রাজশাহী , মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
তিস্তা মহাপরিকল্পনায় চীন-ভারতের ভারসাম্য কীভাবে? বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তার পানি বণ্টন সম্ভব নয় : মমতা মারা গেছেন ‘জল্লাদ’ শাহজাহান ‘প্রযুক্তিজ্ঞান ছাড়া দেশ বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে পারে না’ দুদকে হা‌জির হন‌নি বেনজীর, আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা রাজশাহীতে দেখা মিলল সাত রাসেলস ভাইপারের, পিটিয়ে মারলো এলাকাবাসী নগর যুবলীগের পদ থেকে সরে দাঁড়ালেন শফিকুজ্জামান শফিক আওয়ামী লীগ জনগণের শক্তিতে বিশ্বাস করে : প্রধানমন্ত্রী বন্যায় স্থগিত জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন পরীক্ষা আ’লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী একাদশে ভর্তির প্রথম ধাপের ফল প্রকাশ আজ দীর্ঘদিনের প্রচেষ্টায় বাস্তবায়ন হচ্ছে রাসিক মেয়র লিটনের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি রাজশাহী-কলকাতা ট্রেন চালুর ঘোষণা আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী আগামীকাল দিল্লির রাষ্ট্রপতি ভবনে শেখ হাসিনাকে লাল গালিচা সংবর্ধনা রাজশাহী মহানগর যুবলীগের নেতৃত্বে মনি,রনি ও জেলায় সজল,সৈকত নির্বাচিত  প্রধানমন্ত্রীর কণ্ঠ শুনেই ছুটে এলো খরগোশের দল ঈদের দিন বন্ধ থাকবে সব আন্তঃনগর ট্রেন রাসিক মেয়র ও তার পরিবারের সদস্যদের জড়িয়ে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছে উলামা কল্যাণ পরিষদ রাজশাহীতে ঈদের প্রধান জামাত সকাল সাড়ে ৭টায়

তারেক প্রধানমন্ত্রী হলে সেটা হবে এই জাতির জন্য আত্মহত্যার শামিল

  • আপডেটের সময় : ০৩:৪৬:২৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৮
  • ১৫৫ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

আশরাফুল আলম খোকন

জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনে বিজয়ী হলে প্রধানমন্ত্রী কে হবেন এটা নিয়ে রাজনৈতিক মহলে কৌতুহলের শেষ নেই। ঐক্যফ্রন্ট বিজয়ী হলে সম্ভাব্য প্রধানমন্ত্রী হতে পারেন ড. কামাল, তারেক রহমান ও খালেদা জিয়া। তবে গত ১৬ নভেম্বর সম্পাদকদের সঙ্গে এক বৈঠকে ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল জানিয়েছেন- জোটের সংখ্যাগরিষ্ঠ দল বসেই ‘প্রধানমন্ত্রী’ পদের জন্য নেতা ঠিক করবে।

Trulli

এ প্রসঙ্গে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সহকারি প্রেস সচিব আশরাফুল আলম খোকন ফেসবুকে একটি পোস্ট দিয়েছেন। পাঠকদের জন্য সেটা হুবহু তুলে ধরা হল_

“বিএনপিসহ ঐক্যফ্রন্টের নেতৃবৃন্দ নির্বাচনে আসার বিষয়ে অনেকগুলো শর্ত দিয়েছিলো। এর অন্যতম ও প্রধান শর্ত ছিল বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনে কোনোমতেই নির্বাচনে যাবেন না তারা।

অবশেষে সংলাপ শেষে শেখ হাসিনার অধীনেই নিঃশর্তভাবে নির্বাচনে যাচ্ছেন ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন বিএনপি-জামাতের নেতৃবৃন্দ।

আর এইখানেই শেখ হাসিনার ব্যক্তিত্বের অসাধারণত্ব এবং নেতৃত্বের গ্রহণযোগ্যতা। অর্থাৎ প্রধানমন্ত্রী হিসাবে শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রতি বিএনপিসহ ঐক্যফ্রন্টের আস্থা আছে। আস্থা আছে বলেই তারা নির্বাচনে যাচ্ছেন। সেই আস্থা শেখ হাসিনা অর্জন করেছেন।

খুব সহজেই বলা যায় আগামী নির্বাচনে আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় এলে এই সর্বগ্রহণযোগ্য শেখ হাসিনাই হবেন আবার বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী।

কিন্তু ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচিত হলে প্রধানমন্ত্রী কে হবেন। যদি সংখ্যা গরিষ্ঠের মতামত অনুযায়ী হয় তাহলে ধরেই নেয়া যায় বিএনপি থেকেই হবে। সেক্ষেত্রে খালেদা জিয়া আর তারেক রহমান এর মধ্যেই একজন হবেন নিশ্চিত করে বলা যায়।

