রাজশাহী , শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
রাজশাহীতে ঈদের প্রধান জামাত সকাল সাড়ে ৭টায় রাজশাহীতে র‌্যাবের জালে ২৪ জুয়াড়ি লাব্বাইক ধ্বনিতে মুখর আরাফাত ময়দান পবিত্র হজ আজ এমপি আনার হত্যা: আ.লীগ নেতা গ্যাস বাবুর দোষ স্বীকার টুং টাং শব্দে ব্যস্ত সময় পার করছে রাজশাহীর কামাররা রেমালে ক্ষতিগ্রস্ত ১২৭৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান যুগান্তর পত্রিকায় মেয়রসহ তার পরিবারকে নিয়ে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ ও ব্যাখ্যা কাল থেকে টানা ৫ দিনের ছুটিতে যাচ্ছেন সরকারি চাকরিজীবীরা ফের দি‌ল্লি যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বগুড়ায় ব্যাংকের সিন্দুক কেটে ২৯ লাখ টাকা লুট বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার মধ্যে চলবে যাত্রীবাহী ফেরি শেখ হাসিনাকে ‘কোয়ালিশন অব লিডার্স’-এ চায় গ্লোবাল ফান্ড তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি : প্রধানমন্ত্রী দুর্যোগ মোকাবিলায় ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা জানালেন প্রধানমন্ত্রী বেনজীর পরিবারের আরও সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ বড় দুঃসংবাদ পেলেন সাকিব পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে : প্রধানমন্ত্রী কুয়েতে ভবনে ভয়াবহ আগুন, নিহত অন্তত ৩৯ আনার হত্যাকাণ্ড : ডিবি কার্যালয়ে ঝিনাইদহ আ. লীগ সম্পাদক মিন্টু

আগামীকালও বিক্ষোভ করবে ভিকারুননিসার শিক্ষার্থীরা

  • আপডেটের সময় : ০৫:২১:৫৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ ডিসেম্বর ২০১৮
  • ১০৭ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ঢাকা প্রতিনিধি: শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে মানবিকীকরণের দাবিতে আগামীকাল বুধবারও (৫ ডিসেম্বর) বিক্ষোভ চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা। এদিন শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি শিক্ষকদের কাউন্সেলিং ও অধিকতর প্রশিক্ষণের দাবিও জানাবে তারা।

অরিত্রী অধিকারীর আত্মহত্যার ঘটনায় নানা দাবিতে মঙ্গলবার (৪ ডিসেম্বর) দিনব্যাপী বেইলি রোডে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের সামনে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা।

Trulli

অভিভাবকদের দাবি, ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের পুরনো ঐতিহ্য আর নেই। দিন দিন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি তার সুনাম হারাচ্ছে। এর পেছনে অনিয়ম, দুর্নীতি ও জবাবদিহিতার অভাব দায়ী। ক্লাসে পাঠদানের চেয়ে শিক্ষার্থীদের কোচিংয়ের দিকে ঠেলে দিচ্ছেন প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষকরা।

অভিভাবক দিলরুবা চৌধুরী বলেন, ‘একজন শিক্ষার্থী ভুল করবে বলেই তাকে শিক্ষাদানের জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পাঠানো হয়। কিন্তু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি যদি শিক্ষার্থীর জন্য আতঙ্কের জায়গা হয়, তবে সেখানে শিক্ষার্থীরা কী শিখবে?’

এদিকে, পাঠদানের নামে মানসিকভাবে ‘টর্চার’ করা হয় বলে অভিযোগ করেছেন ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের অনেক শিক্ষার্থী, যাদের মধ্যে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী প্রভা (ছদ্মনাম) একজন। সে বাংলা ট্রিবিউনকে বলে, ‘এরা (শিক্ষক) আমাদের ওপর অনেক অত্যাচার করে। অরিত্রীর মৃত্যুর কারণে আজ বিষয়গুলো প্রকাশ্যে এসেছে। তারা আমাদের শারীরিক শাস্তির চেয়ে মানসিক শাস্তি দেয় বেশি।’

