রাজশাহী , শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
রাজশাহীতে ঈদের প্রধান জামাত সকাল সাড়ে ৭টায় রাজশাহীতে র‌্যাবের জালে ২৪ জুয়াড়ি লাব্বাইক ধ্বনিতে মুখর আরাফাত ময়দান পবিত্র হজ আজ এমপি আনার হত্যা: আ.লীগ নেতা গ্যাস বাবুর দোষ স্বীকার টুং টাং শব্দে ব্যস্ত সময় পার করছে রাজশাহীর কামাররা রেমালে ক্ষতিগ্রস্ত ১২৭৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান যুগান্তর পত্রিকায় মেয়রসহ তার পরিবারকে নিয়ে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ ও ব্যাখ্যা কাল থেকে টানা ৫ দিনের ছুটিতে যাচ্ছেন সরকারি চাকরিজীবীরা ফের দি‌ল্লি যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বগুড়ায় ব্যাংকের সিন্দুক কেটে ২৯ লাখ টাকা লুট বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার মধ্যে চলবে যাত্রীবাহী ফেরি শেখ হাসিনাকে ‘কোয়ালিশন অব লিডার্স’-এ চায় গ্লোবাল ফান্ড তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি : প্রধানমন্ত্রী দুর্যোগ মোকাবিলায় ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা জানালেন প্রধানমন্ত্রী বেনজীর পরিবারের আরও সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ বড় দুঃসংবাদ পেলেন সাকিব পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে : প্রধানমন্ত্রী কুয়েতে ভবনে ভয়াবহ আগুন, নিহত অন্তত ৩৯ আনার হত্যাকাণ্ড : ডিবি কার্যালয়ে ঝিনাইদহ আ. লীগ সম্পাদক মিন্টু

রেলের ক্ষতিপূরণ না পাওয়ার শঙ্কায় স্ট্রোকে নারীর মৃত্যু

  • আপডেটের সময় : ১০:৪৮:০৫ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৫ ডিসেম্বর ২০১৮
  • ৮৯ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

কক্সবাজার প্রতিনিধি: কক্সবাজারের রামুতে রেলওয়ের জমি অধিগ্রহণের ক্ষতিপূরণের টাকা পাওয়ার আগেই বসতবাড়ি উচ্ছেদের প্রক্রিয়া শুরু হওয়ায় দুশ্চিন্তায় স্ট্রোক করে খালেদা বেগম (৫২) নামের এক গৃহবধূ মারা গেছেন বলে দাবি করেছেন তার স্বজনরা।

মঙ্গলবার (৪ ডিসেম্বর) দুপুরে রামুর ফতেখাঁরকুল ইউনিয়নের সাত ঘরিয়া পাড়া গ্রামে খালেদা মারা যান। তিনি ওই গ্রামের উলা মিয়ার মেয়ে এবং আজিজ মিয়ার স্ত্রী। আজিজ মিয়া বিয়ের ১৪-১৫ বছর পরেই খালেদা ও তার সন্তানদের রেখে পালিয়ে গেছেন।

Trulli

খালেদার মৃত্যুর খবর পেয়ে রামু উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রিয়াজ উল আলম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. লুৎফুর রহমান, ফতেখাঁরকুল ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান ফরিদুল আলম ও রামু থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ছানা উল্লাহ তার বাড়িতে যান। এসময় উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে খালেদা বেগমের পরিবারকে ২০ হাজার টাকা নগদ অর্থ সহায়তা দেন ইউএনও।

খালেদা বেগমের বড় ভাই নুরুল আলম জানান, বিয়ের ১২-১৫ বছর পরেই তার বোন ও সন্তানদের ফেলে অাজিজ মিয়া চলে যান। সেই থেকে আর তাদের সঙ্গে আজিজের কোনো যোগাযোগ নেই। এ অবস্থায় ছোট ছোট ৪ ছেলে ও ২ মেয়ে নিয়ে খুব বেকায়দায় পড়েন খালেদা বেগম। যাপন করতে থাকেন মানবেতর জীবন। এক পর্যায়ে খালেদা বেগম পৈতৃক সূত্রে পাওয়া ৯ শতক জমিতে ছোট একটি ছনের ঘর করে বসবাস করছিলেন।

