রাজশাহী , মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
তিস্তা মহাপরিকল্পনায় চীন-ভারতের ভারসাম্য কীভাবে? বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তার পানি বণ্টন সম্ভব নয় : মমতা মারা গেছেন ‘জল্লাদ’ শাহজাহান ‘প্রযুক্তিজ্ঞান ছাড়া দেশ বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে পারে না’ দুদকে হা‌জির হন‌নি বেনজীর, আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা রাজশাহীতে দেখা মিলল সাত রাসেলস ভাইপারের, পিটিয়ে মারলো এলাকাবাসী নগর যুবলীগের পদ থেকে সরে দাঁড়ালেন শফিকুজ্জামান শফিক আওয়ামী লীগ জনগণের শক্তিতে বিশ্বাস করে : প্রধানমন্ত্রী বন্যায় স্থগিত জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন পরীক্ষা আ’লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী একাদশে ভর্তির প্রথম ধাপের ফল প্রকাশ আজ দীর্ঘদিনের প্রচেষ্টায় বাস্তবায়ন হচ্ছে রাসিক মেয়র লিটনের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি রাজশাহী-কলকাতা ট্রেন চালুর ঘোষণা আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী আগামীকাল দিল্লির রাষ্ট্রপতি ভবনে শেখ হাসিনাকে লাল গালিচা সংবর্ধনা রাজশাহী মহানগর যুবলীগের নেতৃত্বে মনি,রনি ও জেলায় সজল,সৈকত নির্বাচিত  প্রধানমন্ত্রীর কণ্ঠ শুনেই ছুটে এলো খরগোশের দল ঈদের দিন বন্ধ থাকবে সব আন্তঃনগর ট্রেন রাসিক মেয়র ও তার পরিবারের সদস্যদের জড়িয়ে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছে উলামা কল্যাণ পরিষদ রাজশাহীতে ঈদের প্রধান জামাত সকাল সাড়ে ৭টায়

যাকে মনোনয়ন দেওয়া হবে তাঁর পক্ষে কাজ করতে হবে :প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

  • আপডেটের সময় : ০৪:১৭:৫৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ নভেম্বর ২০১৮
  • ১৩৯ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ঢাকা প্রতিনিধি: ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়ে তা থেকে বঞ্চিত হওয়ার আশঙ্কায় থাকাদের সান্ত্বনা দিয়েছেন দলটির সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একইসঙ্গে দল ও জোট থেকে যারা মনোনয়ন পাবেন তাদের বিজয়ী করতে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার নির্দেশও দেন তাদের।

বুধবার (২১ নভেম্বর)রাতে মনোনয়ন প্রত্যাশী দুই শতাধিক নেতাকর্মী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারি বাসভবনে গেলে তিনি সমবেতদের উদ্দেশে এসব কথা বলেন। সেখানে উপস্থিত থাকা একাধিক সূত্র থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

Trulli

সূত্র জানায়, এদিন সন্ধ্যার সময় মনোনয়ন চেয়ে বঞ্চিত হওয়ার আশঙ্কায় থাকা অনেকে গণভবনে যান। একে একে এ সংখ্যা ২০০ ছাড়িয়ে যায়। মহানবী হযরত মোহাম্মদ (সা.) এর জন্ম দিন হওয়ায় এদিন ছিল ছুটির দিন। নেতাকর্মীরা তাদের প্রিয় ‘আপা’র কাছে নিজেদের বক্তব্য, অভিমান, অনুযোগ তুলে ধরার জন্য এ দিনটিকেই বেছে নেন। একসঙ্গে এত নেতাকর্মীর আগমনের খবর পেয়ে শেখ হাসিনাও নিচে নেমে আসেন। সমবেতরা জড়ো হন ব্যাংকুয়েট হলে। শেখ হাসিনা কার কী বক্তব্য আছে তা শুনতে চান। তখন একে একে অনেকেই তার নিজের বক্তব্য তুলে ধরেন।

প্রধানমন্ত্রীর সামনে বক্তব্য দেন ছাত্রলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এবং বরিশাল-২ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী শাহে আলম, ঢাকা-২ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী শাহীন আহমেদ (শাহীন চেয়ারম্যান), মুন্সীগঞ্জ-১ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী সাবেক ছাত্রলীগ নেতা গোলাম সরওয়ার কবীর, বরগুনা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক-জাহাঙ্গীর কবির, কুমিল্লা জেলা উত্তরের সাধারণ সম্পাদক-জাহাঙ্গীর আলম, নরসিংদীর শিবপুরের সাবেক এমপি জহিরুল হক ভূঞা মোহন, পাবনা-২ এর সংসদ সদস্য আজিজুল হক আরজু প্রমুখ।

