রাজশাহী , মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
তিস্তা মহাপরিকল্পনায় চীন-ভারতের ভারসাম্য কীভাবে? বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তার পানি বণ্টন সম্ভব নয় : মমতা মারা গেছেন ‘জল্লাদ’ শাহজাহান ‘প্রযুক্তিজ্ঞান ছাড়া দেশ বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে পারে না’ দুদকে হা‌জির হন‌নি বেনজীর, আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা রাজশাহীতে দেখা মিলল সাত রাসেলস ভাইপারের, পিটিয়ে মারলো এলাকাবাসী নগর যুবলীগের পদ থেকে সরে দাঁড়ালেন শফিকুজ্জামান শফিক আওয়ামী লীগ জনগণের শক্তিতে বিশ্বাস করে : প্রধানমন্ত্রী বন্যায় স্থগিত জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন পরীক্ষা আ’লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী একাদশে ভর্তির প্রথম ধাপের ফল প্রকাশ আজ দীর্ঘদিনের প্রচেষ্টায় বাস্তবায়ন হচ্ছে রাসিক মেয়র লিটনের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি রাজশাহী-কলকাতা ট্রেন চালুর ঘোষণা আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী আগামীকাল দিল্লির রাষ্ট্রপতি ভবনে শেখ হাসিনাকে লাল গালিচা সংবর্ধনা রাজশাহী মহানগর যুবলীগের নেতৃত্বে মনি,রনি ও জেলায় সজল,সৈকত নির্বাচিত  প্রধানমন্ত্রীর কণ্ঠ শুনেই ছুটে এলো খরগোশের দল ঈদের দিন বন্ধ থাকবে সব আন্তঃনগর ট্রেন রাসিক মেয়র ও তার পরিবারের সদস্যদের জড়িয়ে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছে উলামা কল্যাণ পরিষদ রাজশাহীতে ঈদের প্রধান জামাত সকাল সাড়ে ৭টায়

সংরক্ষণের অভাবে ক্ষতির মুখে লক্ষ্মীবিলের ফুলচাষিরা

  • আপডেটের সময় : ১০:১৪:০৬ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৫ ডিসেম্বর ২০১৮
  • ৭৭ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: উত্তর-পূর্ব ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের সিপাহীজলা জেলার বিশালগড় শহর। এ শহর থেকে পূর্ব দিকে প্রায় ১ কিমি গেলেই লক্ষ্মীবিল গ্রাম। ফুল চাষের জন্য গ্রামটি আজ বেশ পরিচিত।

গ্রামের পাকা সড়ক ধরে সামনে গেলে সমতল জমিতে যেমন ধানসহ অন্যান্য সবজির খেত চোখে পড়ে তেমনি চোখ পড়ে কমলা ও হলুদ রঙের গাঁদা ফুলের বাগান।

Trulli

গ্রামের যত ভেতরের দিকে ঢোকা যায় ততই গাঁদা ফুলের বাগান আরও বেশি চোখে পড়ে। সেই সঙ্গে দেখা মেলে দেশ-বিদেশের ফুল চাষের জন্য গ্রিন হাউস ও অন্যান্য ফুলের বাগানও।

লক্ষ্মীবিল এলাকার প্রায় ৭০ শতাংশ মানুষের প্রধান পেশা হচ্ছে ফুল চাষ। রাজ্যের অন্যান্য এলাকাতে ফুল চাষ হলেও তবে তা তুলনামূলক-ভাবে অনেক কম।

লক্ষ্মীবিলের রাখী দাস চৌধুরী নামে এক ফুল চাষি জানান, ফুল চাষের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে ত্রিপুরা রাজ্যে ফুল সংরক্ষণ করার মতো কোনো হিমাগার নেই। তাই তোলা ফুল বিক্রি না হলে নষ্ট হয়ে যায়। আবার বৃষ্টির কারণে অনেক সময় ফুল পচে নষ্ট হয়।

