রাজশাহী , মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

বাগমারায় এমপি ও মেয়র সমর্থকদের সংঘর্ষে যুবলীগ নেতা নিহত

  • আপডেটের সময় : ০২:২৮:২২ অপরাহ্ন, শনিবার, ১ ডিসেম্বর ২০১৮
  • ৮৪ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

রাজশাহী প্রতিনিধি: রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার তাহেরপুরে আওয়ামী লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষে যুবলীগ নেতা নিহত হয়েছেন। স্থানীয় সংসদ সদস্য প্রকৌশলী এনামুল হক ও আওয়ামী মনোনয়ন বঞ্চিত নেতা তাহেরপুর পৌরসভার মেয়র আবুল কালাম আজাদের সমর্থকদের মধ্যে এ সংঘর্ষে আরও পাঁচজন আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে দুইজনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় তাহেরপুর পৌরসভা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও তাহেরপুর ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক মাহাবুর রহমান বিপ্লবসহ তিনজনকে আটক করা হয়েছে। শনিবার দুপুরে তাহেরপুর হরিতলা এলাকায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে বলে জানান বাগমারা থানার ওসি নাছিম আহমেদ।

Trulli

নিহত যুবলীগ নেতার নাম চঞ্চল চন্দ্র। তিনি তাহেরপুর পৌরসভার হলদারপাড়ার নরেন চন্দ্র পিয়নের ছেলে। চঞ্চল চন্দ্র পৌরসভা যুবলীগের নির্বাহী কমিটির সদস্য। বিকেল সোয়া ৪টার দিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান চঞ্চল। তার পিঠে একটি ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, তাহেরপুর পৌরসভার মেয়র আবুল কালাম আজাদ শনিবার সকালে আওয়ামী লীগের বেশ কিছু নেতাকর্মী নিয়ে জামগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে বসে সভা করছিলেন। মেয়র আবুল কালাম আজাদ ওই বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি। এ সময় বিদ্যালয়ের একটি কক্ষ থেকে সংসদ সদস্য এনামুল হকের সমর্থক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক গুলবর রহমান মুঠোফোনে তার ভিডিও ধারণ করেন। বিষয়টি টের পেয়ে মেয়রের লোকজন তাঁর কাছে বিষয়টি জানতে চান।

এনিয়ে উভয়ের মধ্যে বাকবিতণ্ডার এক পর্যায়ে মেয়র আবুল কালামের লোকজন শিক্ষক গুলবর রহমানকে হাতুরি দিয়ে পিটিয়ে জখম করে। পরে স্থানীয় লোকজন তাঁকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করেন। পরে সেখান থেকে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এ ঘটনার খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সংসদ সদস্য এনামুল হকের সমর্থক আর্ট বাবুর নেতৃত্বে বেশ কয়েকজন কর্মী উপজেলার তাহেরপুর বাজারে মেয়রের সমর্থক যুবলীগ নেতা চঞ্চল ওপর পাল্টা হামলা করেন। এ সময় তাকে রামদা দিয়ে কুপিয়ে জখম করা হয়। এতে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়।

এ সময় প্রতিপক্ষের হামলায় কাউছার হোসেন (৪৫) নামের আরেকজন শিক্ষকও আহত হন। হামলার খবর ছড়িয়ে পড়লে মেয়রের বিপুল সংখ্যক লোকজন তাহেরপুর বাজারে আসে। এতে উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয় এবং ধাওয়াপাল্টা ধাওয়া শুরু হয়। এক পর্যায়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

মেয়র আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘পুলিশের সামনে এমপির লোকজন সশস্ত্র অবস্থায় তাঁর লোকজনের ওপর হামলা করেছে। এক যুবলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা করেছে। ভোটের সুষ্ঠু পরিবেশ বিনষ্ট করার জন্য চরমপন্থী ক্যাডার আর্ট বাবুর নেতৃত্বে এমপির ক্যাডার বাহিনী আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের ওপর এ হামলা চালায়।’

মেয়র বলেন, ‘গোপনে ভিডিও ধারণ করা নিয়ে তাঁর লোকজনের সঙ্গে শিক্ষক গুলবার রহমানের বাকবিতন্ড হয়। এর চেয়ে বেশি কিছু হয়নি’।

সংসদ সদস্য প্রকৌশলী এনামুল হক বলেন, ‘তাহেরপুর পৌরসভার মেয়র আবুল কালাম আজাদ নির্বাচনে বাগমারাকে অশান্ত করতে এই ঘটনা ঘটিয়েছেন। এলাকার শান্তি-শৃঙ্খলা নষ্ট করে তিনি পরিবেশ উত্তপ্ত করতে চাইছেন। মনোনয়ন না পেয়ে আমার ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করতে এই ঘটনা ঘটিয়েছেন। আমি বর্তমানে ঢাকায়। এর পরও সবাইকে শান্ত থাকতে বলেছি’।