এ শিক্ষার্থী আরও বলে, ‘ভাইস প্রিন্সিপালের রুমে গেলেই অপমান করতে শুরু করে। তিনি বাবা-মায়ের নাম ধরে পর্যন্ত অপমান করেন। আর বাবা-মা আসলে তো কথাই নেই। সন্তানের সামনে বাবা-মাকে অপমান করা হয়। এর চেয়ে লজ্জা আর বেদনার কী হতে পারে? এসব বিষয়ে আমরা ম্যাডামের (প্রিন্সিপ্যাল) কাছে গেলে তিনি কোনও সিদ্ধান্ত দেন না।’

সামান্য বিষয় নিয়ে শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের ডেকে কথা শোনানোর অভিযোগ করেন একাধিক অভিভাবক। তাদের একজন আসাদুজ্জামান। তিনি বলেন, ‘তুচ্ছ ঘটনা ঘটলেও অভিভাবকদের ডেকে কথা শোনানো হয়। এটা কেমন বিষয়!’

তিনি বলেন, ‘স্কুলটি সুনাম হারাচ্ছে। এর পেছনে স্কুলের গভর্নিং বডির শিক্ষকরা দায়ী। আমরা তাদের পদত্যাগের দাবি জানাচ্ছি।’

মঙ্গলবার বিকালে অরিত্রীর মৃত্যুর ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে বিচারের দাবি জানিয়ে আগামীকাল বুধবার পরীক্ষা না দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা। একইসঙ্গে ওই দিন শিক্ষার্থীরা সকাল ১০টায় স্কুলের সামনে অবস্থান নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

অভিভাবক গোপিনাথ চন্দ্র বলেন, “আমার মেয়েও আমাকে অনেক অভিযোগ দিয়েছে। আমি প্রতিবাদ করতে চেয়েছি। কিন্তু মেয়ে বললো, ‘বাবা, প্রতিবাদ করলে তারা টিসি দিয়ে দেবে। পরে আমি আর এই স্কুলে পড়াশোনা করতে পারবো না। টিসির ভয়ে আমিও আর প্রতিবাদ করিনি।”

এদিকে, ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীর ‘আত্মহত্যা’র ঘটনা তদন্তে প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ তিন সদস্যের কমিটি গঠন করেছে। এ কমিটিকে আগামী সাত কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, সোমবার দুপুরে শান্তি নগরের নিজ বাসা থেকে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রী অধিকারীর (১৫) ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়। ওই শিক্ষার্থীর পরিবারের দাবি, অরিত্রীর বিরুদ্ধে ফাইনাল পরীক্ষায় নকলের অভিযোগ তুলে তার বাবাকে ডেকে পাঠায় স্কুল কর্তৃপক্ষ। পরে অরিত্রীর বাবাকে জানানো হয়, তার মেয়ে নকল করায় বাকি পরীক্ষায় আর অংশ নিতে দেওয়া হবে না।

এরপর মঙ্গলবার সকাল থেকেই শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা স্কুলের সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করতে থাকেন। সকালে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ স্কুলে গিয়ে শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের সঙ্গে কথা বলেন। স্কুলের পাশাপাশি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ও ঘটনা তদন্তে একটি কমিটি গঠন করেছে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘একজন শিক্ষার্থী এমনিতে আত্মহত্যা করে না। কিছু একটা ঘটেছে বলেই সে আত্মহত্যা করেছে। আমরা তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন পাওয়ার পরই ব্যবস্থা নেবো।’

এদিকে, ঘটনার পর স্কুলটির প্রভাতী শাখার প্রধান জিনাত আরাকে দায়িত্ব থেকে সাময়িক অব্যাহতি দিয়ে শোকজ করা হয়েছে। যদিও তিনি আর মাত্র একমাস পর অবসরে যাবেন।

