রাজশাহী , মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

যমুনার চরে পেঁয়াজ চাষে লাভবান হচ্ছেন কৃষক

  • আপডেটের সময় : ০৪:৩৭:৪৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৬ মার্চ ২০২৪
  • ৪ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

জনপদ ডেস্ক: যমুনার বুকে শত শত একর জমিতে এবার পেঁয়াজের চাষ হয়েছে। অন্যান্য বছর যে জায়গা পতিত বালুচর হিসেবে পড়ে থাকত সেখানে এখন বিস্তীর্ণ মাঠজুড়ে শোভা পাচ্ছে পেঁয়াজ আর পেঁয়াজ। পেঁয়াজে ভালো ফলন হওয়ায় লাভবান হচ্ছেন কৃষক। জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার চুকাইবারী ইউনিয়নের বাহাদুরাবাদ নৌ টার্মিনালের সামনে যমুনার পতিত বালুচরে চাষ হয়েছে পেঁয়াজের।

বাজারদর ভালো থাকায় কৃষকের মুখে হাসি ফুটে উঠেছে। কৃষি বিভাগ বলছে, সঠিক পরামর্শ এবং সহায়তা দিয়ে উৎপাদন বৃদ্ধিতে সহায়তা করা হয়েছে।

Trulli

উপজেলা কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, এবার উপজেলায় ২২৫ হেক্টর জমিতে পেয়াঁজের চাষ হয়েছে। আবহাওয়া ভালো থাকায় ফলন বেশ ভালো হয়েছে।

উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের চরাঞ্চলে এবং নদীর বুকে প্রায় ১০০ হেক্টর জমিতে এবার পেঁয়াজের চাষ হয়েছে। যেসব জমিতে কোনো ফসল হয় না, সেসব জমিতে প্রতি বিঘায় ২০ থেকে ২৫ মণ পেঁয়াজ উৎপাদন হচ্ছে। মাত্র সাত-আট হাজার টাকা খরচ করে পেঁয়াজ বিক্রি করছে ৬০ থেকে ৭০ হাজার টাকার মতো। বীজ ছিটিয়ে এই পেঁয়াজের চাষ করা হয়েছে।

চুকাইবাড়ী ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা সাজু মিয়া জানান, তিনি ৩৩ শতক জমিতে পেঁয়াজের চাষ করেছিলেন। এর মধ্যে তিনি ১৫ শতকের পেঁয়াজ উঠিয়ে তিন হাজার ৬০০ টাকা মণ বিক্রি করেছেন। তাঁর দাবি আগামী বছর এই যমুনার চরে শত বিঘার বেশি জমিতে পেঁয়াজের চাষ হবে।

উপজেলার আরেক পেঁয়াজচাষি মো. সুরুজ্জামান বলেন, ‘পেঁয়াজের দুইটা প্রদর্শনী দিয়েছে। দুই প্রদর্শনী থেকে পেঁয়াজ উত্তোলন করে ৩৭ মণ পেঁয়াজ ৯২ টাকা কেজি দরে বিক্রি করেছি।’ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মান্নান তিন লাখ টাকা খরচ করে ১০ লাখ টাকার পেঁয়াজ বিক্রি করবেন বলে জানান।

উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মুকুল মিয়া জানান, যমুনাচরের পতিত বালিমাটিতে বীজ ছিটিয়ে পেঁয়াজ চাষ করা হয়। তাই উৎপাদন খরচ অনেক কম, তুলনামূলকভাবে ফলন বেশ ভালো হওয়ায় কৃষকরা লাভবান হচ্ছেন।

দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আলমগীর আজাদ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে সঠিক সময়ে পরামর্শ এবং সহযোগিতা প্রদান করায় এবার এই উপজেলায় পেঁয়াজের বাম্পার ফলন হয়েছে। ভালো দাম পাওয়ায় কৃষকরা খুশি। যমুনাচরের পতিত জমিকে কাজে লাগানোর চেষ্টায় আমরা সফল হয়েছি। আগামীতে এসব জমিতে পেঁয়াজের চাষ বাড়বে।

