রাজশাহী , মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

আরাকান আর্মির ঘাঁটির দখল নিলো মিয়ানমার

  • আপডেটের সময় : ০১:১৮:৪৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১৯
  • ৬৫ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে বৌদ্ধ সশস্ত্র গোষ্ঠী আরাকান আর্মির একটি অস্থায়ী ঘাঁটির দখল নিয়েছেন দেশটির সরকারি বাহিনী। বুধবার সেনাবাহিনী ওই ঘাঁটির পাঁচ সদস্যকে হত্যা করে এর দখল নেয়। এই ঘাঁটির অবস্থান রাখাইনের বুথিডং এলাকায়। শুক্রবার সেনাবাহিনীর বরাত দিয়ে এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে মিয়ানমার টাইমস।

সেনাবাহিনী জানিয়েছে, তারা আরাকান আর্মির একটি সাময়িক ঘাঁটিতে হামলা চালিয়েছে। ৫০ সদস্যের ওই ঘাঁটি থেকে ৩০টির বেশি অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার করা হয়েছে। তবে অভিযানে সেনাবাহিনীর কোনও সদস্য হতাহত হয়নি।

Trulli

সেনাবাহিনীর বিবৃতিতে বলা হয়, রাজ্যের নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতার জন্য আরাকান আর্মির বিরুদ্ধে সেনাবাহিনীর এই অভিযান অব্যাহত থাকবে।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, সেনাবাহিনীর ওই অভিযানের সময় তারা সেখানে গুলিবর্ষণ ও বিস্ফোরণের শব্দ পেয়েছেন।

ইই থান শোয়ে নামের এক ব্যক্তি জানান, অনেকে শহরে পালিয়ে গেছে। কিন্তু কিছু লোকজন সেনাবাহিনী ও আরাকান আর্মির মধ্যকার সংঘর্ষের মধ্যে পড়ে গেছে। আমরা প্রায় প্রতিদিনই বিস্ফোরণের শব্দ শুনতে পাই।

এদিকে আরাকান আর্মির বিরুদ্ধে সামরিক অভিযান শুরু করতে সেনাবাহিনীকে নির্দেশ দিয়েছেন মিয়ানমারের ডি ফ্যাক্টো নেত্রী ও রাষ্ট্রীয় উপদেষ্টা অং সান সু চি। শুক্রবার রাজধানী নেপিদোতে এক সংবাদ সম্মেলনে মিয়ানমার সেনাবাহিনী এ কথা জানিয়েছে।

২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট রাখাইনের কয়েকটি নিরাপত্তা চৌকিতে আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মির (আরসা) হামলার পর পূর্ব-পরিকল্পিত ও কাঠামোবদ্ধ সহিংসতা জোরালো করে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। হত্যা-ধর্ষণসহ বিভিন্ন ধারার সহিংসতা ও নিপীড়ন থেকে বাঁচতে বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর প্রায় ৭ লাখ মানুষ। মিয়ানমার সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে জাতিগত নিধনযজ্ঞ ও গণহত্যার অভিযোগ এনেছে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থা ও দেশ।

গত ৪ জানুয়ারি রাখাইনে সীমান্ত চৌকিতে আরাকান আর্মির সদস্যদের হামলায় ১৩ পুলিশ কর্মকর্তা নিহত হওয়ার পর থেকে ওই এলাকার পরিস্থিতি নতুন করে উত্তপ্ত রয়েছে। প্রায়শই মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সঙ্গে বিদ্রোহীদের সংঘর্ষ চলছে। বাংলাদেশ থেকে রাখাইনের রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য স্বাক্ষরিত প্রত্যর্পণ চুক্তি বাস্তবায়ন নিয়ে আশঙ্কা তৈরি হয়েছে।

মিয়ানমার সেনাবাহিনীর তথ্য কমিটির ভাইস-চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল নুই নুই টুন সংবাদ সম্মেলনে বলেন, সু চি বলেছেন আরাকান আর্মি শুধুই একটি সন্ত্রাসী সংগঠন। তিনি তাদের কার্যকরভাবে, দ্রুত ও একেবারে পরাজিত করার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন।

মিয়ানমারের আইন অনুযায়ী কোনও সংগঠনকে সন্ত্রাসী গোষ্ঠী হিসেবে আখ্যায়িত করা হলে তা নিষিদ্ধ ঘোষিত হয় এবং তাদের সঙ্গে যোগাযোগও নিষিদ্ধ হয়ে পড়ে।