সম্প্রতি ওই জমিটি রেললাইনের জন্য অধিগ্রহণ করা হলে ক্ষতিপূরণের টাকার জন্য জেলা প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট শাখায় দফায় দফায় যোগাযোগ করেন খালেদা বেগম। কিন্তু ওই জমি নিয়ে বিরোধ থাকায় ক্ষতি পূরণের টাকা পাচ্ছিলেন না খালেদা।

এর মধ্যে রেললাইনের কাজ শুরু করার জন্য তাকে ভিটেটি ছেড়ে দেওয়ার জন্য বারবার তাগিদ দেওয়া হলে দিশহীন হয়ে পড়েন তিনি। এরপর গত ২২ নভেম্বর থেকে বসতভিটের সুপারি গাছ কাটা শুরু করা হয়। এ দৃশ্য দেখে আহাজারি করতে থাকেন খালেদা, এক পর্যায়ে ব্রেইন স্ট্রোকও করেন তিনি।

জমি নিয়ে জটিলতার বিষয়টি তুলে ধরে নুরুল আলম জানান, পৈতৃক সূত্রে পাওয়া ৯ শতক জমিতে ২০ বছর ধরে বসত বাড়ি তৈরি করে সপরিবারে বসবাস করে আসছিলেন খালেদা। কিন্তু মৌখিক দানপত্র করার ভুয়া তথ্য দিয়ে একটি মামলা করে ২০১৩ সালে আদালত থেকে ডিক্রি নিয়ে জমিটি জবরদখলের চেষ্টা চালিয়ে আসছিলেন ইটভাটা মালিক মোজাফ্ফর আহমদ। পরে মামলার বিষয়টি জানাজানি হলে খালেদা বেগম ওই মামলার রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন, যা এখনো বিচারাধীন রয়েছে।

খালেদার বড় ছেলে হারুন তার মায়ের মৃত্যুর জন্য সম্পর্কে মামা মোজাফ্ফর আহমদকে দায়ী করে বলেন, তিনি (মোজাফ্ফর) মামলা দিয়ে হয়রানি না করলে এতোদিনে আমরা রেলের ক্ষতিপূরণ পেয়ে যেতাম। অন্যত্র জমি কিনে বসবাস করতে পারতাম। আমরা মোজাফ্ফর আহমদের কঠোর শাস্তির দাবি করি।

এ বিষয়ে ফতেখাঁরকুল ইউপি চেয়ারম্যান ফরিদুল আলম বলেন, ঘটনাটি খুবই দুঃখজনক। রেলের কাজ শুরু হয়ে গেলেও তিনি ক্ষতিপূরণের টাকা পাননি। এ অবস্থায় ছেলে-মেয়েদের নিয়ে কোথায় যাবেন তা নিয়ে চিন্তায় পড়েন খালেদা বেগম। যে কারণে স্ট্রোক করে মারা যান তিনি।

যোগাযোগ করা হলে রামু উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. লুৎফুর রহমান বলেন, জমি নিয়ে বিরোধ সহসা নিষ্পত্তির উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। এছাড়া খালেদা বেগমের পরিবারকে তাৎক্ষণিকভাবে ২০ হাজার টাকা অর্থ সহায়তা দেওয়া হয়েছে।

Adds Banner_2024

রেলের ক্ষতিপূরণ না পাওয়ার শঙ্কায় স্ট্রোকে নারীর মৃত্যু

আপডেটের সময় : ১০:৪৮:০৫ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৫ ডিসেম্বর ২০১৮

কক্সবাজার প্রতিনিধি: কক্সবাজারের রামুতে রেলওয়ের জমি অধিগ্রহণের ক্ষতিপূরণের টাকা পাওয়ার আগেই বসতবাড়ি উচ্ছেদের প্রক্রিয়া শুরু হওয়ায় দুশ্চিন্তায় স্ট্রোক করে খালেদা বেগম (৫২) নামের এক গৃহবধূ মারা গেছেন বলে দাবি করেছেন তার স্বজনরা।

মঙ্গলবার (৪ ডিসেম্বর) দুপুরে রামুর ফতেখাঁরকুল ইউনিয়নের সাত ঘরিয়া পাড়া গ্রামে খালেদা মারা যান। তিনি ওই গ্রামের উলা মিয়ার মেয়ে এবং আজিজ মিয়ার স্ত্রী। আজিজ মিয়া বিয়ের ১৪-১৫ বছর পরেই খালেদা ও তার সন্তানদের রেখে পালিয়ে গেছেন।