Adds Banner_2024

বাগমারায় এমপি ও মেয়র সমর্থকদের সংঘর্ষে যুবলীগ নেতা নিহত

আপডেটের সময় : ০২:২৮:২২ অপরাহ্ন, শনিবার, ১ ডিসেম্বর ২০১৮

রাজশাহী প্রতিনিধি: রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার তাহেরপুরে আওয়ামী লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষে যুবলীগ নেতা নিহত হয়েছেন। স্থানীয় সংসদ সদস্য প্রকৌশলী এনামুল হক ও আওয়ামী মনোনয়ন বঞ্চিত নেতা তাহেরপুর পৌরসভার মেয়র আবুল কালাম আজাদের সমর্থকদের মধ্যে এ সংঘর্ষে আরও পাঁচজন আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে দুইজনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় তাহেরপুর পৌরসভা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও তাহেরপুর ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক মাহাবুর রহমান বিপ্লবসহ তিনজনকে আটক করা হয়েছে। শনিবার দুপুরে তাহেরপুর হরিতলা এলাকায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে বলে জানান বাগমারা থানার ওসি নাছিম আহমেদ।

Trulli

নিহত যুবলীগ নেতার নাম চঞ্চল চন্দ্র। তিনি তাহেরপুর পৌরসভার হলদারপাড়ার নরেন চন্দ্র পিয়নের ছেলে। চঞ্চল চন্দ্র পৌরসভা যুবলীগের নির্বাহী কমিটির সদস্য। বিকেল সোয়া ৪টার দিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান চঞ্চল। তার পিঠে একটি ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, তাহেরপুর পৌরসভার মেয়র আবুল কালাম আজাদ শনিবার সকালে আওয়ামী লীগের বেশ কিছু নেতাকর্মী নিয়ে জামগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে বসে সভা করছিলেন। মেয়র আবুল কালাম আজাদ ওই বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি। এ সময় বিদ্যালয়ের একটি কক্ষ থেকে সংসদ সদস্য এনামুল হকের সমর্থক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক গুলবর রহমান মুঠোফোনে তার ভিডিও ধারণ করেন। বিষয়টি টের পেয়ে মেয়রের লোকজন তাঁর কাছে বিষয়টি জানতে চান।

এনিয়ে উভয়ের মধ্যে বাকবিতণ্ডার এক পর্যায়ে মেয়র আবুল কালামের লোকজন শিক্ষক গুলবর রহমানকে হাতুরি দিয়ে পিটিয়ে জখম করে। পরে স্থানীয় লোকজন তাঁকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করেন। পরে সেখান থেকে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এ ঘটনার খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সংসদ সদস্য এনামুল হকের সমর্থক আর্ট বাবুর নেতৃত্বে বেশ কয়েকজন কর্মী উপজেলার তাহেরপুর বাজারে মেয়রের সমর্থক যুবলীগ নেতা চঞ্চল ওপর পাল্টা হামলা করেন। এ সময় তাকে রামদা দিয়ে কুপিয়ে জখম করা হয়। এতে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়।

এ সময় প্রতিপক্ষের হামলায় কাউছার হোসেন (৪৫) নামের আরেকজন শিক্ষকও আহত হন। হামলার খবর ছড়িয়ে পড়লে মেয়রের বিপুল সংখ্যক লোকজন তাহেরপুর বাজারে আসে। এতে উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয় এবং ধাওয়াপাল্টা ধাওয়া শুরু হয়। এক পর্যায়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

মেয়র আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘পুলিশের সামনে এমপির লোকজন সশস্ত্র অবস্থায় তাঁর লোকজনের ওপর হামলা করেছে। এক যুবলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা করেছে। ভোটের সুষ্ঠু পরিবেশ বিনষ্ট করার জন্য চরমপন্থী ক্যাডার আর্ট বাবুর নেতৃত্বে এমপির ক্যাডার বাহিনী আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের ওপর এ হামলা চালায়।’

মেয়র বলেন, ‘গোপনে ভিডিও ধারণ করা নিয়ে তাঁর লোকজনের সঙ্গে শিক্ষক গুলবার রহমানের বাকবিতন্ড হয়। এর চেয়ে বেশি কিছু হয়নি’।

সংসদ সদস্য প্রকৌশলী এনামুল হক বলেন, ‘তাহেরপুর পৌরসভার মেয়র আবুল কালাম আজাদ নির্বাচনে বাগমারাকে অশান্ত করতে এই ঘটনা ঘটিয়েছেন। এলাকার শান্তি-শৃঙ্খলা নষ্ট করে তিনি পরিবেশ উত্তপ্ত করতে চাইছেন। মনোনয়ন না পেয়ে আমার ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করতে এই ঘটনা ঘটিয়েছেন। আমি বর্তমানে ঢাকায়। এর পরও সবাইকে শান্ত থাকতে বলেছি’।