Adds Banner_2024

যমুনার চরে পেঁয়াজ চাষে লাভবান হচ্ছেন কৃষক

আপডেটের সময় : ০৪:৩৭:৪৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৬ মার্চ ২০২৪

জনপদ ডেস্ক: যমুনার বুকে শত শত একর জমিতে এবার পেঁয়াজের চাষ হয়েছে। অন্যান্য বছর যে জায়গা পতিত বালুচর হিসেবে পড়ে থাকত সেখানে এখন বিস্তীর্ণ মাঠজুড়ে শোভা পাচ্ছে পেঁয়াজ আর পেঁয়াজ। পেঁয়াজে ভালো ফলন হওয়ায় লাভবান হচ্ছেন কৃষক। জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার চুকাইবারী ইউনিয়নের বাহাদুরাবাদ নৌ টার্মিনালের সামনে যমুনার পতিত বালুচরে চাষ হয়েছে পেঁয়াজের।

বাজারদর ভালো থাকায় কৃষকের মুখে হাসি ফুটে উঠেছে। কৃষি বিভাগ বলছে, সঠিক পরামর্শ এবং সহায়তা দিয়ে উৎপাদন বৃদ্ধিতে সহায়তা করা হয়েছে।

Trulli

উপজেলা কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, এবার উপজেলায় ২২৫ হেক্টর জমিতে পেয়াঁজের চাষ হয়েছে। আবহাওয়া ভালো থাকায় ফলন বেশ ভালো হয়েছে।

উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের চরাঞ্চলে এবং নদীর বুকে প্রায় ১০০ হেক্টর জমিতে এবার পেঁয়াজের চাষ হয়েছে। যেসব জমিতে কোনো ফসল হয় না, সেসব জমিতে প্রতি বিঘায় ২০ থেকে ২৫ মণ পেঁয়াজ উৎপাদন হচ্ছে। মাত্র সাত-আট হাজার টাকা খরচ করে পেঁয়াজ বিক্রি করছে ৬০ থেকে ৭০ হাজার টাকার মতো। বীজ ছিটিয়ে এই পেঁয়াজের চাষ করা হয়েছে।

চুকাইবাড়ী ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা সাজু মিয়া জানান, তিনি ৩৩ শতক জমিতে পেঁয়াজের চাষ করেছিলেন। এর মধ্যে তিনি ১৫ শতকের পেঁয়াজ উঠিয়ে তিন হাজার ৬০০ টাকা মণ বিক্রি করেছেন। তাঁর দাবি আগামী বছর এই যমুনার চরে শত বিঘার বেশি জমিতে পেঁয়াজের চাষ হবে।

উপজেলার আরেক পেঁয়াজচাষি মো. সুরুজ্জামান বলেন, ‘পেঁয়াজের দুইটা প্রদর্শনী দিয়েছে। দুই প্রদর্শনী থেকে পেঁয়াজ উত্তোলন করে ৩৭ মণ পেঁয়াজ ৯২ টাকা কেজি দরে বিক্রি করেছি।’ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মান্নান তিন লাখ টাকা খরচ করে ১০ লাখ টাকার পেঁয়াজ বিক্রি করবেন বলে জানান।

উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মুকুল মিয়া জানান, যমুনাচরের পতিত বালিমাটিতে বীজ ছিটিয়ে পেঁয়াজ চাষ করা হয়। তাই উৎপাদন খরচ অনেক কম, তুলনামূলকভাবে ফলন বেশ ভালো হওয়ায় কৃষকরা লাভবান হচ্ছেন।

দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আলমগীর আজাদ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে সঠিক সময়ে পরামর্শ এবং সহযোগিতা প্রদান করায় এবার এই উপজেলায় পেঁয়াজের বাম্পার ফলন হয়েছে। ভালো দাম পাওয়ায় কৃষকরা খুশি। যমুনাচরের পতিত জমিকে কাজে লাগানোর চেষ্টায় আমরা সফল হয়েছি। আগামীতে এসব জমিতে পেঁয়াজের চাষ বাড়বে।