রাজশাহী , মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

কোটা বাতিল না করা হলে বৃহৎ আন্দোলনের হুশিয়ারি জবি শিক্ষার্থীদের

  • জনপদ ডেস্ক
  • আপডেটের সময় : ০১:০৯:৫৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৭ জুন ২০২৪
  • ১০ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

হাইকোর্ট কর্তৃক প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে কোটা-পদ্ধতি বাতিল না করা হলে আগামী যে কোন সময় বৃহৎ আন্দোলনের হুশিয়ারি দিয়েছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

বৃহস্পতিবার দুপুরে সরকারি চাকরিতে কোটা পুনর্বহালের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে আয়োজিত বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধনে এ-সব কথা বলেন শিক্ষার্থীরা।

Trulli

শিক্ষার্থীরা বলেন, সরকারি চাকরিতে ৫৬ শতাংশ কোটা কোনও দেশের স্বাভাবিক শিক্ষাব্যবস্থা হতে পারে না। দেশের বিপুল সংখ্যক বেকার সমস্যার মধ্যে শিক্ষার্থীদের ওপর কোটার মত বৈষম্যমূলক বিভীষণ চাপিয়ে দেওয়া হলে বেকার সমস্যা আরও বৃদ্ধি পাবে। আমরা মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান জানাই। তারা দেশের সূর্যসন্তান। তাই বলে তাদের সন্তান এমনকি নাতি-নাতনিরা পরিশ্রম না করেই কোটায় চাকরিতে যোগ দেবে, এটা মানি না। আমরা এই রায় বাতিল চাই।

শিক্ষার্থীরা আরও বলেন, আমরা এখানে সরকার বিরোধী কোন আন্দোলন করতে আসি নি, আমরা শুধু আমাদের অধিকার আদায়ে বৈষম্যের বিরুদ্ধে আন্দোলন করছি। হাইকোর্টের প্রতি সম্মান রেখে আমরা বলতে চাই হাইকোর্ট যেন কোটার পুনর্বহাল বাতিল করে।

এ-সময় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক থেকে ভিক্টোরিয়া পার্ক ঘুরে বাংলা বাজার মোড় হয়ে পুনরায় প্রধান ফটকের সামনে এসে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মধ্যে দিয়ে মানববন্ধনটি শেষ হয়।

Adds Banner_2024

কোটা বাতিল না করা হলে বৃহৎ আন্দোলনের হুশিয়ারি জবি শিক্ষার্থীদের

আপডেটের সময় : ০১:০৯:৫৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৭ জুন ২০২৪

হাইকোর্ট কর্তৃক প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে কোটা-পদ্ধতি বাতিল না করা হলে আগামী যে কোন সময় বৃহৎ আন্দোলনের হুশিয়ারি দিয়েছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

বৃহস্পতিবার দুপুরে সরকারি চাকরিতে কোটা পুনর্বহালের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে আয়োজিত বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধনে এ-সব কথা বলেন শিক্ষার্থীরা।

Trulli

শিক্ষার্থীরা বলেন, সরকারি চাকরিতে ৫৬ শতাংশ কোটা কোনও দেশের স্বাভাবিক শিক্ষাব্যবস্থা হতে পারে না। দেশের বিপুল সংখ্যক বেকার সমস্যার মধ্যে শিক্ষার্থীদের ওপর কোটার মত বৈষম্যমূলক বিভীষণ চাপিয়ে দেওয়া হলে বেকার সমস্যা আরও বৃদ্ধি পাবে। আমরা মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান জানাই। তারা দেশের সূর্যসন্তান। তাই বলে তাদের সন্তান এমনকি নাতি-নাতনিরা পরিশ্রম না করেই কোটায় চাকরিতে যোগ দেবে, এটা মানি না। আমরা এই রায় বাতিল চাই।

শিক্ষার্থীরা আরও বলেন, আমরা এখানে সরকার বিরোধী কোন আন্দোলন করতে আসি নি, আমরা শুধু আমাদের অধিকার আদায়ে বৈষম্যের বিরুদ্ধে আন্দোলন করছি। হাইকোর্টের প্রতি সম্মান রেখে আমরা বলতে চাই হাইকোর্ট যেন কোটার পুনর্বহাল বাতিল করে।

এ-সময় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক থেকে ভিক্টোরিয়া পার্ক ঘুরে বাংলা বাজার মোড় হয়ে পুনরায় প্রধান ফটকের সামনে এসে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মধ্যে দিয়ে মানববন্ধনটি শেষ হয়।