রাজশাহী , সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

দন্ডিত খালেদা জিয়ার অন্তত পাঁচ বছরের আগে নির্বাচনের সুযোগ নেই

  • আপডেটের সময় : ১১:৫৪:৪০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৭ নভেম্বর ২০১৮
  • ১৪৯ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ঢাকা প্রতিনিধিঃ সংবিধান অনুযায়ী খালেদা জিয়া নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না বলে জানিয়েছেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

তিনি (খালেদা জিয়া) এখন খালাস পেলেও নির্বাচনে অংশ নিতে হলে, পাঁচ বছর অপেক্ষা করতে হবে; আজ মঙ্গলবার হাই কোর্টের আদেশের পর নিজের চেম্বারে এসে সাংবাদিকদের একথা বলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

Trulli

তিনি বলেন, “ইতোমধ্যে তিনি (খালেদা জিয়া) যদি তার দণ্ড থেকে মুক্তিলাভ করেন বা তার সাজা যদি বাতিল হয়ে যায়, সেই ক্ষেত্রে বাতিলের তারিখ থেকে ৫ বছর পর্যন্ত তিনি নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না।”

এই বক্তব্যের পক্ষে যুক্তি দিয়ে মাহবুবে আলম বলেন, “এখানে কন্ডিশন হল মূলত দুইটা। তিনি যদি দণ্ডিত হন, তাহলে পারবেন না। আর ইতোমধ্যে তিনি যদি তার দণ্ড থেকে মুক্তিলাভ করেন বা তার সাজা যদি বাতিল হয়ে যায়, সেই ক্ষেত্রে বাতিলের তারিখ থেকে ৫ বছর পর্যন্ত তিনি পারবেন না।”

তিনি বলেন “এখানে তার (খালেদা জিয়া) দুটো সাংবিধানিক প্রতিবন্ধকতা রয়েছে। কাজেই যে কোনো আদালত রায় দিয়ে এই সাংবিধানিক প্রতিবন্ধকতা ওভারকাম করতে পারেন না বা এটাকে অগ্রাহ্য করতে পারেন না।”

মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, মহিউদ্দিন খান আলমগীর, হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদের বিচারিক আদালতে সাজা হলেও, আপিল চলমান অবস্থায় তারা নির্বাচন করেছেন, তাদের সে অবস্থা বেআইনি কিনা এমন প্রশ্ন করা হলে তা এড়িয়ে যান অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

 

খালেদা জিয়ার নির্বাচনে অংশ নেওয়ার কোনো সুযোগ অ্যাটর্নি জেনারেল না দেখলেও আশা ছাড়ছেন না খালেদার আইনজীবীরা। অ্যাটর্নি জেনারেলে মাহবুবে আলমের সঙ্গে একমত নন বিএনপি চেয়ারপারসনের অন্যতম আইনজীবী সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি জয়নুল আবেদীন।

জয়নুল আবেদীন বলেন, “এ বিষয়ে সাবেক প্রধান বিচারপতি মোস্তফা কমালের একটি জাজমেন্ট আছে। সেখানে তিনি বলেছেন, নির্বাচন হচ্ছে ব্যক্তির সাংবিধানিক অধিকার। নিম্ন আদালতে সাজা হলে এর বিরুদ্ধে যদি আপিল করা হয়, তাহলে সংবিধান মোতাবেক তাকে নির্বাচন থেকে দূরে রখা যাবে না।

“যে পর্যন্ত সাজাটা আপিল বিভাগ কর্তৃক কনফার্ম (চূড়ান্ত) না করা হয়, ততক্ষণ পর্যন্ত আপিল ইজ দি কন্টিনিউয়েশন অব দ্য প্রসেস। সেই ক্ষেত্রে আমার মতে আপিল বিচারাধীন থাকা অবস্থায় নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করতে কোনো বাধা নেই।” তবে আপিল বিভাগকে এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট আদেশ দিতে হবে বলে মনে করেন এই আইনজীবী।

সেজন্য বিএনপির পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ আদালতে কোনো আবেদন করা হবে কিনা জানতে চাইলে জয়নুল বলেন, “আমরা তো বেগম খালেদা জিয়ার পক্ষে মনোনয়ন দাখিল করেছি। এখন নির্বাচন কশিন যদি তার নমিনেশন পেপার রিজেক্ট করে, তাহলে আমাদের আপিল বিভাগে যেতে হবে।”

উল্লেখ্য, দুর্নীতির মামলায় দুই বছর বা এর অধিক কারাদণ্ডে দণ্ডিত ব্যক্তিরা নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না। শুধুমাত্র আপিল বিভাগ কর্তৃক সাজা স্থগিত হলেই তারা নির্বাচনে অংশ নেয়ার সুযোগ পাবেন বলে আজ মঙ্গলবার পর্যবেক্ষণ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

 

