রাজশাহী , মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

এমপিদের বিচার চায় টিআইএসএলের

  • আপডেটের সময় : ০৫:৪৯:০৪ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৮
  • ১২১ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: শ্রীলংকায় পার্লামেন্টে মারামারি-হাতাহাতি করা এমপিদের বিচার চায় ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল শ্রীলংকা (টিআইএসএল)। হট্টগোলে জড়িত এমপিদেরকে ‘অভদ্র’ অভিহিত করে সংস্থাটি বলেছে, পার্লামেন্ট কোনো অভদ্র আচরণের স্থান নয়। সংবিধানের আইন অনুযায়ী দোষীদের বিচারের আওতায় আনতে হবে।

সোমবার এক বিবৃতিতে এ দাবি জানিয়েছে সংস্থাটি। খবর কলম্বো গ্যাজেটের।

Trulli

২৬ অক্টোবর শ্রীলংকায় সাংবিধানিক সংকট ও ক্ষমতার দ্বন্দ্ব শুরু হওয়ার পর গত বুধবার প্রথমবারের জন্য পার্লামেন্ট অধিবেশন বসে। অধিবেশনে মারামারি ও হাতাহাতির মতো ন্যক্কারজনক কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়েন প্রেসিডেন্ট মাইথ্রিপালা সিরিসেনাপন্থী ও বরখাস্ত প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহেপন্থী আইনপ্রণেতারা।

একদিন পর শুক্রবার ফের চরম হট্টগোল বাধিয়ে দেন রাজাপাকসে দলের এমপিরা। এদিন স্পিকারের চেয়ার পর্যন্ত দখল করেন এমপিদের একটি দল। শ্রীলংকা এমনকি বিশ্ব রাজনীতির ইতিহাসে যা এক কালো দৃষ্টান্ত।

শুধু তাই নয়, এদিন স্পিকারের সুরক্ষায় নিয়োজিত পুলিশ ও বিক্রমাসিংহের এমপিদের ওপর চেয়ার, বইপত্র ছুড়ে মারেন। চোখেমুখে ছিটিয়ে দেন মরিচের গুঁড়া।

কিছু এমপির এ ধরনের আচরণে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে টিআইএসএল। তারা বলেছে, গত এক সপ্তাহে পার্লামেন্টে যা ঘটেছে তা নজিরবিহীন ও খুবই হতাশাজনক। পার্লামেন্টের মেঝেতে দাঁড়িয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও বিরোধীদের প্রতি কিছু এমপির আচরণে আমরা খুবই উদ্বিগ্ন।

এটা আইনের শাসনের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুল দেখানোর সমান। সংকট সমাধানে রোববার রাতে প্রথমবারের মতো সর্বদলীয় একটি বৈঠকে বসলেও তা কার্যত ব্যর্থ হয়েছে। বৈঠকে একচুল পরিমাণ ছাড় দিতে সম্মত হয়নি কোনো পক্ষই।

প্রধানমন্ত্রিত্ব ফিরে চায় বিক্রমাসিংহের দল ইউনাইটেড ন্যাশনাল অ্যালায়ান্স (ইউএনএ)। অন্যদিকে গত বুধবার থেকে তিন-তিনবার অনাস্থা ভোটে হারলেও প্রধানমন্ত্রিত্ব ছাড়তে রাজি হননি রাজাপাকসে। ‘সুষ্ঠু ও সাংবিধানিকভাবে’ হয়নি অভিযোগ আস্থা ভোটের ফলাফল মেনে নেননি সিরিসেনাও।

ফের আরেকটি অনাস্থা ভোটের আহ্বান জানিয়েছে তার দল ইউনাইটেড পিপলস ফ্রিডম অ্যালায়ান্স (ইউপিএফএ)। রাতে কোনো সমাধানে না পৌঁছালেও সোমবার পার্লামেন্টে অধিবেশনে প্রতিদ্বন্দ্বী দলগুলোর এমপিরা। এদিনের অধিবেশন শান্তিপূর্ণ ছিল। এজন্য এমপিদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন সিরিসেনা।

স্পিকারের দলে অধিবেশন পরিচালনা করেন ডেপুটি স্পিকার। মাত্র পাঁচ মিনিট স্থায়ী অধিবেশন শেষে আগামী ২৩ নভেম্বর পর্যন্ত পার্লামেন্ট স্থগিত করেন তিনি।

এদিনের অধিবেশনের রাজাপাকসের বিরুদ্ধে নতুন একটি প্রস্তাব আনা হয়। সিরিসেনাপন্থী রাজাপাকসের হাতে রাষ্ট্রীয় তহবিল তুলে দেয়ার বিরুদ্ধে এ প্রস্তাব আনেন বিক্রমাসিংহের ইউএনএ’র ছয় এমপি।

প্রস্তাবের পক্ষে তাদের বক্তব্য, ‘অবৈধ কোনো প্রধানমন্ত্রীর অধীন রাষ্ট্রীয় তহবিল বাতিল করতে হবে।’ আগামী ২৯ তারিখের অধিবেশনে প্রস্তাবটি নিয়ে ফের বিতর্ক হবে।

