রাজশাহী , বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

পুলিশ সদস্যদের সার্বিক প্রশিক্ষণের কোনও বিকল্প নেই

  • আপডেটের সময় : ০৫:২২:০৫ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২ ডিসেম্বর ২০১৮
  • ১০৭ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ঢাকা গ্রতিনিধি: আইনশৃঙ্খলা রক্ষা, অপরাধী গ্রেফতার, মামলা গ্রহণ ও তদন্ত কাজ, জঙ্গি দমন ও সাইবার ওয়ার্ল্ড নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি সাধারণ জনগণ, ভিআইপি ও ভিভিআইপিদের নিরাপত্তা দান সব দায়িত্বই পুলিশ বাহিনীকে পালন করতে হয়। আর এসব কাজ সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে পুলিশ সদস্যদের সার্বিক প্রশিক্ষণের কোনও বিকল্প নেই। আধুনিক ও যোগ্য পুলিশ বাহিনী গড়ে তুলতে তাই দেশে ও বিদেশে পুলিশ সদস্যদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

তবে আসলেই যাদের বিদেশে প্রশিক্ষণ জরুরি, তারা কী সে সব প্রশিক্ষণ পাচ্ছেন? এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে পুলিশ সদর দফতরের কর্মকর্তারা বলছেন, পুলিশের সর্বস্তরের সদস্যরাই পর্যায়ক্রমে দেশে-বিদেশে প্রশিক্ষণের সুযোগ পাচ্ছেন। গত কয়েক বছরে কত পুলিশ সদস্য প্রশিক্ষণ নিয়েছেন সেই হিসাব পাওয়া গেলেও পদবী অনুযায়ী প্রশিক্ষণ নেওয়া পুলিশ সদস্যদের তথ্য পাওয়া যায়নি।

Trulli

পুলিশ সদর দফতরের এক কর্মকর্তা জানান, বিদেশে প্রশিক্ষণের ক্ষেত্রে সীমাবদ্ধতা থাকায় কর্মকর্তারাই এই সুযোগ বেশি পাচ্ছেন। প্রশিক্ষণ থেকে ফিরে এসে তারা পুলিশের মাঠ পর্যায়ের সদস্যদের প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকেন। তবে কর্মকর্তারা ছাড়াও বিশেষায়িত প্রশিক্ষণগুলোর জন্য বিদেশে পুলিশের কনস্টেবলদেরও পাঠানো হয়ে থাকে।

যুক্তরাষ্ট্র, সিঙ্গাপুর, হাইতি, ভারত, দুবাই, অস্ট্রেলিয়া, থাইল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া, জার্মানি, সংযুক্ত আরব আমিরাত, ফ্রান্স, যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়া, মিয়ানমার, চীন, মালেয়েশিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, জর্ডান, নেপাল, ইতালি, ফিলিপাইন, নেদারল্যান্ড, ভিয়েতনাম, কম্বোডিয়া, শ্রীলঙ্কা, দুবাই, জাপান ও কোরিয়াসহ বিভিন্ন দেশে পুলিশ কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণের জন্য পাঠানো হয়। সন্ত্রাস ও জঙ্গি কার্যক্রম মোকাবিলায় পুলিশ সদস্যদের কমান্ডো আরমোরার, আনআর্মড কমব্যাট-এর মতো বিশেষায়িত প্রশিক্ষণ কোর্সগুলো খাগড়াছড়ির এপিবিএন এবং বিশেষায়িত ট্রেনিং সেন্টারে করানো হয়।

পুলিশ সদর দফতর সূত্র জানায়, দেশে পুলিশের কয়েকটি প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট রয়েছে। পুলিশ স্পেশাল ট্রেনিং স্কুল এর অন্যতম। এর বাইরেও পুলিশের ফরেনসিক ট্রেনিং ইনস্টিটিউটসহ আরও কিছু ট্রেনিং সেন্টার রয়েছে। এ ছাড়া বিশেষায়িত কিছু বিষয়ে পুলিশ সদস্যদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়ে থাকে। জঙ্গি উত্থান ও সাইবার অপরাধ বেড়ে যাওয়ার পর দেশের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা ও জননিরাপত্তা বিধানের লক্ষ্যে সরকার পুলিশ সদস্যদের প্রশিক্ষণের ওপর আরও জোর দিয়েছে।

