রাজশাহী , মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

নিখোঁজের ১৮ মাস পর কঙ্কাল উদ্ধার

  • আপডেটের সময় : ১১:৪১:৫৬ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২ ডিসেম্বর ২০১৮
  • ৯৫ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

সিলেট প্রতিনিধি: নিখোঁজ হওয়ার ১৮ মাস পর হদিস মিললো যুক্তরাজ্য প্রবাসী আব্দুল গফুরের। তবে জীবিত নয়, মাটি খুঁড়ে উঠানো হলো তার মরদেহ।

সুনামগঞ্জ আদালতের নির্দেশে রোববার (২ ডিসেম্বর) সিলেটের জৈন্তপুর মোকামের টিলা থেকে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট খ্রিস্টফার হিমেল রিছিলের উপস্থিতিতে মরদেহের কঙ্কাল উদ্ধার করে পুলিশ।

Trulli

গফুর জগন্নাথপুর পৌর এলাকার বাসিন্দা। ২০১৭ সালের ৮ মে দেশে ফিরে নিখোঁজ হয়েছিলেন তিনি।

অনুসন্ধান চালিয়ে গুম-খুনের আদ্যোপান্ত জানতে পারে পুলিশ। নিখোঁজের ঘটনায় জিডির সূত্র ধরে গত ২৫ নভেম্বর তদন্ত কর্মকর্তা সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) হাবিবুর রহমান জৈন্তাপুর থেকে খুনের ঘটনায় জড়িত তিনজনকে আটক করেন।

তারা হলেন-জগন্নাথপুরের বাসিন্দা জৈন্তপুর সাইট্রাস গবেষণা কেন্দ্রের অফিস সহায়ক আবুল কালাম আজাদ (৫২), তার জামাতা আনোয়ার হোসেন (৩০) ও জৈন্তপুর মোকামেরটিলা গ্রামের জুনাব আলী (৪২)।

তাদের মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে হাজির করা হলে তিনজনেই নিজেদের জড়িয়ে খুনের ঘটনায় আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন।

তাদের তথ্য ও দেখানো মতে, গফুরের মরদেহের সন্ধান মিলে। মরদেহের কঙ্কালসার উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাপাল মর্গে পাঠানো হয়েছে- নিশ্চিত করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা।

Adds Banner_2024

নিখোঁজের ১৮ মাস পর কঙ্কাল উদ্ধার

আপডেটের সময় : ১১:৪১:৫৬ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২ ডিসেম্বর ২০১৮

সিলেট প্রতিনিধি: নিখোঁজ হওয়ার ১৮ মাস পর হদিস মিললো যুক্তরাজ্য প্রবাসী আব্দুল গফুরের। তবে জীবিত নয়, মাটি খুঁড়ে উঠানো হলো তার মরদেহ।

সুনামগঞ্জ আদালতের নির্দেশে রোববার (২ ডিসেম্বর) সিলেটের জৈন্তপুর মোকামের টিলা থেকে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট খ্রিস্টফার হিমেল রিছিলের উপস্থিতিতে মরদেহের কঙ্কাল উদ্ধার করে পুলিশ।

Trulli

গফুর জগন্নাথপুর পৌর এলাকার বাসিন্দা। ২০১৭ সালের ৮ মে দেশে ফিরে নিখোঁজ হয়েছিলেন তিনি।

অনুসন্ধান চালিয়ে গুম-খুনের আদ্যোপান্ত জানতে পারে পুলিশ। নিখোঁজের ঘটনায় জিডির সূত্র ধরে গত ২৫ নভেম্বর তদন্ত কর্মকর্তা সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) হাবিবুর রহমান জৈন্তাপুর থেকে খুনের ঘটনায় জড়িত তিনজনকে আটক করেন।

তারা হলেন-জগন্নাথপুরের বাসিন্দা জৈন্তপুর সাইট্রাস গবেষণা কেন্দ্রের অফিস সহায়ক আবুল কালাম আজাদ (৫২), তার জামাতা আনোয়ার হোসেন (৩০) ও জৈন্তপুর মোকামেরটিলা গ্রামের জুনাব আলী (৪২)।

তাদের মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে হাজির করা হলে তিনজনেই নিজেদের জড়িয়ে খুনের ঘটনায় আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন।

তাদের তথ্য ও দেখানো মতে, গফুরের মরদেহের সন্ধান মিলে। মরদেহের কঙ্কালসার উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাপাল মর্গে পাঠানো হয়েছে- নিশ্চিত করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা।