রাজশাহী , বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

‘১৭৩ বছরে উপমহাদেশের ৪৫ ট্রিলিয়ন ডলার লুটেছিল ব্রিটিশ’

  • আপডেটের সময় : ১১:৪৫:১০ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৫ ডিসেম্বর ২০১৮
  • ৭২ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : প্রায় ২০০ বছর ষড়যন্ত্র করে ভারতীয় উপমহাদেশ রাজ করেছিল ব্রিটিশ। সেসময় তাদের চরম বর্বরতার শিকার হতে হয়েছিল গোটা উপমহাদেশকে। তখন তাদের শোষণে দেশে দেখা দিয়েছিল মহা দুর্ভিক্ষও। যা সবারই কমবেশি জানা। এটাও জানা, ব্রিটিশরা এ দেশ ‘লুট’ করেছিলেন তাদের ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির অস্বাভাবিক নির্যাতনের মাধ্যমে। কিন্তু এই দুই শতাব্দীতে তারা কী পরিমাণ অর্থ উপমহাদেশ থেকে ‘লুট’ করেছিলেন তা কী কারও জানা?

প্রশ্নটি অনেক কঠিন এবং তারা দেশ থেকে এতো বেশি পরিমাণ সম্পদ ‘লুট’ করেছিলেন যে, একে সংখ্যায় মেলানো যে কারও পক্ষে বেশ ঢের। তারপরও এই প্রশ্নের গ্রহণযোগ্য উত্তরের খোঁজে গবেষণা করেছেন ভারতের প্রখ্যাত অর্থনীতিবিদ উৎস পতনাইক।

Trulli

অনেক ভারতীয় জানতে বেশ আগ্রহী এই প্রশ্নের উত্তরটি দিতে তিনি ঔপনিবেশিক ভারত ও ব্রিটেনের মধ্যে আর্থিক সম্পর্ক বিষয়ে গবেষণা চালিয়েছেন। এরপর তিনি এর একটি উত্তরও দিয়েছেন।

সম্প্রতি কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটির প্রেসে প্রকাশিত একটি প্রবন্ধে তিনি এ বিষয়ে সরাসরি বলেছেন, ব্রিটিশরা এই দুই শতাব্দীতে ভারতীয়দের শোষণ করে এ দেশ থেকে ৪৫ ট্রিলিয়ন (এক ট্রিলিয়ন সমান এক হাজার বিলিয়ন বা এক লাখ কোটি) মার্কিন ডলারেরও বেশি অর্থ ‘লুট’ করেছিলেন। যা পরবর্তীতে দেশটির দারিদ্র্য জীবন থেকে বেরিয়ে আসার ক্ষমতাকে চরম ব্যাহত করে।

ভারতবর্ষে ঔপনিবেশিক শাসনের চিত্রতিনি বলেন, ব্রিটিশরা ভারতকে এতো বেশি বিত্ত হরণ করেছিল যে, তারা ৭০ বছর হয়ে গেছে এ দেশ ছেড়েছিলেন, তারপরও এখানে ঔপনিবেশিকতার ক্ষত রয়ে গেছে। ব্রিটেন ১৭৬৫ থেকে ১৯৩৮ সালের মধ্যে এই ১৭৩ বছরে উপমহাদেশ থেকে ৯ দশমিক ২ ট্রিলিয়ন পাউন্ড (৪৫ ট্রিলিয়ন ডলার) ‘ছিনিয়ে নিয়েছিলেন’ কৌশলে।

সাক্ষাৎকারে এ অর্থনীতিবিদ বলেন, ভারতীয়দের স্বর্ণসহ মূল্যবান সম্পদ হরণ করেছিল ব্রিটেন। এমনকি এর বিনিময়ে তারা ভারতীয়দের যাথাযথ ক্রেডিটও দেয়নি।

উৎসের গবেষণার তথ্য অনুযায়ী, ১৯০০ থেকে ১৯৪৫ বা ৪৬ সাল পর্যন্ত সময়ে ব্রিটিশ ভারতে মাথাপিছু আয় প্রায় স্থিরই ছিল। ১৯০০ থেকে ১৯০২ সাল পর্যন্ত দেশের মাথাপিছু আয় ছিল ১৯৬ দশমিক ১ রুপি। এরপর ১৯৪৫ বা ৪৬ সাল দেশের স্বাধীনতা অর্জনের এক বছর আগ পর্যন্ত মাথাপিছু আয় দাঁড়িয়েছিল ২০১ দশমিক ৯ রুপিতে। এই দীর্ঘ সময়ে দেশের আয় বেড়েছিল মাত্র ৫ দশমিক ৮ রুপি।

কিন্তু এক বছর পরেই যখন ভারত স্বাধীনতা অর্জন করলো, তখন অল্প সময়ের ব্যবধানেই দেশের মাথাপিছু আয়ে উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি দেখা দিয়েছিল। এর একমাত্র কারণ ব্রিটিশ শোষণ। তাদের ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি এদেশের নিরীহ মানুষকে অতিরিক্ত রাজস্বের বোঝা চাপিয়ে দিয়ে যেমন খুশি তেমনভাবে শাসন করেছিল বলেই এই পঙ্গুত্ব ছিল অর্থনীতিতে।ভারতবর্ষে ঔপনিবেশিক শাসনের চিত্রএই কোম্পানি শাসনামলে দেশে যে ভয়াবহ দুর্ভিক্ষ দেখা দিয়েছিল; অর্থনীতিতে যে ভাটা পড়েছিল, তার ক্ষত আজও সেরে উঠতে পারেনি ভারত- উল্লেখ করেন উৎস পতনাইক।