বাহিনীকে যুগোপযোগী ও গতিশীল করার লক্ষ্যে গত পাঁচ বছরেই দেশে-বিদেশে পুলিশ সদস্যদের বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। মৌলিক প্রশিক্ষণের পাশাপাশি অপরাধ নিয়ন্ত্রণ ও তদন্ত সহায়ক হিসেবে কম্পিউটার ফরেনসিক, সাইবার ক্রাইম, মানি লন্ডারিং, পোস্ট-ব্লাস্ট ইনভেস্টিগেশন (বিস্ফোরণ পরবর্তী তদন্ত), ক্রাইম সিন ইনভেস্টিগেশন, নিউ টেকনিকস অব ইন্টারোগেশন, কল ডিটেইল রিপোর্ট (সিডিআর), বেসিক ইনফরমেশন অ্যান্ড কমিউনিকেশন, সংঘবদ্ধ অপরাধ প্রতিরোধে গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহ প্রক্রিয়াকরণ শীর্ষক ট্রেনিং, খুন, ডাকাতি ও অন্যান্য গুরুতর অপরাধের তদন্তে ডিজিটাল উপকরণ ব্যবস্থাপনাসহ বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়ে থাকে।

প্রশিক্ষণের অংশ হিসেবে কনস্টেবল থেকে সহকারি পুলিশ সুপার (এএসপি) পর্যায়ের কর্মকর্তাদের মৌলিক কারিকুলামে আধুনিক ও যুগোপযোগী বিষয়াদি অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। কনস্টেবল থেকে সাব-ইন্সপেক্টর (এসআই) পদমর্যাদার কর্মকর্তাদের সক্ষমতা বাড়াতেও ‘ট্রেনিং নীড অ্যাসেসমেন্ট’-এর মাধ্যমে বার্ষিক প্রশিক্ষণ পরিকল্পনা প্রণয়ন করে বিভিন্ন বিষয়ে পুলিশের ৩০টি ইন-সার্ভিস ট্রেনিং সেন্টারের মাধ্যমে প্রতিনিয়ত প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে।

জঙ্গিবাদ দমন ও নিয়ন্ত্রণে স্পেশালাইজড এপিবিএন অ্যান্ড ট্রেনিং সেন্টার করা হয়েছে। খাগড়াছড়িতে পুলিশ কমান্ডো কোর্স (পিসিসি) প্রবর্তন করা হয়েছে। এই কোর্স সম্পন্নকারী পুলিশ সদস্যরা জঙ্গি ও সন্ত্রাসবিরোধী অভিযানে সোয়াত টিমের সঙ্গে সম্মিলিতভাবে অভিযান চালাচ্ছে।

পুলিশের বিশেষায়িত বাহিনীর সদস্যদের পেশাদারিত্ব বাড়ানোর লক্ষ্যে এপিবিএন স্পেশালাইজড ট্রেনিং সেন্টারে বিশেষ ধরনের প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। চালু করা হয়েছে পুলিশ কমান্ডো কোর্স। এ ছাড়া প্রযুক্তির যথাযথ ব্যবহার ও প্রয়োগের মাধ্যমে তদন্তের মানোন্নয়নের লক্ষ্যে সিআইডির ফরেনসিক ট্রেনিং ইনস্টিটিউটে আইটি ও ফরেনসিক সংক্রান্ত বিষয়গুলো প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তাদের জন্য কম্পিউটার প্রশিক্ষণ এবং ক্রাইম ডাটা ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমস (সিডিএমএস) প্রশিক্ষণ বাধ্যতামূলক করে ইন সার্ভিস ট্রেনিং সেন্টারগুলোতে পর্যায়ক্রমে প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে।

পুলিশের মাঠ পর্যায়ের কার্যক্রমে গতিশীলতা এবং তদন্ত কার্যক্রমে সফলতা আনার লক্ষ্যে ২০১৫ সাল থেকে বিভাগীয় পদোন্নতির পূর্বশর্ত হিসেবে কোর্সগুলোতে বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এএসআইদের জন্য ১০ সপ্তাহ মেয়াদী ‘তদন্ত বিষয়ক প্রশিক্ষণ’, নায়েক ও কনস্টেবলদের জন্য আট সপ্তাহ মেয়াদী ‘প্রাথমিক তদন্ত বিষয়ক প্রশিক্ষণ’ এবং ‘আইন শৃঙ্খলা, অপরাধ দমন ও গোয়েন্দা তথ্য’ বিষয়ক কোর্স বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

এছাড়া ‘ক্রাইসিস রেসপন্স টিম’ শীর্ষক প্রশিক্ষণে চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের (সিএমপি) ২২ জন ও স্পেশালাইজড ট্রেনিং সেন্টার থেকে দু’জন, ‘ক্রাইসিস রেসপন্স টিম-২’ এ সিএমপি থেকে ২৩ জন, ‘ক্রাইসিস রেসপন্স টিম-৩’ এ রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) ২৩ জন, পোস্ট-ব্লাস্ট ইনভেস্টিগেশন-এ পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) থেকে ২৪ জন, ‘কুইক রিঅ্যাকশনারি ফোর্স’ এ এপিবিএন-১ ও এপিবিএন-৮ থেকে ২৪ জন, এক্সক্লুসিভ ইনসিডেন্ট কাউন্টারমেজার্স-১ এ ডিএমপি থেকে ১৫ জন, এক্সক্লুসিভ ইনসিডেন্ট কাউন্টারমেজার্স-২ এ ডিএমপি থেকে ১০ জন এবং এটিইউ থেকে পাঁচজনকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। বিভিন্ন কোর্সে এ পর্যন্ত ১৪৮ জন পুলিশ সদস্য প্রশিক্ষণ নিয়েছেন।

পুলিশ সদর দফতর থেকে পাওয়া তথ্যে দেখা যায়, পুলিশের বিভিন্ন প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানে প্রতি বছরই প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন হাজারো সদস্য। দেশে পুলিশের বিভিন্ন প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানে ২০১৪ সালে ৫৬ হাজার ১৯৭ জন, ২০১৫ সালে ৪৯ হাজার ৩৬৭ জন, ২০১৬ সালে ৬৭ হাজার ১১৯ জন, ২০১৭ সালে ৬২ হাজার ৬৮৭ জন এবং ২০১৮ সালের ৪ নভেম্বর পর্যন্ত ৫৪ হাজার ৭০২ জন পুলিশ সদস্য প্রশিক্ষণ নিয়েছেন।

অন্যদিকে, দেশের বাইরে ২০১৪ সালে প্রশিক্ষণ নিয়েছেন ১৯৯ জন। ২০১৫ সালে ২০৩ জন, ২০১৬ সালে ৪১২ জন, ২০১৭ সালে ৪৫৯ জন এবং ২০১৮ সালের অক্টোবর পর্যন্ত ৬৩২ জন।

পুলিশ সদস্যদের প্রশিক্ষণের সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে পুলিশ সদর দফতরের জনসংযোগ শাখার এআইজি মো. সোহেল রানা বাংলা ‘পুলিশ সদস্যদের পেশাদারিত্ব এবং সক্ষমতা বাড়ানোর জন্য প্রশিক্ষণের কোনও বিকল্প নেই। যে কারণে বর্তমান সময়ে পুলিশ সদস্যদের দেশে-বিদেশে প্রয়োজন ও চাহিদা অনুযায়ী যাকে যেখানে প্রয়োজন সেখানেই তার আধুনিক ও উন্নত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। আর এসব প্রশিক্ষণের কারণেই দেশে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস দমনে পুলিশ সদস্যরা দক্ষতার স্বাক্ষর রাখছেন।’

দেশের পুলিশ সদস্যদের প্রশিক্ষণ কার্যক্রমের অবস্থা বোঝাতে গিয়ে গত ২৬ নভেম্বর কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের উপ-কমিশনার মহিবুল ইসলাম খান ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন। এতে তিনি লিখেন, ‘কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের সকল কর্মকর্তাই বিদেশে প্রশিক্ষণের সুযোগ পেয়েছেন। পাশাপাশি বিদেশি বিভিন্ন আইন-শৃংখলা ও গোয়েন্দা সংস্থার অফিসাররা প্রায়ই বাংলাদেশের কর্মকর্তাদের সঙ্গে মত বিনিময়ে আসেন।’

