রাজশাহী , শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
এমপি আনার হত্যা: আ.লীগ নেতা গ্যাস বাবুর দোষ স্বীকার টুং টাং শব্দে ব্যস্ত সময় পার করছে রাজশাহীর কামাররা রেমালে ক্ষতিগ্রস্ত ১২৭৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান যুগান্তর পত্রিকায় মেয়রসহ তার পরিবারকে নিয়ে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ ও ব্যাখ্যা কাল থেকে টানা ৫ দিনের ছুটিতে যাচ্ছেন সরকারি চাকরিজীবীরা ফের দি‌ল্লি যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বগুড়ায় ব্যাংকের সিন্দুক কেটে ২৯ লাখ টাকা লুট বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার মধ্যে চলবে যাত্রীবাহী ফেরি শেখ হাসিনাকে ‘কোয়ালিশন অব লিডার্স’-এ চায় গ্লোবাল ফান্ড তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি : প্রধানমন্ত্রী দুর্যোগ মোকাবিলায় ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা জানালেন প্রধানমন্ত্রী বেনজীর পরিবারের আরও সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ বড় দুঃসংবাদ পেলেন সাকিব পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে : প্রধানমন্ত্রী কুয়েতে ভবনে ভয়াবহ আগুন, নিহত অন্তত ৩৯ আনার হত্যাকাণ্ড : ডিবি কার্যালয়ে ঝিনাইদহ আ. লীগ সম্পাদক মিন্টু যাদের জমিসহ ঘর করে দেওয়া হয়েছে, তাদের জীবন বদলে গেছে: প্রধানমন্ত্রী ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি তৈরি করে দেব : প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার পাচ্ছে সাড়ে ১৮ হাজার পরিবার আজ শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস

যে আসনগুলোতে নেই বিএনপির প্রার্থী

  • আপডেটের সময় : ০৬:১৮:১৬ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৩ ডিসেম্বর ২০১৮
  • ৭৯ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ঢাকা প্রতিনিধি: আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই শেষে ঢাকার একটিসহ সারাদেশের বেশ কয়েকটি আসনে আপাতত বিএনপির প্রার্থীশূন্য হয়ে পড়েছে। আসনগুলো হলো বগুড়া-৭, সুনামগঞ্জ -৩, খুলনা-৬, ঢাকা-১, মানিকগঞ্জ-২, জামালপুর-৪, রংপুর-৫ ও শরীয়তপুর–১ আসন।

তবে সুনামগঞ্জ-৩ আসনে ২০ দলীয় জোটের শরিক জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মাওলানা শাহিনূর পাশা চৌধুরী এবং খুলনা-৬ আসনে জামায়াত নেতা আবুল কালাম আজাদের মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। বাকি ৬টি আসনে বিএনপি কিংবা জোটের কোনো প্রার্থী নেই।

Trulli

বগুড়া-৭: এই আসনে বিএনপির দুই প্রার্থীর উভয়ের মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা। আসনটিতে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার পাশাপাশি বিএনপির প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন গাবতলী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোরশেদ মিলটন। কিন্তু তাদের দুজনেরই মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে।

ঢাকা-১: এখানেও বিএনপির দুই প্রার্থীর উভয়ের মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে। তারা হলেন ঢাকা জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবু আশফাক ও নবাবগঞ্জ উপজেলার চেয়ারম্যান ফাহিমা হোসাইন জুবলি।

খুলনা-৬: এই আসনে ঋণ খেলাপী হিসেবে বিএনপির একমাত্র প্রার্থী শফিকুল আলম মনার মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে।

