Lead Newsরাজশাহীসারাবাংলা

বাঁচবে সময় কমবে খরচ, মেয়র লিটনের প্রচেষ্টায় আরেকটি মাইলফলক স্পর্শ

নিজস্ব প্রতিবেদক: চমক দেখিয়ে একের পর এক নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি পূরণ করে চলেছেন রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম মেম্বার এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। তার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় এবার প্রায় ৬ দশক পর চালু হচ্ছে রাজশাহী-মুর্শিদাবাদ নৌপথ। এতে পণ্য পরিবহণে ব্যবসায়ীদের সময় বাঁচবে, কমে আসবে খরচ। এককথায়, নতুন মাইলফলক স্পর্শ করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ।

সোমবার (১২ ফেব্রুয়ারি) আনুষ্ঠানিকভাবে নৌপথটি খুলে দেওয়া হচ্ছে। বেলা ১১টায় নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত হয়ে সুলতানগঞ্জ নৌবন্দরের উদ্বোধন করবেন। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার প্রণয় ভার্মা বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন।

এছাড়া বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখবেন রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম মেম্বার এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। অনুষ্ঠানে রাজশাহীর স্থানীয় সংসদ সদস্যসহ প্রশাসন ও সংশ্লিষ্ট দপ্তরের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত থাকবেন।

জানা গেছে, রাজশাহীর গেদাগাড়ী উপজেলার সুলতানগঞ্জ থেকে ময়া নৌঘাটের নদীপথে দূরত্ব মাত্র ১৭ কিলোমিটার। সুলতানগঞ্জ নৌবন্দরের ঘাটটি রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জ মহাসড়ক থেকে এক কিলোমিটার দক্ষিণের পদ্মার শাখা নদী মহানন্দার মোহনার কাছাকাছি। ১৯৬৫ সালে ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধের আগে এ নৌপথ দিয়ে পণ্য আনা-নেওয়া হতো। তবে নানা কারণে দীর্ঘদিন এ নৌপথ ও নদীবন্দর বন্ধ ছিল।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, সুলতানগঞ্জের এ পয়েন্টে সাধারণত সারা বছরই গভীর পানি থাকে। অপরদিকে পশ্চিমবঙ্গের ময়া নৌবন্দরটি মুর্শিদাবাদ জেলার জঙ্গিপুর মহকুমা শহরের কাছে ভারতীয় ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কের সঙ্গে যুক্ত। ফলে সুলতানগঞ্জ-ময়া পথে নৌবাণিজ্য শুরু হলে পণ্য পরিবহন খরচও অনেক কমবে, সময়ও বাঁচবে অনেক। এছাড়া নৌবন্দরটি চালু হলে বিপুলসংখ্যক মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে।

নৌবন্দরটি চালু করতে প্রথম থেকেই অগ্রণী ভূমিকা রয়েছে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম মেম্বার এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের। এটি তার নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি ছিল। শেষ পর্যন্ত এটি অনুমোদন পেয়ে উদ্বোধন হচ্ছে। বাংলাদেশ হয়ে ভারতের উত্তরপূর্ব সীমান্তের সাতটি প্রদেশ রয়েছে, সেগুলোতে মালামাল পৌঁছে দেয়ার পথও সুগম হচ্ছে নৌবন্দর উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে।

৫৯ বছর পর এ নৌবন্দর চালুর ফলে হাজার কোটি টাকার বাণিজ্যের হাতছানি দিচ্ছে। নৌবন্দরটি চালু বাংলাদেশের অর্থনীতিতে নতুন মাইলফলক হবে বলেও মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) চেয়ারম্যান কমোডর আরিফ আহমেদ মোস্তফা বলেন, বাংলাদেশ-ভারত নৌ-প্রটোকলের আওতায় নদীপথে দুই দেশের মধ্যে কম খরচে বিপুল পরিমাণ বাণিজ্য সম্পর্ক বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এতে বাংলাদেশ-ভারতের ব্যবসায়ীরাই সবচেয়ে বেশি উপকৃত হবেন। দুই দেশের বিভিন্ন পণ্য আনা-নেওয়ায় সুলতানগঞ্জ-ময়া নৌরুট হয়ে উঠতে পারে লাভজনক একটি ক্ষেত্র।

আরো দেখুন

সম্পরকিত খবর

Back to top button