রাজশাহী , শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
রাজশাহীতে ঈদের প্রধান জামাত সকাল সাড়ে ৭টায় রাজশাহীতে র‌্যাবের জালে ২৪ জুয়াড়ি লাব্বাইক ধ্বনিতে মুখর আরাফাত ময়দান পবিত্র হজ আজ এমপি আনার হত্যা: আ.লীগ নেতা গ্যাস বাবুর দোষ স্বীকার টুং টাং শব্দে ব্যস্ত সময় পার করছে রাজশাহীর কামাররা রেমালে ক্ষতিগ্রস্ত ১২৭৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান যুগান্তর পত্রিকায় মেয়রসহ তার পরিবারকে নিয়ে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ ও ব্যাখ্যা কাল থেকে টানা ৫ দিনের ছুটিতে যাচ্ছেন সরকারি চাকরিজীবীরা ফের দি‌ল্লি যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বগুড়ায় ব্যাংকের সিন্দুক কেটে ২৯ লাখ টাকা লুট বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার মধ্যে চলবে যাত্রীবাহী ফেরি শেখ হাসিনাকে ‘কোয়ালিশন অব লিডার্স’-এ চায় গ্লোবাল ফান্ড তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি : প্রধানমন্ত্রী দুর্যোগ মোকাবিলায় ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা জানালেন প্রধানমন্ত্রী বেনজীর পরিবারের আরও সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ বড় দুঃসংবাদ পেলেন সাকিব পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে : প্রধানমন্ত্রী কুয়েতে ভবনে ভয়াবহ আগুন, নিহত অন্তত ৩৯ আনার হত্যাকাণ্ড : ডিবি কার্যালয়ে ঝিনাইদহ আ. লীগ সম্পাদক মিন্টু

গ্যাস সিলিন্ডার পেল ৬০০ রোহিঙ্গা পরিবার

  • আপডেটের সময় : ০৯:৩১:৪১ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ নভেম্বর ২০১৮
  • ২২১ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

কক্সবাজার প্রতিনিধি: কক্সবাজারের কুতুপালংসহ বিভিন্ন ক্যাম্পের ছয়শত রোহিঙ্গা পরিবারকে লিকুইফায়েড পেট্রোলিয়াম গ্যাস (এলপিজি) সিলিন্ডার বিতরণ করেছে জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক সংস্থা, ইউএনএইচসিআর।

গত সপ্তাহে ইউএনএইচসিআর এই এলপিজি বিতরণ কর্মসূচির আয়োজন করে। এই কর্মসূচির মূল উদ্দেশ্য হলো- বাংলাদেশের মানবিক সহায়তার কর্মসূচিকে সমর্থন করা। দুই লাখ শরণার্থী পরিবারসহ পরিমিত সংখ্যক কক্সবাজারে বসবাসকারী স্থানীয় পরিবারকে সহায়তা করা যেন তাদের সার্বিক পরিবেশ পরিচ্ছন্নতা, নিরাপত্তা ও আস্থা নিশ্চিত করা যায় এবং পরিবেশবান্ধব রান্নার ব্যবস্থা নিশ্চিত করা যায়।

Trulli

এ ছাড়াও এই পদক্ষেপ শরণার্থী আগমনের ফলে পরিবেশের ওপর যে প্রভাব পড়েছে তা নিরাময়ে ও পরিবেশ রক্ষায় একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে আশা করা হচ্ছে।

বর্তমানে কক্সবাজারের শরণার্থী ও স্থানীয় জনগণের অধিকাংশই রান্নার জন্য জ্বালানি কাঠ ব্যবহার করে। শরণার্থীরা ঘণ্টার পর ঘণ্টা জ্বালানির কাঠের খোঁজে তাদের সময় ব্যয় করে থাকে। ফলে প্রথমবারের মতো প্রায় ৬০০ শরণার্থী পরিবারে পরীক্ষামূলকভাবে এলপিজি বিতরণ করা হয়। আশা করা হচ্ছে, এই নতুন পদ্ধতি তাদের সময় ও অর্থ অপচয় রোধ করার পাশাপাশি শরণার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে।

উল্লেখ্য যে, জ্বালানি কাঠ সংগ্রহে তাদের অনেক দূরের পথ পাড়ি দিতে হয় এবং এই কাজে নিয়োজিত বেশিরভাগই শিশু ও নারী যারা জ্বালানি সংগ্রহের সময় নানারকম ঝুঁকির সম্মুখীন হয়।

এলপিজি ব্যবহারের মাধ্যমে ক্যাম্পজুড়ে বায়ু দূষণ প্রতিরোধ করার পাশাপাশি শরণার্থীদের শারীরিক অবস্থার উন্নয়ন আশা করা হচ্ছে। যেহেতু শরণার্থীরা কাঠ, অন্যান্য দাহ্য সামগ্রীর বিনিময়ে পরিবেশবান্ধব এলপিজি ব্যবহার করবে। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মী মতে, ক্যাম্পজুড়ে শ্বাসপ্রশ্বাসজনিত রোগ একটি অন্যতম সমস্যা, যে সমস্যার অন্যতম মূল কারণ এই ধোঁয়াযুক্ত ঘনবসতি।

