রাজশাহী , মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

সহ্য ক্ষমতার বাইরে দিল্লির দূষণ

  • আপডেটের সময় : ১২:৫০:৪৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৮
  • ২৪২ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

কিছুতেই নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না নয়া দিল্লির বায়ু দূষণ। সহ্য ক্ষমতার চেয়ে ৫০ গুণ বেশি দূষিত হয়ে পড়েছে ভারতের রাজধানীর আবহাওয়া। দূষণের মাত্রা নিয়ে মঙ্গলবার উদ্বেগ জানিয়েছে দেশটির সর্বোচ্চ আদালত। চরম স্বাস্থ্য ঝুঁকির কথা জানিয়ে উদ্বেগ জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও।

Trulli

পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে শহরে নতুন করে কলকারখানা স্থাপন বন্ধ করা, আবাসিক ভবন কমিয়ে আনার পরামর্শ বিশ্লেষকদের। তারা বলছেন, জনসংখ্যা কমানো গেলে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে দূষণ।

দিল্লির বাসিন্দা আঞ্চাল করন্থ। তার চার বছরের ছেলেকে নিয়ে দিন কাটাচ্ছেন আতঙ্কে। বায়ু দূষণের এ-শহরে তার ছেলে যেন অসুস্থ না হয়ে পড়ে সে চিন্তাই ভর করেছে মায়ের মনে।

তিনি বলেন, ‘ছেলেকে নিয়ে ঘর থেকে বের হওয়া কমিয়ে দিয়েছি। একান্তই বের হতে হলে, মুখে মাস্ক পড়াচ্ছি ওকে। এমনিতেই বয়স কম, নয়া দিল্লির ভারী দূষণ তার সহ্য হওয়ার মতো নয়। এ শহরে শিশুদের শৈশব নিয়ে আমি সত্যিই আতঙ্কিত।’

তার মতো এখন দিল্লির প্রতিটি অভিভাবকই উদ্বিগ্ন নিজের সন্তান নিয়ে।

আরেক স্থানীয় বলেন, ‘শিশুদের ফুসফুসের ইনফেকশন থেকে শুরু করে বিভিন্ন রোগ-বালাই ইতোমধ্যে দেখা দিয়েছে। কোনো নিয়মই কাজে আসছে না দূষণ নিয়ন্ত্রণে। এ শহর ক্রমেই বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়ছে।’

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসেব বলছে, ২০১৬ সালে ভারতে ৫ বছরের নিচে ১ লাখ শিশুর মৃত্যু হয়েছে কেবল বায়ু দূষণের কারণে। এ বছর স্মরণকালের সবচেয়ে ভয়াবহ দূষণের কবলে পড়া দিল্লি ক্রমেই শিশুদের জন্য হয়ে উঠেছে মৃত্যুপুরী।

শিশু বিশেষজ্ঞ অনুপমা গুপ্ত বলেন, ‘শিশুদের বিকাশ হয় যে বয়সটায় সে বয়সে দিল্লিতে তারা দূষণের মধ্যে বেড়ে উঠছে। যা তাদের বিকাশে বাধার সৃষ্টি করছে। মুক্ত বায়ুর অভাবে তাদের মস্তিষ্ক ও হৃদপৃণ্ডে ক্ষতিকর প্রভাব পড়ছে।’

দূষণ রোধে পাঁচ বছর মেয়াদী জাতীয় নিরাপদ বায়ু পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে ভারত সরকার। তবে কার্যত এ থেকে কোনো সমাধান আসবে কিনা তা নিয়ে শঙ্কা বিশ্লেষকদের।

দূষণ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের পরিচালক অশিষ জৈন বলেন, ‘দিল্লি একটি জনবহুল শহর। প্রতিদিন কোটি মানুষ এখানে নিজেদের প্রয়োজনে রাস্তায় বের হয়। চলে নানামুখী উন্নয়ন ও নির্মাণ কাজ। এখন সময় এসেছে শহরের আকার বাড়ানোর। নতুন করে শহরের প্রাণকেন্দ্রগুলোতে কোনো ধরনের কলকারখানা, বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান এবং আবাসিক এলাকা গড়ে তোলার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা জরুরি।’

বায়ু দূষণের জন্য পর্যাপ্ত গাছপালার অভাবকেও দায়ী করছেন বিশেষজ্ঞরা। এছাড়া, পরিবহন, বিদ্যুৎখাত, বিভিন্ন নির্মাণ কাজের বর্জ্য এবং গৃহস্থালির জ্বালানি পরিবেশ দূষণে সমানভাবে দায়ী। সেইসঙ্গে হরিয়ানা, পাঞ্জাব ও উত্তর প্রদেশ থেকে কৃষি বর্জ্যের পোড়ানো ধোঁয়া তো আছেই। বায়ুতে ক্ষুদ্র বস্তুকণা পিএম-২.৫ অর্থাৎ পার্টিকুলেট ম্যাটারের সহ্য ক্ষমতার মাত্রা ৫০। তবে দিল্লিতে সোমবারও যা ছিল ৪শ’র ঘরে। গত দুই সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে গড়ে যা তা ৪শ থেকে ৫শ’র মধ্যেই ঘুরপাক খাচ্ছে।