শাহীন আহমেদ বুধবারের সন্ধ্যার সাক্ষাতের বিষয়ে বলেন, ‘আমি নির্বাচনে মনোনয়নের ক্ষেত্রে তৃণমূলের মতামতকে আমলে নেওয়ার প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণাকে সমর্থন করেছি। মনোনয়নের ক্ষেত্রে উপজেলা চেয়ারম্যান-মেয়রদের প্রার্থী না করার ঘোষণাকে পুনর্বিবেচনা করার জন্য প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেছি।’

সূত্র জানায়, এদিন শাহে আলম প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে বলেন, ‘বরিশালের বানারীপাড়ায় জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক কাঠামো নেই। আর যে ব্যক্তিকে মনোনয়ন দেওয়ার কথা চলছে, তিনি পাশের থানা বাবুগঞ্জের মানুষ।’

ছাত্রলীগের সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি গোলাম সরওয়ার কবীর প্রধানমন্ত্রীকে বলেন,‘ওই এলাকায় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক অবস্থা ভালো। গণজোয়ার নৌকার পক্ষে। গত পাঁচ বছর ধরে তিনি ঘরে ঘরে গিয়ে কাজ করেছেন। নেতাকর্মীদের পাশে ছিলেন। ঢাকার প্রবেশ পথ হিসেবে ওই এলাকা খুব গুরুত্বপূর্ণ। তাছাড়া ওখানে অন্য দলের কোনও ব্যক্তি বা অন্য মার্কাকে মনোনয়ন দেওয়া হলে তিনি বিজয়ী হতে পারবেন না। জবাবে প্রধানমন্ত্রী বাস্তব অবস্থা বিবেচনায় নেওয়ার নিশ্চয়তা দেন।’

উল্লেখ্য, এ আসনে বিকল্পধারা বাংলাদেশের যুগ্ম মহাসচিব মাহী বি চৌধুরীকে মহাজোটের ব্যানারে মনোনয়ন দেওয়ার আলোচনা রয়েছে। বিকল্পধারা তথা যুক্তফ্রন্ট আওয়ামী লীগের নির্বাচনি জোট-মহাজোটের অংশীদার হয়ে নির্বাচন করার কথা রয়েছে। বিকল্পধারার নেতারা ঘোষণা দিয়েছেন তারা নিজের প্রতীক কুলা নিয়েই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন।

সূত্র জানায়, প্রত্যেকের বক্তব্য শেষে প্রধানমন্ত্রী কমবেশি কথা বলেন। আর সবার বক্তব্য শেষে তিনি সমবেতদের উদ্দেশে বলেন,‘এক একটি আসনে অনেক প্রার্থী। তারপর নির্বাচনি জোটও আছে। জরিপ অনুসারে সবখানে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। নির্বাচনি জোটের কারণেও কিছু আসন ছাড়তে হবে। তাই কেউ মনোনয়ন না পেলে মন খারাপ না করে কাজ করতে হবে। দলের বা জোটের হোক,প্রার্থীকে জিতিয়ে আনতে হবে।’

Adds Banner_2024

যাকে মনোনয়ন দেওয়া হবে তাঁর পক্ষে কাজ করতে হবে :প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

আপডেটের সময় : ০৪:১৭:৫৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ নভেম্বর ২০১৮

ঢাকা প্রতিনিধি: ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়ে তা থেকে বঞ্চিত হওয়ার আশঙ্কায় থাকাদের সান্ত্বনা দিয়েছেন দলটির সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একইসঙ্গে দল ও জোট থেকে যারা মনোনয়ন পাবেন তাদের বিজয়ী করতে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার নির্দেশও দেন তাদের।

বুধবার (২১ নভেম্বর)রাতে মনোনয়ন প্রত্যাশী দুই শতাধিক নেতাকর্মী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারি বাসভবনে গেলে তিনি সমবেতদের উদ্দেশে এসব কথা বলেন। সেখানে উপস্থিত থাকা একাধিক সূত্র থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