কর্মসূচির অংশ হিসেবে শরণার্থীদের সরাসরি প্রশিক্ষণের ব্যবস্থাও করা হচ্ছে। যেখানে তারা নিরাপদভাবে ও দায়িত্বের সাথে এলপিজি ব্যবহারের হাতেখড়ি নিতে পারছে। প্রতিটি সিলিন্ডারে সাড়ে ১২ কিলোগ্রাম এলপিজি থাকে, যা সাতজন সদস্যের একটি পরিবারের এক মাসের রান্নার জন্য যথেষ্ঠ। শরণার্থীরা প্রতিমাসে নিয়মিতভাবে সিলিন্ডার রিফিলের সুযোগও পাবে। এই সিলিন্ডার ও চুলা স্থানীয়ভাবে তৈরিকৃত, যা কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করার মাধ্যমে বাংলাদেশের অর্থনীতির অগ্রগতিতে ভূমিকা রাখছে।

Adds Banner_2024

গ্যাস সিলিন্ডার পেল ৬০০ রোহিঙ্গা পরিবার

আপডেটের সময় : ০৯:৩১:৪১ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ নভেম্বর ২০১৮

কক্সবাজার প্রতিনিধি: কক্সবাজারের কুতুপালংসহ বিভিন্ন ক্যাম্পের ছয়শত রোহিঙ্গা পরিবারকে লিকুইফায়েড পেট্রোলিয়াম গ্যাস (এলপিজি) সিলিন্ডার বিতরণ করেছে জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক সংস্থা, ইউএনএইচসিআর।

গত সপ্তাহে ইউএনএইচসিআর এই এলপিজি বিতরণ কর্মসূচির আয়োজন করে। এই কর্মসূচির মূল উদ্দেশ্য হলো- বাংলাদেশের মানবিক সহায়তার কর্মসূচিকে সমর্থন করা। দুই লাখ শরণার্থী পরিবারসহ পরিমিত সংখ্যক কক্সবাজারে বসবাসকারী স্থানীয় পরিবারকে সহায়তা করা যেন তাদের সার্বিক পরিবেশ পরিচ্ছন্নতা, নিরাপত্তা ও আস্থা নিশ্চিত করা যায় এবং পরিবেশবান্ধব রান্নার ব্যবস্থা নিশ্চিত করা যায়।

Trulli

এ ছাড়াও এই পদক্ষেপ শরণার্থী আগমনের ফলে পরিবেশের ওপর যে প্রভাব পড়েছে তা নিরাময়ে ও পরিবেশ রক্ষায় একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে আশা করা হচ্ছে।

বর্তমানে কক্সবাজারের শরণার্থী ও স্থানীয় জনগণের অধিকাংশই রান্নার জন্য জ্বালানি কাঠ ব্যবহার করে। শরণার্থীরা ঘণ্টার পর ঘণ্টা জ্বালানির কাঠের খোঁজে তাদের সময় ব্যয় করে থাকে। ফলে প্রথমবারের মতো প্রায় ৬০০ শরণার্থী পরিবারে পরীক্ষামূলকভাবে এলপিজি বিতরণ করা হয়। আশা করা হচ্ছে, এই নতুন পদ্ধতি তাদের সময় ও অর্থ অপচয় রোধ করার পাশাপাশি শরণার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে।

উল্লেখ্য যে, জ্বালানি কাঠ সংগ্রহে তাদের অনেক দূরের পথ পাড়ি দিতে হয় এবং এই কাজে নিয়োজিত বেশিরভাগই শিশু ও নারী যারা জ্বালানি সংগ্রহের সময় নানারকম ঝুঁকির সম্মুখীন হয়।

এলপিজি ব্যবহারের মাধ্যমে ক্যাম্পজুড়ে বায়ু দূষণ প্রতিরোধ করার পাশাপাশি শরণার্থীদের শারীরিক অবস্থার উন্নয়ন আশা করা হচ্ছে। যেহেতু শরণার্থীরা কাঠ, অন্যান্য দাহ্য সামগ্রীর বিনিময়ে পরিবেশবান্ধব এলপিজি ব্যবহার করবে। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মী মতে, ক্যাম্পজুড়ে শ্বাসপ্রশ্বাসজনিত রোগ একটি অন্যতম সমস্যা, যে সমস্যার অন্যতম মূল কারণ এই ধোঁয়াযুক্ত ঘনবসতি।

কর্মসূচির অংশ হিসেবে শরণার্থীদের সরাসরি প্রশিক্ষণের ব্যবস্থাও করা হচ্ছে। যেখানে তারা নিরাপদভাবে ও দায়িত্বের সাথে এলপিজি ব্যবহারের হাতেখড়ি নিতে পারছে। প্রতিটি সিলিন্ডারে সাড়ে ১২ কিলোগ্রাম এলপিজি থাকে, যা সাতজন সদস্যের একটি পরিবারের এক মাসের রান্নার জন্য যথেষ্ঠ। শরণার্থীরা প্রতিমাসে নিয়মিতভাবে সিলিন্ডার রিফিলের সুযোগও পাবে। এই সিলিন্ডার ও চুলা স্থানীয়ভাবে তৈরিকৃত, যা কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করার মাধ্যমে বাংলাদেশের অর্থনীতির অগ্রগতিতে ভূমিকা রাখছে।