রাজশাহী , শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
এমপি আনার হত্যা: আ.লীগ নেতা গ্যাস বাবুর দোষ স্বীকার টুং টাং শব্দে ব্যস্ত সময় পার করছে রাজশাহীর কামাররা রেমালে ক্ষতিগ্রস্ত ১২৭৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান যুগান্তর পত্রিকায় মেয়রসহ তার পরিবারকে নিয়ে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ ও ব্যাখ্যা কাল থেকে টানা ৫ দিনের ছুটিতে যাচ্ছেন সরকারি চাকরিজীবীরা ফের দি‌ল্লি যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বগুড়ায় ব্যাংকের সিন্দুক কেটে ২৯ লাখ টাকা লুট বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার মধ্যে চলবে যাত্রীবাহী ফেরি শেখ হাসিনাকে ‘কোয়ালিশন অব লিডার্স’-এ চায় গ্লোবাল ফান্ড তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি : প্রধানমন্ত্রী দুর্যোগ মোকাবিলায় ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা জানালেন প্রধানমন্ত্রী বেনজীর পরিবারের আরও সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ বড় দুঃসংবাদ পেলেন সাকিব পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে : প্রধানমন্ত্রী কুয়েতে ভবনে ভয়াবহ আগুন, নিহত অন্তত ৩৯ আনার হত্যাকাণ্ড : ডিবি কার্যালয়ে ঝিনাইদহ আ. লীগ সম্পাদক মিন্টু যাদের জমিসহ ঘর করে দেওয়া হয়েছে, তাদের জীবন বদলে গেছে: প্রধানমন্ত্রী ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি তৈরি করে দেব : প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার পাচ্ছে সাড়ে ১৮ হাজার পরিবার আজ শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস

নোয়াখালীতে এবার তিন সন্তানের জননীকে গণধষর্ণের অভিযোগ

  • আপডেটের সময় : ১২:৩৩:২৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১৯
  • ৬৫ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

নোয়াখালী প্রতিনিধি: নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলার চার সন্তানের জননীকে গণধর্ষণের রেশ না কাটতেই এবার কবিরহাট উপজেলায় তিন সন্তানের জননীকে গণধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে। শুক্রবার (১৮ জানুয়ারি) মধ্যরাতে কবিরহাটের ধানসিঁড়ি ইউনিয়নের নবগ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় জাকির হোসেন ওরফে জহির নামে স্থানীয় একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

শনিবার (১৯ জানুয়ারি) দুপুরে নির্যাতিতা নারী বাদী হয়ে গ্রেফতার হওয়া ব্যক্তির নাম উল্লেখ করে আরও চার-পাঁচজনকে অজ্ঞাত আসামি করে কবিরহাট থানায় একটি ধর্ষণ মামলা করেছেন। গ্রেফতার হওয়া জহির একই এলাকার এনামুল হকের ছেলে।

Trulli

কবিরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মির্জা মোহাম্মদ হাছান সাংবাদিকদের বলেন, ‘নির্যাতিতাকে আজ (১৯ জানুয়ারি) দুপুরে তার বাড়ি থেকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে জাকির হোসেন ওরফে জহির নামে একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে জহিরকে আগামীকাল রোববার (২০ জানুয়ারি) আদালতে পাঠানো হবে।’

নির্যাতিতা নারী বলেন, ‘আমার স্বামীকে গত ২৩ ডিসেম্বর বাড়ি থেকে পুলিশ তুলে নিয়ে পরে রাজনৈতিক মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে জেল হাজতে পাঠান। বর্তমানে ঘরে তিনি, তার মা ও তিন সন্তান রয়েছে। গতকাল শুক্রবার মধ্যরাতে সিঁধ কেটে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সাতজন তার ঘরে ঢোকে। তাদের মধ্যে চারজনের মুখ বাঁধা ও তিনজনের মুখ খোলা ছিল। তারা ঘরে ঢুকে প্রথমে থানা থেকে এসেছে বলে তার স্বামীকে খুঁজতে থাকে। পরে আমাকে ও আমার এক মেয়েকে বেঁধে ফেলে। অস্ত্র ঠেকিয়ে তিনজন ধর্ষণ করে এবং ৬০ হাজার টাকা, কিছু স্বর্ণালংকার নিয়ে যায়।’

Adds Banner_2024

নোয়াখালীতে এবার তিন সন্তানের জননীকে গণধষর্ণের অভিযোগ

আপডেটের সময় : ১২:৩৩:২৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১৯

নোয়াখালী প্রতিনিধি: নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলার চার সন্তানের জননীকে গণধর্ষণের রেশ না কাটতেই এবার কবিরহাট উপজেলায় তিন সন্তানের জননীকে গণধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে। শুক্রবার (১৮ জানুয়ারি) মধ্যরাতে কবিরহাটের ধানসিঁড়ি ইউনিয়নের নবগ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় জাকির হোসেন ওরফে জহির নামে স্থানীয় একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

শনিবার (১৯ জানুয়ারি) দুপুরে নির্যাতিতা নারী বাদী হয়ে গ্রেফতার হওয়া ব্যক্তির নাম উল্লেখ করে আরও চার-পাঁচজনকে অজ্ঞাত আসামি করে কবিরহাট থানায় একটি ধর্ষণ মামলা করেছেন। গ্রেফতার হওয়া জহির একই এলাকার এনামুল হকের ছেলে।

Trulli

কবিরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মির্জা মোহাম্মদ হাছান সাংবাদিকদের বলেন, ‘নির্যাতিতাকে আজ (১৯ জানুয়ারি) দুপুরে তার বাড়ি থেকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে জাকির হোসেন ওরফে জহির নামে একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে জহিরকে আগামীকাল রোববার (২০ জানুয়ারি) আদালতে পাঠানো হবে।’

নির্যাতিতা নারী বলেন, ‘আমার স্বামীকে গত ২৩ ডিসেম্বর বাড়ি থেকে পুলিশ তুলে নিয়ে পরে রাজনৈতিক মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে জেল হাজতে পাঠান। বর্তমানে ঘরে তিনি, তার মা ও তিন সন্তান রয়েছে। গতকাল শুক্রবার মধ্যরাতে সিঁধ কেটে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সাতজন তার ঘরে ঢোকে। তাদের মধ্যে চারজনের মুখ বাঁধা ও তিনজনের মুখ খোলা ছিল। তারা ঘরে ঢুকে প্রথমে থানা থেকে এসেছে বলে তার স্বামীকে খুঁজতে থাকে। পরে আমাকে ও আমার এক মেয়েকে বেঁধে ফেলে। অস্ত্র ঠেকিয়ে তিনজন ধর্ষণ করে এবং ৬০ হাজার টাকা, কিছু স্বর্ণালংকার নিয়ে যায়।’