Adds Banner_2024

দন্ডিত খালেদা জিয়ার অন্তত পাঁচ বছরের আগে নির্বাচনের সুযোগ নেই

আপডেটের সময় : ১১:৫৪:৪০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৭ নভেম্বর ২০১৮

ঢাকা প্রতিনিধিঃ সংবিধান অনুযায়ী খালেদা জিয়া নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না বলে জানিয়েছেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

তিনি (খালেদা জিয়া) এখন খালাস পেলেও নির্বাচনে অংশ নিতে হলে, পাঁচ বছর অপেক্ষা করতে হবে; আজ মঙ্গলবার হাই কোর্টের আদেশের পর নিজের চেম্বারে এসে সাংবাদিকদের একথা বলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

Trulli

তিনি বলেন, “ইতোমধ্যে তিনি (খালেদা জিয়া) যদি তার দণ্ড থেকে মুক্তিলাভ করেন বা তার সাজা যদি বাতিল হয়ে যায়, সেই ক্ষেত্রে বাতিলের তারিখ থেকে ৫ বছর পর্যন্ত তিনি নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না।”

এই বক্তব্যের পক্ষে যুক্তি দিয়ে মাহবুবে আলম বলেন, “এখানে কন্ডিশন হল মূলত দুইটা। তিনি যদি দণ্ডিত হন, তাহলে পারবেন না। আর ইতোমধ্যে তিনি যদি তার দণ্ড থেকে মুক্তিলাভ করেন বা তার সাজা যদি বাতিল হয়ে যায়, সেই ক্ষেত্রে বাতিলের তারিখ থেকে ৫ বছর পর্যন্ত তিনি পারবেন না।”

তিনি বলেন “এখানে তার (খালেদা জিয়া) দুটো সাংবিধানিক প্রতিবন্ধকতা রয়েছে। কাজেই যে কোনো আদালত রায় দিয়ে এই সাংবিধানিক প্রতিবন্ধকতা ওভারকাম করতে পারেন না বা এটাকে অগ্রাহ্য করতে পারেন না।”

মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, মহিউদ্দিন খান আলমগীর, হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদের বিচারিক আদালতে সাজা হলেও, আপিল চলমান অবস্থায় তারা নির্বাচন করেছেন, তাদের সে অবস্থা বেআইনি কিনা এমন প্রশ্ন করা হলে তা এড়িয়ে যান অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

 

খালেদা জিয়ার নির্বাচনে অংশ নেওয়ার কোনো সুযোগ অ্যাটর্নি জেনারেল না দেখলেও আশা ছাড়ছেন না খালেদার আইনজীবীরা। অ্যাটর্নি জেনারেলে মাহবুবে আলমের সঙ্গে একমত নন বিএনপি চেয়ারপারসনের অন্যতম আইনজীবী সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি জয়নুল আবেদীন।

জয়নুল আবেদীন বলেন, “এ বিষয়ে সাবেক প্রধান বিচারপতি মোস্তফা কমালের একটি জাজমেন্ট আছে। সেখানে তিনি বলেছেন, নির্বাচন হচ্ছে ব্যক্তির সাংবিধানিক অধিকার। নিম্ন আদালতে সাজা হলে এর বিরুদ্ধে যদি আপিল করা হয়, তাহলে সংবিধান মোতাবেক তাকে নির্বাচন থেকে দূরে রখা যাবে না।

“যে পর্যন্ত সাজাটা আপিল বিভাগ কর্তৃক কনফার্ম (চূড়ান্ত) না করা হয়, ততক্ষণ পর্যন্ত আপিল ইজ দি কন্টিনিউয়েশন অব দ্য প্রসেস। সেই ক্ষেত্রে আমার মতে আপিল বিচারাধীন থাকা অবস্থায় নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করতে কোনো বাধা নেই।” তবে আপিল বিভাগকে এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট আদেশ দিতে হবে বলে মনে করেন এই আইনজীবী।

সেজন্য বিএনপির পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ আদালতে কোনো আবেদন করা হবে কিনা জানতে চাইলে জয়নুল বলেন, “আমরা তো বেগম খালেদা জিয়ার পক্ষে মনোনয়ন দাখিল করেছি। এখন নির্বাচন কশিন যদি তার নমিনেশন পেপার রিজেক্ট করে, তাহলে আমাদের আপিল বিভাগে যেতে হবে।”

উল্লেখ্য, দুর্নীতির মামলায় দুই বছর বা এর অধিক কারাদণ্ডে দণ্ডিত ব্যক্তিরা নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না। শুধুমাত্র আপিল বিভাগ কর্তৃক সাজা স্থগিত হলেই তারা নির্বাচনে অংশ নেয়ার সুযোগ পাবেন বলে আজ মঙ্গলবার পর্যবেক্ষণ দিয়েছেন হাইকোর্ট।