রাজশাহী , রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

দায়িত্ব নেওয়ার পর পরই উন্নয়ন নিয়ে ব্যস্ত মেয়র লিটন

  • আপডেটের সময় : ০৪:৪৩:৩২ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮
  • ৩৬৯ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

বিশেষ প্রতিনিধি : তিন স্বপ্ন দেখেন ,স্বপ্ন দেখান আবার সেটি বাস্তবায়ন ও করেন। রাজশাহী মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন ও উন্নয়ন নিয়ে তাঁর যেন চিন্তার শেষ নেই। রাজশাহী নগরীকে কীভাবে আধুনিক নগরী হিসেবে গড়ে তোলা যায়-এটাই তাঁর স্বপ্ন। এখনও যে সেই স্বপ্ন তাঁকে ঘুমাতে দেয় না। সত্যি বলতে কি স্বপ্নই তাঁকে বাঁচিয়ে রেখেছে।

Trulli

গত পাঁচটি বছর নগরীকে নিয়ে কত স্বপ্ন জাগিয়ে রেখেছেন দু চোখের মাঝখানে। বলছি আধুনিক রাজশাহীর রুপকার ও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটনের কথা।

চলতি বছরের ৩০ জুলাই রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়ে আবারও স্বপ্নের আধুনিক রাজশাহী গড়তে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন। দায়িত্ব নেয়ার পরপরই প্রথমে অ গোছালো নগর কে তিনি সু শাসনের মাধ্যমে শৃঙ্খলা ফিরে আনেন। এছাড়াও কর্মকর্তা কর্মচারীদের জবাবদিহিতার মধ্যে আনেন।

ক্ষমতা গ্রহণের পর পরই রাজশাহী সিটি করপোরেশনের প্রথম কর্মদিবসে ৭৫২ কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্পে সর্ব প্রথম স্বাক্ষর করেন মেয়র লিটন। এদিনই আবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাজশাহী ওয়াসার উন্নয়নে চার হাজার ৬২ কোটি ২২ লাখ টাকার প্রকল্প অনুমোদন দেন।

এদিকে, মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন নগর ভবন ও বাহির সামলাছেন একই সাথে। নগরীর উন্নয়ন কাজের তদরকি করতে মেয়র নিজে ছুটছেন নগরীর এপার ওপার। ইতোমধ্যে তিনি নগরীর ব্যস্ততম এলাকা শিরোইল বাস টার্মিনাল হতে তালাইমারি পর্যন্ত রাস্তা সংরক্ষণ করেছেন। দড়িখরবন রাস্তার প্রশস্তকরণ কাজ শুরু করিয়েছেন।

শুধু তাই নয় ২০০৮ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত রেখে যাওয়া নগরীর পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম ফিরিয়ে আনতে নিয়েছেন বিশেষ উদ্যোগ । অন্যদিকে , রাজশাহীতে শিল্পায়ানে গ্যাস, পূর্ণাঙ্গ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী বিমানবন্দরকে সম্প্রসারণ , রাজশাহী-কলকাতা ট্রেন চালু,

রাজশাহী-ঢাকা বিরতীহীন ট্রেন চালু,বর্জ্য থেকে গ্যাস, সার ও বিদ্যুৎ উৎপাদন পদ্মা নদীতে ক্যাপিটাল ড্রেজিং করে মহানগরীর ১২ কিলোমিটার আয়তন বৃদ্ধি করে সেখানে রিসোট, কটেজ, ইকোপার্ক নদীর চরকে উন্নয়ন করে রিভার্স সিটি করার জন্য দিন রাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন তিনি। অচিরেই এই মেগা প্রকল্প নগরবাসীকে উপহার দিবে বলে এমনটি বিশ্বাস করেন নগরবাসী।

Adds Banner_2024

দায়িত্ব নেওয়ার পর পরই উন্নয়ন নিয়ে ব্যস্ত মেয়র লিটন

আপডেটের সময় : ০৪:৪৩:৩২ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮

বিশেষ প্রতিনিধি : তিন স্বপ্ন দেখেন ,স্বপ্ন দেখান আবার সেটি বাস্তবায়ন ও করেন। রাজশাহী মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন ও উন্নয়ন নিয়ে তাঁর যেন চিন্তার শেষ নেই। রাজশাহী নগরীকে কীভাবে আধুনিক নগরী হিসেবে গড়ে তোলা যায়-এটাই তাঁর স্বপ্ন। এখনও যে সেই স্বপ্ন তাঁকে ঘুমাতে দেয় না। সত্যি বলতে কি স্বপ্নই তাঁকে বাঁচিয়ে রেখেছে।

Trulli

গত পাঁচটি বছর নগরীকে নিয়ে কত স্বপ্ন জাগিয়ে রেখেছেন দু চোখের মাঝখানে। বলছি আধুনিক রাজশাহীর রুপকার ও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটনের কথা।

চলতি বছরের ৩০ জুলাই রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়ে আবারও স্বপ্নের আধুনিক রাজশাহী গড়তে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন। দায়িত্ব নেয়ার পরপরই প্রথমে অ গোছালো নগর কে তিনি সু শাসনের মাধ্যমে শৃঙ্খলা ফিরে আনেন। এছাড়াও কর্মকর্তা কর্মচারীদের জবাবদিহিতার মধ্যে আনেন।

ক্ষমতা গ্রহণের পর পরই রাজশাহী সিটি করপোরেশনের প্রথম কর্মদিবসে ৭৫২ কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্পে সর্ব প্রথম স্বাক্ষর করেন মেয়র লিটন। এদিনই আবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাজশাহী ওয়াসার উন্নয়নে চার হাজার ৬২ কোটি ২২ লাখ টাকার প্রকল্প অনুমোদন দেন।

এদিকে, মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন নগর ভবন ও বাহির সামলাছেন একই সাথে। নগরীর উন্নয়ন কাজের তদরকি করতে মেয়র নিজে ছুটছেন নগরীর এপার ওপার। ইতোমধ্যে তিনি নগরীর ব্যস্ততম এলাকা শিরোইল বাস টার্মিনাল হতে তালাইমারি পর্যন্ত রাস্তা সংরক্ষণ করেছেন। দড়িখরবন রাস্তার প্রশস্তকরণ কাজ শুরু করিয়েছেন।

শুধু তাই নয় ২০০৮ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত রেখে যাওয়া নগরীর পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম ফিরিয়ে আনতে নিয়েছেন বিশেষ উদ্যোগ । অন্যদিকে , রাজশাহীতে শিল্পায়ানে গ্যাস, পূর্ণাঙ্গ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী বিমানবন্দরকে সম্প্রসারণ , রাজশাহী-কলকাতা ট্রেন চালু,

রাজশাহী-ঢাকা বিরতীহীন ট্রেন চালু,বর্জ্য থেকে গ্যাস, সার ও বিদ্যুৎ উৎপাদন পদ্মা নদীতে ক্যাপিটাল ড্রেজিং করে মহানগরীর ১২ কিলোমিটার আয়তন বৃদ্ধি করে সেখানে রিসোট, কটেজ, ইকোপার্ক নদীর চরকে উন্নয়ন করে রিভার্স সিটি করার জন্য দিন রাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন তিনি। অচিরেই এই মেগা প্রকল্প নগরবাসীকে উপহার দিবে বলে এমনটি বিশ্বাস করেন নগরবাসী।