এদিকে, অরিত্রির মৃত্যুর ঘটনায় আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক) তীব্র নিন্দা জানিয়েছে। সংস্থাটি হাইকোর্টের একটি নির্দেশনা উল্লেখ করে মঙ্গলবার দেশের গণমাধ্যমে একটি বিবৃতি দিয়েছে। সেখানে তারা দাবি করেছে, ‘২০১১ সালে হাইকোর্ট এ বিষয়ে নির্দেশনা দিয়েছে, কোনও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করা যাবে না। এই নির্দেশনার পর শিক্ষামন্ত্রণালয় একটি পরিপত্র জারি করে, যেখানে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে এ ধরনের মানসিক ও শারিরীক নির্যাতন করা থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’

আসকের তথ্যানুযায়ী, এবছরের জানুয়ারি থেকে নভেম্বর পর্যন্ত সারাদেশে ১৭১ জন শিক্ষার্থীকে শিক্ষকরা শারীরিক ও মানসিক নির্যাকন করেছেন। এর মধ্যে দুই জন আত্মহত্যা করেছে।

Adds Banner_2024

আগামীকালও বিক্ষোভ করবে ভিকারুননিসার শিক্ষার্থীরা

আপডেটের সময় : ০৫:২১:৫৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ ডিসেম্বর ২০১৮

ঢাকা প্রতিনিধি: শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে মানবিকীকরণের দাবিতে আগামীকাল বুধবারও (৫ ডিসেম্বর) বিক্ষোভ চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা। এদিন শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি শিক্ষকদের কাউন্সেলিং ও অধিকতর প্রশিক্ষণের দাবিও জানাবে তারা।

অরিত্রী অধিকারীর আত্মহত্যার ঘটনায় নানা দাবিতে মঙ্গলবার (৪ ডিসেম্বর) দিনব্যাপী বেইলি রোডে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের সামনে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা।

Trulli

অভিভাবকদের দাবি, ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের পুরনো ঐতিহ্য আর নেই। দিন দিন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি তার সুনাম হারাচ্ছে। এর পেছনে অনিয়ম, দুর্নীতি ও জবাবদিহিতার অভাব দায়ী। ক্লাসে পাঠদানের চেয়ে শিক্ষার্থীদের কোচিংয়ের দিকে ঠেলে দিচ্ছেন প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষকরা।

অভিভাবক দিলরুবা চৌধুরী বলেন, ‘একজন শিক্ষার্থী ভুল করবে বলেই তাকে শিক্ষাদানের জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পাঠানো হয়। কিন্তু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি যদি শিক্ষার্থীর জন্য আতঙ্কের জায়গা হয়, তবে সেখানে শিক্ষার্থীরা কী শিখবে?’

এদিকে, পাঠদানের নামে মানসিকভাবে ‘টর্চার’ করা হয় বলে অভিযোগ করেছেন ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের অনেক শিক্ষার্থী, যাদের মধ্যে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী প্রভা (ছদ্মনাম) একজন। সে বাংলা ট্রিবিউনকে বলে, ‘এরা (শিক্ষক) আমাদের ওপর অনেক অত্যাচার করে। অরিত্রীর মৃত্যুর কারণে আজ বিষয়গুলো প্রকাশ্যে এসেছে। তারা আমাদের শারীরিক শাস্তির চেয়ে মানসিক শাস্তি দেয় বেশি।’

এ শিক্ষার্থী আরও বলে, ‘ভাইস প্রিন্সিপালের রুমে গেলেই অপমান করতে শুরু করে। তিনি বাবা-মায়ের নাম ধরে পর্যন্ত অপমান করেন। আর বাবা-মা আসলে তো কথাই নেই। সন্তানের সামনে বাবা-মাকে অপমান করা হয়। এর চেয়ে লজ্জা আর বেদনার কী হতে পারে? এসব বিষয়ে আমরা ম্যাডামের (প্রিন্সিপ্যাল) কাছে গেলে তিনি কোনও সিদ্ধান্ত দেন না।’

সামান্য বিষয় নিয়ে শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের ডেকে কথা শোনানোর অভিযোগ করেন একাধিক অভিভাবক। তাদের একজন আসাদুজ্জামান। তিনি বলেন, ‘তুচ্ছ ঘটনা ঘটলেও অভিভাবকদের ডেকে কথা শোনানো হয়। এটা কেমন বিষয়!’

