রাজশাহী , মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

অাপিলের শেষ দিনে ইসিতে প্রার্থীরা, এখনো অাপিল করেননি খালেদা

  • আপডেটের সময় : ০৬:২৪:৪৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৫ ডিসেম্বর ২০১৮
  • ৭৫ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

বিশেষ প্রতিনিধি: সারাদেশে অাসন্ন একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগ্রহী প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ে হয়েছে ৭৮৬ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তারা। এসব সংক্ষুব্ধ প্রার্থীরা আপিলের জন্য নির্বাচন কমিশনে (ইসি) ভিড় করছেন। বুধবার (৫ ডিসেম্বর) সকাল ১০টা থেকে তৃতীয় দিনের মতো আগারগাঁওয়ের নির্বাচন কমিশন ভবনে অাপিল আবেদন নেয়া হচ্ছে। অাজই অাপিলের শেষ দিন।

এদিকে সকাল থেকে ইসিতে বিপুল সংখ্যক প্রার্থী ও তাদের অনুসারিরা জড়ো হন। তারা সাদা কাগজে তথ্য-প্রমাণসহ ইসিতে অভিযোগ দায়ের করছেন। আপিল গ্রহণের জন্য নির্বাচন ভবন চত্ত্বরে ৮টি বুথ স্থাপন করেছে নির্বাচন কমিশন। প্রতিটি বিভাগের জন্য আলাদা আলাদা বুথ করা হয়েছে। প্রার্থী বা তার মনোনীত প্রতিনিধিরা কমিশন চত্ত্বরের বুথে আপিল দায়ের করছেন।

Trulli

এর অাগে আপিলের দ্বিতীয় দিন গতকাল মঙ্গলবার (৪ ডিসেম্বর) মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়া প্রার্থীদের ২৩৪ জন ইসিতে আপিল করেছেন। এর মধ্যে বরিশাল বিভাগের ১২ জন, সিলেট বিভাগের ১৫ জন, ময়মনসিংহ বিভাগের ১৬ জন, রংপুর বিভাগের
২৭ জন, ঢাকা বিভাগের ৬৮ জন, রাজশাহী বিভাগের
২২ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের
৫৬ জন ও খুলনা বিভাগের
১৮ জন প্রার্থী ফিরে ইসিতে অাপিল করেছেন।

গত সোমবার অাপিলের প্রথম দিনে ভোটে লড়তে মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়া প্রার্থীদের ৮৪ জন ইসিতে আপিল করেছেন।

এদিকে গত দুই দিনে মোট ৩১৮ জন প্রার্থী অাপিল করলেও এখনো অাপিল করেন নি বিএনপি চেয়ারম্যান বেগম খালেদা জিয়া। তিনি ৩টি অাসন থেকে মনোনয়নপত্র জমা দিলেও সবকটি বাতিল করে দেয় সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তা। ভোটে ঠিকে থাকতে হলে অাজকের মধ্যে ইসিতে অাপিল করতে হবে খালেদাকে।

ইসির কর্মকর্তারা জানান, প্রার্থিতা বাতিল হলে সংক্ষুব্ধরা সোমবার থেকে বুধবার (৩-৫ ডিসেম্বর) মধ্যে ইসিতে অভিযোগ করতে পারবেন। ইসি ৬-৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত আপিলগুলোর শুনানি করে সিদ্ধান্ত দেবে।

এ বিষয়ে ইসির নির্বাচন পরিচালনা শাখার যুগ্ম সচিব ফরহাদ আহাম্মদ খান জানান, রিটার্নিং কর্মকর্তার সিদ্ধান্তে সংক্ষুব্ধ ব্যক্তিরা প্রধান নির্বাচন কমিশনার বরাবর অভিযোগ দাখিল করতে পারবেন। এটা করতে হবে আগামী ৩, ৪ ও ৫ ডিসেম্বরের মধ্যে। আর কমিশন প্রার্থীদের অভিযোগ আমলে নিয়ে ৬, ৭ ও ৮ ডিসেম্বর শুনানি করে সিদ্ধান্ত দেবেন। এক্ষেত্রে নির্বাচন কমিশনই আপিল কর্তৃপক্ষের ভূমিকা পালন করবেন।

এর আগে ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ সাংবাদিকদের বলেন, রিটার্নিং কর্মকর্তার মনপুত না হলে সংক্ষুব্ধরা আপিল কর্তৃপক্ষের কাছে আপিল করতে পারবেন। সেখানেও যদি তিনি সন্তুষ্ট না হন তাহলে সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি আদালতেও যেতে পারবেন।

প্রসঙ্গত, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য সারা দেশে ৩০০ আসনে মোট ৩ হাজার ৬৫ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। যাচাই বাচাইয়ে সারাদেশে ৭৮৬ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তারা। এর মধ্যে বিএনপির ১৪১ প্রার্থী এবং আওয়ামী লীগের ৩টি মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

তফিসল অনুযায়ী, একাদশ সংসদে ভোটগ্রহণ করা হবে ৩০ ডিসেম্বর। প্রত্যাহার ৯ ডিসেম্বর এবং প্রতীক বরাদ্দ ১০ ডিসেম্বর।

