রাজশাহী , সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

সাবেক অর্থমন্ত্রীর ছেলে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে যোগ দিলেন

  • আপডেটের সময় : ০১:৫৬:৫৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৮
  • ৩২০ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ঢাকা প্রতিনিধি: জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে যোগ দিলেন আওয়ামী লীগ সরকারের সাবেক অর্থমন্ত্রী মরহুম শাহ এএমএস কিবরিয়ার ছেলে ড. রেজা কিবরিয়া।

হবিগঞ্জ-১ (নবীগঞ্জ-বাহুবল) আসনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে তিনি নির্বাচন করবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন। এ কারণে গতকাল শুক্রবার বিকেলে দেশে ফিরেছেন ড. রেজা কিবরিয়া।

Trulli

গণমাধ্যমকে তিনি বলেন, আমি সবসময়ই জন্মস্থান নবীগঞ্জ-বাহুবল আসনেই নির্বাচন করতে আগ্রহী ছিলাম। এবার ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের হয়ে ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করার জন্য দেশে এসেছি।

ড. রেজার বাবা শাহ এএমএস কিবরিয়া আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ছিলেন। পরে ১৯৯৬ সালে অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন তিনি। পরে শাহ এ এম এস কিবরিয়া ২০০১ সালের নির্বাচনে হবিগঞ্জ-৩ (হবিগঞ্জ সদর-লাখাই) আসনের এমপি হন। ২০০৫ সালে এক জনসভায় বোমা হামলা চালিয়ে তাকে হত্যা করা হয়।

কিন্তু তারই ছেলে কেন ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করবেন? জানতে চাইলে ড. রেজা কিবরিয়া বলেন, ‘আমি আমার জায়গা থেকে দেশের সেবা করে যাচ্ছি। আমার বাবা আওয়ামী লীগ থেকে নির্বাচন করেছিলেন। এমপি হয়ে অর্থমন্ত্রীর দায়িত্বও পালন করেন।’

অর্থনীতিবিদ রেজা কিবরিয়া জানান, তাঁর বাবাকে ২০০৫ সালে হত্যার পর বিএনপির সরকারের সময় এবং পরবর্তীকালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ও এই হত্যাকাণ্ডের বিচার করা হয়নি। আওয়ামী লীগ সরকারের ১০ বছরেও এ মামলার সুষ্ঠু তদন্ত বা বিচার করার কোনো উদ্যোগ নেয়নি দলটি।

এ বিষয়ে তিনি বলেন, মামলার আংশিক তদন্তকাজ করে আমাদের জোর করে তা মেনে নেওয়ানোর চেষ্টা করা হয়। এমনকি মামলার বাদী এমপি আবদুল মজিদ খান আমার মাকে ধমক দিয়ে বলেছিলেন, এ তদন্তই মেনে নিতে হবে। তিনি আমার মাকে এ ধমক দেওয়ার সাহস কোথা থেকে পান?

দেশবাসীর উদ্দেশ্যে প্রশ্ন রেখে ড. রেজা বলেন, ‘এবার দেশের মানুষ বলুক, যে পার্টি ১০ বছর ক্ষমতায় থেকেও আমার বাবা হত্যার বিচার করেনি। সেই পার্টির প্রতি আমার আনুগত্য থাকবে কেন?’

এদিকে ২০১১ সালে হবিগঞ্জ-১ আসন থেকে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে উপ-নির্বাচনে জয়ী হন দলটির কেন্দ্রীয় সদস্য শেখ সুজাত মিয়া। এবারও হেভিওয়েট প্রার্থী হিসেবে এলাকায় জনসংযোগ করছেন তিনি।

এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে ড. রেজা বলেন, শেখ সুজাত মিয়া ভালো মানুষ। তিনিও এলাকার উন্নয়ন চান। তাই তিনি আমাকে সমর্থন করবেন এবং আমার জন্য কাজ করবেন। শুধু এমপি হিসেবে-ই নয়, আরও অনেক দায়িত্ব আছে। সুজাত মিয়ার অবশ্যই মূল্যায়ন হবে।

এদিকে শোনা যাচ্ছে, এরই মধ্যে রেজা কিবরিয়া ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন গণফোরামে যোগ দিয়েছেন। ঐক্যফ্রন্ট থেকে নির্বাচনে অংশ নিতেই দেশে এসেছেন তিনি। তাদের মধ্যে এ বিষয়ে কথাও হয়েছে। তবে কেউ মুখ খুলতে রাজি হননি।

রেজা কিবরিয়া আরো বলেন, আওয়ামী লীগ ১০ বছর ধরে যেভাবে দেশ পরিচালনা করছে, তার সঙ্গে তিনি একমত নন। তাঁর আদর্শের সঙ্গে এর মিল নেই। তিনি বলেন, ‘আমার বাবা শাহ এ এম এস কিবরিয়া ও আওয়ামী লীগ প্রধান শেখ হাসিনা যে আদর্শ লালন করতেন, আওয়ামী লীগ এখন সেই জায়গায় নেই।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ড. রেজার ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র বলছে, এখনও কোনো ঘোষণা দেওয়া হয়নি। তবে রবিবার এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসতে পারে।

