রাজশাহী , মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

নির্বাচন কমিশন সরকারের নির্দেশ অনুসরণ করছে : ফখরুল

  • আপডেটের সময় : ০১:১৪:৪৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩০ নভেম্বর ২০১৮
  • ১৩৮ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ঢাকা প্রতিনিধি: বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, নির্বাচনের কোনো সুষ্ঠু পরিবেশ নেই। অবিলম্বে নেতাকর্মীদের গ্রেফতার ও মামলা দেওয়া বন্ধ না হলে তার দায়-দায়িত্ব সরকারকে এবং নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) বহন করতে হবে। শুক্রবার বিকেলে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।

ফখরুল বলেন, নির্বাচন কমিশন সরকারের নির্দেশ অনুসরণ করছে। আমরা নিরপেক্ষ নির্বাচনের দাবি জানিয়ে সাত দফা দিয়েছিলাম, কিন্তু তারা আমাদের কোনো দাবির প্রতি কর্ণপাত না করে একটি প্রহসনের নির্বাচনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। এখন জনগণের সামনে প্রশ্ন এসেছে আদৌ নির্বাচন হবে কি-না। এই প্রহসনের নির্বাচন করে কি লাভ?

Trulli

সংবাদ সম্মেলনে ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, পাঁচবার ওবায়দুল কাদেরকে পরাজিত করেছি। ২০০৮ সালে অনেক কারচুপির পর ১৩০০ ভোটে পরাজিত হই। গত দুই ঈদে বাড়ি থেকে বের হতে দেওয়া হয়নি। তফসিল ঘোষণার পরে আশা করেছিলাম সবাই নির্ভয়ে কাজ করতে পারবো। কিন্তু সেটা সম্ভব নয়। বলতে চাই নির্বাচন কমিশন সম্পূর্ণ ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। এই কমিশনের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন হবে বলে আমি মনে করি না।

নির্বাচনে থাকবেন কি-না এমন প্রশ্নের জবাবে সাংবাদিকদের পাল্টা প্রশ্ন ছুড়ে ফখরুল বলেন, আমরা এতোকিছু করছিতো নির্বাচনে থাকার জন্য, আপনাদের কি মনে হয়।

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ড. আব্দুল মঈন খান, মির্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী প্রমুখ।

Adds Banner_2024

নির্বাচন কমিশন সরকারের নির্দেশ অনুসরণ করছে : ফখরুল

আপডেটের সময় : ০১:১৪:৪৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩০ নভেম্বর ২০১৮

ঢাকা প্রতিনিধি: বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, নির্বাচনের কোনো সুষ্ঠু পরিবেশ নেই। অবিলম্বে নেতাকর্মীদের গ্রেফতার ও মামলা দেওয়া বন্ধ না হলে তার দায়-দায়িত্ব সরকারকে এবং নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) বহন করতে হবে। শুক্রবার বিকেলে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।

ফখরুল বলেন, নির্বাচন কমিশন সরকারের নির্দেশ অনুসরণ করছে। আমরা নিরপেক্ষ নির্বাচনের দাবি জানিয়ে সাত দফা দিয়েছিলাম, কিন্তু তারা আমাদের কোনো দাবির প্রতি কর্ণপাত না করে একটি প্রহসনের নির্বাচনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। এখন জনগণের সামনে প্রশ্ন এসেছে আদৌ নির্বাচন হবে কি-না। এই প্রহসনের নির্বাচন করে কি লাভ?

Trulli

সংবাদ সম্মেলনে ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, পাঁচবার ওবায়দুল কাদেরকে পরাজিত করেছি। ২০০৮ সালে অনেক কারচুপির পর ১৩০০ ভোটে পরাজিত হই। গত দুই ঈদে বাড়ি থেকে বের হতে দেওয়া হয়নি। তফসিল ঘোষণার পরে আশা করেছিলাম সবাই নির্ভয়ে কাজ করতে পারবো। কিন্তু সেটা সম্ভব নয়। বলতে চাই নির্বাচন কমিশন সম্পূর্ণ ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। এই কমিশনের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন হবে বলে আমি মনে করি না।

নির্বাচনে থাকবেন কি-না এমন প্রশ্নের জবাবে সাংবাদিকদের পাল্টা প্রশ্ন ছুড়ে ফখরুল বলেন, আমরা এতোকিছু করছিতো নির্বাচনে থাকার জন্য, আপনাদের কি মনে হয়।

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ড. আব্দুল মঈন খান, মির্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী প্রমুখ।