সুনামগঞ্জ-৩: এখানে বিএনপির দুই প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করেছেন রিটানিং কর্মকর্তা। আসনটিতে বিএনপি মনোনোয়ন নিয়ে যুক্তরাজ্য বিএনপির কোষাধক্ষ্য আব্দুস ছাত্তার প্রার্থী হলেও বাংলাদেশের ভোটার তালিকায় নামই নেই তার। যে কারণে মনোনয়নপত্রটি বাতিল করা হয়েছে। হলফনামানায় নিজেকে জগন্নাথপুর উপজেলার খাগাউরা গ্রামের বাসিন্দা উল্লেখ করেছেন তিনি। বিএনপির অপর প্রার্থী আশরাফুল হক সুমন মনোনয়নপত্রের সাথে হলফনামা সংযুক্ত করে না দেওয়ায় তার মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

মানিকগঞ্জ-২: এই আসনেও বিএনপির দুই প্রার্থীর উভয়ের প্রার্থিতা বাতিল হয়েছে। জানা গেছে, এই আসনের বিএনপি মনোনিত প্রার্থী ছিলেন সাবেক সংসদ সদস্য মঈনুল ইসলাম খান শান্ত ও সিংগাইর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবিদুর রহমান রোমান। এর মধ্যে দলীয় মনোনয়ন ফরমে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের স্বাক্ষরে অমিল থাকায় মঈনুল ইসলাম খান শান্তর মনোনয়নপত্র এবং উপজেলা পরিষদ থেকে পদত্যাগ না করায় আবিদুর রহমান রোমানের মনোনয়নপত্রটি বাতিল করেছে জেলা রির্টানিং অফিসার।

জামালপুর-৪: এখানে বিএনপির একমাত্র প্রার্থী ছিলেন সরিষাবাড়ী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. ফরিদুল কবির তালুকদার। পদত্যাগপত্র গৃহীত না হওয়ায় তার মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে।

রংপুর-৫: নথিতে ত্রুটি থাকায় এই আসনে বিএনপির দুই প্রার্থী সাবেক সাংসদ সোলায়মান আলম ফকির এবং জেলা বিএনপির সদস্য মমতাজ হোসেনের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে।

শরীয়তপুর-১: এই আসনে বিএনপির প্রার্থী সরদার নাসিরউদ্দিনের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে টেলিফোন বিল বকেয়া থাকায়। ১৯৮৮ সাল হতে ১৯৯১ সাল পর্যন্ত টেলিফোন বিল বকেয়া থাকায় বাছাই কালে তাঁর মনোনয়পত্র বাতিল ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা কাজী আবু তাহের। ওই সময় কালে নাসির উদ্দিনের কাছে তিন হাজার ৮১৫ টাকা বিল বকেয়া রয়েছে।

যদিও বিএনপির প্রার্থী সরদার নাছির উদ্দিন কালু অভিযোগ করে বলেন, আমার কোনো টেলিফোন বিল বকেয়া নেই। আমি ১৯৯১ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করি। ২০০৪ সালে শরীয়তপুর পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত হই। এতদিন পরে আমার টেলিফোন বিল কিভাবে বকেয়া হলো তা আমার জানা নেই। আমি প্রার্থিতা ফিরে পেতে নির্বাচন কমিশনে আপিল করব।

Adds Banner_2024

যে আসনগুলোতে নেই বিএনপির প্রার্থী

আপডেটের সময় : ০৬:১৮:১৬ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৩ ডিসেম্বর ২০১৮

ঢাকা প্রতিনিধি: আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই শেষে ঢাকার একটিসহ সারাদেশের বেশ কয়েকটি আসনে আপাতত বিএনপির প্রার্থীশূন্য হয়ে পড়েছে। আসনগুলো হলো বগুড়া-৭, সুনামগঞ্জ -৩, খুলনা-৬, ঢাকা-১, মানিকগঞ্জ-২, জামালপুর-৪, রংপুর-৫ ও শরীয়তপুর–১ আসন।

তবে সুনামগঞ্জ-৩ আসনে ২০ দলীয় জোটের শরিক জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মাওলানা শাহিনূর পাশা চৌধুরী এবং খুলনা-৬ আসনে জামায়াত নেতা আবুল কালাম আজাদের মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। বাকি ৬টি আসনে বিএনপি কিংবা জোটের কোনো প্রার্থী নেই।

