নির্মাণ, মহেশখালীতে বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ, সোনাদিয়াকে বিশেষ পর্যটন এলাকা হিসেবে গড়ে তোলা, ইনানি সৈকতের উন্নয়ন, টেকনাফের সাবরাংয়ে ইকো ট্যুরিজম পার্ক নির্মাণ, ঝিলংঝা সৈকতের উন্নয়ন, চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রেলপথ নির্মাণ, চকরিয়ায় মিনি সুন্দরবনে পর্যটকদের গমনের জন্য যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন, ডুলাহাজরা সাফারি পার্কের আধুনিকায়ন ইত্যাদি। কক্সবাজার পর্যন্ত সম্প্রসারিত রেলপথ প্রকল্পটি এ বছরের শেষ নাগাদ সমাপ্ত হবে। এ রেলপথ প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে সারাদেশের সাথে পর্যটন নগরী কক্সবাজারের যোগাযোগ যেমন বাড়বে তেমনি পর্যটন শিল্পে নতুন মাত্রা যোগ হবে। দেশী-বিদেশী পর্যটকের আগমন উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পাবে।

বাংলাদেশে পর্যটনের কথা বলতে গেলে প্রথমেই আসে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত। প্রাকৃতিক অপার সৌন্দর্যের বেলাভূমি কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত। পৃথিবীর দীর্ঘতম এই সৈকতের দৈর্ঘ্য ১২০ কিলোমিটার। সমুদ্রের বিশাল জলরাশি, পাহাড় আর সবুজ বৃক্ষরাজির সমারোহ পর্যটকদের কাছে এক কাঙ্খিত স্থান। প্রতিবছর প্রায় ৩০ লাখ দেশী-বিদেশী পর্যটক এই সমুদ্র সৈকতের সৌন্দর্য উপভোগ করতে আসে। পড়ন্ত বিকেলে হাজার হাজার নারী-পুরুষ-শিশুর মিলনমেলায় মুখরিত হয় সাগর তীর। এ সৈকতের লাবনী পয়েন্ট, সুগন্ধা পয়েন্ট, কলাতলী পয়েন্ট, ডলফিন পয়েন্ট, হিমছড়ি, ইনানী বিচ অন্যতম দর্শনীয় স্পট। ইনানী বিচের প্রবাল, হিমছড়ির ঝর্ণা পর্যটকদের অন্যতম আকর্যণ। বাংলাদেশের সর্ব দক্ষিণে বঙ্গোপসাগরের উত্তর-পূর্বাংশে অবস্থিত প্রবাল দ্বীপ সেন্ট মার্টিন। সেন্ট মার্টিন দ্বীপে বিভিন্ন প্রজাতির প্রবাল, সামুদ্রিক শৈবাল, সামুদ্রিক মাছ ও পাখি দেখা যায়। প্রচুর নারিকেল পাওয়া যায় বলে একে নারিকেল জিঞ্জিরাও বলা হয়। বঙ্গোপসাগরের মধ্য দিয়ে জাহাজে সেন্ট মার্টিন ভ্রমণ পর্যটকদের কাছে এক রোমা কর অনুভূতি।

কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকত বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমা লের একটি সমুদ্র সৈকত ও পর্যটনকেন্দ্র। পর্যটকদের কাছে কুয়াকাটা ‘সাগর কন্যা’ নামে পরিচিত। ১৮ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের কুয়াকাটা বাংলাদেশের অন্যতম নৈসর্গিক সমুদ্র সৈকত। বাংলাদেশের এটাই একমাত্র সৈকত যেখান থেকে সূর্যোদয় এবং সূর্যাস্ত দুটোই দেখা যায়।

পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ম্যানগ্রোভ বনভূমি সুন্দরবন। বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে অবস্থিত এ বনভূমির দুইতৃতীয়াংশই পড়েছে বাংলাদেশে। বাংলাদেশ অংশের সুন্দরবনের আয়তন ৬৫১৭ বর্গকিলোমিটার। সুন্দরবন ১৯৯৭ সালে ইউনেস্কো ঘোষিত বিশ্ব ঐতিহ্যের স্থান হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করে। সুন্দরবনের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং জীববৈচিত্র্য পৃথিবীর অন্যতম মনোমুগ্ধকর পর্যটনগুলোর একটি। সুন্দরবনকে জালের মতো জড়িয়ে রেখেছে সামুদ্রিক স্রোতধারা, খাল, নদী এবং ম্যানগ্রোভ বনভূমির ক্ষুদ্রায়তন দ্বীপমালা। সুন্দরবনের অলঙ্কার রয়েল বেঙ্গল টাইগার। পৃথিবীর ৫০ প্রজাতির ম্যানগ্রোভ উদ্ভিদের মধ্যে ৩৮টি আছে সুন্দরবনে। এছাড়াও রয়েছে ৫০ প্রজাতির স্তন্যপায়ী, ৫০ প্রজাতির সরীসৃপ, ৩২০ প্রজাতির পাখি, ৮ প্রজাতির উভচর প্রাণী এবং ৪০০ প্রজাতির মাছ।

পর্যটনের অপার সম্ভাবনার নাম বাংলাদেশের পার্বত্য । রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবান-এ তিনটি জেলা নিয়ে গঠিত পার্বত্য অ ল। এটি বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্বা লের একটি এলাকা। এখানকার মূল আকর্ষণ হল পাহাড়ে ঘেরা সবুজ প্রকৃতি যা ভিন্ন ভিন্ন সময়ে ভিন্ন ভিন্ন রূপে পর্যটকদের কাছে ধরা দেয়। এখানে শীতে যেমন এক রূপ ধরা দেয় ভ্রমণ পিপাসুদের কাছে, ঠিক তেমনি বর্ষা অন্য এক রূপে হাজির হয়। যেন মেঘ পাহাড়ের মিতালী। এর সাথে পাহাড়ের মানুষের ভিন্নধর্মী জীবনাচরণ। এসব উপভোগ করতে সারা বছরই অসংখ্য পর্যটক এখানে ভ্রমণ করতে আসে।

নৈসর্গিক সৌন্দর্যের আরেক নির্দশন সিলেট। সিলেটে রয়েছে উপমহাদেশের সর্বপ্রথম ও সর্ববৃহৎ চা বাগান মালনীছড়া। সৌন্দর্যের রানী খ্যাত জাফলং, নীলনদ খ্যাত স্বচ্ছ জলরাশির লালাখাল, পাথর জলের মিতালিতে বয়ে যাওয়া বিছনাকান্দির নয়নাভিরাম সৌন্দর্য, পাহাড় ভেদ করে নেমে আসা পাংথুমাই ঝরনা, রাতারগুল পর্যটকদের মনে প্রশান্তির পরশ বুলিয়ে দেয়।

পর্যটন শিল্প এখন শুধু বিনোদনের খোরাক নয়, অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের অন্যতম মাধ্যম। নিজের দেশের ভাষা, কৃষ্টি, সংস্কৃতি, ইতিহাস এবং ঐতিহ্য বিশ্বের দরবারে তুলে ধরার বাহন পর্যটন শিল্প। অন্যদিকে পর্যটনের বিকাশের ফলে বাংলাদেশের অর্থনীতি এগিয়ে যাচ্ছে। কোটি কোটি ডলার বৈদেশিক মুদ্রা আয় হচ্ছে এই খাত থেকে। পর্যটন শিল্পকে কেন্দ্র করে মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ বাড়ছে দিন দিন। এই শিল্পকে আরো এগিয়ে নিতে গণমাধ্যমে বেশি বেশি প্রচার এবং সকলের সমন্বিত উদ্যোগ প্রয়োজন।

