রাজশাহী , সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

মেঘনা নদী থেকে সেই দুই যুবকের মরদেহ উদ্ধার

  • আপডেটের সময় : ০২:৫৪:৩৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ নভেম্বর ২০১৮
  • ৮৬ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

জনপদ ডেস্ক: নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার দুর্গম চরাঞ্চল বাঁশগাড়ী ও নিলক্ষা এলাকায় আধিপত্য বিস্তার করা নিয়ে হওয়া সংঘর্ষে নিখোঁজ দুজনের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৫টার দিকে উপজেলার চরমধুয়া এলাকায় মেঘনা নদী থেকে তাদের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

নিহতরা হলেন, বাঁশগাড়ী ইউনিয়নের বালুয়াকান্দি এলাকার জয়নাল মিয়ার ছেলে কাউছার (৩0) ও রাজনগর এলাকার হযরত আলীর ছেলে আবদুল হাই (২৮)। তারা দুজনই বাঁশগাড়ী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান প্রয়াত সিরাজুল হকের সমর্থক ছিলেন।

Trulli

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, গত শুক্রবার সকালে রায়পুরা উপজেলার দুর্গম চরাঞ্চল বাঁশগাড়ীতে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে চলমান বিরোধের জের ধরে প্রয়াত চেয়ারম্যান সিরাজুল হকের অনুসারী কবির সরকারের নেতৃত্বে প্রতিপক্ষ সাবেক চেয়ারম্যান প্রয়াত হাফিজুর রহমান শাহেদ সরকারের অনুসারী জাকির হোসেনের সমর্থকদের উপর হামলা চালায়। এতে তোফায়েল হোসেন নামে এক গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয় এবং দুইজন নিখোঁজ ছিল। আহত হয় কমপক্ষে ১০ জন।

এদিকে ওইদিনই দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত নিলক্ষা ইউনিয়নেও আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বর্তমান চেয়ারম্যান তাজুল ইসলামের অনুসারী ছমেদ আলীর নেতৃত্বে প্রতিপক্ষ সাবেক চেয়ারম্যান আবদুল হকের অনুসারী শহিদ মেম্বারের সমর্থকদের উপর হামলা চালায়। এতে দুপক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়লে প্রথমে তাজুল ইসলামের সমর্থক সোহরাব হোসেন ও পরে আবদুল হক সরকারের সমর্থক স্বপন মিয়া নামের দুজন গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান। আহত হয় কমপক্ষে ৪০ জন।

এদিকে সংঘর্ষের দিন থেকে বাঁশগাড়ীর বালুয়াকান্দি এলাকার কাউছার ও রাজনগর এলাকার আবদুল হাই নিখোঁজ রয়েছেন বলে পরিবারের লোকজন দাবি করে আসছিলেন। সংঘর্ষের পরদিন শনিবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া নিখোঁজ দুজনের টেঁটাবিদ্ধ ছবি দেখে তাঁদের সনাক্ত করে পরিবারের লোকজন।

কিন্তু তাঁদের খোঁজ পাচ্ছিলেন না তাঁরা। বৃহস্পতিবার বিকেলে চরমধুয়া ও নিলক্ষার মধ্যবর্তী মেঘনা নদীতে মাছ ধরার ঘেরে লাশ দুটি ভেসে উঠলে স্থানীয়রা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে তাদের হাত পা বাঁধা অবস্থায় লাশ উদ্ধার করে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে তাদের শিপন মিয়া নামের এক স্বজন নিহতের লাশ সনাক্ত করেন।

এব্যাপারে রায়পুরা থানার পরিদর্শক (অপারেশন) মোজাফফর হোসেন বলেন, মেঘনা নদী থেকে দুজনের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। পরিবারের লোকজন তাঁদেরকে কাউছার ও আবদুল হাইয়ের লাশ হিসেবে শনাক্ত করেছে। নিহতদের লাশ ময়না তদন্তের জন্যে নরসিংদী সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

