রাজশাহী , শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
রাজশাহীতে ঈদের প্রধান জামাত সকাল সাড়ে ৭টায় রাজশাহীতে র‌্যাবের জালে ২৪ জুয়াড়ি লাব্বাইক ধ্বনিতে মুখর আরাফাত ময়দান পবিত্র হজ আজ এমপি আনার হত্যা: আ.লীগ নেতা গ্যাস বাবুর দোষ স্বীকার টুং টাং শব্দে ব্যস্ত সময় পার করছে রাজশাহীর কামাররা রেমালে ক্ষতিগ্রস্ত ১২৭৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান যুগান্তর পত্রিকায় মেয়রসহ তার পরিবারকে নিয়ে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ ও ব্যাখ্যা কাল থেকে টানা ৫ দিনের ছুটিতে যাচ্ছেন সরকারি চাকরিজীবীরা ফের দি‌ল্লি যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বগুড়ায় ব্যাংকের সিন্দুক কেটে ২৯ লাখ টাকা লুট বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার মধ্যে চলবে যাত্রীবাহী ফেরি শেখ হাসিনাকে ‘কোয়ালিশন অব লিডার্স’-এ চায় গ্লোবাল ফান্ড তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি : প্রধানমন্ত্রী দুর্যোগ মোকাবিলায় ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা জানালেন প্রধানমন্ত্রী বেনজীর পরিবারের আরও সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ বড় দুঃসংবাদ পেলেন সাকিব পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে : প্রধানমন্ত্রী কুয়েতে ভবনে ভয়াবহ আগুন, নিহত অন্তত ৩৯ আনার হত্যাকাণ্ড : ডিবি কার্যালয়ে ঝিনাইদহ আ. লীগ সম্পাদক মিন্টু

আদলতের রায় সরকারের ইচ্ছার প্রতিফলন, গ্রহণযোগ্য নয়: মির্জা ফখরুল

  • আপডেটের সময় : ০১:০৪:২০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৭ নভেম্বর ২০১৮
  • ৮৭ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ঢাকা প্রতিনিধিঃ দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের নির্বাচনে অংশগ্রহণ বিষয়ে হাইকোর্টের দেওয়া রায়টি সরকারের ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আজ মঙ্গলবার (২৭ নভেম্বর) বেলা ৩টার দিকে  গুলশানে বিএনপি চেয়ারপাসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ের সামনে রায় নিয়ে প্রতিক্রিয়ায় সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

ফখরুল বলেন, এই রায় গ্রহণযোগ্য নয়। আগামী নির্বাচনে বিএনপি, ২০ দল ও ঐক্যফ্রন্টকে প্রতিহত করার জন্য সরকারের ইচ্ছায় এ রায় দেওয়া হয়েছে। এই মুহূর্তে এই রায় জনগণের মাঝে প্রশ্নের উদ্রেক করবে। জনগণ মানবে না। এ রায় জনগণ ঘৃণা ভরে প্রত্যাখ্যান করেছে। ঐক্যফ্রন্ট ও নির্বাচন প্রতিহত করতেই এই রায় দেওয়া হয়েছে।’

Trulli

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমরা আশা করেছিলাম নির্বাচনের আগেই খালেদা জিয়া মুক্তি পেয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন। কিন্তু সরকার আদালতকে ব্যবহার করে নির্বাচন থেকে দূরে রাখতেই এই রায় দেওয়ার ব্যবস্থা করেছে।’

আজ হাইকোর্ট বলেছেন, নিম্ন আদালতে দুই বছরের বেশি সাজা হলে আপিল বিচারাধীন থাকা অবস্থায় কোনো ব্যক্তি নির্বাচনে অংশ নিতে পারবে না। দুর্নীতির দায়ে বিচারিক আদালতে খালেদা জিয়াকে দেওয়া দণ্ড ও সাজা স্থগিত চেয়ে বিএনপির পাঁচ নেতার করা আবেদন খারিজ করে দেওয়া রায়ে আদালত এ কথা বলেন।

তবে আপিল বিভাগ থেকে দণ্ড স্থগিত কিংবা বাতিলের আদেশ এলে ওই ব্যক্তির নির্বাচনে অংশ নিতে কোনো বাধা থাকবে না বলেও উল্লেখ করেন আদালত।

