রাজশাহী , মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
তিস্তা মহাপরিকল্পনায় চীন-ভারতের ভারসাম্য কীভাবে? বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তার পানি বণ্টন সম্ভব নয় : মমতা মারা গেছেন ‘জল্লাদ’ শাহজাহান ‘প্রযুক্তিজ্ঞান ছাড়া দেশ বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে পারে না’ দুদকে হা‌জির হন‌নি বেনজীর, আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা রাজশাহীতে দেখা মিলল সাত রাসেলস ভাইপারের, পিটিয়ে মারলো এলাকাবাসী নগর যুবলীগের পদ থেকে সরে দাঁড়ালেন শফিকুজ্জামান শফিক আওয়ামী লীগ জনগণের শক্তিতে বিশ্বাস করে : প্রধানমন্ত্রী বন্যায় স্থগিত জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন পরীক্ষা আ’লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী একাদশে ভর্তির প্রথম ধাপের ফল প্রকাশ আজ দীর্ঘদিনের প্রচেষ্টায় বাস্তবায়ন হচ্ছে রাসিক মেয়র লিটনের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি রাজশাহী-কলকাতা ট্রেন চালুর ঘোষণা আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী আগামীকাল দিল্লির রাষ্ট্রপতি ভবনে শেখ হাসিনাকে লাল গালিচা সংবর্ধনা রাজশাহী মহানগর যুবলীগের নেতৃত্বে মনি,রনি ও জেলায় সজল,সৈকত নির্বাচিত  প্রধানমন্ত্রীর কণ্ঠ শুনেই ছুটে এলো খরগোশের দল ঈদের দিন বন্ধ থাকবে সব আন্তঃনগর ট্রেন রাসিক মেয়র ও তার পরিবারের সদস্যদের জড়িয়ে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছে উলামা কল্যাণ পরিষদ রাজশাহীতে ঈদের প্রধান জামাত সকাল সাড়ে ৭টায়

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভবন নির্মাণে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

  • আপডেটের সময় : ০৭:৫২:০০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৮ জানুয়ারী ২০১৯
  • ৮৬ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

জনপদ ডেস্ক: জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নয়তলা ভবন নির্মাণের কাজ নিয়ে ছয় তলা করেই পুরো বিল তুলে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এর মাধ্যমে অন্তত ৭ কোটি টাকা আত্মসাৎ করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন শিক্ষা প্রকৌশল অধিদফতরের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসেন। এ নিয়ে বারবার মন্ত্রণালয়ে লিখিত অভিযোগ দিয়েও লাভ হয়নি। উল্টো এই প্রকৌশলীকে নানা হেনস্থা করা হচ্ছে।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছয়তলা একাডেমিক ভবন ১৫তলা করতে ২০১৫ সালে দ্য বিল্ডার্স নামের একটি প্রতিষ্ঠানকে কাজ দেয় শিক্ষা প্রকৌশল অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলী দেওয়ান মোহাম্মদ হানজালা। নির্মাণ ব্যয় ধরা হয় ৪৫ কোটি ২৪ লাখ টাকা। অর্থ্যাৎ মোজাইকসহ প্রতি তলার ব্যয় ধরা হয় ৫ কোটি দুই লাখ টাকা।

Trulli

২০০৭ সালে ভবনটি ছয়তলা করা হয়েছিল। দ্বিতীয় দফায় ২০১৫ সালে ১৫ তলা পর্যন্ত নির্মাণকাজ শুরুর দুই বছর পর হঠাৎ করেই প্রধান প্রকৌশলী ডিএম হানজালা ‘ভিত্তি দূর্বল’ এমন অজুহাতে ১২ তলা পর্যন্ত ভবন করার মতামত দেন। যদিও ভবনটির ভিত্তি দেওয়া আছে ২০ তলার। ১২ তলার জন্য সংশোধিত ব্যয় ধরা হয় ৩৭ কোটি ৪০ লাখ টাকা।

মূল দরপত্রে মোজাইকের কথা বলা হলেও দেওয়া হয় টাইলস। প্রথম দরপত্রে মোজাইকসহ প্রতি তলার ব্যয় ধরা হয়েছিল ৫ কোটি দুই লাখ টাকা।

সেই হিসেবে ছয় তলার জন্য ব্যয় হওয়ার কথা ৩০ কোটি ১২ লাখ টাকা। কিন্তু প্রধান প্রকৌশলী ডি এম হানজালার হস্তক্ষেপে দর নির্ধারিত হয় ৭ কোটি টাকা বেশি, ৩৭ কোটি ৪০ লাখ টাকায়।