লেখকঃ
মনোজিৎ মজুমদার
প্রশাসনিক কর্মকর্তা
আঞ্চলিক তথ্য অফিস,রাজশাহী

Adds Banner_2024

বাংলাদেশে পর্যটন শিল্পের বিকাশ

আপডেটের সময় : ০৬:০৮:৫১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বাংলাদেশ ষড়ঋতুর দেশ। এখানে প্রতিটি ঋতু তার স্বতন্ত্র্য বৈচিত্র্য নিয়ে হাজির হয়। এ দেশের প্রাকৃতিক রূপবৈচিত্র্য তাই পৃথিবীর অন্য দেশ থেকে আলাদা। বাংলাদেশে আছে পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজার, কুয়াকাটা, পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট সুন্দরবন, পার্বত্য অ লের পাহাড় মেঘের অকৃত্রিম সৌন্দর্য, সিলেটের চা বাগন এবং সবুজ অরণ্য। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি আমাদের এই বাংলাদেশ। পর্যটন শিল্পে বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে এক অপার সম্ভাবনার নাম।

প্রতি বছর লাখ লাখ দেশি-বিদেশি পর্যটক বাংলাদেশের অপূর্ব সৌন্দর্য এবং ঐতিহাসিক দর্শনীয় স্থানসমূহ উপভোগ করতে আসে। বাংলাদেশের সার্বিক উন্নয়ন তথা অর্থনৈতিক, সামাজিক এবং সাংস্কৃতিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে পর্যটন খাত গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করছে। এ বাস্তবতার নিরীখে সরকার জাতীয় পর্যটন নীতিমালা-২০১০ এর মাধ্যমে পর্যটনকে শিল্প হিসেবে ঘোষণা করেছে। পর্যটন শিল্প বর্তমান বিশ্বের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের অন্যতম প্রধান হাতিয়ার হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছে।

Trulli

১৯৮০ সাল থেকে বিশ্বব্যাপী ২৭ সেপ্টেম্বর বিশ্ব পর্যটন দিবস হিসেবে পালিত হচ্ছে। প্রতি বছরের ন্যায় এবারও নানা আয়োজনে দিবসটি পালিত হতে যাচ্ছে। এ বছর ২০২৩ সালের বিশ্ব পর্যটন দিবসের প্রতিপাদ্য বিষয় ঞড়ঁৎরংস ধহফ এৎববহ ওহাবংঃসবহঃ ‘পর্যটন এবং সবুজ বিনিয়োগ’। দিবসটির প্রধান উদ্দেশ্য হচ্ছে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ও পর্যটন কেন্দ্রের সাথে সেতুবন্ধন গড়ে তোলা।

পৃথিবীর অনেক দেশের বৈদেশিক মুদ্রা উপার্জনের প্রধান খাত পর্যটন শিল্প। থাইল্যান্ড, শ্রীলংকা, মালদ্বীপ, সুইজারল্যান্ড, মরিশাসসহ বিশ্বের অনেক দেশের জিডিপি’র একটি বড় অংশ পর্যটন খাত থেকে আসে। বিশ্বের অন্যতম পর্যটনবান্ধব দেশ হয়েও কিছু অব্যবস্থাপনার কারণে বাংলাদেশে পর্যটন শিল্পের বিকাশ আশানুরূপ হয়নি। বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের (ডব্লিউইএফ) ‘ভ্রমণ ও পর্যটন প্রতিযোগী সক্ষমতা প্রতিবেদন-২০১৭’ অনুযায়ী, ১৩৬টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১২৫তম। তবে বর্তমান সরকার পর্যটন শিল্পের বিকাশ ও উন্নয়নকে গতিশীল করতে ২০২৫ সালের মধ্যে পর্যটন শিল্পের সর্বোচ্চ বিকাশে স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। এরমধ্যে কক্সবাজারে পর্যটন অবকাঠামো নির্মাণে ২৫টি প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে। প্রকল্পগুলোর মধ্যে রয়েছে কক্সবাজার বিমানবন্দর উন্নয়ন, আধুনিক হোটেল-মোটেল নির্মাণ, মহেশখালীতে বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ, সোনাদিয়াকে বিশেষ পর্যটন এলাকা হিসেবে গড়ে তোলা, ইনানি সৈকতের উন্নয়ন, টেকনাফের সাবরাংয়ে ইকো ট্যুরিজম পার্ক নির্মাণ, ঝিলংঝা সৈকতের উন্নয়ন, চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রেলপথ নির্মাণ, চকরিয়ায় মিনি সুন্দরবনে পর্যটকদের গমনের জন্য যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন, ডুলাহাজরা সাফারি পার্কের আধুনিকায়ন ইত্যাদি। কক্সবাজার পর্যন্ত সম্প্রসারিত রেলপথ প্রকল্পটি এ বছরের শেষ নাগাদ সমাপ্ত হবে। এ রেলপথ প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে সারাদেশের সাথে পর্যটন নগরী কক্সবাজারের যোগাযোগ যেমন বাড়বে তেমনি পর্যটন শিল্পে নতুন মাত্রা যোগ হবে। দেশী-বিদেশী পর্যটকের আগমন উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পাবে।