তিনি বলেন, ‘স্কুলটি সুনাম হারাচ্ছে। এর পেছনে স্কুলের গভর্নিং বডির শিক্ষকরা দায়ী। আমরা তাদের পদত্যাগের দাবি জানাচ্ছি।’

মঙ্গলবার বিকালে অরিত্রীর মৃত্যুর ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে বিচারের দাবি জানিয়ে আগামীকাল বুধবার পরীক্ষা না দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা। একইসঙ্গে ওই দিন শিক্ষার্থীরা সকাল ১০টায় স্কুলের সামনে অবস্থান নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

অভিভাবক গোপিনাথ চন্দ্র বলেন, “আমার মেয়েও আমাকে অনেক অভিযোগ দিয়েছে। আমি প্রতিবাদ করতে চেয়েছি। কিন্তু মেয়ে বললো, ‘বাবা, প্রতিবাদ করলে তারা টিসি দিয়ে দেবে। পরে আমি আর এই স্কুলে পড়াশোনা করতে পারবো না। টিসির ভয়ে আমিও আর প্রতিবাদ করিনি।”

এদিকে, ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীর ‘আত্মহত্যা’র ঘটনা তদন্তে প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ তিন সদস্যের কমিটি গঠন করেছে। এ কমিটিকে আগামী সাত কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, সোমবার দুপুরে শান্তি নগরের নিজ বাসা থেকে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রী অধিকারীর (১৫) ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়। ওই শিক্ষার্থীর পরিবারের দাবি, অরিত্রীর বিরুদ্ধে ফাইনাল পরীক্ষায় নকলের অভিযোগ তুলে তার বাবাকে ডেকে পাঠায় স্কুল কর্তৃপক্ষ। পরে অরিত্রীর বাবাকে জানানো হয়, তার মেয়ে নকল করায় বাকি পরীক্ষায় আর অংশ নিতে দেওয়া হবে না।

এরপর মঙ্গলবার সকাল থেকেই শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা স্কুলের সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করতে থাকেন। সকালে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ স্কুলে গিয়ে শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের সঙ্গে কথা বলেন। স্কুলের পাশাপাশি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ও ঘটনা তদন্তে একটি কমিটি গঠন করেছে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘একজন শিক্ষার্থী এমনিতে আত্মহত্যা করে না। কিছু একটা ঘটেছে বলেই সে আত্মহত্যা করেছে। আমরা তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন পাওয়ার পরই ব্যবস্থা নেবো।’

এদিকে, ঘটনার পর স্কুলটির প্রভাতী শাখার প্রধান জিনাত আরাকে দায়িত্ব থেকে সাময়িক অব্যাহতি দিয়ে শোকজ করা হয়েছে। যদিও তিনি আর মাত্র একমাস পর অবসরে যাবেন।

এদিকে, অরিত্রির মৃত্যুর ঘটনায় আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক) তীব্র নিন্দা জানিয়েছে। সংস্থাটি হাইকোর্টের একটি নির্দেশনা উল্লেখ করে মঙ্গলবার দেশের গণমাধ্যমে একটি বিবৃতি দিয়েছে। সেখানে তারা দাবি করেছে, ‘২০১১ সালে হাইকোর্ট এ বিষয়ে নির্দেশনা দিয়েছে, কোনও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করা যাবে না। এই নির্দেশনার পর শিক্ষামন্ত্রণালয় একটি পরিপত্র জারি করে, যেখানে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে এ ধরনের মানসিক ও শারিরীক নির্যাতন করা থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’

আসকের তথ্যানুযায়ী, এবছরের জানুয়ারি থেকে নভেম্বর পর্যন্ত সারাদেশে ১৭১ জন শিক্ষার্থীকে শিক্ষকরা শারীরিক ও মানসিক নির্যাকন করেছেন। এর মধ্যে দুই জন আত্মহত্যা করেছে।