রাজশাহী , বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

যেখানে শত ঝুকি নিয়ে ‘চা’ খেতে যায় মানুষ

  • আপডেটের সময় : ০৬:৪২:২৯ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮
  • ১৬১ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: চায়ের কাপে তুফান তোলা বাঙালির কী সাহস হবে বিশ্বের সবচেয়ে ‘বিপজ্জনক’ চা খাওয়ার? এই চায়ে কোন ভয়ানক উপাদান মেশানো নেই। কিন্তু এই চা খেতে আপনাকে যেতে যেখানে, বিপদ লুকিয়ে সেখানেই।

সম্প্রতি সন্ধ্যান মিলছে এই দোকানের। সেখানকার চা খেতে গেলে আপনাকে উঠতে হবে সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৭ হাজার ফুট উপরে। শুধু তাই নয়, সেই পথও অত্যন্ত ভয়ঙ্কর।

Trulli

চীনের প্রধান পাঁচটি পর্বতের অন্যতম মাউন্ট হুয়া। সেখানেই পাওয়া যায় এই চা। একটু পথের বর্ণনা দেওয়া যাক। মাউন্ট হুয়াতে একাধিক তাও ধর্মের মন্দির রয়েছে। তারই অন্যতম একটি মন্দির অবস্থিত একেবারে দক্ষিণের চূড়াতে। সেই প্রাচীন স্থানেই টি-হাউসটি।

সেখানে যেতে হলে শিয়ান থেকে হুয়াশানে ২ ঘণ্টা ট্রেক করে যেতে হবে। এটাই সফরের সবচেয়ে সহজ অংশ। এরপরই শুরু আসল খেলা। পাহাড়ের চূড়ায় ওঠার পথ অত্যন্ত সংকীর্ণ ও বিপজ্জনক। কাঠের মচমচে পথের ধারে কোন রেলিং বা কিছু নেই। উঠতে গিয়ে প্রতি পদে ভয়। একটু পা ফসকালেই সব শেষ। একদম শেষে এসে কাঠের পথের ওই অংশটুকু চেইন ধরে ঝুলে যেতে হবে।

মনে হতেই পারে, কী এমন চা? সেই প্রতিবেদনের দাবি, অত্যন্ত সুস্বাদু। সবচেয়ে মজার হল, এই চা বানানো হয় বরফের কুচি, বৃষ্টির পানি ইত্যাদি মিশিয়ে। আগে এক বিচিত্র নিয়ম ছিল। পানিও নিজেকেই নিয়ে যেতে হতো।

Adds Banner_2024

যেখানে শত ঝুকি নিয়ে ‘চা’ খেতে যায় মানুষ

আপডেটের সময় : ০৬:৪২:২৯ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: চায়ের কাপে তুফান তোলা বাঙালির কী সাহস হবে বিশ্বের সবচেয়ে ‘বিপজ্জনক’ চা খাওয়ার? এই চায়ে কোন ভয়ানক উপাদান মেশানো নেই। কিন্তু এই চা খেতে আপনাকে যেতে যেখানে, বিপদ লুকিয়ে সেখানেই।

সম্প্রতি সন্ধ্যান মিলছে এই দোকানের। সেখানকার চা খেতে গেলে আপনাকে উঠতে হবে সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৭ হাজার ফুট উপরে। শুধু তাই নয়, সেই পথও অত্যন্ত ভয়ঙ্কর।

Trulli

চীনের প্রধান পাঁচটি পর্বতের অন্যতম মাউন্ট হুয়া। সেখানেই পাওয়া যায় এই চা। একটু পথের বর্ণনা দেওয়া যাক। মাউন্ট হুয়াতে একাধিক তাও ধর্মের মন্দির রয়েছে। তারই অন্যতম একটি মন্দির অবস্থিত একেবারে দক্ষিণের চূড়াতে। সেই প্রাচীন স্থানেই টি-হাউসটি।

সেখানে যেতে হলে শিয়ান থেকে হুয়াশানে ২ ঘণ্টা ট্রেক করে যেতে হবে। এটাই সফরের সবচেয়ে সহজ অংশ। এরপরই শুরু আসল খেলা। পাহাড়ের চূড়ায় ওঠার পথ অত্যন্ত সংকীর্ণ ও বিপজ্জনক। কাঠের মচমচে পথের ধারে কোন রেলিং বা কিছু নেই। উঠতে গিয়ে প্রতি পদে ভয়। একটু পা ফসকালেই সব শেষ। একদম শেষে এসে কাঠের পথের ওই অংশটুকু চেইন ধরে ঝুলে যেতে হবে।

মনে হতেই পারে, কী এমন চা? সেই প্রতিবেদনের দাবি, অত্যন্ত সুস্বাদু। সবচেয়ে মজার হল, এই চা বানানো হয় বরফের কুচি, বৃষ্টির পানি ইত্যাদি মিশিয়ে। আগে এক বিচিত্র নিয়ম ছিল। পানিও নিজেকেই নিয়ে যেতে হতো।