Adds Banner_2024

পুলিশ সদস্যদের সার্বিক প্রশিক্ষণের কোনও বিকল্প নেই

আপডেটের সময় : ০৫:২২:০৫ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২ ডিসেম্বর ২০১৮

ঢাকা গ্রতিনিধি: আইনশৃঙ্খলা রক্ষা, অপরাধী গ্রেফতার, মামলা গ্রহণ ও তদন্ত কাজ, জঙ্গি দমন ও সাইবার ওয়ার্ল্ড নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি সাধারণ জনগণ, ভিআইপি ও ভিভিআইপিদের নিরাপত্তা দান সব দায়িত্বই পুলিশ বাহিনীকে পালন করতে হয়। আর এসব কাজ সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে পুলিশ সদস্যদের সার্বিক প্রশিক্ষণের কোনও বিকল্প নেই। আধুনিক ও যোগ্য পুলিশ বাহিনী গড়ে তুলতে তাই দেশে ও বিদেশে পুলিশ সদস্যদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

তবে আসলেই যাদের বিদেশে প্রশিক্ষণ জরুরি, তারা কী সে সব প্রশিক্ষণ পাচ্ছেন? এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে পুলিশ সদর দফতরের কর্মকর্তারা বলছেন, পুলিশের সর্বস্তরের সদস্যরাই পর্যায়ক্রমে দেশে-বিদেশে প্রশিক্ষণের সুযোগ পাচ্ছেন। গত কয়েক বছরে কত পুলিশ সদস্য প্রশিক্ষণ নিয়েছেন সেই হিসাব পাওয়া গেলেও পদবী অনুযায়ী প্রশিক্ষণ নেওয়া পুলিশ সদস্যদের তথ্য পাওয়া যায়নি।

Trulli

পুলিশ সদর দফতরের এক কর্মকর্তা জানান, বিদেশে প্রশিক্ষণের ক্ষেত্রে সীমাবদ্ধতা থাকায় কর্মকর্তারাই এই সুযোগ বেশি পাচ্ছেন। প্রশিক্ষণ থেকে ফিরে এসে তারা পুলিশের মাঠ পর্যায়ের সদস্যদের প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকেন। তবে কর্মকর্তারা ছাড়াও বিশেষায়িত প্রশিক্ষণগুলোর জন্য বিদেশে পুলিশের কনস্টেবলদেরও পাঠানো হয়ে থাকে।

যুক্তরাষ্ট্র, সিঙ্গাপুর, হাইতি, ভারত, দুবাই, অস্ট্রেলিয়া, থাইল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া, জার্মানি, সংযুক্ত আরব আমিরাত, ফ্রান্স, যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়া, মিয়ানমার, চীন, মালেয়েশিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, জর্ডান, নেপাল, ইতালি, ফিলিপাইন, নেদারল্যান্ড, ভিয়েতনাম, কম্বোডিয়া, শ্রীলঙ্কা, দুবাই, জাপান ও কোরিয়াসহ বিভিন্ন দেশে পুলিশ কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণের জন্য পাঠানো হয়। সন্ত্রাস ও জঙ্গি কার্যক্রম মোকাবিলায় পুলিশ সদস্যদের কমান্ডো আরমোরার, আনআর্মড কমব্যাট-এর মতো বিশেষায়িত প্রশিক্ষণ কোর্সগুলো খাগড়াছড়ির এপিবিএন এবং বিশেষায়িত ট্রেনিং সেন্টারে করানো হয়।

পুলিশ সদর দফতর সূত্র জানায়, দেশে পুলিশের কয়েকটি প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট রয়েছে। পুলিশ স্পেশাল ট্রেনিং স্কুল এর অন্যতম। এর বাইরেও পুলিশের ফরেনসিক ট্রেনিং ইনস্টিটিউটসহ আরও কিছু ট্রেনিং সেন্টার রয়েছে। এ ছাড়া বিশেষায়িত কিছু বিষয়ে পুলিশ সদস্যদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়ে থাকে। জঙ্গি উত্থান ও সাইবার অপরাধ বেড়ে যাওয়ার পর দেশের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা ও জননিরাপত্তা বিধানের লক্ষ্যে সরকার পুলিশ সদস্যদের প্রশিক্ষণের ওপর আরও জোর দিয়েছে।

বাহিনীকে যুগোপযোগী ও গতিশীল করার লক্ষ্যে গত পাঁচ বছরেই দেশে-বিদেশে পুলিশ সদস্যদের বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। মৌলিক প্রশিক্ষণের পাশাপাশি অপরাধ নিয়ন্ত্রণ ও তদন্ত সহায়ক হিসেবে কম্পিউটার ফরেনসিক, সাইবার ক্রাইম, মানি লন্ডারিং, পোস্ট-ব্লাস্ট ইনভেস্টিগেশন (বিস্ফোরণ পরবর্তী তদন্ত), ক্রাইম সিন ইনভেস্টিগেশন, নিউ টেকনিকস অব ইন্টারোগেশন, কল ডিটেইল রিপোর্ট (সিডিআর), বেসিক ইনফরমেশন অ্যান্ড কমিউনিকেশন, সংঘবদ্ধ অপরাধ প্রতিরোধে গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহ প্রক্রিয়াকরণ শীর্ষক ট্রেনিং, খুন, ডাকাতি ও অন্যান্য গুরুতর অপরাধের তদন্তে ডিজিটাল উপকরণ ব্যবস্থাপনাসহ বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়ে থাকে।

প্রশিক্ষণের অংশ হিসেবে কনস্টেবল থেকে সহকারি পুলিশ সুপার (এএসপি) পর্যায়ের কর্মকর্তাদের মৌলিক কারিকুলামে আধুনিক ও যুগোপযোগী বিষয়াদি অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। কনস্টেবল থেকে সাব-ইন্সপেক্টর (এসআই) পদমর্যাদার কর্মকর্তাদের সক্ষমতা বাড়াতেও ‘ট্রেনিং নীড অ্যাসেসমেন্ট’-এর মাধ্যমে বার্ষিক প্রশিক্ষণ পরিকল্পনা প্রণয়ন করে বিভিন্ন বিষয়ে পুলিশের ৩০টি ইন-সার্ভিস ট্রেনিং সেন্টারের মাধ্যমে প্রতিনিয়ত প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে।

জঙ্গিবাদ দমন ও নিয়ন্ত্রণে স্পেশালাইজড এপিবিএন অ্যান্ড ট্রেনিং সেন্টার করা হয়েছে। খাগড়াছড়িতে পুলিশ কমান্ডো কোর্স (পিসিসি) প্রবর্তন করা হয়েছে। এই কোর্স সম্পন্নকারী পুলিশ সদস্যরা জঙ্গি ও সন্ত্রাসবিরোধী অভিযানে সোয়াত টিমের সঙ্গে সম্মিলিতভাবে অভিযান চালাচ্ছে।

পুলিশের বিশেষায়িত বাহিনীর সদস্যদের পেশাদারিত্ব বাড়ানোর লক্ষ্যে এপিবিএন স্পেশালাইজড ট্রেনিং সেন্টারে বিশেষ ধরনের প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। চালু করা হয়েছে পুলিশ কমান্ডো কোর্স। এ ছাড়া প্রযুক্তির যথাযথ ব্যবহার ও প্রয়োগের মাধ্যমে তদন্তের মানোন্নয়নের লক্ষ্যে সিআইডির ফরেনসিক ট্রেনিং ইনস্টিটিউটে আইটি ও ফরেনসিক সংক্রান্ত বিষয়গুলো প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তাদের জন্য কম্পিউটার প্রশিক্ষণ এবং ক্রাইম ডাটা ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমস (সিডিএমএস) প্রশিক্ষণ বাধ্যতামূলক করে ইন সার্ভিস ট্রেনিং সেন্টারগুলোতে পর্যায়ক্রমে প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে।

পুলিশের মাঠ পর্যায়ের কার্যক্রমে গতিশীলতা এবং তদন্ত কার্যক্রমে সফলতা আনার লক্ষ্যে ২০১৫ সাল থেকে বিভাগীয় পদোন্নতির পূর্বশর্ত হিসেবে কোর্সগুলোতে বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এএসআইদের জন্য ১০ সপ্তাহ মেয়াদী ‘তদন্ত বিষয়ক প্রশিক্ষণ’, নায়েক ও কনস্টেবলদের জন্য আট সপ্তাহ মেয়াদী ‘প্রাথমিক তদন্ত বিষয়ক প্রশিক্ষণ’ এবং ‘আইন শৃঙ্খলা, অপরাধ দমন ও গোয়েন্দা তথ্য’ বিষয়ক কোর্স বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

