রাজশাহী , বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার পরও হাসপাতালে অনুপস্থিত চিকিৎসক

  • আপডেটের সময় : ০১:৩৪:১৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৮ জানুয়ারী ২০১৯
  • ৬৭ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি : প্রধানমন্ত্রীর কঠোর নির্দেশনার পরও দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে অনুপস্থিত রয়েছেন চিকিৎসকরা। কোথাও কোথাও রয়েছে ওষুধ সংকট। এ অবস্থায় কাঙ্ক্ষিত সেবা পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ রোগীদের। চিকিৎসকদের দাবি, বাড়তি সময়ে সেবা দিয়ে পুষিয়ে দেন তারা। পাশাপাশি শূন্যপদে জনবল নিয়োগের দাবি জানিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। সরকারি সহায়তায় স্বল্প খরচে এখানে স্বাস্থ্য সেবা নিতে আসেন নানা বয়সী মানুষ । কিন্তু মিলছে না কাঙ্ক্ষিত সেবা। যথাসময়ে চিকিৎসক না আসায় বাড়ছে দুর্ভোগ। পাশাপাশি মিলছে না সাধারণ রোগেরও ওষুধ। রোগীরা বলেন, যে ডাক্তারদের আসার কথা তারা ঠিকমতো আসে না। দুই একজন নার্স থাকে। কিন্তু ডাক্তারের দেখা আমরা পাই না। আমরা ঠিক মতো চিকিৎসা পাচ্ছি না।

Trulli

একই চিত্র বরগুনা সদর হাসপাতালে। সকাল ৮টার পর হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, বিভিন্ন বিভাগের বেশ কয়েকজন চিকিৎসক অনুপস্থিত। নিজ নিজ বিভাগে পাওয়া যায়নি ডা. শারমীন, আব্দুর রহমান ও সিদ্ধার্থ বড়ালসহ জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক কামাল হোসাইনকে। হাসপাতালের কোথাও দেখা মেলেনি তাদের। এতে বিড়ম্বনায় পড়েন রোগী ও স্বজনরা। রোগীরা বলেন, হাসপাতালে ভর্তি থাকলেও ডাক্তাররা আসে না। এখানে বেশিরভাগ সময় তারা থাকেন না।

সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. সোহরাফ হোসেন বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর কথা ওই দিনই কার্যকর হবে যখন এখানে ১৯টি মেডিকেল অফিসারের পোস্ট পূর্ণ হবে। আর আমার মেডিকেল অফিসার মাত্র ২ জন।’

এদিকে, ঝালকাঠির কাঁঠালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৪ দিন ধরে পানি সরবরাহ বন্ধ থাকায় চরম দুর্ভোগে পড়েছেন রোগীরা। কর্তৃপক্ষ জানায়, বৈদ্যুতিক গোলযোগের কারণে শুক্রবার থেকে বন্ধ রয়েছে হাসপাতালের পানি সরবরাহ।

Adds Banner_2024

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার পরও হাসপাতালে অনুপস্থিত চিকিৎসক

আপডেটের সময় : ০১:৩৪:১৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৮ জানুয়ারী ২০১৯

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি : প্রধানমন্ত্রীর কঠোর নির্দেশনার পরও দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে অনুপস্থিত রয়েছেন চিকিৎসকরা। কোথাও কোথাও রয়েছে ওষুধ সংকট। এ অবস্থায় কাঙ্ক্ষিত সেবা পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ রোগীদের। চিকিৎসকদের দাবি, বাড়তি সময়ে সেবা দিয়ে পুষিয়ে দেন তারা। পাশাপাশি শূন্যপদে জনবল নিয়োগের দাবি জানিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। সরকারি সহায়তায় স্বল্প খরচে এখানে স্বাস্থ্য সেবা নিতে আসেন নানা বয়সী মানুষ । কিন্তু মিলছে না কাঙ্ক্ষিত সেবা। যথাসময়ে চিকিৎসক না আসায় বাড়ছে দুর্ভোগ। পাশাপাশি মিলছে না সাধারণ রোগেরও ওষুধ। রোগীরা বলেন, যে ডাক্তারদের আসার কথা তারা ঠিকমতো আসে না। দুই একজন নার্স থাকে। কিন্তু ডাক্তারের দেখা আমরা পাই না। আমরা ঠিক মতো চিকিৎসা পাচ্ছি না।

Trulli

একই চিত্র বরগুনা সদর হাসপাতালে। সকাল ৮টার পর হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, বিভিন্ন বিভাগের বেশ কয়েকজন চিকিৎসক অনুপস্থিত। নিজ নিজ বিভাগে পাওয়া যায়নি ডা. শারমীন, আব্দুর রহমান ও সিদ্ধার্থ বড়ালসহ জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক কামাল হোসাইনকে। হাসপাতালের কোথাও দেখা মেলেনি তাদের। এতে বিড়ম্বনায় পড়েন রোগী ও স্বজনরা। রোগীরা বলেন, হাসপাতালে ভর্তি থাকলেও ডাক্তাররা আসে না। এখানে বেশিরভাগ সময় তারা থাকেন না।

সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. সোহরাফ হোসেন বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর কথা ওই দিনই কার্যকর হবে যখন এখানে ১৯টি মেডিকেল অফিসারের পোস্ট পূর্ণ হবে। আর আমার মেডিকেল অফিসার মাত্র ২ জন।’

এদিকে, ঝালকাঠির কাঁঠালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৪ দিন ধরে পানি সরবরাহ বন্ধ থাকায় চরম দুর্ভোগে পড়েছেন রোগীরা। কর্তৃপক্ষ জানায়, বৈদ্যুতিক গোলযোগের কারণে শুক্রবার থেকে বন্ধ রয়েছে হাসপাতালের পানি সরবরাহ।