দণ্ড স্থগিত চেয়ে আবেদন করা বিএনপির পাঁচ নেতা হলেন সাবেক প্রতিমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমানউল্লাহ আমান, বিএনপি সমর্থিত চিকিৎসকদের নেতা ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য ওয়াদুদ ভুঁইয়া, ঝিনাইদহ-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও ঝিনাইদহ জেলা বিএনপির সভাপতি মো. মশিউর রহমান এবং ঝিনাইদহ-১ আসনের সাবেক সাংসদ এবং বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মো. আবদুল ওহাব।

এর আগে, দুর্নীতির দুই মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া আপিলে দণ্ড স্থগিত হলেও সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না বলে; হাইকোর্টের এই রায়ের পর জানিয়েছেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। তিনি বলেন, ‘তিনি (খালেদা জিয়া) এখন খালাস পেলেও নির্বাচনে অংশ নিতে হলে, পাঁচ বছর অপেক্ষা করতে হবে।’

 

Adds Banner_2024

আদলতের রায় সরকারের ইচ্ছার প্রতিফলন, গ্রহণযোগ্য নয়: মির্জা ফখরুল

আপডেটের সময় : ০১:০৪:২০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৭ নভেম্বর ২০১৮

ঢাকা প্রতিনিধিঃ দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের নির্বাচনে অংশগ্রহণ বিষয়ে হাইকোর্টের দেওয়া রায়টি সরকারের ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আজ মঙ্গলবার (২৭ নভেম্বর) বেলা ৩টার দিকে  গুলশানে বিএনপি চেয়ারপাসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ের সামনে রায় নিয়ে প্রতিক্রিয়ায় সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

ফখরুল বলেন, এই রায় গ্রহণযোগ্য নয়। আগামী নির্বাচনে বিএনপি, ২০ দল ও ঐক্যফ্রন্টকে প্রতিহত করার জন্য সরকারের ইচ্ছায় এ রায় দেওয়া হয়েছে। এই মুহূর্তে এই রায় জনগণের মাঝে প্রশ্নের উদ্রেক করবে। জনগণ মানবে না। এ রায় জনগণ ঘৃণা ভরে প্রত্যাখ্যান করেছে। ঐক্যফ্রন্ট ও নির্বাচন প্রতিহত করতেই এই রায় দেওয়া হয়েছে।’

Trulli

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমরা আশা করেছিলাম নির্বাচনের আগেই খালেদা জিয়া মুক্তি পেয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন। কিন্তু সরকার আদালতকে ব্যবহার করে নির্বাচন থেকে দূরে রাখতেই এই রায় দেওয়ার ব্যবস্থা করেছে।’

আজ হাইকোর্ট বলেছেন, নিম্ন আদালতে দুই বছরের বেশি সাজা হলে আপিল বিচারাধীন থাকা অবস্থায় কোনো ব্যক্তি নির্বাচনে অংশ নিতে পারবে না। দুর্নীতির দায়ে বিচারিক আদালতে খালেদা জিয়াকে দেওয়া দণ্ড ও সাজা স্থগিত চেয়ে বিএনপির পাঁচ নেতার করা আবেদন খারিজ করে দেওয়া রায়ে আদালত এ কথা বলেন।

তবে আপিল বিভাগ থেকে দণ্ড স্থগিত কিংবা বাতিলের আদেশ এলে ওই ব্যক্তির নির্বাচনে অংশ নিতে কোনো বাধা থাকবে না বলেও উল্লেখ করেন আদালত।

দণ্ড স্থগিত চেয়ে আবেদন করা বিএনপির পাঁচ নেতা হলেন সাবেক প্রতিমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমানউল্লাহ আমান, বিএনপি সমর্থিত চিকিৎসকদের নেতা ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য ওয়াদুদ ভুঁইয়া, ঝিনাইদহ-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও ঝিনাইদহ জেলা বিএনপির সভাপতি মো. মশিউর রহমান এবং ঝিনাইদহ-১ আসনের সাবেক সাংসদ এবং বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মো. আবদুল ওহাব।

এর আগে, দুর্নীতির দুই মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া আপিলে দণ্ড স্থগিত হলেও সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না বলে; হাইকোর্টের এই রায়ের পর জানিয়েছেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। তিনি বলেন, ‘তিনি (খালেদা জিয়া) এখন খালাস পেলেও নির্বাচনে অংশ নিতে হলে, পাঁচ বছর অপেক্ষা করতে হবে।’