তবে তিনি এও বলেন, ১৯৩০ থেকে ৩২ সাল পর্যন্ত এই দুইবছর ব্রিটিশ ভারতে মাথাপিছু আয় কিছুটা বেড়েছিল। সেসময় ২২৩ দশমিক ৮ রুপিতে গিয়েছিল একজন মানুষের গড় আয়। যদিও পরে ঠিকই ২০০ রুপির কাছে গিয়েই ঠেকেছিল।

প্রখ্যাত এ অর্থনীতিবিদ বলেন, ব্রিটিশ কোম্পানির শেষ পর্যায়ের শোষণ যখন ভারতীয়দের কাঁধে এসে পড়ে, তখন দেশের রফতানি বাণিজ্য থমকে গিয়েছিল। অথচ ১৯২৯ সাল থেকে তিন দশক আগেও ভারত দ্বিতীয় বৃহত্তম রফতানি বাণিজ্যকারী দেশ হিসেবে নাম লিখিয়েছিল বিশ্ব অর্থনীতিতে।ভারতবর্ষে ঔপনিবেশিক শাসনের চিত্র১৭৫৭ সালে পলাশীর যুদ্ধে বাংলার নবাব কোম্পানির হাতে পরাজিত হলে মূলত এই শাসনের সূচনা ঘটে। যদিও ১৭৬৫ সালে বাংলা ও বিহারের দেওয়ানি অর্থাৎ রাজস্ব সংগ্রহের অধিকার লাভ করে ইস্ট ইন্ডিয়া। এরপর ১৯৪৭ সাল পর্যন্ত ১৮২ বছর ভারতীয় উপমহাদেশ শাসন করেছিল ব্রিটেন।

দীর্ঘ এই সময়ে ব্রিটিশরা ভারতে নানা উন্নয়নমূলক কাজ, বিভিন্ন প্রথার বিলোপ, শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নয়নসহ মানুষের জীবনমান নিয়ে ভাবলেও মূলত রাজস্ব আদায় করে দেশটির অর্থনীতিকে পঙ্গু করে ফেলেছিলেন তারা

Adds Banner_2024

‘১৭৩ বছরে উপমহাদেশের ৪৫ ট্রিলিয়ন ডলার লুটেছিল ব্রিটিশ’

আপডেটের সময় : ১১:৪৫:১০ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৫ ডিসেম্বর ২০১৮

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : প্রায় ২০০ বছর ষড়যন্ত্র করে ভারতীয় উপমহাদেশ রাজ করেছিল ব্রিটিশ। সেসময় তাদের চরম বর্বরতার শিকার হতে হয়েছিল গোটা উপমহাদেশকে। তখন তাদের শোষণে দেশে দেখা দিয়েছিল মহা দুর্ভিক্ষও। যা সবারই কমবেশি জানা। এটাও জানা, ব্রিটিশরা এ দেশ ‘লুট’ করেছিলেন তাদের ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির অস্বাভাবিক নির্যাতনের মাধ্যমে। কিন্তু এই দুই শতাব্দীতে তারা কী পরিমাণ অর্থ উপমহাদেশ থেকে ‘লুট’ করেছিলেন তা কী কারও জানা?

প্রশ্নটি অনেক কঠিন এবং তারা দেশ থেকে এতো বেশি পরিমাণ সম্পদ ‘লুট’ করেছিলেন যে, একে সংখ্যায় মেলানো যে কারও পক্ষে বেশ ঢের। তারপরও এই প্রশ্নের গ্রহণযোগ্য উত্তরের খোঁজে গবেষণা করেছেন ভারতের প্রখ্যাত অর্থনীতিবিদ উৎস পতনাইক।

Trulli

অনেক ভারতীয় জানতে বেশ আগ্রহী এই প্রশ্নের উত্তরটি দিতে তিনি ঔপনিবেশিক ভারত ও ব্রিটেনের মধ্যে আর্থিক সম্পর্ক বিষয়ে গবেষণা চালিয়েছেন। এরপর তিনি এর একটি উত্তরও দিয়েছেন।

সম্প্রতি কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটির প্রেসে প্রকাশিত একটি প্রবন্ধে তিনি এ বিষয়ে সরাসরি বলেছেন, ব্রিটিশরা এই দুই শতাব্দীতে ভারতীয়দের শোষণ করে এ দেশ থেকে ৪৫ ট্রিলিয়ন (এক ট্রিলিয়ন সমান এক হাজার বিলিয়ন বা এক লাখ কোটি) মার্কিন ডলারেরও বেশি অর্থ ‘লুট’ করেছিলেন। যা পরবর্তীতে দেশটির দারিদ্র্য জীবন থেকে বেরিয়ে আসার ক্ষমতাকে চরম ব্যাহত করে।

