রাজশাহী , মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

নাটোরে জেলেদের জালে দক্ষিণ আমেরিকার ‘সাকার মাছ’

  • আপডেটের সময় : ০৬:২৬:৪৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৬ জানুয়ারী ২০১৯
  • ২৪৯ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

নাটোর প্রতিনিধি: নাটোরের সিংড়া উপজেলার গুড়নই নদীতে জেলেদের জালে দক্ষিণ আমেরিকার ‘সাকার মাছ’ ধরা পড়েছে। শুক্রবার সকালে ওই নদী থেকে জেলেরা মাছটি ধরে। এরপর সিংড়া বাসস্ট্যান্ড এলাকার মাছটি বিক্রয়ের জন্য আনা হয়।

মাছটির গায়ে ছোট ছোট কাটা রয়েছে। পিঠের ওপরে ও দুই পাশে রয়েছে আরো তিনটি বড় কাটা। মুখের রয়েছে ধারাল দাঁত। এরা আগাছা, জলজ পোকামাকড় ও বিভিন্ন ধরণের ছোট মাছ খেয়ে থাকে।

Trulli

স্থানীয় মাছ ব্যবসায়ী সোহেল তালুকদার তিনশ টাকায় মাছটি কিনে নদীতে অবমুক্ত করেছেন বলে জানান চলনবিল জীববৈচিত্র্য রক্ষা কমিটির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম।

সিংড়া উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা আবু বকর সিদ্দিক বলেন, এটা ‘সাকার মাছ’। মূলত এটা দক্ষিণ আমেরিকার মাছ। দক্ষিণ আমেরিকা থেকে এই মাছ এ্যাকুরিয়ামের শোভা বর্ধনের জন্যই আনা হয়েছিল। কিন্তু এখন সেটা আর এ্যাকুরিয়ামের মধ্যে সীমাবদ্ধ নাই। এক সময় এই মাছ বাংলাদেশে দেখা যেতো। এখন প্রায় বিলুপ্তি ঘটেছে। আবার কিছুদিন ধরে চলনবিল ও তার আশপাশের নদীতে এই মাছের দেখা মিলছে।

Adds Banner_2024

নাটোরে জেলেদের জালে দক্ষিণ আমেরিকার ‘সাকার মাছ’

আপডেটের সময় : ০৬:২৬:৪৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৬ জানুয়ারী ২০১৯

নাটোর প্রতিনিধি: নাটোরের সিংড়া উপজেলার গুড়নই নদীতে জেলেদের জালে দক্ষিণ আমেরিকার ‘সাকার মাছ’ ধরা পড়েছে। শুক্রবার সকালে ওই নদী থেকে জেলেরা মাছটি ধরে। এরপর সিংড়া বাসস্ট্যান্ড এলাকার মাছটি বিক্রয়ের জন্য আনা হয়।

মাছটির গায়ে ছোট ছোট কাটা রয়েছে। পিঠের ওপরে ও দুই পাশে রয়েছে আরো তিনটি বড় কাটা। মুখের রয়েছে ধারাল দাঁত। এরা আগাছা, জলজ পোকামাকড় ও বিভিন্ন ধরণের ছোট মাছ খেয়ে থাকে।

Trulli

স্থানীয় মাছ ব্যবসায়ী সোহেল তালুকদার তিনশ টাকায় মাছটি কিনে নদীতে অবমুক্ত করেছেন বলে জানান চলনবিল জীববৈচিত্র্য রক্ষা কমিটির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম।

সিংড়া উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা আবু বকর সিদ্দিক বলেন, এটা ‘সাকার মাছ’। মূলত এটা দক্ষিণ আমেরিকার মাছ। দক্ষিণ আমেরিকা থেকে এই মাছ এ্যাকুরিয়ামের শোভা বর্ধনের জন্যই আনা হয়েছিল। কিন্তু এখন সেটা আর এ্যাকুরিয়ামের মধ্যে সীমাবদ্ধ নাই। এক সময় এই মাছ বাংলাদেশে দেখা যেতো। এখন প্রায় বিলুপ্তি ঘটেছে। আবার কিছুদিন ধরে চলনবিল ও তার আশপাশের নদীতে এই মাছের দেখা মিলছে।