Adds Banner_2024

এমপিদের বিচার চায় টিআইএসএলের

আপডেটের সময় : ০৫:৪৯:০৪ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৮

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: শ্রীলংকায় পার্লামেন্টে মারামারি-হাতাহাতি করা এমপিদের বিচার চায় ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল শ্রীলংকা (টিআইএসএল)। হট্টগোলে জড়িত এমপিদেরকে ‘অভদ্র’ অভিহিত করে সংস্থাটি বলেছে, পার্লামেন্ট কোনো অভদ্র আচরণের স্থান নয়। সংবিধানের আইন অনুযায়ী দোষীদের বিচারের আওতায় আনতে হবে।

সোমবার এক বিবৃতিতে এ দাবি জানিয়েছে সংস্থাটি। খবর কলম্বো গ্যাজেটের।

Trulli

২৬ অক্টোবর শ্রীলংকায় সাংবিধানিক সংকট ও ক্ষমতার দ্বন্দ্ব শুরু হওয়ার পর গত বুধবার প্রথমবারের জন্য পার্লামেন্ট অধিবেশন বসে। অধিবেশনে মারামারি ও হাতাহাতির মতো ন্যক্কারজনক কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়েন প্রেসিডেন্ট মাইথ্রিপালা সিরিসেনাপন্থী ও বরখাস্ত প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহেপন্থী আইনপ্রণেতারা।

একদিন পর শুক্রবার ফের চরম হট্টগোল বাধিয়ে দেন রাজাপাকসে দলের এমপিরা। এদিন স্পিকারের চেয়ার পর্যন্ত দখল করেন এমপিদের একটি দল। শ্রীলংকা এমনকি বিশ্ব রাজনীতির ইতিহাসে যা এক কালো দৃষ্টান্ত।

শুধু তাই নয়, এদিন স্পিকারের সুরক্ষায় নিয়োজিত পুলিশ ও বিক্রমাসিংহের এমপিদের ওপর চেয়ার, বইপত্র ছুড়ে মারেন। চোখেমুখে ছিটিয়ে দেন মরিচের গুঁড়া।

কিছু এমপির এ ধরনের আচরণে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে টিআইএসএল। তারা বলেছে, গত এক সপ্তাহে পার্লামেন্টে যা ঘটেছে তা নজিরবিহীন ও খুবই হতাশাজনক। পার্লামেন্টের মেঝেতে দাঁড়িয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও বিরোধীদের প্রতি কিছু এমপির আচরণে আমরা খুবই উদ্বিগ্ন।

এটা আইনের শাসনের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুল দেখানোর সমান। সংকট সমাধানে রোববার রাতে প্রথমবারের মতো সর্বদলীয় একটি বৈঠকে বসলেও তা কার্যত ব্যর্থ হয়েছে। বৈঠকে একচুল পরিমাণ ছাড় দিতে সম্মত হয়নি কোনো পক্ষই।

প্রধানমন্ত্রিত্ব ফিরে চায় বিক্রমাসিংহের দল ইউনাইটেড ন্যাশনাল অ্যালায়ান্স (ইউএনএ)। অন্যদিকে গত বুধবার থেকে তিন-তিনবার অনাস্থা ভোটে হারলেও প্রধানমন্ত্রিত্ব ছাড়তে রাজি হননি রাজাপাকসে। ‘সুষ্ঠু ও সাংবিধানিকভাবে’ হয়নি অভিযোগ আস্থা ভোটের ফলাফল মেনে নেননি সিরিসেনাও।

ফের আরেকটি অনাস্থা ভোটের আহ্বান জানিয়েছে তার দল ইউনাইটেড পিপলস ফ্রিডম অ্যালায়ান্স (ইউপিএফএ)। রাতে কোনো সমাধানে না পৌঁছালেও সোমবার পার্লামেন্টে অধিবেশনে প্রতিদ্বন্দ্বী দলগুলোর এমপিরা। এদিনের অধিবেশন শান্তিপূর্ণ ছিল। এজন্য এমপিদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন সিরিসেনা।

স্পিকারের দলে অধিবেশন পরিচালনা করেন ডেপুটি স্পিকার। মাত্র পাঁচ মিনিট স্থায়ী অধিবেশন শেষে আগামী ২৩ নভেম্বর পর্যন্ত পার্লামেন্ট স্থগিত করেন তিনি।

এদিনের অধিবেশনের রাজাপাকসের বিরুদ্ধে নতুন একটি প্রস্তাব আনা হয়। সিরিসেনাপন্থী রাজাপাকসের হাতে রাষ্ট্রীয় তহবিল তুলে দেয়ার বিরুদ্ধে এ প্রস্তাব আনেন বিক্রমাসিংহের ইউএনএ’র ছয় এমপি।

প্রস্তাবের পক্ষে তাদের বক্তব্য, ‘অবৈধ কোনো প্রধানমন্ত্রীর অধীন রাষ্ট্রীয় তহবিল বাতিল করতে হবে।’ আগামী ২৯ তারিখের অধিবেশনে প্রস্তাবটি নিয়ে ফের বিতর্ক হবে।