রাজশাহী , শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
এমপি আনার হত্যা: আ.লীগ নেতা গ্যাস বাবুর দোষ স্বীকার টুং টাং শব্দে ব্যস্ত সময় পার করছে রাজশাহীর কামাররা রেমালে ক্ষতিগ্রস্ত ১২৭৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান যুগান্তর পত্রিকায় মেয়রসহ তার পরিবারকে নিয়ে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ ও ব্যাখ্যা কাল থেকে টানা ৫ দিনের ছুটিতে যাচ্ছেন সরকারি চাকরিজীবীরা ফের দি‌ল্লি যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বগুড়ায় ব্যাংকের সিন্দুক কেটে ২৯ লাখ টাকা লুট বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার মধ্যে চলবে যাত্রীবাহী ফেরি শেখ হাসিনাকে ‘কোয়ালিশন অব লিডার্স’-এ চায় গ্লোবাল ফান্ড তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি : প্রধানমন্ত্রী দুর্যোগ মোকাবিলায় ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা জানালেন প্রধানমন্ত্রী বেনজীর পরিবারের আরও সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ বড় দুঃসংবাদ পেলেন সাকিব পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে : প্রধানমন্ত্রী কুয়েতে ভবনে ভয়াবহ আগুন, নিহত অন্তত ৩৯ আনার হত্যাকাণ্ড : ডিবি কার্যালয়ে ঝিনাইদহ আ. লীগ সম্পাদক মিন্টু যাদের জমিসহ ঘর করে দেওয়া হয়েছে, তাদের জীবন বদলে গেছে: প্রধানমন্ত্রী ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি তৈরি করে দেব : প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার পাচ্ছে সাড়ে ১৮ হাজার পরিবার আজ শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস

নাইকো দুর্নীতি মামলার অভিযোগ গঠনের পরবর্তী শুনানি ৪ ফেব্রুয়ারি

  • আপডেটের সময় : ০৯:২৫:৪০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২১ জানুয়ারী ২০১৯
  • ৯৯ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ঢাকা প্রতিনিধি: নাইকো দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে চার্জ গঠনের বিষয়ে আংশিক শুনানি সম্পন্ন হয়েছে। পরবর্তী শুনানির জন্য আগামী ৪ ফেব্রুয়ারি তারিখ নির্ধারণ করেছেন আদালত। সোমবার (২১ জানুয়ারি) রাজধানীর নাজিম উদ্দিন রোডে অবস্থিত পুরাতন কেন্দ্রীয় কারাগারে স্থাপিত অস্থায়ী আদালতে খালেদা জিয়ার উপস্থিতিতে এ সিদ্ধান্ত জানান ঢাকার ৯ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের বিচারক শেখ হাফিজুর রহমান।

আজ এ মামলার বিচারের জন্য কারাগারটির দোতালার কক্ষ থেকে খালেদা জিয়াকে হুইল চেয়ারে করে দুপুর ১২টা ২৬ মিনিটে আদালত কক্ষে আনা হয়। এরপর দুপুর সাড়ে ১২টায় এজলাসে বসেন বিচারক। এরপর খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের বৈধতা নিয়ে শুনানি শুরু করেন ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। মামলাটির অন্যতম আসামি তিনিও। তবে আংশিক শুনানি করে তিনি সময় চাইলে আদালত তা মঞ্জুর করেন। এরপর অপর আসামি শহিদুল হকের পক্ষে আরেক আইনজীবী আংশিক শুনানি করে সময়ের আবেদন করেন। আদালত আবেদন মঞ্জুর করে পরবর্তী শুনানির তারিখ নির্ধারণ করেন। এরপর দুপুর ১টা ৫৫ মিনিটে খালেদা জিয়াকে আবারও কারাকক্ষে ফেরত নিয়ে যাওয়া হয়।

Trulli

মামলায় দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল।

২০০৭ সালের ৯ ডিসেম্বর তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে খালেদা জিয়াসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে দুদকের সহকারী পরিচালক মুহাম্মদ মাহবুবুল আলম তেজগাঁও থানায় মামলাটি দায়ের করেন।

২০০৮ সালের ৫ মে এ মামলায় খালেদা জিয়াসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিল করেন দুদকের সহকারী পরিচালক এসএম সাহেদুর রহমান।