এর মধ্যে একজন বেগম জিয়া এতিমের টাকা আত্মসাতের মামলায় জেলে আছেন। নির্বাচনই করতে পারবেন কিনা সন্দেহ আছে। আরেকজন তারেক রহমান : যুক্তরাষ্টে কালোতালিকাভুক্ত, এফবিআই এর চোখে দুর্নীতিবাজ আসামি, ২১শে আগষ্টের নারকীয় হত্যাযজ্ঞের মামলায় যাবতজীবন দণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি, যিনি বর্তমানে ব্রিটিশ নাগরিকত্বও নিয়েছেন।

এরা কখনোই শেখ হাসিনার বিকল্প না। যদি এরা শেখ হাসিনার বিকল্প হয় তাহলে তা হবে এই জাতির জন্য আত্মহত্যার শামিল।”

Adds Banner_2024

তারেক প্রধানমন্ত্রী হলে সেটা হবে এই জাতির জন্য আত্মহত্যার শামিল

আপডেটের সময় : ০৩:৪৬:২৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৮

আশরাফুল আলম খোকন

জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনে বিজয়ী হলে প্রধানমন্ত্রী কে হবেন এটা নিয়ে রাজনৈতিক মহলে কৌতুহলের শেষ নেই। ঐক্যফ্রন্ট বিজয়ী হলে সম্ভাব্য প্রধানমন্ত্রী হতে পারেন ড. কামাল, তারেক রহমান ও খালেদা জিয়া। তবে গত ১৬ নভেম্বর সম্পাদকদের সঙ্গে এক বৈঠকে ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল জানিয়েছেন- জোটের সংখ্যাগরিষ্ঠ দল বসেই ‘প্রধানমন্ত্রী’ পদের জন্য নেতা ঠিক করবে।

Trulli

এ প্রসঙ্গে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সহকারি প্রেস সচিব আশরাফুল আলম খোকন ফেসবুকে একটি পোস্ট দিয়েছেন। পাঠকদের জন্য সেটা হুবহু তুলে ধরা হল_

“বিএনপিসহ ঐক্যফ্রন্টের নেতৃবৃন্দ নির্বাচনে আসার বিষয়ে অনেকগুলো শর্ত দিয়েছিলো। এর অন্যতম ও প্রধান শর্ত ছিল বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনে কোনোমতেই নির্বাচনে যাবেন না তারা।

অবশেষে সংলাপ শেষে শেখ হাসিনার অধীনেই নিঃশর্তভাবে নির্বাচনে যাচ্ছেন ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন বিএনপি-জামাতের নেতৃবৃন্দ।

আর এইখানেই শেখ হাসিনার ব্যক্তিত্বের অসাধারণত্ব এবং নেতৃত্বের গ্রহণযোগ্যতা। অর্থাৎ প্রধানমন্ত্রী হিসাবে শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রতি বিএনপিসহ ঐক্যফ্রন্টের আস্থা আছে। আস্থা আছে বলেই তারা নির্বাচনে যাচ্ছেন। সেই আস্থা শেখ হাসিনা অর্জন করেছেন।

খুব সহজেই বলা যায় আগামী নির্বাচনে আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় এলে এই সর্বগ্রহণযোগ্য শেখ হাসিনাই হবেন আবার বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী।

কিন্তু ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচিত হলে প্রধানমন্ত্রী কে হবেন। যদি সংখ্যা গরিষ্ঠের মতামত অনুযায়ী হয় তাহলে ধরেই নেয়া যায় বিএনপি থেকেই হবে। সেক্ষেত্রে খালেদা জিয়া আর তারেক রহমান এর মধ্যেই একজন হবেন নিশ্চিত করে বলা যায়।

এর মধ্যে একজন বেগম জিয়া এতিমের টাকা আত্মসাতের মামলায় জেলে আছেন। নির্বাচনই করতে পারবেন কিনা সন্দেহ আছে। আরেকজন তারেক রহমান : যুক্তরাষ্টে কালোতালিকাভুক্ত, এফবিআই এর চোখে দুর্নীতিবাজ আসামি, ২১শে আগষ্টের নারকীয় হত্যাযজ্ঞের মামলায় যাবতজীবন দণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি, যিনি বর্তমানে ব্রিটিশ নাগরিকত্বও নিয়েছেন।

এরা কখনোই শেখ হাসিনার বিকল্প না। যদি এরা শেখ হাসিনার বিকল্প হয় তাহলে তা হবে এই জাতির জন্য আত্মহত্যার শামিল।”