রাজশাহী , মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
তিস্তা মহাপরিকল্পনায় চীন-ভারতের ভারসাম্য কীভাবে? বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তার পানি বণ্টন সম্ভব নয় : মমতা মারা গেছেন ‘জল্লাদ’ শাহজাহান ‘প্রযুক্তিজ্ঞান ছাড়া দেশ বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে পারে না’ দুদকে হা‌জির হন‌নি বেনজীর, আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা রাজশাহীতে দেখা মিলল সাত রাসেলস ভাইপারের, পিটিয়ে মারলো এলাকাবাসী নগর যুবলীগের পদ থেকে সরে দাঁড়ালেন শফিকুজ্জামান শফিক আওয়ামী লীগ জনগণের শক্তিতে বিশ্বাস করে : প্রধানমন্ত্রী বন্যায় স্থগিত জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন পরীক্ষা আ’লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী একাদশে ভর্তির প্রথম ধাপের ফল প্রকাশ আজ দীর্ঘদিনের প্রচেষ্টায় বাস্তবায়ন হচ্ছে রাসিক মেয়র লিটনের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি রাজশাহী-কলকাতা ট্রেন চালুর ঘোষণা আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী আগামীকাল দিল্লির রাষ্ট্রপতি ভবনে শেখ হাসিনাকে লাল গালিচা সংবর্ধনা রাজশাহী মহানগর যুবলীগের নেতৃত্বে মনি,রনি ও জেলায় সজল,সৈকত নির্বাচিত  প্রধানমন্ত্রীর কণ্ঠ শুনেই ছুটে এলো খরগোশের দল ঈদের দিন বন্ধ থাকবে সব আন্তঃনগর ট্রেন রাসিক মেয়র ও তার পরিবারের সদস্যদের জড়িয়ে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছে উলামা কল্যাণ পরিষদ রাজশাহীতে ঈদের প্রধান জামাত সকাল সাড়ে ৭টায়

লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় পোশাক রপ্তানি বেড়েছে

  • আপডেটের সময় : ০৭:০১:১৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২২ জানুয়ারী ২০১৯
  • ২৫৩ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ঢাকা প্রতিনিধি: গত ছয় মাসে লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় বাংলাদেশের পোশাক রপ্তানি হয়েছে সাড়ে আট শতাংশেরও বেশি। অর্থনীতিবিদদের মতে, ডলারের বিপরীতে টাকার মান কমে যাওয়ার পাশাপাশি কোনো কোনো ক্ষেত্রে চীনের হারানো ক্রেতাদের ক্রয় আদেশ পাওয়ায় পোশাক রপ্তানি বেড়েছে। ব্যবসায়ীরা বলছেন, বাংলাদেশের পোশাক শিল্পের প্রতি আন্তর্জাতিক ক্রেতাদের আস্থা বেড়েছে।

বাংলাদেশের রপ্তানির পরিসংখ্যানে গত প্রায় তিন দশক থেকে শীর্ষে অবস্থান করছে তৈরি পোশাক খাত। চলতি অর্থবছরে ৬ দশমিক ৭৭ শতাংশ প্রবৃদ্ধি ধরে এ শিল্পের রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়, ৩ হাজার ২শ’ ৬৯ কোটি মার্কিন ডলার । আর অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে পোশাকখাতে রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা ছিলো ১ হাজার ৫শ’ ৭৫ কোটি ডলার যার বিপরীতে রপ্তানি হয়েছে ১ হাজার ৭শ ৮ কোটি ডলারের পোশাক। ব্যবসায়ীরা বলছেন, বড় অংকের বিনিয়োগে ধারাবাহিক উন্নয়নের ফল আসতে শুরু করেছে পোশাক খাতে।

Trulli

বিজিএমইএ’র সিনিয়র সহ-সভাপতি ফারুক হাসান বলেন, বায়ারদের কনফিডেন্স আমরা অনেক বাড়াতে পেরেছি। গত পাঁচ বছর আমরা কর্মক্ষেত্রের সেফটির উপর কাজ করেছি। এতে প্রচুর টাকা বিনিয়োগ করা হয়েছে। এছাড়া গ্রিন ফ্যাক্টরি করা হয়েছে, এনার্জি এফিসিয়েন্ট ফ্যাক্টরি করা হয়েছে, এনভায়রনমেন্ট ফ্রেন্ডলি ফ্যাক্টরি করা হয়েছে। এছাড়া যন্ত্রপাতিও উন্নত করা হয়েছে।

সবচে বড় বাজার জার্মানিতে গত ছয়মাসে ওভেন পোশাকের রপ্তানি বেড়েছে ১৮ শতাংশ, নিট পণ্যে তা প্রায় ১১ শতাংশ। ফ্রান্স, নেদারল্যান্ড, পোল্যান্ড,সুইডেন, কানাডাসহ কয়েকটি দেশে রপ্তানি প্রবৃদ্ধি দুই অংক ছাড়িয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে জিএসপি সুবিধাবঞ্চিত মার্কিন বাজারে বাংলাদেশের পোশাক রপ্তানি বেড়েছে প্রায় ১৯ শতাংশ। অপেক্ষাকৃত নতুন বাজারেও রপ্তানি প্রবৃদ্ধি গড়ে ৩৬ শতাংশের উপরে।