মামলার অন্য আসামিরা হলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমেদ, সাবেক জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী এ কে এম মোশাররফ হোসেন, তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সচিব খন্দকার শহীদুল ইসলাম, সাবেক সিনিয়র সহকারী সচিব সি এম ইউছুফ হোসাইন, বাপেক্সের সাবেক মহাব্যবস্থাপক মীর ময়নুল হক, বাপেক্সের সাবেক সচিব শফিউর রহমান, ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন আল মামুন, বাগেরহাটের সাবেক সাংসদ এম এ এইচ সেলিম এবং নাইকোর দক্ষিণ এশিয়া-বিষয়ক ভাইস প্রেসিডেন্ট কাশেম শরীফ।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হওয়ায় গত বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে নাজিম উদ্দিন রোডের এই কারাগারে অন্তরীণ রাখা হয়েছে খালেদা জিয়াকে। মামলাটিতে ১০ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামি তিনি। জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলাতেও নিম্ন আদালত তাকে ৭ বছরের সাজা দিয়েছে। নাইকো দুর্নীতি মামলাসহ খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ৩৬টি মামলা চলমান রয়েছে।

Adds Banner_2024

নাইকো দুর্নীতি মামলার অভিযোগ গঠনের পরবর্তী শুনানি ৪ ফেব্রুয়ারি

আপডেটের সময় : ০৯:২৫:৪০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২১ জানুয়ারী ২০১৯

ঢাকা প্রতিনিধি: নাইকো দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে চার্জ গঠনের বিষয়ে আংশিক শুনানি সম্পন্ন হয়েছে। পরবর্তী শুনানির জন্য আগামী ৪ ফেব্রুয়ারি তারিখ নির্ধারণ করেছেন আদালত। সোমবার (২১ জানুয়ারি) রাজধানীর নাজিম উদ্দিন রোডে অবস্থিত পুরাতন কেন্দ্রীয় কারাগারে স্থাপিত অস্থায়ী আদালতে খালেদা জিয়ার উপস্থিতিতে এ সিদ্ধান্ত জানান ঢাকার ৯ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের বিচারক শেখ হাফিজুর রহমান।

আজ এ মামলার বিচারের জন্য কারাগারটির দোতালার কক্ষ থেকে খালেদা জিয়াকে হুইল চেয়ারে করে দুপুর ১২টা ২৬ মিনিটে আদালত কক্ষে আনা হয়। এরপর দুপুর সাড়ে ১২টায় এজলাসে বসেন বিচারক। এরপর খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের বৈধতা নিয়ে শুনানি শুরু করেন ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। মামলাটির অন্যতম আসামি তিনিও। তবে আংশিক শুনানি করে তিনি সময় চাইলে আদালত তা মঞ্জুর করেন। এরপর অপর আসামি শহিদুল হকের পক্ষে আরেক আইনজীবী আংশিক শুনানি করে সময়ের আবেদন করেন। আদালত আবেদন মঞ্জুর করে পরবর্তী শুনানির তারিখ নির্ধারণ করেন। এরপর দুপুর ১টা ৫৫ মিনিটে খালেদা জিয়াকে আবারও কারাকক্ষে ফেরত নিয়ে যাওয়া হয়।

Trulli

মামলায় দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল।

২০০৭ সালের ৯ ডিসেম্বর তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে খালেদা জিয়াসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে দুদকের সহকারী পরিচালক মুহাম্মদ মাহবুবুল আলম তেজগাঁও থানায় মামলাটি দায়ের করেন।

২০০৮ সালের ৫ মে এ মামলায় খালেদা জিয়াসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিল করেন দুদকের সহকারী পরিচালক এসএম সাহেদুর রহমান।

মামলার অন্য আসামিরা হলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমেদ, সাবেক জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী এ কে এম মোশাররফ হোসেন, তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সচিব খন্দকার শহীদুল ইসলাম, সাবেক সিনিয়র সহকারী সচিব সি এম ইউছুফ হোসাইন, বাপেক্সের সাবেক মহাব্যবস্থাপক মীর ময়নুল হক, বাপেক্সের সাবেক সচিব শফিউর রহমান, ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন আল মামুন, বাগেরহাটের সাবেক সাংসদ এম এ এইচ সেলিম এবং নাইকোর দক্ষিণ এশিয়া-বিষয়ক ভাইস প্রেসিডেন্ট কাশেম শরীফ।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হওয়ায় গত বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে নাজিম উদ্দিন রোডের এই কারাগারে অন্তরীণ রাখা হয়েছে খালেদা জিয়াকে। মামলাটিতে ১০ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামি তিনি। জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলাতেও নিম্ন আদালত তাকে ৭ বছরের সাজা দিয়েছে। নাইকো দুর্নীতি মামলাসহ খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ৩৬টি মামলা চলমান রয়েছে।