Adds Banner_2024

অাপিলের শেষ দিনে ইসিতে প্রার্থীরা, এখনো অাপিল করেননি খালেদা

আপডেটের সময় : ০৬:২৪:৪৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৫ ডিসেম্বর ২০১৮

বিশেষ প্রতিনিধি: সারাদেশে অাসন্ন একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগ্রহী প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ে হয়েছে ৭৮৬ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তারা। এসব সংক্ষুব্ধ প্রার্থীরা আপিলের জন্য নির্বাচন কমিশনে (ইসি) ভিড় করছেন। বুধবার (৫ ডিসেম্বর) সকাল ১০টা থেকে তৃতীয় দিনের মতো আগারগাঁওয়ের নির্বাচন কমিশন ভবনে অাপিল আবেদন নেয়া হচ্ছে। অাজই অাপিলের শেষ দিন।

এদিকে সকাল থেকে ইসিতে বিপুল সংখ্যক প্রার্থী ও তাদের অনুসারিরা জড়ো হন। তারা সাদা কাগজে তথ্য-প্রমাণসহ ইসিতে অভিযোগ দায়ের করছেন। আপিল গ্রহণের জন্য নির্বাচন ভবন চত্ত্বরে ৮টি বুথ স্থাপন করেছে নির্বাচন কমিশন। প্রতিটি বিভাগের জন্য আলাদা আলাদা বুথ করা হয়েছে। প্রার্থী বা তার মনোনীত প্রতিনিধিরা কমিশন চত্ত্বরের বুথে আপিল দায়ের করছেন।

Trulli

এর অাগে আপিলের দ্বিতীয় দিন গতকাল মঙ্গলবার (৪ ডিসেম্বর) মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়া প্রার্থীদের ২৩৪ জন ইসিতে আপিল করেছেন। এর মধ্যে বরিশাল বিভাগের ১২ জন, সিলেট বিভাগের ১৫ জন, ময়মনসিংহ বিভাগের ১৬ জন, রংপুর বিভাগের
২৭ জন, ঢাকা বিভাগের ৬৮ জন, রাজশাহী বিভাগের
২২ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের
৫৬ জন ও খুলনা বিভাগের
১৮ জন প্রার্থী ফিরে ইসিতে অাপিল করেছেন।

গত সোমবার অাপিলের প্রথম দিনে ভোটে লড়তে মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়া প্রার্থীদের ৮৪ জন ইসিতে আপিল করেছেন।

এদিকে গত দুই দিনে মোট ৩১৮ জন প্রার্থী অাপিল করলেও এখনো অাপিল করেন নি বিএনপি চেয়ারম্যান বেগম খালেদা জিয়া। তিনি ৩টি অাসন থেকে মনোনয়নপত্র জমা দিলেও সবকটি বাতিল করে দেয় সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তা। ভোটে ঠিকে থাকতে হলে অাজকের মধ্যে ইসিতে অাপিল করতে হবে খালেদাকে।

ইসির কর্মকর্তারা জানান, প্রার্থিতা বাতিল হলে সংক্ষুব্ধরা সোমবার থেকে বুধবার (৩-৫ ডিসেম্বর) মধ্যে ইসিতে অভিযোগ করতে পারবেন। ইসি ৬-৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত আপিলগুলোর শুনানি করে সিদ্ধান্ত দেবে।

এ বিষয়ে ইসির নির্বাচন পরিচালনা শাখার যুগ্ম সচিব ফরহাদ আহাম্মদ খান জানান, রিটার্নিং কর্মকর্তার সিদ্ধান্তে সংক্ষুব্ধ ব্যক্তিরা প্রধান নির্বাচন কমিশনার বরাবর অভিযোগ দাখিল করতে পারবেন। এটা করতে হবে আগামী ৩, ৪ ও ৫ ডিসেম্বরের মধ্যে। আর কমিশন প্রার্থীদের অভিযোগ আমলে নিয়ে ৬, ৭ ও ৮ ডিসেম্বর শুনানি করে সিদ্ধান্ত দেবেন। এক্ষেত্রে নির্বাচন কমিশনই আপিল কর্তৃপক্ষের ভূমিকা পালন করবেন।

এর আগে ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ সাংবাদিকদের বলেন, রিটার্নিং কর্মকর্তার মনপুত না হলে সংক্ষুব্ধরা আপিল কর্তৃপক্ষের কাছে আপিল করতে পারবেন। সেখানেও যদি তিনি সন্তুষ্ট না হন তাহলে সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি আদালতেও যেতে পারবেন।

প্রসঙ্গত, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য সারা দেশে ৩০০ আসনে মোট ৩ হাজার ৬৫ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। যাচাই বাচাইয়ে সারাদেশে ৭৮৬ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তারা। এর মধ্যে বিএনপির ১৪১ প্রার্থী এবং আওয়ামী লীগের ৩টি মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

তফিসল অনুযায়ী, একাদশ সংসদে ভোটগ্রহণ করা হবে ৩০ ডিসেম্বর। প্রত্যাহার ৯ ডিসেম্বর এবং প্রতীক বরাদ্দ ১০ ডিসেম্বর।