Adds Banner_2024

মেঘনা নদী থেকে সেই দুই যুবকের মরদেহ উদ্ধার

আপডেটের সময় : ০২:৫৪:৩৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ নভেম্বর ২০১৮

জনপদ ডেস্ক: নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার দুর্গম চরাঞ্চল বাঁশগাড়ী ও নিলক্ষা এলাকায় আধিপত্য বিস্তার করা নিয়ে হওয়া সংঘর্ষে নিখোঁজ দুজনের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৫টার দিকে উপজেলার চরমধুয়া এলাকায় মেঘনা নদী থেকে তাদের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

নিহতরা হলেন, বাঁশগাড়ী ইউনিয়নের বালুয়াকান্দি এলাকার জয়নাল মিয়ার ছেলে কাউছার (৩0) ও রাজনগর এলাকার হযরত আলীর ছেলে আবদুল হাই (২৮)। তারা দুজনই বাঁশগাড়ী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান প্রয়াত সিরাজুল হকের সমর্থক ছিলেন।

Trulli

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, গত শুক্রবার সকালে রায়পুরা উপজেলার দুর্গম চরাঞ্চল বাঁশগাড়ীতে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে চলমান বিরোধের জের ধরে প্রয়াত চেয়ারম্যান সিরাজুল হকের অনুসারী কবির সরকারের নেতৃত্বে প্রতিপক্ষ সাবেক চেয়ারম্যান প্রয়াত হাফিজুর রহমান শাহেদ সরকারের অনুসারী জাকির হোসেনের সমর্থকদের উপর হামলা চালায়। এতে তোফায়েল হোসেন নামে এক গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয় এবং দুইজন নিখোঁজ ছিল। আহত হয় কমপক্ষে ১০ জন।

এদিকে ওইদিনই দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত নিলক্ষা ইউনিয়নেও আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বর্তমান চেয়ারম্যান তাজুল ইসলামের অনুসারী ছমেদ আলীর নেতৃত্বে প্রতিপক্ষ সাবেক চেয়ারম্যান আবদুল হকের অনুসারী শহিদ মেম্বারের সমর্থকদের উপর হামলা চালায়। এতে দুপক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়লে প্রথমে তাজুল ইসলামের সমর্থক সোহরাব হোসেন ও পরে আবদুল হক সরকারের সমর্থক স্বপন মিয়া নামের দুজন গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান। আহত হয় কমপক্ষে ৪০ জন।

এদিকে সংঘর্ষের দিন থেকে বাঁশগাড়ীর বালুয়াকান্দি এলাকার কাউছার ও রাজনগর এলাকার আবদুল হাই নিখোঁজ রয়েছেন বলে পরিবারের লোকজন দাবি করে আসছিলেন। সংঘর্ষের পরদিন শনিবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া নিখোঁজ দুজনের টেঁটাবিদ্ধ ছবি দেখে তাঁদের সনাক্ত করে পরিবারের লোকজন।

কিন্তু তাঁদের খোঁজ পাচ্ছিলেন না তাঁরা। বৃহস্পতিবার বিকেলে চরমধুয়া ও নিলক্ষার মধ্যবর্তী মেঘনা নদীতে মাছ ধরার ঘেরে লাশ দুটি ভেসে উঠলে স্থানীয়রা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে তাদের হাত পা বাঁধা অবস্থায় লাশ উদ্ধার করে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে তাদের শিপন মিয়া নামের এক স্বজন নিহতের লাশ সনাক্ত করেন।

এব্যাপারে রায়পুরা থানার পরিদর্শক (অপারেশন) মোজাফফর হোসেন বলেন, মেঘনা নদী থেকে দুজনের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। পরিবারের লোকজন তাঁদেরকে কাউছার ও আবদুল হাইয়ের লাশ হিসেবে শনাক্ত করেছে। নিহতদের লাশ ময়না তদন্তের জন্যে নরসিংদী সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।