রাজশাহী , সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

সাপাহারে ধান ক্ষেতে মিললো ‘রাসেলস ভাইপার’

  • আপডেটের সময় : ১২:৩৪:৫৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮
  • ১২৪ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

নওগাঁ প্রতিনিধি :নওগাঁর সাপাহার উপজেলার আশড়ন্দ বাজার মুংরইল এলাকার একটি ধান ক্ষেত থেকে বিষধর ‘রাসেলস ভাইপার’ সাপ পাওয়া গেছে। রোববার (১৮ নভেম্বর) দুপুরে সাপটি আটক করে এলাকাবাসী।

উপজেলা বন কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ বাংলানিউজকে বলেন, কয়েকজন কৃষক ক্ষেতে ধান কাটছিলেন। এসময় তারা সাপটি দেখতে পান। পরে সবাই মিলে সাপটিকে আটক করে বস্তায় ভরে নিয়ে আসেন।

Trulli

তিনি আরও বলেন, ‘রাসেলস ভাইপার’ সাপটি খুবই বিষধর। আপাতত সাপটি আমাদের হেফাজতে রয়েছে। সাপটিকে কোথায় অবমুক্ত করা হবে সে ব্যাপারে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

জানা যায়, ‘রাসেলস ভাইপার’ সাপটি খুবই বিষধর। ২০১৩ সালে চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল উপজেলার বরেন্দ্র গ্রামে এক কৃষককে ও গত বছর রাজশাহীর তানোর এবং নওগাঁর ধামইরহাটে আরো দুইজনকে এই সাপ কামড় দেয়। চিকিৎসাধীন থাকার পরেও তাদের শরীরে পচন ধরে যায়। পচন ধরা অংশ কেটে ফেলার পরও তাদের বাঁচানো যায়নি।

Adds Banner_2024

সাপাহারে ধান ক্ষেতে মিললো ‘রাসেলস ভাইপার’

আপডেটের সময় : ১২:৩৪:৫৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮

নওগাঁ প্রতিনিধি :নওগাঁর সাপাহার উপজেলার আশড়ন্দ বাজার মুংরইল এলাকার একটি ধান ক্ষেত থেকে বিষধর ‘রাসেলস ভাইপার’ সাপ পাওয়া গেছে। রোববার (১৮ নভেম্বর) দুপুরে সাপটি আটক করে এলাকাবাসী।

উপজেলা বন কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ বাংলানিউজকে বলেন, কয়েকজন কৃষক ক্ষেতে ধান কাটছিলেন। এসময় তারা সাপটি দেখতে পান। পরে সবাই মিলে সাপটিকে আটক করে বস্তায় ভরে নিয়ে আসেন।

Trulli

তিনি আরও বলেন, ‘রাসেলস ভাইপার’ সাপটি খুবই বিষধর। আপাতত সাপটি আমাদের হেফাজতে রয়েছে। সাপটিকে কোথায় অবমুক্ত করা হবে সে ব্যাপারে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

জানা যায়, ‘রাসেলস ভাইপার’ সাপটি খুবই বিষধর। ২০১৩ সালে চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল উপজেলার বরেন্দ্র গ্রামে এক কৃষককে ও গত বছর রাজশাহীর তানোর এবং নওগাঁর ধামইরহাটে আরো দুইজনকে এই সাপ কামড় দেয়। চিকিৎসাধীন থাকার পরেও তাদের শরীরে পচন ধরে যায়। পচন ধরা অংশ কেটে ফেলার পরও তাদের বাঁচানো যায়নি।