রাজশাহী , শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
রাজশাহীতে র‌্যাবের জালে ২৪ জুয়াড়ি লাব্বাইক ধ্বনিতে মুখর আরাফাত ময়দান পবিত্র হজ আজ এমপি আনার হত্যা: আ.লীগ নেতা গ্যাস বাবুর দোষ স্বীকার টুং টাং শব্দে ব্যস্ত সময় পার করছে রাজশাহীর কামাররা রেমালে ক্ষতিগ্রস্ত ১২৭৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান যুগান্তর পত্রিকায় মেয়রসহ তার পরিবারকে নিয়ে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ ও ব্যাখ্যা কাল থেকে টানা ৫ দিনের ছুটিতে যাচ্ছেন সরকারি চাকরিজীবীরা ফের দি‌ল্লি যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বগুড়ায় ব্যাংকের সিন্দুক কেটে ২৯ লাখ টাকা লুট বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার মধ্যে চলবে যাত্রীবাহী ফেরি শেখ হাসিনাকে ‘কোয়ালিশন অব লিডার্স’-এ চায় গ্লোবাল ফান্ড তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি : প্রধানমন্ত্রী দুর্যোগ মোকাবিলায় ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা জানালেন প্রধানমন্ত্রী বেনজীর পরিবারের আরও সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ বড় দুঃসংবাদ পেলেন সাকিব পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে : প্রধানমন্ত্রী কুয়েতে ভবনে ভয়াবহ আগুন, নিহত অন্তত ৩৯ আনার হত্যাকাণ্ড : ডিবি কার্যালয়ে ঝিনাইদহ আ. লীগ সম্পাদক মিন্টু যাদের জমিসহ ঘর করে দেওয়া হয়েছে, তাদের জীবন বদলে গেছে: প্রধানমন্ত্রী

বাংলাদেশের অর্থনীতির অবস্থা ক্রমবর্ধমান, উন্নতি দরকার ব্যাংকিং খাতেঃ মুডিসের রিপোর্ট

  • আপডেটের সময় : ০৩:২১:০৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩০ নভেম্বর ২০১৮
  • ৩৯৬ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

বিশেষ প্রতিনিধিঃ বৃহস্পতিবার (২৯ নভেম্বর) আন্তর্জাতিক ঋণমান নির্ণয়কারী প্রতিষ্ঠান মুডিস এক প্রতিবেদনে প্রকাশ করে। ‘ব্যাংকিং সিস্টেম আউটলুক-বাংলাদেশি ব্যাংকস’ শীর্ষক প্রতিবেদনটিতে দেশের খেলাপি ঝণ এর বর্তমান অবস্থা উল্লেখ করে বলেছে, ‘দেশটির অর্থনীতি অনেক ভালো হলেও ব্যাংকিং খাতের অবস্থা নাজুক।’

তবে ব্যাংকিং খাতে প্রচুর অর্থ রয়েছে এবং সরকারের সহযোগিতা অব্যাহত রয়েছে বলে জানায় মুডিস।

Trulli

দেশে খেলাপি ঝণের পরিমান বেড়েই চলেছে এবং এই খেলাপি ঝণের এই অবস্থা চলতে থাকলে আরো খারাপ পরিস্থিতি দাঁড়াবে বলে প্রতিষ্ঠানটি জানায়।
মুডিসে কর্মরত একজন বিশেষজ্ঞ তেংফু লি বলেন, ‘প্রতিযোগিতামূলক গার্মেন্ট শিল্পের কারণে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অবস্থা প্রসারিত হচ্ছে। ঋণ ও রেমিটেন্সের স্থিতিশীল প্রবৃদ্ধির কারণে আভ্যন্তরীণ ভোগ বৃদ্ধি পাবে। তবে বিখণ্ডিত ব্যাংকিং খাতে সম্পদের গুনগতমান নিম্নগামী।’ ব্যাংকিং খাতে, বিশেষ করে সরকারি ব্যাংকে সুশাসনের দুর্বলতার কারণে খেলাপি ঋণের পরিমাণ জুন মাসে ১০.৪ শতাংশে দাঁড়িয়েছে বলে তিনি জানান। আগামি ১২ থেকে ১৮ মাসের অবস্থা পর্যালোচনা করে মুডিস বলেছে, খেলাপি ঋণের পরিমাণ বেড়ে যাওয়ার কারণে সামনের দিনগুলিতে ঝুঁকির পরিমাণ বাড়বে। মুডিস মনে করে সামনের দিনগুলিতে থেলাপি ঋণের কারণে সুদের হার বাড়তে পারে এবং ব্যাংকিং খাতে মুনাফার হার কমতে পারে।

ব্যাংক পরিচালনার পরিবেশ, অর্থায়ন ও তারল্য এবং সরকারি সহায়তা সূচককে স্থিতিশীল বলছে সংস্থাটি। আর সম্পদ ঝুঁকি, মূলধন এবং মুনাফা ও দক্ষতা সূচককে নেতিবাচক বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

Adds Banner_2024
Adds Banner_2024

ধীরগতির পর বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম মহাসড়ক অনেকটাই ফাঁকা

Adds Banner_2024

বাংলাদেশের অর্থনীতির অবস্থা ক্রমবর্ধমান, উন্নতি দরকার ব্যাংকিং খাতেঃ মুডিসের রিপোর্ট

আপডেটের সময় : ০৩:২১:০৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩০ নভেম্বর ২০১৮

বিশেষ প্রতিনিধিঃ বৃহস্পতিবার (২৯ নভেম্বর) আন্তর্জাতিক ঋণমান নির্ণয়কারী প্রতিষ্ঠান মুডিস এক প্রতিবেদনে প্রকাশ করে। ‘ব্যাংকিং সিস্টেম আউটলুক-বাংলাদেশি ব্যাংকস’ শীর্ষক প্রতিবেদনটিতে দেশের খেলাপি ঝণ এর বর্তমান অবস্থা উল্লেখ করে বলেছে, ‘দেশটির অর্থনীতি অনেক ভালো হলেও ব্যাংকিং খাতের অবস্থা নাজুক।’

তবে ব্যাংকিং খাতে প্রচুর অর্থ রয়েছে এবং সরকারের সহযোগিতা অব্যাহত রয়েছে বলে জানায় মুডিস।

Trulli

দেশে খেলাপি ঝণের পরিমান বেড়েই চলেছে এবং এই খেলাপি ঝণের এই অবস্থা চলতে থাকলে আরো খারাপ পরিস্থিতি দাঁড়াবে বলে প্রতিষ্ঠানটি জানায়।
মুডিসে কর্মরত একজন বিশেষজ্ঞ তেংফু লি বলেন, ‘প্রতিযোগিতামূলক গার্মেন্ট শিল্পের কারণে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অবস্থা প্রসারিত হচ্ছে। ঋণ ও রেমিটেন্সের স্থিতিশীল প্রবৃদ্ধির কারণে আভ্যন্তরীণ ভোগ বৃদ্ধি পাবে। তবে বিখণ্ডিত ব্যাংকিং খাতে সম্পদের গুনগতমান নিম্নগামী।’ ব্যাংকিং খাতে, বিশেষ করে সরকারি ব্যাংকে সুশাসনের দুর্বলতার কারণে খেলাপি ঋণের পরিমাণ জুন মাসে ১০.৪ শতাংশে দাঁড়িয়েছে বলে তিনি জানান। আগামি ১২ থেকে ১৮ মাসের অবস্থা পর্যালোচনা করে মুডিস বলেছে, খেলাপি ঋণের পরিমাণ বেড়ে যাওয়ার কারণে সামনের দিনগুলিতে ঝুঁকির পরিমাণ বাড়বে। মুডিস মনে করে সামনের দিনগুলিতে থেলাপি ঋণের কারণে সুদের হার বাড়তে পারে এবং ব্যাংকিং খাতে মুনাফার হার কমতে পারে।

ব্যাংক পরিচালনার পরিবেশ, অর্থায়ন ও তারল্য এবং সরকারি সহায়তা সূচককে স্থিতিশীল বলছে সংস্থাটি। আর সম্পদ ঝুঁকি, মূলধন এবং মুনাফা ও দক্ষতা সূচককে নেতিবাচক বলে উল্লেখ করা হয়েছে।