রাজশাহী , মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

মুখোমুখি পুতিন-পেত্রো

  • আপডেটের সময় : ১১:২৫:৪৪ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২ ডিসেম্বর ২০১৮
  • ৯০ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ইউক্রেনের জাহাজ ও নাবিকদের ছেড়ে দেয়ার বিষয়টি নাচক করে দিয়েছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। আর্জেন্টিনায় জি-টোয়েন্টি শীর্ষ সম্মেলনে সাংবাদিকদের পুতিন বলেন, শান্তিপূর্ণ উপায়ে সঙ্কট সমাধানে আগ্রহী নয় ইউক্রেন।

রুশ প্রেসিডেন্টের এই বক্তব্যের তীব্র নিন্দা জানিয়ে কিয়েভ বলেছে, সংঘাত উসকে দিতে এস-ফোর হান্ড্রেড মোতায়েনের পর সীমান্তে সেনা উপস্থিতি জোরদার করেছে মস্কো। ইউক্রেন ইস্যুতে ইউরোপীয় ইউনিয়নকে রাশিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারির আহ্বান জানিয়েছে পোলান্ড।

Trulli

ইউক্রেনীয় জাহাজ ও নাবিকদের আটকের জেরে চলমান উত্তেজনার মধ্যেই রাশিয়ার বিরুদ্ধ ইউক্রেন সীমান্তে সামরিক উপস্থিতি বাড়ানোর অভিযোগ তুলেছে কিয়েভ।

তাদের দাবি, নতুন করে সংঘাত ছড়িয়ে দিতে ক্রিমিয়ার অধিকৃত দোনেস্ক ও লুহানস্ক অঞ্চলে ৮০ হাজারের বেশি সেনা, ৯শ’ ট্যাঙ্ক, ২৩শ’ সামরিক যান, ৫শ’ যুদ্ধবিমান এবং ৩শ’ হেলিকপ্টার মোতায়েন করেছে রাশিয়া। এছাড়া, কৃষ্ণ, আজোভ এজিয়ান সাগরে ৮০টি জাহাজ, ১৪টি সাবমেরিন মোতায়েন করা হয়েছে।

রাশিয়ার এমন তৎপরতার জবাবে নিজেদের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা জোরদারের ঘোষণা দিয়েছে ইউক্রেন। শনিবার সামরিক ঘাঁটি পরিদর্শনে গিয়ে সেনাবাহিনীর কাছে অত্যাধুনিক যুদ্ধবিমান হস্তান্তর করেন প্রেসিডেন্ট পেত্রো পোরাশেঙ্কো।

সেনা কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে দেয়া বক্তব্যে রাশিয়ার বিরুদ্ধে উসকানি দেয়ার অভিযোগ করে তিনি বলেন, পুরো বিশ্ব ব্যবস্থার শক্তি পরীক্ষায় নেমেছে ক্রেমলিন। তাদের এ পরীক্ষা সফল হলে আজোভ ও কৃষ্ণ সাগর রাশিয়ার সরোবরে পরিণত হবে।

প্রেসিডেন্ট পেত্রো পোরাশেঙ্কো বলেন, শুধু ইউক্রেন নয়, আমাদের মিত্র দেশগুলোর জন্যও রাশিয়া হুমকিস্বরূপ। তাদের হুমকি প্রতিরোধে সঠিক পদক্ষেপ খুঁজছি আমরা। এই মুহূর্তে অভ্যন্তীণ সামরিক সক্ষমতা বাড়িয়ে তাদের জবাব দেয়া হবে। আমাদের জাহাজ ও নাবিকদের ছেড়ে দিতে বিশ্ব সম্প্রদায়কে মস্কোর ওপর চাপ প্রয়োগের আহ্বান জানাচ্ছি।

Adds Banner_2024

মুখোমুখি পুতিন-পেত্রো

আপডেটের সময় : ১১:২৫:৪৪ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২ ডিসেম্বর ২০১৮

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ইউক্রেনের জাহাজ ও নাবিকদের ছেড়ে দেয়ার বিষয়টি নাচক করে দিয়েছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। আর্জেন্টিনায় জি-টোয়েন্টি শীর্ষ সম্মেলনে সাংবাদিকদের পুতিন বলেন, শান্তিপূর্ণ উপায়ে সঙ্কট সমাধানে আগ্রহী নয় ইউক্রেন।

রুশ প্রেসিডেন্টের এই বক্তব্যের তীব্র নিন্দা জানিয়ে কিয়েভ বলেছে, সংঘাত উসকে দিতে এস-ফোর হান্ড্রেড মোতায়েনের পর সীমান্তে সেনা উপস্থিতি জোরদার করেছে মস্কো। ইউক্রেন ইস্যুতে ইউরোপীয় ইউনিয়নকে রাশিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারির আহ্বান জানিয়েছে পোলান্ড।

Trulli

ইউক্রেনীয় জাহাজ ও নাবিকদের আটকের জেরে চলমান উত্তেজনার মধ্যেই রাশিয়ার বিরুদ্ধ ইউক্রেন সীমান্তে সামরিক উপস্থিতি বাড়ানোর অভিযোগ তুলেছে কিয়েভ।

তাদের দাবি, নতুন করে সংঘাত ছড়িয়ে দিতে ক্রিমিয়ার অধিকৃত দোনেস্ক ও লুহানস্ক অঞ্চলে ৮০ হাজারের বেশি সেনা, ৯শ’ ট্যাঙ্ক, ২৩শ’ সামরিক যান, ৫শ’ যুদ্ধবিমান এবং ৩শ’ হেলিকপ্টার মোতায়েন করেছে রাশিয়া। এছাড়া, কৃষ্ণ, আজোভ এজিয়ান সাগরে ৮০টি জাহাজ, ১৪টি সাবমেরিন মোতায়েন করা হয়েছে।

রাশিয়ার এমন তৎপরতার জবাবে নিজেদের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা জোরদারের ঘোষণা দিয়েছে ইউক্রেন। শনিবার সামরিক ঘাঁটি পরিদর্শনে গিয়ে সেনাবাহিনীর কাছে অত্যাধুনিক যুদ্ধবিমান হস্তান্তর করেন প্রেসিডেন্ট পেত্রো পোরাশেঙ্কো।

সেনা কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে দেয়া বক্তব্যে রাশিয়ার বিরুদ্ধে উসকানি দেয়ার অভিযোগ করে তিনি বলেন, পুরো বিশ্ব ব্যবস্থার শক্তি পরীক্ষায় নেমেছে ক্রেমলিন। তাদের এ পরীক্ষা সফল হলে আজোভ ও কৃষ্ণ সাগর রাশিয়ার সরোবরে পরিণত হবে।

প্রেসিডেন্ট পেত্রো পোরাশেঙ্কো বলেন, শুধু ইউক্রেন নয়, আমাদের মিত্র দেশগুলোর জন্যও রাশিয়া হুমকিস্বরূপ। তাদের হুমকি প্রতিরোধে সঠিক পদক্ষেপ খুঁজছি আমরা। এই মুহূর্তে অভ্যন্তীণ সামরিক সক্ষমতা বাড়িয়ে তাদের জবাব দেয়া হবে। আমাদের জাহাজ ও নাবিকদের ছেড়ে দিতে বিশ্ব সম্প্রদায়কে মস্কোর ওপর চাপ প্রয়োগের আহ্বান জানাচ্ছি।