রাজশাহী , মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

নাইকো দুনীর্তির মামলার নথি আদালতে

  • আপডেটের সময় : ০৭:১৩:৫৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ নভেম্বর ২০১৮
  • ১২৭ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

বিশেষ প্রতিনিধি/ঢাকা:
খালেদা জিয়ার আমলে ঘুষ ও দূর্ণীতির মাধ্যমে নাইকো কে কাজ দেওয়ার প্রমাণ পেয়েছে এফবিআইও কানাডিও পুলিশ। সেই অনুসন্ধানী নথি বিচারিক আদালতে জমা দিয়েছেন আ্যার্টানি জেনারেল মাহবুব আলম। বৃহস্পতিবার দুপুরে তদন্ত প্রতিবেদনটি আমলে নিয়ে ৯ ডিসেম্বর তারিখ ঠিক করেছে আদালত।

জানা গেছে, ছাতকের ট্যাংরা টিলার নাইকোর গ্যাস দূর্ঘটনার ১৩ বছর পেরিয়ে গেছে সরেজমিনে গত সপ্তাহে গ্যাস ছড়িয়ে পড়ার চিত্র দেখা গিয়েছে। এখনও ট্যাংরা টিলার মানুষের নষ্ট হয়ে যাওয়া ঘর বাড়ি আবাদি জমির ক্ষতি পূরণের আসায়। এসবের মধ্যে কানাডার আদালতে নাইকোর বিরুদ্ধে বাংলাদেশের প্রভাবশালী ব্যক্তিদের ঘুষ দেওয়ার অপরাধ প্রমাণিত হয়েছে।

Trulli

কানাডিও রয়েল মাউন্টেড পুলিশ ও এফবিআই এর পুলিশ নাইকোর দেওয়া চার মিলিয়ন ঘুষের টাকা বাংলাদেশের আটজন ব্যক্তির হাত ছুঁয়েছে বলে উল্লেখ্য করা হয়েছে। সেই নথি ঘেটে দেখা যায়, নাইকোর সাথে দুটি চুক্তি হয়েছিলো খালেদা জিয়ার আমলে।
আর ২০০৩ সালে জয়েন ফেনচার এগ্রিমেন্ট জেবিএ সই করা পরের দিন ১৭ই অক্টোবর অ্যাকাউন্ট থেকে। আরো অন্য অ্যাকাউন্ট দুই লাখ ৯৩ হাজার মার্কিন ডলার হাত বদল হয়।

এই অংক পাঁচ দিনের মাথায় ঢাকা টোকিও ঘুরে। ঢাকার ব্যাংকে এই টাকা ২০০৪ সালে সেলিম ভুইয়ার অ্যাকাউন্ট থেকে ১ কোটি ৮০ লাখ টাকা মামুনের অ্যকাউন্ট মোট চার মিলিয়ন ডলার কাশিম শরীফের অ্যাকাউন্ট থেকে বিতরণ করা হয়।

ঢাকা ক্লাবের সভাপতি সেলিম ভুইয়া তারেকের বন্ধু হিসেবে মামুন নিজের তারেক রহমানের উপর মহলের খরচের ভাগ মন্ত্রনালয়ের হয়ে গাড়ি ও টাকার ভাগ পায়। জ¦ালানি প্রতিমন্ত্রী এ কে এম মোশারফ আগের সরকারে আমলে অযোগ্য তালিকাভুক্ত।

কোম্পানিকে আইনী ছাড়পত্র দেওয়া বাবধ মওদুদ আহমদের আইনী কেম্পানী বাবধ আইমন্ত্রী হিসেবে ব্যারিস্টার মওদুদ। আর এই প্রক্রিয়ার সাথে দুটি প্রধানমন্ত্রীর কার্যলয়ের প্রভাশালী মহলের নাম এসেছে অনুসন্ধানে।

দুটি আন্তজার্তিক সংস্থার প্রতিবেদন বলছে ১৯৯৬ থেকে ২০০১ শেখ হাসিনা সরকারে সময়কালীন একটি গবেষণামূলক সমঝোতা হয়। অর্থকারী লেনদেন বা কোন চুক্তির প্রমাণ পাওয়া যায়নি। উল্লেখ্য, ২০০৭ সালে নাইকোর অনিয়ম সাবেক দুই প্রধানমন্ত্রী বিরুদ্ধে মামলা হয়। পরে শেখ হাসিনার মামলাটি বাতিল হয়ে মোশারফের দেশ বিদেশের আদলতে ফেসে যায় খালেদা জিয়ার সময়কার কয়জন।

