রাজশাহী , সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

রাবি ছাত্রলীগ নেতাকে ছুরিকাঘাতের ঘটনায় আটক ছাত্রলীগের সাবেক নেতা

  • আপডেটের সময় : ০৬:৪২:২৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২১ জানুয়ারী ২০১৯
  • ৭০ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

রাবি প্রতিনিধি: পূর্ব শত্রুতার জেরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের নেতাকে গলায় ছুরিকাঘাতের ঘটনায় আটক যুবক ছাত্রলীগের সাবেক নেতা। তাঁকে রামেক হাসপাতাল থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সোমবার দুপুর ১২টার দিকে রাজশাহী নিউ গর্ভমেন্ট ডিগ্রি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাবেক আইনবিষয়ক সম্পাদক আদিব ইশতিয়াক রশিদ ওরফে রুমেলকে (২৬) গ্রেপ্তার করা হয়। হাসপাতাল পুলিশ বক্সের ইনচার্জ রফিকুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন রবিবার রাতে রাবি ছাত্রলীগের নেতাকে ছুরিকাঘাতের ঘটনায় আবিদ ইশতিয়াককে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছিল। ওই ঘটনায় সোমবার রুমেলকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

Trulli

এর আগে রবিবার রাত ৮টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের সামনে ছাত্রলীগ নেতা ইমতিয়াজ আহমেদের গলায় ছুরিকাঘাত করা হয়। তিনি বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। বর্তমানে তাকে রামেক হাসপাতালের ৫ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় রাতেই বহিরাগত যুবক রুমেলকে মারপিট করে পুলিশে সোপর্দ করে ছাত্রলীগ। সে বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন কাজলা এলাকার বাবলুর রশীদের ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, রবিবার রাত ৮টার দিকে ইমতিয়াজ ও বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সানোয়ার হোসেন সারোয়ার বঙ্গবন্ধু হলের পাশে দোকানে দাড়িয়েছিলেন। এ সময় পাঁচ-সাতটি মোটরসাইকেল নিয়ে বহিরাগত কয়েকজন যুবক ওই দোকানের সামনে আসে। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে একজন দোকানে দাঁড়িয়ে থাকা ইমতিয়াজের গলায় আচমকা ছুরিকাঘাত করে দৌঁড় দেয়। এদিকে, পালানোর সময় ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাকর্মী হামলাকারীদের একজনকে আটক করে বঙ্গবন্ধু হলের অতিথি কক্ষে নিয়ে যায়।

এ সময় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল বডির সদস্য, হল প্রাধ্যক্ষ ও পুলিশ ঘটনাস্থলে আসলেও বিক্ষুব্ধ ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা তাদের সামনেই আরিফকে বেধড়ক মারধর করেন। পরিস্থিতি ক্রমেই উত্তেজনাক হওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য স্বয়ং ঘটনাস্থলে আসেন এবং আরিফকে থানায় নিয়ে যাওয়ার জন্য পুলিশকে নির্দেশ দেন। পুলিশি নিরাপত্তায় তাকে হল থেকে বের করার মুহূর্তে আবারও ছাত্রলীগ নেতাকর্মী আরিফের ওপর চড়াও হন এবং তাকে উপুর্যপুরী আঘাত করতে থাকেন।

আরিফকে বাঁচাতে গিয়ে সহকারী প্রক্টর শিবলী ইসলাম, আবু সাঈদ মো. নাজমুল হায়দার, মতিহার জোনের ডিসি সাজিদ হোসেন ও মতিহার থানার ওসি (তদন্ত) মাহবুব আলম শরীরে আঘাত পান। পরে পরিস্থিতি সামাল দিয়ে আরিফকে চিকিৎসার জন্য তৎক্ষণাত রামেক হাসপাতালে নেওয়া হয়।

ছাত্রলীগ সভাপতি গোলাম কিবরিয়া বলেন, ‘আমরা আরিফকে আটক করে পুলিশে খবর দেই। এ সময় সাধারণ শিক্ষার্থীরা ক্ষুব্ধ হয়ে তাকে মারধর করে। পরে পুলিশ এসে তাকে নিয়ে গেছে।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, ‘আরিফকে আটক করে পুলিশে দেওয়া হয়েছে। পুলিশ তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে।’ ওসি মাহবুব আলম বলেন, ‘খবর পেয়ে পুলিশ নিয়ে দ্রæত ঘটনাস্থলে আসি। আমরা তাকে হাসপাতালে নেওয়ার পথে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা আরিফকে মারধর করে। তাকে বাঁচাতে গিয়ে আমিসহ কয়েকজন শিক্ষক আঘাত পেয়েছেন। আরিফকে হাসপাতালে পাঠিয়েছি। সুস্থ হওয়ার পর তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে বিস্তারিত জানার পর তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে।’

এর আগে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজলা বাধন নামের এক যুবককে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের এক নেতা মারধর করে মাথা ফাটিয়ে দেয়। তবে সেই নেতার পরিচয় জানা যায়নি। এর কিছুক্ষণ পরই ইমতিয়াজকে ছুরিকাঘাতের এ ঘটনা ঘটে।