ভারতবর্ষে ঔপনিবেশিক শাসনের চিত্রতিনি বলেন, ব্রিটিশরা ভারতকে এতো বেশি বিত্ত হরণ করেছিল যে, তারা ৭০ বছর হয়ে গেছে এ দেশ ছেড়েছিলেন, তারপরও এখানে ঔপনিবেশিকতার ক্ষত রয়ে গেছে। ব্রিটেন ১৭৬৫ থেকে ১৯৩৮ সালের মধ্যে এই ১৭৩ বছরে উপমহাদেশ থেকে ৯ দশমিক ২ ট্রিলিয়ন পাউন্ড (৪৫ ট্রিলিয়ন ডলার) ‘ছিনিয়ে নিয়েছিলেন’ কৌশলে।

সাক্ষাৎকারে এ অর্থনীতিবিদ বলেন, ভারতীয়দের স্বর্ণসহ মূল্যবান সম্পদ হরণ করেছিল ব্রিটেন। এমনকি এর বিনিময়ে তারা ভারতীয়দের যাথাযথ ক্রেডিটও দেয়নি।

উৎসের গবেষণার তথ্য অনুযায়ী, ১৯০০ থেকে ১৯৪৫ বা ৪৬ সাল পর্যন্ত সময়ে ব্রিটিশ ভারতে মাথাপিছু আয় প্রায় স্থিরই ছিল। ১৯০০ থেকে ১৯০২ সাল পর্যন্ত দেশের মাথাপিছু আয় ছিল ১৯৬ দশমিক ১ রুপি। এরপর ১৯৪৫ বা ৪৬ সাল দেশের স্বাধীনতা অর্জনের এক বছর আগ পর্যন্ত মাথাপিছু আয় দাঁড়িয়েছিল ২০১ দশমিক ৯ রুপিতে। এই দীর্ঘ সময়ে দেশের আয় বেড়েছিল মাত্র ৫ দশমিক ৮ রুপি।

কিন্তু এক বছর পরেই যখন ভারত স্বাধীনতা অর্জন করলো, তখন অল্প সময়ের ব্যবধানেই দেশের মাথাপিছু আয়ে উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি দেখা দিয়েছিল। এর একমাত্র কারণ ব্রিটিশ শোষণ। তাদের ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি এদেশের নিরীহ মানুষকে অতিরিক্ত রাজস্বের বোঝা চাপিয়ে দিয়ে যেমন খুশি তেমনভাবে শাসন করেছিল বলেই এই পঙ্গুত্ব ছিল অর্থনীতিতে।ভারতবর্ষে ঔপনিবেশিক শাসনের চিত্রএই কোম্পানি শাসনামলে দেশে যে ভয়াবহ দুর্ভিক্ষ দেখা দিয়েছিল; অর্থনীতিতে যে ভাটা পড়েছিল, তার ক্ষত আজও সেরে উঠতে পারেনি ভারত- উল্লেখ করেন উৎস পতনাইক।

তবে তিনি এও বলেন, ১৯৩০ থেকে ৩২ সাল পর্যন্ত এই দুইবছর ব্রিটিশ ভারতে মাথাপিছু আয় কিছুটা বেড়েছিল। সেসময় ২২৩ দশমিক ৮ রুপিতে গিয়েছিল একজন মানুষের গড় আয়। যদিও পরে ঠিকই ২০০ রুপির কাছে গিয়েই ঠেকেছিল।

প্রখ্যাত এ অর্থনীতিবিদ বলেন, ব্রিটিশ কোম্পানির শেষ পর্যায়ের শোষণ যখন ভারতীয়দের কাঁধে এসে পড়ে, তখন দেশের রফতানি বাণিজ্য থমকে গিয়েছিল। অথচ ১৯২৯ সাল থেকে তিন দশক আগেও ভারত দ্বিতীয় বৃহত্তম রফতানি বাণিজ্যকারী দেশ হিসেবে নাম লিখিয়েছিল বিশ্ব অর্থনীতিতে।ভারতবর্ষে ঔপনিবেশিক শাসনের চিত্র১৭৫৭ সালে পলাশীর যুদ্ধে বাংলার নবাব কোম্পানির হাতে পরাজিত হলে মূলত এই শাসনের সূচনা ঘটে। যদিও ১৭৬৫ সালে বাংলা ও বিহারের দেওয়ানি অর্থাৎ রাজস্ব সংগ্রহের অধিকার লাভ করে ইস্ট ইন্ডিয়া। এরপর ১৯৪৭ সাল পর্যন্ত ১৮২ বছর ভারতীয় উপমহাদেশ শাসন করেছিল ব্রিটেন।

দীর্ঘ এই সময়ে ব্রিটিশরা ভারতে নানা উন্নয়নমূলক কাজ, বিভিন্ন প্রথার বিলোপ, শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নয়নসহ মানুষের জীবনমান নিয়ে ভাবলেও মূলত রাজস্ব আদায় করে দেশটির অর্থনীতিকে পঙ্গু করে ফেলেছিলেন তারা