Adds Banner_2024

নাইকো দুনীর্তির মামলার নথি আদালতে

আপডেটের সময় : ০৭:১৩:৫৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ নভেম্বর ২০১৮

বিশেষ প্রতিনিধি/ঢাকা:
খালেদা জিয়ার আমলে ঘুষ ও দূর্ণীতির মাধ্যমে নাইকো কে কাজ দেওয়ার প্রমাণ পেয়েছে এফবিআইও কানাডিও পুলিশ। সেই অনুসন্ধানী নথি বিচারিক আদালতে জমা দিয়েছেন আ্যার্টানি জেনারেল মাহবুব আলম। বৃহস্পতিবার দুপুরে তদন্ত প্রতিবেদনটি আমলে নিয়ে ৯ ডিসেম্বর তারিখ ঠিক করেছে আদালত।

জানা গেছে, ছাতকের ট্যাংরা টিলার নাইকোর গ্যাস দূর্ঘটনার ১৩ বছর পেরিয়ে গেছে সরেজমিনে গত সপ্তাহে গ্যাস ছড়িয়ে পড়ার চিত্র দেখা গিয়েছে। এখনও ট্যাংরা টিলার মানুষের নষ্ট হয়ে যাওয়া ঘর বাড়ি আবাদি জমির ক্ষতি পূরণের আসায়। এসবের মধ্যে কানাডার আদালতে নাইকোর বিরুদ্ধে বাংলাদেশের প্রভাবশালী ব্যক্তিদের ঘুষ দেওয়ার অপরাধ প্রমাণিত হয়েছে।

Trulli

কানাডিও রয়েল মাউন্টেড পুলিশ ও এফবিআই এর পুলিশ নাইকোর দেওয়া চার মিলিয়ন ঘুষের টাকা বাংলাদেশের আটজন ব্যক্তির হাত ছুঁয়েছে বলে উল্লেখ্য করা হয়েছে। সেই নথি ঘেটে দেখা যায়, নাইকোর সাথে দুটি চুক্তি হয়েছিলো খালেদা জিয়ার আমলে।
আর ২০০৩ সালে জয়েন ফেনচার এগ্রিমেন্ট জেবিএ সই করা পরের দিন ১৭ই অক্টোবর অ্যাকাউন্ট থেকে। আরো অন্য অ্যাকাউন্ট দুই লাখ ৯৩ হাজার মার্কিন ডলার হাত বদল হয়।

এই অংক পাঁচ দিনের মাথায় ঢাকা টোকিও ঘুরে। ঢাকার ব্যাংকে এই টাকা ২০০৪ সালে সেলিম ভুইয়ার অ্যাকাউন্ট থেকে ১ কোটি ৮০ লাখ টাকা মামুনের অ্যকাউন্ট মোট চার মিলিয়ন ডলার কাশিম শরীফের অ্যাকাউন্ট থেকে বিতরণ করা হয়।

ঢাকা ক্লাবের সভাপতি সেলিম ভুইয়া তারেকের বন্ধু হিসেবে মামুন নিজের তারেক রহমানের উপর মহলের খরচের ভাগ মন্ত্রনালয়ের হয়ে গাড়ি ও টাকার ভাগ পায়। জ¦ালানি প্রতিমন্ত্রী এ কে এম মোশারফ আগের সরকারে আমলে অযোগ্য তালিকাভুক্ত।

কোম্পানিকে আইনী ছাড়পত্র দেওয়া বাবধ মওদুদ আহমদের আইনী কেম্পানী বাবধ আইমন্ত্রী হিসেবে ব্যারিস্টার মওদুদ। আর এই প্রক্রিয়ার সাথে দুটি প্রধানমন্ত্রীর কার্যলয়ের প্রভাশালী মহলের নাম এসেছে অনুসন্ধানে।

দুটি আন্তজার্তিক সংস্থার প্রতিবেদন বলছে ১৯৯৬ থেকে ২০০১ শেখ হাসিনা সরকারে সময়কালীন একটি গবেষণামূলক সমঝোতা হয়। অর্থকারী লেনদেন বা কোন চুক্তির প্রমাণ পাওয়া যায়নি। উল্লেখ্য, ২০০৭ সালে নাইকোর অনিয়ম সাবেক দুই প্রধানমন্ত্রী বিরুদ্ধে মামলা হয়। পরে শেখ হাসিনার মামলাটি বাতিল হয়ে মোশারফের দেশ বিদেশের আদলতে ফেসে যায় খালেদা জিয়ার সময়কার কয়জন।