রাজশাহী , সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

জামায়াত বলতে কিছু নেই : ঐক্যফ্রন্ট

  • আপডেটের সময় : ০৬:০৩:২১ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৩ ডিসেম্বর ২০১৮
  • ১০৫ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ঢাকা প্রতিনিধি: যুদ্ধপরাধের দায়ে দণ্ডিত জামায়াতে ইসলামীর জাতীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণ নিয়ে রাজনৈতিক মহলে বেশ বিতর্ক চলছে। এমন বিতর্কের জবাবে বেশ কৌশলী অবস্থান নিয়েছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। তাদের দাবি, বর্তমানে জামায়াতে ইসলামী বলতে কিছু নেই। তাদের তো নিবন্ধনই বাতিল। এটা এখন কোনও ইস্যু না।

সোমবার জামায়াতে ইসলামী নির্বাচন অংশগ্রহণের বিতর্কের প্রতিক্রিয়ায় এই প্রতিবেদককে ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতারা একথা বলেন।
ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম নেতা ও নাগরিক ঐক্যের আহবায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, এখন জামাত বলে কিছু নেই, তার নিবন্ধন বাতিল করা হয়েছে জামাত হিসেবে তার অংশ নেয়ার সুযোগ নেই।

Trulli

মান্নার দাবি, নির্বাচন হবে ধানের শীষে। এমন পাঁচ জনকে যে আওয়ামীলীগ মনোনয়ন দেয়নি সেটা কে বলবে। যাহোক, এটাকে আমরা ইস্যু করছি না। স্বাধীনতাবিরোধীদের প্রতি আমাদের যে অবস্থান সেটাতে কোন পরিবর্তন আসছে না।

ফ্রন্টের সমন্বয়ক মোস্তফা মুহসীন মন্টু বলেন, মুক্তিযুদ্ধে যারা স্বাধীনতাবিরোধী ভূমিকা নিয়ে আওয়ামী লীগেরও অনেকেকে নিয়ে প্রশ্ন আছে। এমন অনেকে সব দলেই আছে। তবুও যখন এমন প্রশ্ন উঠেছে আমরা বিষয়টাকে ফেলে দিচ্ছি না, আমরা তা খতিয়ে দেখবো। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, পাবলিক সেন্টিমেন্টকে সমুন্নত রেখেই একটা রাজনৈতিক গুনগত পরিবর্ত আমরা করতে চাই।

সরকারের তো সব ক্ষমতাই আছে, তবে জামাত কেনো নিষিদ্ধ কেন করছে না এমন প্রশ্ন রেখে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, কেনো সরকার জামায়াতে ইসলামীকে বাঁচিয়ে রেখেছে? তাদেরকে বাঁচিয়ে রেখেছে কে? আর তার উদ্দেশ্য, যেন সুযোগ বুঝে তাদের সাথে নেগোশিয়েট করতে পারে তাইতো? এছাড়াতো আর কোন কারণ আমি দেখছি না।

Adds Banner_2024

জামায়াত বলতে কিছু নেই : ঐক্যফ্রন্ট

আপডেটের সময় : ০৬:০৩:২১ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৩ ডিসেম্বর ২০১৮

ঢাকা প্রতিনিধি: যুদ্ধপরাধের দায়ে দণ্ডিত জামায়াতে ইসলামীর জাতীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণ নিয়ে রাজনৈতিক মহলে বেশ বিতর্ক চলছে। এমন বিতর্কের জবাবে বেশ কৌশলী অবস্থান নিয়েছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। তাদের দাবি, বর্তমানে জামায়াতে ইসলামী বলতে কিছু নেই। তাদের তো নিবন্ধনই বাতিল। এটা এখন কোনও ইস্যু না।

সোমবার জামায়াতে ইসলামী নির্বাচন অংশগ্রহণের বিতর্কের প্রতিক্রিয়ায় এই প্রতিবেদককে ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতারা একথা বলেন।
ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম নেতা ও নাগরিক ঐক্যের আহবায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, এখন জামাত বলে কিছু নেই, তার নিবন্ধন বাতিল করা হয়েছে জামাত হিসেবে তার অংশ নেয়ার সুযোগ নেই।

Trulli

মান্নার দাবি, নির্বাচন হবে ধানের শীষে। এমন পাঁচ জনকে যে আওয়ামীলীগ মনোনয়ন দেয়নি সেটা কে বলবে। যাহোক, এটাকে আমরা ইস্যু করছি না। স্বাধীনতাবিরোধীদের প্রতি আমাদের যে অবস্থান সেটাতে কোন পরিবর্তন আসছে না।

ফ্রন্টের সমন্বয়ক মোস্তফা মুহসীন মন্টু বলেন, মুক্তিযুদ্ধে যারা স্বাধীনতাবিরোধী ভূমিকা নিয়ে আওয়ামী লীগেরও অনেকেকে নিয়ে প্রশ্ন আছে। এমন অনেকে সব দলেই আছে। তবুও যখন এমন প্রশ্ন উঠেছে আমরা বিষয়টাকে ফেলে দিচ্ছি না, আমরা তা খতিয়ে দেখবো। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, পাবলিক সেন্টিমেন্টকে সমুন্নত রেখেই একটা রাজনৈতিক গুনগত পরিবর্ত আমরা করতে চাই।

সরকারের তো সব ক্ষমতাই আছে, তবে জামাত কেনো নিষিদ্ধ কেন করছে না এমন প্রশ্ন রেখে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, কেনো সরকার জামায়াতে ইসলামীকে বাঁচিয়ে রেখেছে? তাদেরকে বাঁচিয়ে রেখেছে কে? আর তার উদ্দেশ্য, যেন সুযোগ বুঝে তাদের সাথে নেগোশিয়েট করতে পারে তাইতো? এছাড়াতো আর কোন কারণ আমি দেখছি না।