তিনি আরও বলেন, তার পরিবারের ফুল চাষই এখন প্রধান পেশা। গত ১৯ বছর ধরে তারা ফুল চাষ করছেন। এ বছর তারা প্রায় এক বিঘা জমিতে গাঁদা ফুলের চাষ করেছেন। তাছাড়া অল্প জমিতে গ্রেডুলাক্স ফুল ও অন্যান্য সবজি চাষ করেছেন।

গাঁদা ফুল বেশি পরিমাণে চাষ করার কারণ হিসেবে তিনি জানান, সারা বছর ধরে এ ফুল চাষ হয়। এখানে অনেকে এ ফুল চাষের সঙ্গে যুক্ত। তবে শীতকালে গাঁদা ছাড়া অন্যান্য প্রজাতির ফুলও চাষ করা হয়।

ফুল চাষে লাভ নিয়ে রাখী বলেন, বাজারের চাহিদা যখন বেশি থাকলে ফুল উৎপাদন করতে পারলে বেশ লাভ হয়।

ভারতের অন্যান্য রাজে ফুল থেকে আবিরসহ নানান রঙ-বেরঙের খাবার জন্য রঙ তৈরি করা হয়। কিন্তু ত্রিপুরা রাজ্য ফুল থেকে আবির বা রং তৈরির কোনো কারখানা নেই। যদি থাকতো তবে ফুল ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি পাশাপাশি কারখানাতেও বিক্রি করা যেতো। এতে একটি ফুলও নষ্ট হতো না। কিন্তু এখনো ত্রিপুরা রাজ্যে এমন কারখানা স্থাপনের কোনো উদ্যোগ নেই বলেও জানান রাখী।

আরেক ফুল চাষি প্রদীপ দেবনাথ বলেন, ফুল চাষের জন্য ৭ বিঘা জমি ব্যবহার করছি। এর মধ্যে ৫ বিঘা জমিতে ফুল চাষ করছি আর দু’বিঘা জমিতে নার্সারি করেছি। এ দু’বিঘা জমিতে গোলাপ, ডালিয়া, চন্দ্র মল্লিকা, বেঞ্জি, ডায়ানতাস, গাঁদাসহ আরও অনেক জাতের ফুলের চাষ করছি।

ফুল ব্যবসার লাভ নিয়ে তিনি বলেন, বিয়েসহ নানা উৎসবে ফুলের প্রয়োজন হয়। এ উৎসবের দিন গুলোতে ফুল তোলতে পারলে লাভ ভালই থাকে।

চিত্তরঞ্জন নাথ নামের আরেক ফুল চাষি জানান, ফুল চাষ করে বেশ ভালোই আছেন, এ বছর তিনি ৭ কাটা জমিতে গাঁদা ফুল চাষ করেছেন। ফুল চাষ এ এলাকার অনেক মানুষের আর্থিক অবস্থার উন্নতি হয়েছে বলে জানান তিনি।

Adds Banner_2024

সংরক্ষণের অভাবে ক্ষতির মুখে লক্ষ্মীবিলের ফুলচাষিরা

আপডেটের সময় : ১০:১৪:০৬ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৫ ডিসেম্বর ২০১৮

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: উত্তর-পূর্ব ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের সিপাহীজলা জেলার বিশালগড় শহর। এ শহর থেকে পূর্ব দিকে প্রায় ১ কিমি গেলেই লক্ষ্মীবিল গ্রাম। ফুল চাষের জন্য গ্রামটি আজ বেশ পরিচিত।

গ্রামের পাকা সড়ক ধরে সামনে গেলে সমতল জমিতে যেমন ধানসহ অন্যান্য সবজির খেত চোখে পড়ে তেমনি চোখ পড়ে কমলা ও হলুদ রঙের গাঁদা ফুলের বাগান।