Trulli

সূত্র জানায়, এদিন সন্ধ্যার সময় মনোনয়ন চেয়ে বঞ্চিত হওয়ার আশঙ্কায় থাকা অনেকে গণভবনে যান। একে একে এ সংখ্যা ২০০ ছাড়িয়ে যায়। মহানবী হযরত মোহাম্মদ (সা.) এর জন্ম দিন হওয়ায় এদিন ছিল ছুটির দিন। নেতাকর্মীরা তাদের প্রিয় ‘আপা’র কাছে নিজেদের বক্তব্য, অভিমান, অনুযোগ তুলে ধরার জন্য এ দিনটিকেই বেছে নেন। একসঙ্গে এত নেতাকর্মীর আগমনের খবর পেয়ে শেখ হাসিনাও নিচে নেমে আসেন। সমবেতরা জড়ো হন ব্যাংকুয়েট হলে। শেখ হাসিনা কার কী বক্তব্য আছে তা শুনতে চান। তখন একে একে অনেকেই তার নিজের বক্তব্য তুলে ধরেন।

প্রধানমন্ত্রীর সামনে বক্তব্য দেন ছাত্রলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এবং বরিশাল-২ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী শাহে আলম, ঢাকা-২ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী শাহীন আহমেদ (শাহীন চেয়ারম্যান), মুন্সীগঞ্জ-১ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী সাবেক ছাত্রলীগ নেতা গোলাম সরওয়ার কবীর, বরগুনা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক-জাহাঙ্গীর কবির, কুমিল্লা জেলা উত্তরের সাধারণ সম্পাদক-জাহাঙ্গীর আলম, নরসিংদীর শিবপুরের সাবেক এমপি জহিরুল হক ভূঞা মোহন, পাবনা-২ এর সংসদ সদস্য আজিজুল হক আরজু প্রমুখ।

শাহীন আহমেদ বুধবারের সন্ধ্যার সাক্ষাতের বিষয়ে বলেন, ‘আমি নির্বাচনে মনোনয়নের ক্ষেত্রে তৃণমূলের মতামতকে আমলে নেওয়ার প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণাকে সমর্থন করেছি। মনোনয়নের ক্ষেত্রে উপজেলা চেয়ারম্যান-মেয়রদের প্রার্থী না করার ঘোষণাকে পুনর্বিবেচনা করার জন্য প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেছি।’

সূত্র জানায়, এদিন শাহে আলম প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে বলেন, ‘বরিশালের বানারীপাড়ায় জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক কাঠামো নেই। আর যে ব্যক্তিকে মনোনয়ন দেওয়ার কথা চলছে, তিনি পাশের থানা বাবুগঞ্জের মানুষ।’

ছাত্রলীগের সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি গোলাম সরওয়ার কবীর প্রধানমন্ত্রীকে বলেন,‘ওই এলাকায় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক অবস্থা ভালো। গণজোয়ার নৌকার পক্ষে। গত পাঁচ বছর ধরে তিনি ঘরে ঘরে গিয়ে কাজ করেছেন। নেতাকর্মীদের পাশে ছিলেন। ঢাকার প্রবেশ পথ হিসেবে ওই এলাকা খুব গুরুত্বপূর্ণ। তাছাড়া ওখানে অন্য দলের কোনও ব্যক্তি বা অন্য মার্কাকে মনোনয়ন দেওয়া হলে তিনি বিজয়ী হতে পারবেন না। জবাবে প্রধানমন্ত্রী বাস্তব অবস্থা বিবেচনায় নেওয়ার নিশ্চয়তা দেন।’

উল্লেখ্য, এ আসনে বিকল্পধারা বাংলাদেশের যুগ্ম মহাসচিব মাহী বি চৌধুরীকে মহাজোটের ব্যানারে মনোনয়ন দেওয়ার আলোচনা রয়েছে। বিকল্পধারা তথা যুক্তফ্রন্ট আওয়ামী লীগের নির্বাচনি জোট-মহাজোটের অংশীদার হয়ে নির্বাচন করার কথা রয়েছে। বিকল্পধারার নেতারা ঘোষণা দিয়েছেন তারা নিজের প্রতীক কুলা নিয়েই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন।

সূত্র জানায়, প্রত্যেকের বক্তব্য শেষে প্রধানমন্ত্রী কমবেশি কথা বলেন। আর সবার বক্তব্য শেষে তিনি সমবেতদের উদ্দেশে বলেন,‘এক একটি আসনে অনেক প্রার্থী। তারপর নির্বাচনি জোটও আছে। জরিপ অনুসারে সবখানে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। নির্বাচনি জোটের কারণেও কিছু আসন ছাড়তে হবে। তাই কেউ মনোনয়ন না পেলে মন খারাপ না করে কাজ করতে হবে। দলের বা জোটের হোক,প্রার্থীকে জিতিয়ে আনতে হবে।’