রাজশাহী , সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

যৌনপল্লীতে বিক্রির হাত থেকে যেভাবে নিজেকে বাঁচাল শিশুটি

  • আপডেটের সময় : ০৮:০৬:৩৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২১ জানুয়ারী ২০১৯
  • ৭০ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

জনপদ ডেস্ক: চিৎকার-চেচামেচি করে যৌনপল্লীতে বিক্রির হাত থেকে নিজেকে রক্ষা করল সিনথিয়া খাতুন(৮) নামের এক শিশু।

জানা গেছে, গত শনিবার সন্ধ্যায় সিনথিয়া খাতুনকে অচেতন করে রাজবাড়ির দৌলতদিয়ায় নিয়ে এসেছিল দুর্বৃত্তরা। এরপরে মধ্যরাতে দৌলতদিয়া ঘাটে শিশুটির জ্ঞান ফিরে আসলে চিৎকার-চেচামেচি করে নিজেকে রক্ষা করে সে। গতকাল রবিবার দুপুরে স্থানীয় থানা পুলিশ শিশুটিকে তার পরিবারের কাছে তুলে দিয়েছে।

Trulli

সিনথিয়ার বাড়ি কুষ্টিয়ায়। সে কুষ্টিয়ার জগতি এলাকার আব্দুস ছালামের মেয়ে ও স্থানীয় সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী।

এ বিষয়ে পুলিশ, উদ্ধার হওয়া শিশু ও তার বাবা জানান, দুই ভাই বোনের মধ্যে সিনথিয়া ছোট। গত শনিবার বিকেলে দুই ভাই-বোনের মধ্যে ঝগড়া হয়। এক পর্যায়ে বড় ভাই রিফাত সিনথিয়াকে মারধর করলে বাড়ি থেকে বের হয়ে বাড়ির সামনের পাকা রাস্তায় দাঁড়িয়ে কান্না করতে থাকে। সন্ধ্যার দিকে অজ্ঞাত এক ব্যক্তি শিশুকে জানায়, তার বাবা তার সঙ্গে যেতে বলেছে। এ কথা বলেই একটি রুমাল বের করে তার মুখে ধরে। মুহুর্তের মধ্যে সে অচেতন হয়ে পড়লে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা তাকে সেখান থেকে বাসে করে রাত ২টার দিকে দৌলতদিয়ায় নিয়ে আসে। এ সময় শিশুটির জ্ঞান ফিরে আসলে সে চিৎকার-চেচামেচি করতে থাকে।

পরে স্থানীয়দের সহায়তায় সিনথিয়া দৌলতদিয়া পুলিশ বক্সে আশ্রয় নেয়। বিপদ আঁচ করতে পেড়ে অপহরণকারীরা পালিয়ে যায়। পুলিশ বক্স থেকে তাৎক্ষণিক গোয়ালন্দ ঘাট থানায় জানালে পুলিশ শিশুটিকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। পরে শিশুটির কাছ থেকে পরিবারের ঠিকানা জানার পর এবং বাবা আব্দুস ছালামকে ফোন করলে পুলিশ এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত হয়।

এ ব্যাপারে গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি (তদন্ত) আমিনুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, রাতে শিশুটির জ্ঞান ফিরে না আসলে হয়তো বড় বিপদ হতে পারতো এ ব্যাপারে থানায় একটি সাধারণ ডায়রী এন্ট্রি করে পরিবারের কাছে দেওয়া হয়েছে।

Adds Banner_2024

যৌনপল্লীতে বিক্রির হাত থেকে যেভাবে নিজেকে বাঁচাল শিশুটি

আপডেটের সময় : ০৮:০৬:৩৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২১ জানুয়ারী ২০১৯

জনপদ ডেস্ক: চিৎকার-চেচামেচি করে যৌনপল্লীতে বিক্রির হাত থেকে নিজেকে রক্ষা করল সিনথিয়া খাতুন(৮) নামের এক শিশু।

জানা গেছে, গত শনিবার সন্ধ্যায় সিনথিয়া খাতুনকে অচেতন করে রাজবাড়ির দৌলতদিয়ায় নিয়ে এসেছিল দুর্বৃত্তরা। এরপরে মধ্যরাতে দৌলতদিয়া ঘাটে শিশুটির জ্ঞান ফিরে আসলে চিৎকার-চেচামেচি করে নিজেকে রক্ষা করে সে। গতকাল রবিবার দুপুরে স্থানীয় থানা পুলিশ শিশুটিকে তার পরিবারের কাছে তুলে দিয়েছে।

Trulli

সিনথিয়ার বাড়ি কুষ্টিয়ায়। সে কুষ্টিয়ার জগতি এলাকার আব্দুস ছালামের মেয়ে ও স্থানীয় সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী।

এ বিষয়ে পুলিশ, উদ্ধার হওয়া শিশু ও তার বাবা জানান, দুই ভাই বোনের মধ্যে সিনথিয়া ছোট। গত শনিবার বিকেলে দুই ভাই-বোনের মধ্যে ঝগড়া হয়। এক পর্যায়ে বড় ভাই রিফাত সিনথিয়াকে মারধর করলে বাড়ি থেকে বের হয়ে বাড়ির সামনের পাকা রাস্তায় দাঁড়িয়ে কান্না করতে থাকে। সন্ধ্যার দিকে অজ্ঞাত এক ব্যক্তি শিশুকে জানায়, তার বাবা তার সঙ্গে যেতে বলেছে। এ কথা বলেই একটি রুমাল বের করে তার মুখে ধরে। মুহুর্তের মধ্যে সে অচেতন হয়ে পড়লে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা তাকে সেখান থেকে বাসে করে রাত ২টার দিকে দৌলতদিয়ায় নিয়ে আসে। এ সময় শিশুটির জ্ঞান ফিরে আসলে সে চিৎকার-চেচামেচি করতে থাকে।

পরে স্থানীয়দের সহায়তায় সিনথিয়া দৌলতদিয়া পুলিশ বক্সে আশ্রয় নেয়। বিপদ আঁচ করতে পেড়ে অপহরণকারীরা পালিয়ে যায়। পুলিশ বক্স থেকে তাৎক্ষণিক গোয়ালন্দ ঘাট থানায় জানালে পুলিশ শিশুটিকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। পরে শিশুটির কাছ থেকে পরিবারের ঠিকানা জানার পর এবং বাবা আব্দুস ছালামকে ফোন করলে পুলিশ এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত হয়।

এ ব্যাপারে গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি (তদন্ত) আমিনুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, রাতে শিশুটির জ্ঞান ফিরে না আসলে হয়তো বড় বিপদ হতে পারতো এ ব্যাপারে থানায় একটি সাধারণ ডায়রী এন্ট্রি করে পরিবারের কাছে দেওয়া হয়েছে।