রাজশাহী , সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

ঘুষি মেরে বসলেন ম্যারাডোনা

  • আপডেটের সময় : ০৯:৩৫:০৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ ডিসেম্বর ২০১৮
  • ৭৯ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

স্পোর্টস ডেস্ক: ম্যারাডোনা আর বিতর্ক যেন জমজ ভাই। তিনি যেখানেই যাবেন, বিতর্ক তার পিছুপিছু ছুটবে, এটাই এখন স্বাভাবিক বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। সর্বশেষ এক রিপোর্টারকে ঘুষি মেরে বিতর্কে জড়ালেন এই বিশ্বকাপজয়ী সাবেক আর্জেন্টাইন অধিনায়ক।

অনেক বড় স্বপ্ন নিয়েই মেক্সিকোর দ্বিতীয় বিভাগের দল দোরাদোসের কোচের দায়িত্ব নিয়েছিলেন আর্জেন্টাইন কিংবদন্তি দিয়েগো ম্যারাডোনা। অনেকটা পথে পাড়িও দিয়েছিলেন, কিন্তু ফাইনালে এসে স্বপ্নভঙ্গ হলো। কিন্তু ওই পরাজয় ছাপিয়ে আলোচনায় উঠে এলো ফের বিতর্কিত এক কাণ্ড।

Trulli

দ্বিতীয় বিভাগের প্লে-অফ ফাইনালে হেরে গেছে ম্যারাডোনার দোরাদোস। অ্যাথলেতিকো সান লুইসের বিপক্ষে ফাইনালের প্রথম লেগে এগিয়ে থেকেও দ্বিতীয় লেগে ৪-২ গোলে হেরে যায় ম্যারাডোনার শিষ্যরা। দুই লেগ মিলিয়ে ৪-৩ গোলে হেরে প্রথম বিভাগে খেলার স্বপ্নের আপাত সমাপ্তি ঘটলো দেরাদোসের।

কিন্তু ম্যাচের জয়-পরাজয় ছাপিয়ে হারের যন্ত্রণায় কাতর ম্যারাডোনা রাগের বসে এক রিপোর্টারকে ঘুষিই মেরে বসার ঘটনাই আলোচনার কেন্দ্রে চলে এসেছে। ঘুষি মারার সেই ভিডিও এরইমধ্যে অনলাইনে ভাইরাল হয়ে গেছে।

প্রথম লেগের পর টাচ লাইনে নিষিদ্ধ হন ম্যারাডোনা। ফলে দ্বিতীয় ম্যাচে গ্যালারীতে বসে খেলা দেখতে হয় তাকে। দলের হারে চরম হতাশ ম্যারাডোনা ম্যাচ শেষে রাশভারী মুখ নিয়ে মাঠ ছাড়তে গিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের সম্মুখীন হন। আর সেখানেই মেজাজ হারিয়ে ফেলেন।

প্রকাশিত ভিডিওতে দেখা যায়, ম্যাচ শেষে নিরাপত্তারক্ষী বেষ্টিত হয়ে স্টেডিয়ামের টানেল দিয়ে বের হচ্ছেন ম্যারাডোনা। তাকে একনজর দেখতে এমনিতেই বহু ভক্তের সমাগম হয় সেখানে। এর মধ্যে আবার সংবাদ মাধ্যমের নানান প্রশ্নবাণ। এর ফাঁকে এক রিপোর্টার তার একদম কাছে গিয়ে কিছু একটা জিজ্ঞাসা করে বসেন। অমনি সজোরে সেই রিপোর্টারকে ঘুষি মেরে বসেন তিনি। ঘুষি মেরেও ক্ষান্ত হননি ম্যারাডোনা, বরং রাগে ফুঁসতে ফুঁসতে ফের ঘুষি বাগাতে থাকেন। পরে তার দেহরক্ষীরা তাকে সেখান থেকে জোর করে সরিয়ে নেন।

ম্যারাডোনার মেজাজ রোববার (২ ডিসেম্বর) ম্যাচ চলাকালীন সময় থেকেই খিচড়ে ছিল। টেলিভিশন ক্যামেরাতে তাকে গ্যালারীতে বসে কয়েকবার বিয়ার খেতে দেখা যায়।

গত সেপ্টেম্বরে দোরাদোসের দায়িত্ব নেন ম্যারাডোনা। সেই সময় দলটির অবস্থা ছিল সঙ্গিন। ১৫ দলের মধ্যে শেষদিকে থাকা দলটিকে ফাইনালে তুলে কোচ হিসেবে নিজের সাফল্যের স্বাক্ষর তিনি এরইমধ্যে রেখেছেন। কিন্তু যে উদ্দেশ্যে তার আগমন তার সেই স্বপ্ন পূরণ হয়নি। অল্পের জন্য প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হতে পারেনি দোরাদোস। বেচারা রিপোর্টার হয়তো সেই হতাশারই বলি হলেন।