বাংলাদেশে পর্যটনের কথা বলতে গেলে প্রথমেই আসে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত। প্রাকৃতিক অপার সৌন্দর্যের বেলাভূমি কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত। পৃথিবীর দীর্ঘতম এই সৈকতের দৈর্ঘ্য ১২০ কিলোমিটার। সমুদ্রের বিশাল জলরাশি, পাহাড় আর সবুজ বৃক্ষরাজির সমারোহ পর্যটকদের কাছে এক কাঙ্খিত স্থান। প্রতিবছর প্রায় ৩০ লাখ দেশী-বিদেশী পর্যটক এই সমুদ্র সৈকতের সৌন্দর্য উপভোগ করতে আসে। পড়ন্ত বিকেলে হাজার হাজার নারী-পুরুষ-শিশুর মিলনমেলায় মুখরিত হয় সাগর তীর। এ সৈকতের লাবনী পয়েন্ট, সুগন্ধা পয়েন্ট, কলাতলী পয়েন্ট, ডলফিন পয়েন্ট, হিমছড়ি, ইনানী বিচ অন্যতম দর্শনীয় স্পট। ইনানী বিচের প্রবাল, হিমছড়ির ঝর্ণা পর্যটকদের অন্যতম আকর্যণ। বাংলাদেশের সর্ব দক্ষিণে বঙ্গোপসাগরের উত্তর-পূর্বাংশে অবস্থিত প্রবাল দ্বীপ সেন্ট মার্টিন। সেন্ট মার্টিন দ্বীপে বিভিন্ন প্রজাতির প্রবাল, সামুদ্রিক শৈবাল, সামুদ্রিক মাছ ও পাখি দেখা যায়। প্রচুর নারিকেল পাওয়া যায় বলে একে নারিকেল জিঞ্জিরাও বলা হয়। বঙ্গোপসাগরের মধ্য দিয়ে জাহাজে সেন্ট মার্টিন ভ্রমণ পর্যটকদের কাছে এক রোমা কর অনুভূতি।

কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকত বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমা লের একটি সমুদ্র সৈকত ও পর্যটনকেন্দ্র। পর্যটকদের কাছে কুয়াকাটা ‘সাগর কন্যা’ নামে পরিচিত। ১৮ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের কুয়াকাটা বাংলাদেশের অন্যতম নৈসর্গিক সমুদ্র সৈকত। বাংলাদেশের এটাই একমাত্র সৈকত যেখান থেকে সূর্যোদয় এবং সূর্যাস্ত দুটোই দেখা যায়।

পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ম্যানগ্রোভ বনভূমি সুন্দরবন। বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে অবস্থিত এ বনভূমির দুইতৃতীয়াংশই পড়েছে বাংলাদেশে। বাংলাদেশ অংশের সুন্দরবনের আয়তন ৬৫১৭ বর্গকিলোমিটার। সুন্দরবন ১৯৯৭ সালে ইউনেস্কো ঘোষিত বিশ্ব ঐতিহ্যের স্থান হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করে। সুন্দরবনের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং জীববৈচিত্র্য পৃথিবীর অন্যতম মনোমুগ্ধকর পর্যটনগুলোর একটি। সুন্দরবনকে জালের মতো জড়িয়ে রেখেছে সামুদ্রিক স্রোতধারা, খাল, নদী এবং ম্যানগ্রোভ বনভূমির ক্ষুদ্রায়তন দ্বীপমালা। সুন্দরবনের অলঙ্কার রয়েল বেঙ্গল টাইগার। পৃথিবীর ৫০ প্রজাতির ম্যানগ্রোভ উদ্ভিদের মধ্যে ৩৮টি আছে সুন্দরবনে। এছাড়াও রয়েছে ৫০ প্রজাতির স্তন্যপায়ী, ৫০ প্রজাতির সরীসৃপ, ৩২০ প্রজাতির পাখি, ৮ প্রজাতির উভচর প্রাণী এবং ৪০০ প্রজাতির মাছ।

পর্যটনের অপার সম্ভাবনার নাম বাংলাদেশের পার্বত্য । রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবান-এ তিনটি জেলা নিয়ে গঠিত পার্বত্য অ ল। এটি বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্বা লের একটি এলাকা। এখানকার মূল আকর্ষণ হল পাহাড়ে ঘেরা সবুজ প্রকৃতি যা ভিন্ন ভিন্ন সময়ে ভিন্ন ভিন্ন রূপে পর্যটকদের কাছে ধরা দেয়। এখানে শীতে যেমন এক রূপ ধরা দেয় ভ্রমণ পিপাসুদের কাছে, ঠিক তেমনি বর্ষা অন্য এক রূপে হাজির হয়। যেন মেঘ পাহাড়ের মিতালী। এর সাথে পাহাড়ের মানুষের ভিন্নধর্মী জীবনাচরণ। এসব উপভোগ করতে সারা বছরই অসংখ্য পর্যটক এখানে ভ্রমণ করতে আসে।

নৈসর্গিক সৌন্দর্যের আরেক নির্দশন সিলেট। সিলেটে রয়েছে উপমহাদেশের সর্বপ্রথম ও সর্ববৃহৎ চা বাগান মালনীছড়া। সৌন্দর্যের রানী খ্যাত জাফলং, নীলনদ খ্যাত স্বচ্ছ জলরাশির লালাখাল, পাথর জলের মিতালিতে বয়ে যাওয়া বিছনাকান্দির নয়নাভিরাম সৌন্দর্য, পাহাড় ভেদ করে নেমে আসা পাংথুমাই ঝরনা, রাতারগুল পর্যটকদের মনে প্রশান্তির পরশ বুলিয়ে দেয়।

পর্যটন শিল্প এখন শুধু বিনোদনের খোরাক নয়, অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের অন্যতম মাধ্যম। নিজের দেশের ভাষা, কৃষ্টি, সংস্কৃতি, ইতিহাস এবং ঐতিহ্য বিশ্বের দরবারে তুলে ধরার বাহন পর্যটন শিল্প। অন্যদিকে পর্যটনের বিকাশের ফলে বাংলাদেশের অর্থনীতি এগিয়ে যাচ্ছে। কোটি কোটি ডলার বৈদেশিক মুদ্রা আয় হচ্ছে এই খাত থেকে। পর্যটন শিল্পকে কেন্দ্র করে মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ বাড়ছে দিন দিন। এই শিল্পকে আরো এগিয়ে নিতে গণমাধ্যমে বেশি বেশি প্রচার এবং সকলের সমন্বিত উদ্যোগ প্রয়োজন।

লেখকঃ
মনোজিৎ মজুমদার
প্রশাসনিক কর্মকর্তা
আঞ্চলিক তথ্য অফিস,রাজশাহী