এছাড়া ‘ক্রাইসিস রেসপন্স টিম’ শীর্ষক প্রশিক্ষণে চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের (সিএমপি) ২২ জন ও স্পেশালাইজড ট্রেনিং সেন্টার থেকে দু’জন, ‘ক্রাইসিস রেসপন্স টিম-২’ এ সিএমপি থেকে ২৩ জন, ‘ক্রাইসিস রেসপন্স টিম-৩’ এ রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) ২৩ জন, পোস্ট-ব্লাস্ট ইনভেস্টিগেশন-এ পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) থেকে ২৪ জন, ‘কুইক রিঅ্যাকশনারি ফোর্স’ এ এপিবিএন-১ ও এপিবিএন-৮ থেকে ২৪ জন, এক্সক্লুসিভ ইনসিডেন্ট কাউন্টারমেজার্স-১ এ ডিএমপি থেকে ১৫ জন, এক্সক্লুসিভ ইনসিডেন্ট কাউন্টারমেজার্স-২ এ ডিএমপি থেকে ১০ জন এবং এটিইউ থেকে পাঁচজনকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। বিভিন্ন কোর্সে এ পর্যন্ত ১৪৮ জন পুলিশ সদস্য প্রশিক্ষণ নিয়েছেন।

পুলিশ সদর দফতর থেকে পাওয়া তথ্যে দেখা যায়, পুলিশের বিভিন্ন প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানে প্রতি বছরই প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন হাজারো সদস্য। দেশে পুলিশের বিভিন্ন প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানে ২০১৪ সালে ৫৬ হাজার ১৯৭ জন, ২০১৫ সালে ৪৯ হাজার ৩৬৭ জন, ২০১৬ সালে ৬৭ হাজার ১১৯ জন, ২০১৭ সালে ৬২ হাজার ৬৮৭ জন এবং ২০১৮ সালের ৪ নভেম্বর পর্যন্ত ৫৪ হাজার ৭০২ জন পুলিশ সদস্য প্রশিক্ষণ নিয়েছেন।

অন্যদিকে, দেশের বাইরে ২০১৪ সালে প্রশিক্ষণ নিয়েছেন ১৯৯ জন। ২০১৫ সালে ২০৩ জন, ২০১৬ সালে ৪১২ জন, ২০১৭ সালে ৪৫৯ জন এবং ২০১৮ সালের অক্টোবর পর্যন্ত ৬৩২ জন।

পুলিশ সদস্যদের প্রশিক্ষণের সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে পুলিশ সদর দফতরের জনসংযোগ শাখার এআইজি মো. সোহেল রানা বাংলা ‘পুলিশ সদস্যদের পেশাদারিত্ব এবং সক্ষমতা বাড়ানোর জন্য প্রশিক্ষণের কোনও বিকল্প নেই। যে কারণে বর্তমান সময়ে পুলিশ সদস্যদের দেশে-বিদেশে প্রয়োজন ও চাহিদা অনুযায়ী যাকে যেখানে প্রয়োজন সেখানেই তার আধুনিক ও উন্নত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। আর এসব প্রশিক্ষণের কারণেই দেশে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস দমনে পুলিশ সদস্যরা দক্ষতার স্বাক্ষর রাখছেন।’

দেশের পুলিশ সদস্যদের প্রশিক্ষণ কার্যক্রমের অবস্থা বোঝাতে গিয়ে গত ২৬ নভেম্বর কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের উপ-কমিশনার মহিবুল ইসলাম খান ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন। এতে তিনি লিখেন, ‘কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের সকল কর্মকর্তাই বিদেশে প্রশিক্ষণের সুযোগ পেয়েছেন। পাশাপাশি বিদেশি বিভিন্ন আইন-শৃংখলা ও গোয়েন্দা সংস্থার অফিসাররা প্রায়ই বাংলাদেশের কর্মকর্তাদের সঙ্গে মত বিনিময়ে আসেন।’