এসব অনিয়ম ও দুর্নীতির বিষয়ে দফায় দফায় মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়ে আপত্তির কথা জানান তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী। কিন্তু কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসেন বলেন, ‘এখানে ঠিকাদারকে বাড়তি সুবিধা পাইয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। সরকারি অর্থের যথেচ্ছা ব্যবহার বা অন্যকে সুবিধা করিয়ে দেওয়ার জন্য যারা আইনপ্রয়োগ করে তারা রাষ্ট্রের নয়, দেশের মানুষের নয়, তারা তাদের জন্যই করে।’

নিজ দফতরের এ দুর্নীতি নিয়ে কথা বলতে চাননি শিক্ষা প্রকৌশল অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলী দেওয়ান মোহাম্মদ হানজালা। তবে তদন্ত সাপেক্ষে এই দুর্নীতির বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। তিনি বলেন, ‘আমাদের কাছে কেউ অভিযোগ দিলে আমরা লিখিতভাবে তদন্ত করতে বলবো।’

Adds Banner_2024

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভবন নির্মাণে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

আপডেটের সময় : ০৭:৫২:০০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৮ জানুয়ারী ২০১৯

জনপদ ডেস্ক: জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নয়তলা ভবন নির্মাণের কাজ নিয়ে ছয় তলা করেই পুরো বিল তুলে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এর মাধ্যমে অন্তত ৭ কোটি টাকা আত্মসাৎ করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন শিক্ষা প্রকৌশল অধিদফতরের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসেন। এ নিয়ে বারবার মন্ত্রণালয়ে লিখিত অভিযোগ দিয়েও লাভ হয়নি। উল্টো এই প্রকৌশলীকে নানা হেনস্থা করা হচ্ছে।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছয়তলা একাডেমিক ভবন ১৫তলা করতে ২০১৫ সালে দ্য বিল্ডার্স নামের একটি প্রতিষ্ঠানকে কাজ দেয় শিক্ষা প্রকৌশল অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলী দেওয়ান মোহাম্মদ হানজালা। নির্মাণ ব্যয় ধরা হয় ৪৫ কোটি ২৪ লাখ টাকা। অর্থ্যাৎ মোজাইকসহ প্রতি তলার ব্যয় ধরা হয় ৫ কোটি দুই লাখ টাকা।

Trulli

২০০৭ সালে ভবনটি ছয়তলা করা হয়েছিল। দ্বিতীয় দফায় ২০১৫ সালে ১৫ তলা পর্যন্ত নির্মাণকাজ শুরুর দুই বছর পর হঠাৎ করেই প্রধান প্রকৌশলী ডিএম হানজালা ‘ভিত্তি দূর্বল’ এমন অজুহাতে ১২ তলা পর্যন্ত ভবন করার মতামত দেন। যদিও ভবনটির ভিত্তি দেওয়া আছে ২০ তলার। ১২ তলার জন্য সংশোধিত ব্যয় ধরা হয় ৩৭ কোটি ৪০ লাখ টাকা।

মূল দরপত্রে মোজাইকের কথা বলা হলেও দেওয়া হয় টাইলস। প্রথম দরপত্রে মোজাইকসহ প্রতি তলার ব্যয় ধরা হয়েছিল ৫ কোটি দুই লাখ টাকা।

সেই হিসেবে ছয় তলার জন্য ব্যয় হওয়ার কথা ৩০ কোটি ১২ লাখ টাকা। কিন্তু প্রধান প্রকৌশলী ডি এম হানজালার হস্তক্ষেপে দর নির্ধারিত হয় ৭ কোটি টাকা বেশি, ৩৭ কোটি ৪০ লাখ টাকায়।

এসব অনিয়ম ও দুর্নীতির বিষয়ে দফায় দফায় মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়ে আপত্তির কথা জানান তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী। কিন্তু কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসেন বলেন, ‘এখানে ঠিকাদারকে বাড়তি সুবিধা পাইয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। সরকারি অর্থের যথেচ্ছা ব্যবহার বা অন্যকে সুবিধা করিয়ে দেওয়ার জন্য যারা আইনপ্রয়োগ করে তারা রাষ্ট্রের নয়, দেশের মানুষের নয়, তারা তাদের জন্যই করে।’

নিজ দফতরের এ দুর্নীতি নিয়ে কথা বলতে চাননি শিক্ষা প্রকৌশল অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলী দেওয়ান মোহাম্মদ হানজালা। তবে তদন্ত সাপেক্ষে এই দুর্নীতির বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। তিনি বলেন, ‘আমাদের কাছে কেউ অভিযোগ দিলে আমরা লিখিতভাবে তদন্ত করতে বলবো।’