Trulli

বগুড়া-৭: এই আসনে বিএনপির দুই প্রার্থীর উভয়ের মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা। আসনটিতে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার পাশাপাশি বিএনপির প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন গাবতলী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোরশেদ মিলটন। কিন্তু তাদের দুজনেরই মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে।

ঢাকা-১: এখানেও বিএনপির দুই প্রার্থীর উভয়ের মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে। তারা হলেন ঢাকা জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবু আশফাক ও নবাবগঞ্জ উপজেলার চেয়ারম্যান ফাহিমা হোসাইন জুবলি।

খুলনা-৬: এই আসনে ঋণ খেলাপী হিসেবে বিএনপির একমাত্র প্রার্থী শফিকুল আলম মনার মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে।

সুনামগঞ্জ-৩: এখানে বিএনপির দুই প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করেছেন রিটানিং কর্মকর্তা। আসনটিতে বিএনপি মনোনোয়ন নিয়ে যুক্তরাজ্য বিএনপির কোষাধক্ষ্য আব্দুস ছাত্তার প্রার্থী হলেও বাংলাদেশের ভোটার তালিকায় নামই নেই তার। যে কারণে মনোনয়নপত্রটি বাতিল করা হয়েছে। হলফনামানায় নিজেকে জগন্নাথপুর উপজেলার খাগাউরা গ্রামের বাসিন্দা উল্লেখ করেছেন তিনি। বিএনপির অপর প্রার্থী আশরাফুল হক সুমন মনোনয়নপত্রের সাথে হলফনামা সংযুক্ত করে না দেওয়ায় তার মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

মানিকগঞ্জ-২: এই আসনেও বিএনপির দুই প্রার্থীর উভয়ের প্রার্থিতা বাতিল হয়েছে। জানা গেছে, এই আসনের বিএনপি মনোনিত প্রার্থী ছিলেন সাবেক সংসদ সদস্য মঈনুল ইসলাম খান শান্ত ও সিংগাইর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবিদুর রহমান রোমান। এর মধ্যে দলীয় মনোনয়ন ফরমে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের স্বাক্ষরে অমিল থাকায় মঈনুল ইসলাম খান শান্তর মনোনয়নপত্র এবং উপজেলা পরিষদ থেকে পদত্যাগ না করায় আবিদুর রহমান রোমানের মনোনয়নপত্রটি বাতিল করেছে জেলা রির্টানিং অফিসার।

জামালপুর-৪: এখানে বিএনপির একমাত্র প্রার্থী ছিলেন সরিষাবাড়ী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. ফরিদুল কবির তালুকদার। পদত্যাগপত্র গৃহীত না হওয়ায় তার মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে।

রংপুর-৫: নথিতে ত্রুটি থাকায় এই আসনে বিএনপির দুই প্রার্থী সাবেক সাংসদ সোলায়মান আলম ফকির এবং জেলা বিএনপির সদস্য মমতাজ হোসেনের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে।

শরীয়তপুর-১: এই আসনে বিএনপির প্রার্থী সরদার নাসিরউদ্দিনের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে টেলিফোন বিল বকেয়া থাকায়। ১৯৮৮ সাল হতে ১৯৯১ সাল পর্যন্ত টেলিফোন বিল বকেয়া থাকায় বাছাই কালে তাঁর মনোনয়পত্র বাতিল ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা কাজী আবু তাহের। ওই সময় কালে নাসির উদ্দিনের কাছে তিন হাজার ৮১৫ টাকা বিল বকেয়া রয়েছে।

যদিও বিএনপির প্রার্থী সরদার নাছির উদ্দিন কালু অভিযোগ করে বলেন, আমার কোনো টেলিফোন বিল বকেয়া নেই। আমি ১৯৯১ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করি। ২০০৪ সালে শরীয়তপুর পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত হই। এতদিন পরে আমার টেলিফোন বিল কিভাবে বকেয়া হলো তা আমার জানা নেই। আমি প্রার্থিতা ফিরে পেতে নির্বাচন কমিশনে আপিল করব।