Adds Banner_2024

রাবি ছাত্রলীগ নেতাকে ছুরিকাঘাতের ঘটনায় আটক ছাত্রলীগের সাবেক নেতা

আপডেটের সময় : ০৬:৪২:২৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২১ জানুয়ারী ২০১৯

রাবি প্রতিনিধি: পূর্ব শত্রুতার জেরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের নেতাকে গলায় ছুরিকাঘাতের ঘটনায় আটক যুবক ছাত্রলীগের সাবেক নেতা। তাঁকে রামেক হাসপাতাল থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সোমবার দুপুর ১২টার দিকে রাজশাহী নিউ গর্ভমেন্ট ডিগ্রি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাবেক আইনবিষয়ক সম্পাদক আদিব ইশতিয়াক রশিদ ওরফে রুমেলকে (২৬) গ্রেপ্তার করা হয়। হাসপাতাল পুলিশ বক্সের ইনচার্জ রফিকুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন রবিবার রাতে রাবি ছাত্রলীগের নেতাকে ছুরিকাঘাতের ঘটনায় আবিদ ইশতিয়াককে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছিল। ওই ঘটনায় সোমবার রুমেলকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

Trulli

এর আগে রবিবার রাত ৮টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের সামনে ছাত্রলীগ নেতা ইমতিয়াজ আহমেদের গলায় ছুরিকাঘাত করা হয়। তিনি বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। বর্তমানে তাকে রামেক হাসপাতালের ৫ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় রাতেই বহিরাগত যুবক রুমেলকে মারপিট করে পুলিশে সোপর্দ করে ছাত্রলীগ। সে বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন কাজলা এলাকার বাবলুর রশীদের ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, রবিবার রাত ৮টার দিকে ইমতিয়াজ ও বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সানোয়ার হোসেন সারোয়ার বঙ্গবন্ধু হলের পাশে দোকানে দাড়িয়েছিলেন। এ সময় পাঁচ-সাতটি মোটরসাইকেল নিয়ে বহিরাগত কয়েকজন যুবক ওই দোকানের সামনে আসে। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে একজন দোকানে দাঁড়িয়ে থাকা ইমতিয়াজের গলায় আচমকা ছুরিকাঘাত করে দৌঁড় দেয়। এদিকে, পালানোর সময় ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাকর্মী হামলাকারীদের একজনকে আটক করে বঙ্গবন্ধু হলের অতিথি কক্ষে নিয়ে যায়।

এ সময় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল বডির সদস্য, হল প্রাধ্যক্ষ ও পুলিশ ঘটনাস্থলে আসলেও বিক্ষুব্ধ ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা তাদের সামনেই আরিফকে বেধড়ক মারধর করেন। পরিস্থিতি ক্রমেই উত্তেজনাক হওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য স্বয়ং ঘটনাস্থলে আসেন এবং আরিফকে থানায় নিয়ে যাওয়ার জন্য পুলিশকে নির্দেশ দেন। পুলিশি নিরাপত্তায় তাকে হল থেকে বের করার মুহূর্তে আবারও ছাত্রলীগ নেতাকর্মী আরিফের ওপর চড়াও হন এবং তাকে উপুর্যপুরী আঘাত করতে থাকেন।

আরিফকে বাঁচাতে গিয়ে সহকারী প্রক্টর শিবলী ইসলাম, আবু সাঈদ মো. নাজমুল হায়দার, মতিহার জোনের ডিসি সাজিদ হোসেন ও মতিহার থানার ওসি (তদন্ত) মাহবুব আলম শরীরে আঘাত পান। পরে পরিস্থিতি সামাল দিয়ে আরিফকে চিকিৎসার জন্য তৎক্ষণাত রামেক হাসপাতালে নেওয়া হয়।

ছাত্রলীগ সভাপতি গোলাম কিবরিয়া বলেন, ‘আমরা আরিফকে আটক করে পুলিশে খবর দেই। এ সময় সাধারণ শিক্ষার্থীরা ক্ষুব্ধ হয়ে তাকে মারধর করে। পরে পুলিশ এসে তাকে নিয়ে গেছে।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, ‘আরিফকে আটক করে পুলিশে দেওয়া হয়েছে। পুলিশ তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে।’ ওসি মাহবুব আলম বলেন, ‘খবর পেয়ে পুলিশ নিয়ে দ্রæত ঘটনাস্থলে আসি। আমরা তাকে হাসপাতালে নেওয়ার পথে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা আরিফকে মারধর করে। তাকে বাঁচাতে গিয়ে আমিসহ কয়েকজন শিক্ষক আঘাত পেয়েছেন। আরিফকে হাসপাতালে পাঠিয়েছি। সুস্থ হওয়ার পর তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে বিস্তারিত জানার পর তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে।’

এর আগে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজলা বাধন নামের এক যুবককে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের এক নেতা মারধর করে মাথা ফাটিয়ে দেয়। তবে সেই নেতার পরিচয় জানা যায়নি। এর কিছুক্ষণ পরই ইমতিয়াজকে ছুরিকাঘাতের এ ঘটনা ঘটে।