Adds Banner_2024

সাবেক অর্থমন্ত্রীর ছেলে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে যোগ দিলেন

আপডেটের সময় : ০১:৫৬:৫৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৮

ঢাকা প্রতিনিধি: জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে যোগ দিলেন আওয়ামী লীগ সরকারের সাবেক অর্থমন্ত্রী মরহুম শাহ এএমএস কিবরিয়ার ছেলে ড. রেজা কিবরিয়া।

হবিগঞ্জ-১ (নবীগঞ্জ-বাহুবল) আসনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে তিনি নির্বাচন করবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন। এ কারণে গতকাল শুক্রবার বিকেলে দেশে ফিরেছেন ড. রেজা কিবরিয়া।

Trulli

গণমাধ্যমকে তিনি বলেন, আমি সবসময়ই জন্মস্থান নবীগঞ্জ-বাহুবল আসনেই নির্বাচন করতে আগ্রহী ছিলাম। এবার ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের হয়ে ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করার জন্য দেশে এসেছি।

ড. রেজার বাবা শাহ এএমএস কিবরিয়া আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ছিলেন। পরে ১৯৯৬ সালে অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন তিনি। পরে শাহ এ এম এস কিবরিয়া ২০০১ সালের নির্বাচনে হবিগঞ্জ-৩ (হবিগঞ্জ সদর-লাখাই) আসনের এমপি হন। ২০০৫ সালে এক জনসভায় বোমা হামলা চালিয়ে তাকে হত্যা করা হয়।

কিন্তু তারই ছেলে কেন ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করবেন? জানতে চাইলে ড. রেজা কিবরিয়া বলেন, ‘আমি আমার জায়গা থেকে দেশের সেবা করে যাচ্ছি। আমার বাবা আওয়ামী লীগ থেকে নির্বাচন করেছিলেন। এমপি হয়ে অর্থমন্ত্রীর দায়িত্বও পালন করেন।’

অর্থনীতিবিদ রেজা কিবরিয়া জানান, তাঁর বাবাকে ২০০৫ সালে হত্যার পর বিএনপির সরকারের সময় এবং পরবর্তীকালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ও এই হত্যাকাণ্ডের বিচার করা হয়নি। আওয়ামী লীগ সরকারের ১০ বছরেও এ মামলার সুষ্ঠু তদন্ত বা বিচার করার কোনো উদ্যোগ নেয়নি দলটি।

এ বিষয়ে তিনি বলেন, মামলার আংশিক তদন্তকাজ করে আমাদের জোর করে তা মেনে নেওয়ানোর চেষ্টা করা হয়। এমনকি মামলার বাদী এমপি আবদুল মজিদ খান আমার মাকে ধমক দিয়ে বলেছিলেন, এ তদন্তই মেনে নিতে হবে। তিনি আমার মাকে এ ধমক দেওয়ার সাহস কোথা থেকে পান?

দেশবাসীর উদ্দেশ্যে প্রশ্ন রেখে ড. রেজা বলেন, ‘এবার দেশের মানুষ বলুক, যে পার্টি ১০ বছর ক্ষমতায় থেকেও আমার বাবা হত্যার বিচার করেনি। সেই পার্টির প্রতি আমার আনুগত্য থাকবে কেন?’

এদিকে ২০১১ সালে হবিগঞ্জ-১ আসন থেকে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে উপ-নির্বাচনে জয়ী হন দলটির কেন্দ্রীয় সদস্য শেখ সুজাত মিয়া। এবারও হেভিওয়েট প্রার্থী হিসেবে এলাকায় জনসংযোগ করছেন তিনি।

এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে ড. রেজা বলেন, শেখ সুজাত মিয়া ভালো মানুষ। তিনিও এলাকার উন্নয়ন চান। তাই তিনি আমাকে সমর্থন করবেন এবং আমার জন্য কাজ করবেন। শুধু এমপি হিসেবে-ই নয়, আরও অনেক দায়িত্ব আছে। সুজাত মিয়ার অবশ্যই মূল্যায়ন হবে।

এদিকে শোনা যাচ্ছে, এরই মধ্যে রেজা কিবরিয়া ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন গণফোরামে যোগ দিয়েছেন। ঐক্যফ্রন্ট থেকে নির্বাচনে অংশ নিতেই দেশে এসেছেন তিনি। তাদের মধ্যে এ বিষয়ে কথাও হয়েছে। তবে কেউ মুখ খুলতে রাজি হননি।

রেজা কিবরিয়া আরো বলেন, আওয়ামী লীগ ১০ বছর ধরে যেভাবে দেশ পরিচালনা করছে, তার সঙ্গে তিনি একমত নন। তাঁর আদর্শের সঙ্গে এর মিল নেই। তিনি বলেন, ‘আমার বাবা শাহ এ এম এস কিবরিয়া ও আওয়ামী লীগ প্রধান শেখ হাসিনা যে আদর্শ লালন করতেন, আওয়ামী লীগ এখন সেই জায়গায় নেই।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ড. রেজার ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র বলছে, এখনও কোনো ঘোষণা দেওয়া হয়নি। তবে রবিবার এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসতে পারে।