Trulli

খালেদার মৃত্যুর খবর পেয়ে রামু উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রিয়াজ উল আলম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. লুৎফুর রহমান, ফতেখাঁরকুল ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান ফরিদুল আলম ও রামু থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ছানা উল্লাহ তার বাড়িতে যান। এসময় উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে খালেদা বেগমের পরিবারকে ২০ হাজার টাকা নগদ অর্থ সহায়তা দেন ইউএনও।

খালেদা বেগমের বড় ভাই নুরুল আলম জানান, বিয়ের ১২-১৫ বছর পরেই তার বোন ও সন্তানদের ফেলে অাজিজ মিয়া চলে যান। সেই থেকে আর তাদের সঙ্গে আজিজের কোনো যোগাযোগ নেই। এ অবস্থায় ছোট ছোট ৪ ছেলে ও ২ মেয়ে নিয়ে খুব বেকায়দায় পড়েন খালেদা বেগম। যাপন করতে থাকেন মানবেতর জীবন। এক পর্যায়ে খালেদা বেগম পৈতৃক সূত্রে পাওয়া ৯ শতক জমিতে ছোট একটি ছনের ঘর করে বসবাস করছিলেন।

সম্প্রতি ওই জমিটি রেললাইনের জন্য অধিগ্রহণ করা হলে ক্ষতিপূরণের টাকার জন্য জেলা প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট শাখায় দফায় দফায় যোগাযোগ করেন খালেদা বেগম। কিন্তু ওই জমি নিয়ে বিরোধ থাকায় ক্ষতি পূরণের টাকা পাচ্ছিলেন না খালেদা।

এর মধ্যে রেললাইনের কাজ শুরু করার জন্য তাকে ভিটেটি ছেড়ে দেওয়ার জন্য বারবার তাগিদ দেওয়া হলে দিশহীন হয়ে পড়েন তিনি। এরপর গত ২২ নভেম্বর থেকে বসতভিটের সুপারি গাছ কাটা শুরু করা হয়। এ দৃশ্য দেখে আহাজারি করতে থাকেন খালেদা, এক পর্যায়ে ব্রেইন স্ট্রোকও করেন তিনি।

জমি নিয়ে জটিলতার বিষয়টি তুলে ধরে নুরুল আলম জানান, পৈতৃক সূত্রে পাওয়া ৯ শতক জমিতে ২০ বছর ধরে বসত বাড়ি তৈরি করে সপরিবারে বসবাস করে আসছিলেন খালেদা। কিন্তু মৌখিক দানপত্র করার ভুয়া তথ্য দিয়ে একটি মামলা করে ২০১৩ সালে আদালত থেকে ডিক্রি নিয়ে জমিটি জবরদখলের চেষ্টা চালিয়ে আসছিলেন ইটভাটা মালিক মোজাফ্ফর আহমদ। পরে মামলার বিষয়টি জানাজানি হলে খালেদা বেগম ওই মামলার রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন, যা এখনো বিচারাধীন রয়েছে।

খালেদার বড় ছেলে হারুন তার মায়ের মৃত্যুর জন্য সম্পর্কে মামা মোজাফ্ফর আহমদকে দায়ী করে বলেন, তিনি (মোজাফ্ফর) মামলা দিয়ে হয়রানি না করলে এতোদিনে আমরা রেলের ক্ষতিপূরণ পেয়ে যেতাম। অন্যত্র জমি কিনে বসবাস করতে পারতাম। আমরা মোজাফ্ফর আহমদের কঠোর শাস্তির দাবি করি।

এ বিষয়ে ফতেখাঁরকুল ইউপি চেয়ারম্যান ফরিদুল আলম বলেন, ঘটনাটি খুবই দুঃখজনক। রেলের কাজ শুরু হয়ে গেলেও তিনি ক্ষতিপূরণের টাকা পাননি। এ অবস্থায় ছেলে-মেয়েদের নিয়ে কোথায় যাবেন তা নিয়ে চিন্তায় পড়েন খালেদা বেগম। যে কারণে স্ট্রোক করে মারা যান তিনি।

যোগাযোগ করা হলে রামু উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. লুৎফুর রহমান বলেন, জমি নিয়ে বিরোধ সহসা নিষ্পত্তির উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। এছাড়া খালেদা বেগমের পরিবারকে তাৎক্ষণিকভাবে ২০ হাজার টাকা অর্থ সহায়তা দেওয়া হয়েছে।