Adds Banner_2024

সহ্য ক্ষমতার বাইরে দিল্লির দূষণ

আপডেটের সময় : ১২:৫০:৪৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৮

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

কিছুতেই নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না নয়া দিল্লির বায়ু দূষণ। সহ্য ক্ষমতার চেয়ে ৫০ গুণ বেশি দূষিত হয়ে পড়েছে ভারতের রাজধানীর আবহাওয়া। দূষণের মাত্রা নিয়ে মঙ্গলবার উদ্বেগ জানিয়েছে দেশটির সর্বোচ্চ আদালত। চরম স্বাস্থ্য ঝুঁকির কথা জানিয়ে উদ্বেগ জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও।

Trulli

পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে শহরে নতুন করে কলকারখানা স্থাপন বন্ধ করা, আবাসিক ভবন কমিয়ে আনার পরামর্শ বিশ্লেষকদের। তারা বলছেন, জনসংখ্যা কমানো গেলে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে দূষণ।

দিল্লির বাসিন্দা আঞ্চাল করন্থ। তার চার বছরের ছেলেকে নিয়ে দিন কাটাচ্ছেন আতঙ্কে। বায়ু দূষণের এ-শহরে তার ছেলে যেন অসুস্থ না হয়ে পড়ে সে চিন্তাই ভর করেছে মায়ের মনে।

তিনি বলেন, ‘ছেলেকে নিয়ে ঘর থেকে বের হওয়া কমিয়ে দিয়েছি। একান্তই বের হতে হলে, মুখে মাস্ক পড়াচ্ছি ওকে। এমনিতেই বয়স কম, নয়া দিল্লির ভারী দূষণ তার সহ্য হওয়ার মতো নয়। এ শহরে শিশুদের শৈশব নিয়ে আমি সত্যিই আতঙ্কিত।’

তার মতো এখন দিল্লির প্রতিটি অভিভাবকই উদ্বিগ্ন নিজের সন্তান নিয়ে।

আরেক স্থানীয় বলেন, ‘শিশুদের ফুসফুসের ইনফেকশন থেকে শুরু করে বিভিন্ন রোগ-বালাই ইতোমধ্যে দেখা দিয়েছে। কোনো নিয়মই কাজে আসছে না দূষণ নিয়ন্ত্রণে। এ শহর ক্রমেই বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়ছে।’

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসেব বলছে, ২০১৬ সালে ভারতে ৫ বছরের নিচে ১ লাখ শিশুর মৃত্যু হয়েছে কেবল বায়ু দূষণের কারণে। এ বছর স্মরণকালের সবচেয়ে ভয়াবহ দূষণের কবলে পড়া দিল্লি ক্রমেই শিশুদের জন্য হয়ে উঠেছে মৃত্যুপুরী।

শিশু বিশেষজ্ঞ অনুপমা গুপ্ত বলেন, ‘শিশুদের বিকাশ হয় যে বয়সটায় সে বয়সে দিল্লিতে তারা দূষণের মধ্যে বেড়ে উঠছে। যা তাদের বিকাশে বাধার সৃষ্টি করছে। মুক্ত বায়ুর অভাবে তাদের মস্তিষ্ক ও হৃদপৃণ্ডে ক্ষতিকর প্রভাব পড়ছে।’

দূষণ রোধে পাঁচ বছর মেয়াদী জাতীয় নিরাপদ বায়ু পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে ভারত সরকার। তবে কার্যত এ থেকে কোনো সমাধান আসবে কিনা তা নিয়ে শঙ্কা বিশ্লেষকদের।

দূষণ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের পরিচালক অশিষ জৈন বলেন, ‘দিল্লি একটি জনবহুল শহর। প্রতিদিন কোটি মানুষ এখানে নিজেদের প্রয়োজনে রাস্তায় বের হয়। চলে নানামুখী উন্নয়ন ও নির্মাণ কাজ। এখন সময় এসেছে শহরের আকার বাড়ানোর। নতুন করে শহরের প্রাণকেন্দ্রগুলোতে কোনো ধরনের কলকারখানা, বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান এবং আবাসিক এলাকা গড়ে তোলার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা জরুরি।’

বায়ু দূষণের জন্য পর্যাপ্ত গাছপালার অভাবকেও দায়ী করছেন বিশেষজ্ঞরা। এছাড়া, পরিবহন, বিদ্যুৎখাত, বিভিন্ন নির্মাণ কাজের বর্জ্য এবং গৃহস্থালির জ্বালানি পরিবেশ দূষণে সমানভাবে দায়ী। সেইসঙ্গে হরিয়ানা, পাঞ্জাব ও উত্তর প্রদেশ থেকে কৃষি বর্জ্যের পোড়ানো ধোঁয়া তো আছেই। বায়ুতে ক্ষুদ্র বস্তুকণা পিএম-২.৫ অর্থাৎ পার্টিকুলেট ম্যাটারের সহ্য ক্ষমতার মাত্রা ৫০। তবে দিল্লিতে সোমবারও যা ছিল ৪শ’র ঘরে। গত দুই সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে গড়ে যা তা ৪শ থেকে ৫শ’র মধ্যেই ঘুরপাক খাচ্ছে।