রাজশাহী , সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

নির্বাচনে বিদেশী পর্যবেক্ষক নয়- দেশের জনগণই বড় পর্যবেক্ষক :মোহাম্মদ নাসিম

  • আপডেটের সময় : ০৪:৪৮:৪৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ নভেম্বর ২০১৮
  • ১১৮ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি: নির্বাচনে বিদেশী পর্যবেক্ষক নয়-এ দেশের জনগণই বড় পর্যবেক্ষক মন্তব্য করে আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, ১৪ দলের মুখপাত্র ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন- জনগণের প্রতি আস্থাহীন রাজনৈতিক দল বিএনপি নির্বাচনে বিদেশী পর্যবেক্ষকদের উপর ভরসা করছে। তিনি বলেছেন- নির্বাচন সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ হবে। জনগণ ভোটের মালিক।

এ নির্বাচনে জনগণ যাদের রায় দেবে, তারাই পরবর্তী সরকার গঠন করবেন। আওয়ামীলীগের নেতৃত্বে ১৪ দল জনগণের রায় মেনে নেবে। তিনি শুক্রবার সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার বহুলী ইউনিয়নে স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর ও এলজিইডি’র চলমান উন্নয়নমুলক কর্মকান্ড পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেছেন। এ ছাড়াও তিনি বিভিন্ন এলাকায় উপস্থিত সমবেত জনতারর উদ্দেশ্যে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দেন।

Trulli

মোহাম্মদ নাসিম সাংবাদিকদের আরো বলেছেন- জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতৃত্বে বিএনপি এবং অন্যান্য দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছে এটি সুখের কথা। আওয়ামীলীগও চায় দেশের নিবন্ধিত সকল দল নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করুক। সকল দলের অংশগ্রহণে প্রতিদ্বন্ধিতামূলক এ নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামীলীগ আবারো সরকার গঠন করবে। কিন্তু কোন দল যেন নির্বাচন থেকে সরে গিয়ে বিদেশীদের কাছে অসত্য অভিযোগ না করে তার জন্য তিনি সকল রাজনৈতিক দলের প্রতিআহবান জানান।

তিনি এও বলেছেন- কোন অন্যায় বা ভুল হলে তাঁর বিচার এ দেশের জনগণই করবে। বিদেশীরা নয় বলেও তিনি মন্তব্য করেন। এ সময় তাঁর সাথে জেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি আবু ইউসুফ সূর্য্য, যুগ্ন সম্পাদক আব্দুল বারী শেখ, কৃষকলীগের কেন্দ্রী সহসভাপতি আব্দুল লতিফ তারিন, মনসুর নগর থানা আওয়ামীলগের গোলাম রব্বানী, জেরা যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুল হাকিম, জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক জেহাদ আল ইসলামসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার গত ১০ বছরে যে উন্নয়ন করেছে তা অভুতপূর্ব উন্নয়ন উল্লেখ করেমোহাম্মদ নাসিম বলেছেন-নির্বাচনে নৌকার কোন বিকল্প নেই। মানুষ শান্তিতে থাকতে চায়, উন্নয়ন চায়, শান্তি এবং উন্নয়নের স্বার্থে জনগণ আবারও নৌকায় ভোট দেবে। এ দেশের মানুষ জ্বালাও পোড়াও রাজনীতি প্রত্যাখান করেছেন, যারা জ্বালাও পোড়াও রাজনীতি করে সেই দলকে মানুষ আর ভোট দেবে না।

দেশে একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য সকল রাজনৈতিক দলকে এগিয়ে আসার আহবান জানিয়ে আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন- নির্বাচনী ডামাঢোল বেজে উঠেছে। জনগণও নির্বাচনমুখী। সরকার দেশে একটি অবাধ,সুষ্ঠু ও শান্তিপুর্ণ নির্বাচনে অঙ্গিকারাবদ্ধ। নির্বাচনের শান্তিপূর্ণ পরিবেশ রক্ষার দায়িত্ব সরকারের একার নয়। দেশের সকল গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দলেরও দায়িত্ব রয়েছে একটি অবাধ,সুষ্ঠু ও শান্তিপুর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠানে সহযোগিতা করা। জনগণকেও এগিয়ে আসতে হবে।

কোনভাবেই নির্বাচনের পরিবেশ বিঘ্নিত করা যাবে না। কোন অপশক্তি যেন শান্তিপূর্ণ পরিবেশ নষ্ট করতে না পারে সেজন্য তিনি জনগণকে সজাগ থাকার আহবান জানিয়েছেন। তিনি আমেরিকার ট্রাম্প প্রশাসনের ক্ষমতায় থাকার পরও নির্বাচনে তাঁর দল হেরে যাবার দৃষ্টান্ত তুলে ধরে বলেছেন- মালয়েশিয়া সহ ভারতেও ক্ষমতাসীন দলের অধিনেই নির্বাচন হয়।

বাংলাদেশেও সংবিধান অনুযায়ী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধিনে নির্বাচন হবে। জনগণ ভোটের মালিক। নির্বাচন ছাড়া ক্ষমতার পালা বদলের কোন সুযোগ নেই। কোন অপশক্তি দেশের উপর ভর করুক তা কারো কাম্য নয়।