Trulli

গ্রামের যত ভেতরের দিকে ঢোকা যায় ততই গাঁদা ফুলের বাগান আরও বেশি চোখে পড়ে। সেই সঙ্গে দেখা মেলে দেশ-বিদেশের ফুল চাষের জন্য গ্রিন হাউস ও অন্যান্য ফুলের বাগানও।

লক্ষ্মীবিল এলাকার প্রায় ৭০ শতাংশ মানুষের প্রধান পেশা হচ্ছে ফুল চাষ। রাজ্যের অন্যান্য এলাকাতে ফুল চাষ হলেও তবে তা তুলনামূলক-ভাবে অনেক কম।

লক্ষ্মীবিলের রাখী দাস চৌধুরী নামে এক ফুল চাষি জানান, ফুল চাষের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে ত্রিপুরা রাজ্যে ফুল সংরক্ষণ করার মতো কোনো হিমাগার নেই। তাই তোলা ফুল বিক্রি না হলে নষ্ট হয়ে যায়। আবার বৃষ্টির কারণে অনেক সময় ফুল পচে নষ্ট হয়।

তিনি আরও বলেন, তার পরিবারের ফুল চাষই এখন প্রধান পেশা। গত ১৯ বছর ধরে তারা ফুল চাষ করছেন। এ বছর তারা প্রায় এক বিঘা জমিতে গাঁদা ফুলের চাষ করেছেন। তাছাড়া অল্প জমিতে গ্রেডুলাক্স ফুল ও অন্যান্য সবজি চাষ করেছেন।

গাঁদা ফুল বেশি পরিমাণে চাষ করার কারণ হিসেবে তিনি জানান, সারা বছর ধরে এ ফুল চাষ হয়। এখানে অনেকে এ ফুল চাষের সঙ্গে যুক্ত। তবে শীতকালে গাঁদা ছাড়া অন্যান্য প্রজাতির ফুলও চাষ করা হয়।

ফুল চাষে লাভ নিয়ে রাখী বলেন, বাজারের চাহিদা যখন বেশি থাকলে ফুল উৎপাদন করতে পারলে বেশ লাভ হয়।

ভারতের অন্যান্য রাজে ফুল থেকে আবিরসহ নানান রঙ-বেরঙের খাবার জন্য রঙ তৈরি করা হয়। কিন্তু ত্রিপুরা রাজ্য ফুল থেকে আবির বা রং তৈরির কোনো কারখানা নেই। যদি থাকতো তবে ফুল ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি পাশাপাশি কারখানাতেও বিক্রি করা যেতো। এতে একটি ফুলও নষ্ট হতো না। কিন্তু এখনো ত্রিপুরা রাজ্যে এমন কারখানা স্থাপনের কোনো উদ্যোগ নেই বলেও জানান রাখী।

আরেক ফুল চাষি প্রদীপ দেবনাথ বলেন, ফুল চাষের জন্য ৭ বিঘা জমি ব্যবহার করছি। এর মধ্যে ৫ বিঘা জমিতে ফুল চাষ করছি আর দু’বিঘা জমিতে নার্সারি করেছি। এ দু’বিঘা জমিতে গোলাপ, ডালিয়া, চন্দ্র মল্লিকা, বেঞ্জি, ডায়ানতাস, গাঁদাসহ আরও অনেক জাতের ফুলের চাষ করছি।

ফুল ব্যবসার লাভ নিয়ে তিনি বলেন, বিয়েসহ নানা উৎসবে ফুলের প্রয়োজন হয়। এ উৎসবের দিন গুলোতে ফুল তোলতে পারলে লাভ ভালই থাকে।

চিত্তরঞ্জন নাথ নামের আরেক ফুল চাষি জানান, ফুল চাষ করে বেশ ভালোই আছেন, এ বছর তিনি ৭ কাটা জমিতে গাঁদা ফুল চাষ করেছেন। ফুল চাষ এ এলাকার অনেক মানুষের আর্থিক অবস্থার উন্নতি হয়েছে বলে জানান তিনি।