অর্থনীতিবিদ ড. খোন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম বলেন, টাকার অবমূল্যায়ন আমাদের রফতানিকারকদের কিছুটা এক্সচেঞ্জ রেটে নেগোশিয়েট করার কিছুটা সুবিধা দিয়েছে। বেশ কিছুদিন ধরে দেখা যাচ্ছিল, চীন থেকে কিছু অর্ডার অন্যান্য দেশে যাচ্ছে, তার কিছু অংশ বাংলাদেশও পাচ্ছে। সাম্প্রতিককালে তার কিছুটা ইতিবাচক প্রভাব আমরা আমাদের রফতানিকারকদের মাঝে দেখতে পাচ্ছি।

বেশকিছু চ্যালেঞ্জ থাকলেও রপ্তানির এ ধারা অব্যাহত থাকলে ২০২১ সাল নাগাদ, পোশাকশিল্পের রপ্তানি আয় ৫০ বিলিয়ন ডলারের কাছাকাছি পৌঁছাবে বলে আশা করেন ব্যবসায়ীরা।

Adds Banner_2024

লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় পোশাক রপ্তানি বেড়েছে

আপডেটের সময় : ০৭:০১:১৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২২ জানুয়ারী ২০১৯

ঢাকা প্রতিনিধি: গত ছয় মাসে লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় বাংলাদেশের পোশাক রপ্তানি হয়েছে সাড়ে আট শতাংশেরও বেশি। অর্থনীতিবিদদের মতে, ডলারের বিপরীতে টাকার মান কমে যাওয়ার পাশাপাশি কোনো কোনো ক্ষেত্রে চীনের হারানো ক্রেতাদের ক্রয় আদেশ পাওয়ায় পোশাক রপ্তানি বেড়েছে। ব্যবসায়ীরা বলছেন, বাংলাদেশের পোশাক শিল্পের প্রতি আন্তর্জাতিক ক্রেতাদের আস্থা বেড়েছে।

বাংলাদেশের রপ্তানির পরিসংখ্যানে গত প্রায় তিন দশক থেকে শীর্ষে অবস্থান করছে তৈরি পোশাক খাত। চলতি অর্থবছরে ৬ দশমিক ৭৭ শতাংশ প্রবৃদ্ধি ধরে এ শিল্পের রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়, ৩ হাজার ২শ’ ৬৯ কোটি মার্কিন ডলার । আর অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে পোশাকখাতে রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা ছিলো ১ হাজার ৫শ’ ৭৫ কোটি ডলার যার বিপরীতে রপ্তানি হয়েছে ১ হাজার ৭শ ৮ কোটি ডলারের পোশাক। ব্যবসায়ীরা বলছেন, বড় অংকের বিনিয়োগে ধারাবাহিক উন্নয়নের ফল আসতে শুরু করেছে পোশাক খাতে।

Trulli

বিজিএমইএ’র সিনিয়র সহ-সভাপতি ফারুক হাসান বলেন, বায়ারদের কনফিডেন্স আমরা অনেক বাড়াতে পেরেছি। গত পাঁচ বছর আমরা কর্মক্ষেত্রের সেফটির উপর কাজ করেছি। এতে প্রচুর টাকা বিনিয়োগ করা হয়েছে। এছাড়া গ্রিন ফ্যাক্টরি করা হয়েছে, এনার্জি এফিসিয়েন্ট ফ্যাক্টরি করা হয়েছে, এনভায়রনমেন্ট ফ্রেন্ডলি ফ্যাক্টরি করা হয়েছে। এছাড়া যন্ত্রপাতিও উন্নত করা হয়েছে।

সবচে বড় বাজার জার্মানিতে গত ছয়মাসে ওভেন পোশাকের রপ্তানি বেড়েছে ১৮ শতাংশ, নিট পণ্যে তা প্রায় ১১ শতাংশ। ফ্রান্স, নেদারল্যান্ড, পোল্যান্ড,সুইডেন, কানাডাসহ কয়েকটি দেশে রপ্তানি প্রবৃদ্ধি দুই অংক ছাড়িয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে জিএসপি সুবিধাবঞ্চিত মার্কিন বাজারে বাংলাদেশের পোশাক রপ্তানি বেড়েছে প্রায় ১৯ শতাংশ। অপেক্ষাকৃত নতুন বাজারেও রপ্তানি প্রবৃদ্ধি গড়ে ৩৬ শতাংশের উপরে।

অর্থনীতিবিদ ড. খোন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম বলেন, টাকার অবমূল্যায়ন আমাদের রফতানিকারকদের কিছুটা এক্সচেঞ্জ রেটে নেগোশিয়েট করার কিছুটা সুবিধা দিয়েছে। বেশ কিছুদিন ধরে দেখা যাচ্ছিল, চীন থেকে কিছু অর্ডার অন্যান্য দেশে যাচ্ছে, তার কিছু অংশ বাংলাদেশও পাচ্ছে। সাম্প্রতিককালে তার কিছুটা ইতিবাচক প্রভাব আমরা আমাদের রফতানিকারকদের মাঝে দেখতে পাচ্ছি।

বেশকিছু চ্যালেঞ্জ থাকলেও রপ্তানির এ ধারা অব্যাহত থাকলে ২০২১ সাল নাগাদ, পোশাকশিল্পের রপ্তানি আয় ৫০ বিলিয়ন ডলারের কাছাকাছি পৌঁছাবে বলে আশা করেন ব্যবসায়ীরা।