Adds Banner_2024

নির্বাচনে বিদেশী পর্যবেক্ষক নয়- দেশের জনগণই বড় পর্যবেক্ষক :মোহাম্মদ নাসিম

আপডেটের সময় : ০৪:৪৮:৪৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ নভেম্বর ২০১৮

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি: নির্বাচনে বিদেশী পর্যবেক্ষক নয়-এ দেশের জনগণই বড় পর্যবেক্ষক মন্তব্য করে আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, ১৪ দলের মুখপাত্র ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন- জনগণের প্রতি আস্থাহীন রাজনৈতিক দল বিএনপি নির্বাচনে বিদেশী পর্যবেক্ষকদের উপর ভরসা করছে। তিনি বলেছেন- নির্বাচন সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ হবে। জনগণ ভোটের মালিক।

এ নির্বাচনে জনগণ যাদের রায় দেবে, তারাই পরবর্তী সরকার গঠন করবেন। আওয়ামীলীগের নেতৃত্বে ১৪ দল জনগণের রায় মেনে নেবে। তিনি শুক্রবার সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার বহুলী ইউনিয়নে স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর ও এলজিইডি’র চলমান উন্নয়নমুলক কর্মকান্ড পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেছেন। এ ছাড়াও তিনি বিভিন্ন এলাকায় উপস্থিত সমবেত জনতারর উদ্দেশ্যে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দেন।

Trulli

মোহাম্মদ নাসিম সাংবাদিকদের আরো বলেছেন- জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতৃত্বে বিএনপি এবং অন্যান্য দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছে এটি সুখের কথা। আওয়ামীলীগও চায় দেশের নিবন্ধিত সকল দল নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করুক। সকল দলের অংশগ্রহণে প্রতিদ্বন্ধিতামূলক এ নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামীলীগ আবারো সরকার গঠন করবে। কিন্তু কোন দল যেন নির্বাচন থেকে সরে গিয়ে বিদেশীদের কাছে অসত্য অভিযোগ না করে তার জন্য তিনি সকল রাজনৈতিক দলের প্রতিআহবান জানান।

তিনি এও বলেছেন- কোন অন্যায় বা ভুল হলে তাঁর বিচার এ দেশের জনগণই করবে। বিদেশীরা নয় বলেও তিনি মন্তব্য করেন। এ সময় তাঁর সাথে জেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি আবু ইউসুফ সূর্য্য, যুগ্ন সম্পাদক আব্দুল বারী শেখ, কৃষকলীগের কেন্দ্রী সহসভাপতি আব্দুল লতিফ তারিন, মনসুর নগর থানা আওয়ামীলগের গোলাম রব্বানী, জেরা যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুল হাকিম, জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক জেহাদ আল ইসলামসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার গত ১০ বছরে যে উন্নয়ন করেছে তা অভুতপূর্ব উন্নয়ন উল্লেখ করেমোহাম্মদ নাসিম বলেছেন-নির্বাচনে নৌকার কোন বিকল্প নেই। মানুষ শান্তিতে থাকতে চায়, উন্নয়ন চায়, শান্তি এবং উন্নয়নের স্বার্থে জনগণ আবারও নৌকায় ভোট দেবে। এ দেশের মানুষ জ্বালাও পোড়াও রাজনীতি প্রত্যাখান করেছেন, যারা জ্বালাও পোড়াও রাজনীতি করে সেই দলকে মানুষ আর ভোট দেবে না।

দেশে একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য সকল রাজনৈতিক দলকে এগিয়ে আসার আহবান জানিয়ে আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন- নির্বাচনী ডামাঢোল বেজে উঠেছে। জনগণও নির্বাচনমুখী। সরকার দেশে একটি অবাধ,সুষ্ঠু ও শান্তিপুর্ণ নির্বাচনে অঙ্গিকারাবদ্ধ। নির্বাচনের শান্তিপূর্ণ পরিবেশ রক্ষার দায়িত্ব সরকারের একার নয়। দেশের সকল গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দলেরও দায়িত্ব রয়েছে একটি অবাধ,সুষ্ঠু ও শান্তিপুর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠানে সহযোগিতা করা। জনগণকেও এগিয়ে আসতে হবে।

কোনভাবেই নির্বাচনের পরিবেশ বিঘ্নিত করা যাবে না। কোন অপশক্তি যেন শান্তিপূর্ণ পরিবেশ নষ্ট করতে না পারে সেজন্য তিনি জনগণকে সজাগ থাকার আহবান জানিয়েছেন। তিনি আমেরিকার ট্রাম্প প্রশাসনের ক্ষমতায় থাকার পরও নির্বাচনে তাঁর দল হেরে যাবার দৃষ্টান্ত তুলে ধরে বলেছেন- মালয়েশিয়া সহ ভারতেও ক্ষমতাসীন দলের অধিনেই নির্বাচন হয়।

বাংলাদেশেও সংবিধান অনুযায়ী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধিনে নির্বাচন হবে। জনগণ ভোটের মালিক। নির্বাচন ছাড়া ক্ষমতার পালা বদলের কোন সুযোগ নেই। কোন অপশক্তি দেশের উপর ভর করুক তা কারো কাম্য নয়।