Adds Banner_2024

ঘুষি মেরে বসলেন ম্যারাডোনা

আপডেটের সময় : ০৯:৩৫:০৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ ডিসেম্বর ২০১৮

স্পোর্টস ডেস্ক: ম্যারাডোনা আর বিতর্ক যেন জমজ ভাই। তিনি যেখানেই যাবেন, বিতর্ক তার পিছুপিছু ছুটবে, এটাই এখন স্বাভাবিক বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। সর্বশেষ এক রিপোর্টারকে ঘুষি মেরে বিতর্কে জড়ালেন এই বিশ্বকাপজয়ী সাবেক আর্জেন্টাইন অধিনায়ক।

অনেক বড় স্বপ্ন নিয়েই মেক্সিকোর দ্বিতীয় বিভাগের দল দোরাদোসের কোচের দায়িত্ব নিয়েছিলেন আর্জেন্টাইন কিংবদন্তি দিয়েগো ম্যারাডোনা। অনেকটা পথে পাড়িও দিয়েছিলেন, কিন্তু ফাইনালে এসে স্বপ্নভঙ্গ হলো। কিন্তু ওই পরাজয় ছাপিয়ে আলোচনায় উঠে এলো ফের বিতর্কিত এক কাণ্ড।

Trulli

দ্বিতীয় বিভাগের প্লে-অফ ফাইনালে হেরে গেছে ম্যারাডোনার দোরাদোস। অ্যাথলেতিকো সান লুইসের বিপক্ষে ফাইনালের প্রথম লেগে এগিয়ে থেকেও দ্বিতীয় লেগে ৪-২ গোলে হেরে যায় ম্যারাডোনার শিষ্যরা। দুই লেগ মিলিয়ে ৪-৩ গোলে হেরে প্রথম বিভাগে খেলার স্বপ্নের আপাত সমাপ্তি ঘটলো দেরাদোসের।

কিন্তু ম্যাচের জয়-পরাজয় ছাপিয়ে হারের যন্ত্রণায় কাতর ম্যারাডোনা রাগের বসে এক রিপোর্টারকে ঘুষিই মেরে বসার ঘটনাই আলোচনার কেন্দ্রে চলে এসেছে। ঘুষি মারার সেই ভিডিও এরইমধ্যে অনলাইনে ভাইরাল হয়ে গেছে।

প্রথম লেগের পর টাচ লাইনে নিষিদ্ধ হন ম্যারাডোনা। ফলে দ্বিতীয় ম্যাচে গ্যালারীতে বসে খেলা দেখতে হয় তাকে। দলের হারে চরম হতাশ ম্যারাডোনা ম্যাচ শেষে রাশভারী মুখ নিয়ে মাঠ ছাড়তে গিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের সম্মুখীন হন। আর সেখানেই মেজাজ হারিয়ে ফেলেন।

প্রকাশিত ভিডিওতে দেখা যায়, ম্যাচ শেষে নিরাপত্তারক্ষী বেষ্টিত হয়ে স্টেডিয়ামের টানেল দিয়ে বের হচ্ছেন ম্যারাডোনা। তাকে একনজর দেখতে এমনিতেই বহু ভক্তের সমাগম হয় সেখানে। এর মধ্যে আবার সংবাদ মাধ্যমের নানান প্রশ্নবাণ। এর ফাঁকে এক রিপোর্টার তার একদম কাছে গিয়ে কিছু একটা জিজ্ঞাসা করে বসেন। অমনি সজোরে সেই রিপোর্টারকে ঘুষি মেরে বসেন তিনি। ঘুষি মেরেও ক্ষান্ত হননি ম্যারাডোনা, বরং রাগে ফুঁসতে ফুঁসতে ফের ঘুষি বাগাতে থাকেন। পরে তার দেহরক্ষীরা তাকে সেখান থেকে জোর করে সরিয়ে নেন।

ম্যারাডোনার মেজাজ রোববার (২ ডিসেম্বর) ম্যাচ চলাকালীন সময় থেকেই খিচড়ে ছিল। টেলিভিশন ক্যামেরাতে তাকে গ্যালারীতে বসে কয়েকবার বিয়ার খেতে দেখা যায়।

গত সেপ্টেম্বরে দোরাদোসের দায়িত্ব নেন ম্যারাডোনা। সেই সময় দলটির অবস্থা ছিল সঙ্গিন। ১৫ দলের মধ্যে শেষদিকে থাকা দলটিকে ফাইনালে তুলে কোচ হিসেবে নিজের সাফল্যের স্বাক্ষর তিনি এরইমধ্যে রেখেছেন। কিন্তু যে উদ্দেশ্যে তার আগমন তার সেই স্বপ্ন পূরণ হয়নি। অল্পের জন্য প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হতে পারেনি দোরাদোস। বেচারা রিপোর্টার হয়তো সেই হতাশারই বলি হলেন।