রাজশাহী , বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

মাদরাসা শিক্ষকের বিরুদ্ধে ২য় শ্রেণির ছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগ

  • আপডেটের সময় : ০২:০৩:০৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৮ জানুয়ারী ২০১৯
  • ৪৭ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ঢাকা প্রতিনিধি: সাভার উপজেলার আশুলিয়ায় এক মাদরাসা শিক্ষকের বিরুদ্ধে ৯ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। রবিবার দুপুরে আশুলিয়ার দোসাইদ এলাকার তারিমুল কোরআন মহিলা মাদ্রাসার পাশে অভিযুক্ত শিক্ষকের বাড়িতে এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় শিশুটির পিতা বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছে অভিযুক্ত শিক্ষক আব্দুল্লাহ আল মামুন।

Trulli

শিশুটির খালু জানান, ‘আমার ভায়রা স্ত্রী, সন্তান নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে দোসাইদ এলাকার ভাড়া বাসায় থেকে রিকশা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করছেন। তাদের বড় মেয়ে শিশুটি স্থানীয় তারিমুল কোরআন মহিলা মাদ্রাসার ২য় শ্রেণির ছাত্রী।

রবিবার দুপুরে প্রতিদিনের মতো শিশুটি ওই শিক্ষকের বাসায় আরবি পড়তে যায়। বাড়িকে কেউ না থাকার সুযোগে আব্দুল্লাহ আল মামুন শিশুটিকে ধর্ষণ করে। বিষয়টি কাউকে না জানানোর জন্য ভয়ভীতি দেখায়। পরে মেয়েটি বাসায় এসে অসুস্থ হয়ে পড়লে ঘটনাটি জানাজানি হয়।’

আশুলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ রিজাউল হক দিপু জানান, ‘আমরা ভিকটিম এবং তার পরিবারের সঙ্গে কথা বলেছি। শিশুটির শারীরিক অবস্থা খুব একটা ভালো নয়। তাকে উদ্ধার করে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় মামলা নেওয়া হয়েছে। অভিযুক্ত ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করতে পুলিশের অভিযান চলছে।’

Adds Banner_2024

মাদরাসা শিক্ষকের বিরুদ্ধে ২য় শ্রেণির ছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগ

আপডেটের সময় : ০২:০৩:০৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৮ জানুয়ারী ২০১৯

ঢাকা প্রতিনিধি: সাভার উপজেলার আশুলিয়ায় এক মাদরাসা শিক্ষকের বিরুদ্ধে ৯ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। রবিবার দুপুরে আশুলিয়ার দোসাইদ এলাকার তারিমুল কোরআন মহিলা মাদ্রাসার পাশে অভিযুক্ত শিক্ষকের বাড়িতে এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় শিশুটির পিতা বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছে অভিযুক্ত শিক্ষক আব্দুল্লাহ আল মামুন।

Trulli

শিশুটির খালু জানান, ‘আমার ভায়রা স্ত্রী, সন্তান নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে দোসাইদ এলাকার ভাড়া বাসায় থেকে রিকশা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করছেন। তাদের বড় মেয়ে শিশুটি স্থানীয় তারিমুল কোরআন মহিলা মাদ্রাসার ২য় শ্রেণির ছাত্রী।

রবিবার দুপুরে প্রতিদিনের মতো শিশুটি ওই শিক্ষকের বাসায় আরবি পড়তে যায়। বাড়িকে কেউ না থাকার সুযোগে আব্দুল্লাহ আল মামুন শিশুটিকে ধর্ষণ করে। বিষয়টি কাউকে না জানানোর জন্য ভয়ভীতি দেখায়। পরে মেয়েটি বাসায় এসে অসুস্থ হয়ে পড়লে ঘটনাটি জানাজানি হয়।’

আশুলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ রিজাউল হক দিপু জানান, ‘আমরা ভিকটিম এবং তার পরিবারের সঙ্গে কথা বলেছি। শিশুটির শারীরিক অবস্থা খুব একটা ভালো নয়। তাকে উদ্ধার করে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় মামলা নেওয়া হয়েছে। অভিযুক্ত ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করতে পুলিশের অভিযান চলছে।’