মেজর জেনারেল জানান, সু চি বলেছেন তিনি যদি আরাকান আর্মির বিরুদ্ধে আক্রমণাত্মক অভিযান ও হামলার নির্দেশ না দেন তাহলে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সমালোচনার মুখোমুখি হবেন তিনি। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠবে মুসলিম গেরিলাদের বিরুদ্ধে হামলা চালালেও বৌদ্ধদের বিরুদ্ধে কোনও পদক্ষেপ না নেওয়ার। অথচ উভয়েই একই লক্ষ্যে একই ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছে।

এই সেনা কর্মকর্তা জানান, আরাকান আর্মির সঙ্গে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সংঘর্ষ অনেক আগে থেকেই হচ্ছে। ২০১৫ সালে ১৫ বার, ২০১৬ সালে ২৬ বার, ২০১৭ সালে ৫৬ বার এবং ২০১৮ সালে ৬১ বার সংঘর্ষ হয়েছে। বিদ্রোহীরা অনেক স্থানে মাইন পুঁতে রেখেছে। এই বছরে এখন পর্যন্ত ৮ বার সশস্ত্র সংঘর্ষ হয়েছে।

সেনাবাহিনী জানায়, ডিসেম্বরে সশস্ত্র সংঘাত চলমান রাজ্যগুলোর মধ্যে ৫টি এলাকায় অস্ত্রবিরতি ঘোষণা করে মিয়ানমার। কিন্তু এগুলোর মধ্যে রাখাইন রাজ্য ছিল না। আরসা হামলার পরিকল্পনা করছে বলে রাখাইনকে অস্ত্রবিরতির আওতায় রাখা হয়নি।

আরাকান আর্মির সদস্যরা রাখাইনের (পূর্বের নাম আরাকান) সায়ত্ত্বশাসন চায়। ২০০৯ সালে ২৬ জন আরাকানি একত্রিত হয়ে আরাকান আর্মি গড়ে তুলেন। এখন সংগঠনটিতে আধুনিক অস্ত্রে সজ্জিত কয়েক হাজার যোদ্ধা রয়েছে।

Adds Banner_2024

আরাকান আর্মির ঘাঁটির দখল নিলো মিয়ানমার

আপডেটের সময় : ০১:১৮:৪৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১৯

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে বৌদ্ধ সশস্ত্র গোষ্ঠী আরাকান আর্মির একটি অস্থায়ী ঘাঁটির দখল নিয়েছেন দেশটির সরকারি বাহিনী। বুধবার সেনাবাহিনী ওই ঘাঁটির পাঁচ সদস্যকে হত্যা করে এর দখল নেয়। এই ঘাঁটির অবস্থান রাখাইনের বুথিডং এলাকায়। শুক্রবার সেনাবাহিনীর বরাত দিয়ে এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে মিয়ানমার টাইমস।

সেনাবাহিনী জানিয়েছে, তারা আরাকান আর্মির একটি সাময়িক ঘাঁটিতে হামলা চালিয়েছে। ৫০ সদস্যের ওই ঘাঁটি থেকে ৩০টির বেশি অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার করা হয়েছে। তবে অভিযানে সেনাবাহিনীর কোনও সদস্য হতাহত হয়নি।

Trulli

সেনাবাহিনীর বিবৃতিতে বলা হয়, রাজ্যের নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতার জন্য আরাকান আর্মির বিরুদ্ধে সেনাবাহিনীর এই অভিযান অব্যাহত থাকবে।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, সেনাবাহিনীর ওই অভিযানের সময় তারা সেখানে গুলিবর্ষণ ও বিস্ফোরণের শব্দ পেয়েছেন।

ইই থান শোয়ে নামের এক ব্যক্তি জানান, অনেকে শহরে পালিয়ে গেছে। কিন্তু কিছু লোকজন সেনাবাহিনী ও আরাকান আর্মির মধ্যকার সংঘর্ষের মধ্যে পড়ে গেছে। আমরা প্রায় প্রতিদিনই বিস্ফোরণের শব্দ শুনতে পাই।

