রাজশাহী , সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

সাপের ফণায় আগুনের আভা

  • আপডেটের সময় : ০৬:৫০:২০ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৬ ডিসেম্বর ২০১৮
  • ৩৮৩ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: সাপের ফণা নিয়ে রূপকথার অনেক গল্প আছে। সাপের মনি নিয়েও আছে নানা উপাখ্যান। কিন্তু আসলেই সাপের মনি বলে কিছু পাওয়া গেছে বলে নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

তবে এবার সাপের ফনায় দেখা গেলো আগুনের আভা। খামারের মধ্যে ঘুরছে একটি সাপ। তাকে ঘিরে ঘুরছে একটি কুকুর। আর কুকুরটির হাত থেকে নিজেকে রক্ষার জন্য ফণা তুলছে সাপটি। সেই ফণায় দেখা যাচ্ছে আগুনের আভা।

Trulli

ভারতের কর্নাটকের চিকমাগালুর এলাকায় খামারে এমন একটি কেউটে সাপের সন্ধান পেয়েছে গ্রামবাসী। ওই খামারে নিয়মিত সাপটি দেখা যায় বলে দাবি করেছে স্থানীয়রা।

সাপটি যখন ফণা তুলে তখন তার ফণার পেছনের অংশে আগুনে আভা দেখা যায় বলে গ্রামবাসীদের জানায়। উজ্জ্বল লাল আভায় অবশ্য মুগ্ধ গ্রামবাসীরা।

স্থানীয়রা অনেকে মনে করেন সাপটি দৈবপ্রেরিত। তাই এর মধ্যে কোনো অলৌকিক ক্ষমতা রয়েছে। এমন বিশ্বাস থেকে সাপটিকে নিয়মিত পূজা করতে শুরু করেছে গ্রামবাসী।

Adds Banner_2024

সাপের ফণায় আগুনের আভা

আপডেটের সময় : ০৬:৫০:২০ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৬ ডিসেম্বর ২০১৮

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: সাপের ফণা নিয়ে রূপকথার অনেক গল্প আছে। সাপের মনি নিয়েও আছে নানা উপাখ্যান। কিন্তু আসলেই সাপের মনি বলে কিছু পাওয়া গেছে বলে নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

তবে এবার সাপের ফনায় দেখা গেলো আগুনের আভা। খামারের মধ্যে ঘুরছে একটি সাপ। তাকে ঘিরে ঘুরছে একটি কুকুর। আর কুকুরটির হাত থেকে নিজেকে রক্ষার জন্য ফণা তুলছে সাপটি। সেই ফণায় দেখা যাচ্ছে আগুনের আভা।

Trulli

ভারতের কর্নাটকের চিকমাগালুর এলাকায় খামারে এমন একটি কেউটে সাপের সন্ধান পেয়েছে গ্রামবাসী। ওই খামারে নিয়মিত সাপটি দেখা যায় বলে দাবি করেছে স্থানীয়রা।

সাপটি যখন ফণা তুলে তখন তার ফণার পেছনের অংশে আগুনে আভা দেখা যায় বলে গ্রামবাসীদের জানায়। উজ্জ্বল লাল আভায় অবশ্য মুগ্ধ গ্রামবাসীরা।

স্থানীয়রা অনেকে মনে করেন সাপটি দৈবপ্রেরিত। তাই এর মধ্যে কোনো অলৌকিক ক্ষমতা রয়েছে। এমন বিশ্বাস থেকে সাপটিকে নিয়মিত পূজা করতে শুরু করেছে গ্রামবাসী।