এদিকে আরাকান আর্মির বিরুদ্ধে সামরিক অভিযান শুরু করতে সেনাবাহিনীকে নির্দেশ দিয়েছেন মিয়ানমারের ডি ফ্যাক্টো নেত্রী ও রাষ্ট্রীয় উপদেষ্টা অং সান সু চি। শুক্রবার রাজধানী নেপিদোতে এক সংবাদ সম্মেলনে মিয়ানমার সেনাবাহিনী এ কথা জানিয়েছে।

২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট রাখাইনের কয়েকটি নিরাপত্তা চৌকিতে আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মির (আরসা) হামলার পর পূর্ব-পরিকল্পিত ও কাঠামোবদ্ধ সহিংসতা জোরালো করে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। হত্যা-ধর্ষণসহ বিভিন্ন ধারার সহিংসতা ও নিপীড়ন থেকে বাঁচতে বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর প্রায় ৭ লাখ মানুষ। মিয়ানমার সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে জাতিগত নিধনযজ্ঞ ও গণহত্যার অভিযোগ এনেছে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থা ও দেশ।

গত ৪ জানুয়ারি রাখাইনে সীমান্ত চৌকিতে আরাকান আর্মির সদস্যদের হামলায় ১৩ পুলিশ কর্মকর্তা নিহত হওয়ার পর থেকে ওই এলাকার পরিস্থিতি নতুন করে উত্তপ্ত রয়েছে। প্রায়শই মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সঙ্গে বিদ্রোহীদের সংঘর্ষ চলছে। বাংলাদেশ থেকে রাখাইনের রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য স্বাক্ষরিত প্রত্যর্পণ চুক্তি বাস্তবায়ন নিয়ে আশঙ্কা তৈরি হয়েছে।

মিয়ানমার সেনাবাহিনীর তথ্য কমিটির ভাইস-চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল নুই নুই টুন সংবাদ সম্মেলনে বলেন, সু চি বলেছেন আরাকান আর্মি শুধুই একটি সন্ত্রাসী সংগঠন। তিনি তাদের কার্যকরভাবে, দ্রুত ও একেবারে পরাজিত করার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন।

মিয়ানমারের আইন অনুযায়ী কোনও সংগঠনকে সন্ত্রাসী গোষ্ঠী হিসেবে আখ্যায়িত করা হলে তা নিষিদ্ধ ঘোষিত হয় এবং তাদের সঙ্গে যোগাযোগও নিষিদ্ধ হয়ে পড়ে।

মেজর জেনারেল জানান, সু চি বলেছেন তিনি যদি আরাকান আর্মির বিরুদ্ধে আক্রমণাত্মক অভিযান ও হামলার নির্দেশ না দেন তাহলে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সমালোচনার মুখোমুখি হবেন তিনি। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠবে মুসলিম গেরিলাদের বিরুদ্ধে হামলা চালালেও বৌদ্ধদের বিরুদ্ধে কোনও পদক্ষেপ না নেওয়ার। অথচ উভয়েই একই লক্ষ্যে একই ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছে।

এই সেনা কর্মকর্তা জানান, আরাকান আর্মির সঙ্গে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সংঘর্ষ অনেক আগে থেকেই হচ্ছে। ২০১৫ সালে ১৫ বার, ২০১৬ সালে ২৬ বার, ২০১৭ সালে ৫৬ বার এবং ২০১৮ সালে ৬১ বার সংঘর্ষ হয়েছে। বিদ্রোহীরা অনেক স্থানে মাইন পুঁতে রেখেছে। এই বছরে এখন পর্যন্ত ৮ বার সশস্ত্র সংঘর্ষ হয়েছে।

সেনাবাহিনী জানায়, ডিসেম্বরে সশস্ত্র সংঘাত চলমান রাজ্যগুলোর মধ্যে ৫টি এলাকায় অস্ত্রবিরতি ঘোষণা করে মিয়ানমার। কিন্তু এগুলোর মধ্যে রাখাইন রাজ্য ছিল না। আরসা হামলার পরিকল্পনা করছে বলে রাখাইনকে অস্ত্রবিরতির আওতায় রাখা হয়নি।

আরাকান আর্মির সদস্যরা রাখাইনের (পূর্বের নাম আরাকান) সায়ত্ত্বশাসন চায়। ২০০৯ সালে ২৬ জন আরাকানি একত্রিত হয়ে আরাকান আর্মি গড়ে তুলেন। এখন সংগঠনটিতে আধুনিক অস্ত্রে সজ্জিত কয়েক হাজার যোদ্ধা রয়েছে।