রাজশাহী , শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
রাজশাহীতে ঈদের প্রধান জামাত সকাল সাড়ে ৭টায় রাজশাহীতে র‌্যাবের জালে ২৪ জুয়াড়ি লাব্বাইক ধ্বনিতে মুখর আরাফাত ময়দান পবিত্র হজ আজ এমপি আনার হত্যা: আ.লীগ নেতা গ্যাস বাবুর দোষ স্বীকার টুং টাং শব্দে ব্যস্ত সময় পার করছে রাজশাহীর কামাররা রেমালে ক্ষতিগ্রস্ত ১২৭৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান যুগান্তর পত্রিকায় মেয়রসহ তার পরিবারকে নিয়ে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ ও ব্যাখ্যা কাল থেকে টানা ৫ দিনের ছুটিতে যাচ্ছেন সরকারি চাকরিজীবীরা ফের দি‌ল্লি যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বগুড়ায় ব্যাংকের সিন্দুক কেটে ২৯ লাখ টাকা লুট বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার মধ্যে চলবে যাত্রীবাহী ফেরি শেখ হাসিনাকে ‘কোয়ালিশন অব লিডার্স’-এ চায় গ্লোবাল ফান্ড তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি : প্রধানমন্ত্রী দুর্যোগ মোকাবিলায় ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা জানালেন প্রধানমন্ত্রী বেনজীর পরিবারের আরও সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ বড় দুঃসংবাদ পেলেন সাকিব পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে : প্রধানমন্ত্রী কুয়েতে ভবনে ভয়াবহ আগুন, নিহত অন্তত ৩৯ আনার হত্যাকাণ্ড : ডিবি কার্যালয়ে ঝিনাইদহ আ. লীগ সম্পাদক মিন্টু

সংসদে যেতে চান তারা ৪ জন

  • আপডেটের সময় : ১১:৪৬:১১ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৫ জানুয়ারী ২০১৯
  • ৫৫ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: একাদশ জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত আসনের প্রার্থী রেখা আলম চৌধুরী, রেহানা বেগম রানু, ফেরদৌস বেগম (মুন্নি) ও আনজুমান আরা বেগম জোর তৎপরতা চালাচ্ছেন।

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর হিসেবে দায়িত্ব পালন করার অভিজ্ঞতা আছে তাদের, রাজপথের আন্দোলন-সংগ্রামেও তারা ছিলেন সরব। চারজনই এবার মনোনয়ন পাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী বলে জানিয়েছেন।

Trulli

রেখা আলম চৌধুরী চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে লোকপ্রশাসনে মাস্টার্স ও এমফিল করেছেন। চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সাবেক প্যানেল মেয়র, চিটাগাং উইম্যান চেম্বারের সাবেক পরিচালক, এফবিসিসিআইর সাবেক সদস্য ছিলেন। বর্তমানে তিনি আগ্রাবাদ মা ও শিশু হাসপাতাল, চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস্থাসহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনের সঙ্গে জড়িত। ভ্রাম্যমাণ ‘রেখা সরিষার তৈল’ কারখানার উদ্যোক্তাও রেখা আলম।

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সাবেক কাউন্সিলর রেহানা বেগম রানু চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজতত্ত্ব বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। বঙ্গবন্ধু ল’ টেম্পল থেকে আইন বিষয়ে ডিগ্রি লাভ করেন। বর্তমানে তিনি চট্টগ্রাম আদালতে আইন পেশায় নিয়োজিত আছেন।

রেহানা বেগম রানু ২০০৭ সালে ওয়ান ইলেভেনের পরবর্তী সময়ে রাজপথে সরব ছিলেন। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার মুক্তির দাবিতে করেছেন আন্দোলন-সংগ্রাম। ২০০০ সাল থেকে পরপর তিনবার কাউন্সিলর নির্বাচিত হন রানু। তিন বছর পালন করেছেন চসিক শিক্ষা স্ট্যান্ডিং কমিটির সভাপতির দায়িত্ব।

১৯৮৯ সালে আগ্রাবাদ মহিলা কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি গঠনের মধ্যদিয়ে রাজনীতিতে সক্রিয় হন তিনি। ১৯৯০ সালে স্বৈরাচারবিরোধী গণআন্দোলনে অংশগ্রহণ করেন। ১৯৯৪ সালে মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগে যোগ দেন। ১৯৯৮ সালে পেয়েছেন দলের মহানগর শাখার দপ্তর সম্পাদকের পদ। ২০০১-২০১৬ সাল পর্যন্ত ছিলেন ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক পদে। ডবলমুরিং থানা মহিলা লীগের সভাপতিও ছিলেন। বর্তমানে তিনি যুব মহিলা লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য। নারীর প্রতি সহিংসতা রোধ, বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে কাজ করে প্রশংসিত হয়েছেন তিনি। এজন্য ২০০৪ সালে যুক্তরাষ্ট্র তাকে আরলি রাইজিং লিডার অ্যাওয়ার্ড দেয়।

সংসদে সংরক্ষিত আসনের প্রার্থী ফেরদৌস বেগম (মুন্নি) ২০০০ সাল থেকে টানা তিনবার চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর নির্বাচিত হন। মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান মুন্নি সপ্তম ও নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচন, ২০০৭ সালের ১১ জানুয়ারি তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় গৃহবন্দী থাকা বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর মুক্তির দাবিতে আন্দোলন সংগ্রামে ছিলেন রাজপথে। একাদশ সংসদ নির্বাচনের সময়ও নৌকার প্রার্থীর পক্ষে ভোট চেয়ে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গেছেন।

স্কুল জীবন থেকে ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত মুন্নি ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট ঢাকায় আওয়ামী লীগের জনসভায় যোগ দিয়েছিলেন। সেদিনের ভয়াবহ গ্রেনেড হামলায় তিনি অলৌকিকভাবে প্রাণে রক্ষা পান। বর্তমানে তিনি বায়েজিদ থানা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

আনজুমান আরা বেগমও পর পর তিনবার চসিকের নির্বাচিত কাউন্সিলর। এছাড়া তিনি চট্টগ্রাম লিগ্যাল এইড কমিটির সদস্য, জাতীয় মহিলা সংস্থা জেলা শাখার সদস্য, দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমবায় সম্পাদিকা, ২০ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের মহিলা সম্পাদিকা, জেলা মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সহ-সভাপতি, চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালের আজীবন সদস্য সহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সাথে যুক্ত।

চার প্রার্থীর প্রত্যাশা, জনপ্রতিনিধির দায়িত্ব পালনকালে সাধ্যমতো এলাকার উন্নয়নকাজে অংশীদার হয়েছেন। স্বাধীনতার স্বপক্ষে জনমত গঠনে রাজপথে ছিলেন। তাদের বৃহৎ পরিসরে কাজ করার সুযোগ দিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিরাশ করবেন না।

Adds Banner_2024

সংসদে যেতে চান তারা ৪ জন

আপডেটের সময় : ১১:৪৬:১১ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৫ জানুয়ারী ২০১৯

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: একাদশ জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত আসনের প্রার্থী রেখা আলম চৌধুরী, রেহানা বেগম রানু, ফেরদৌস বেগম (মুন্নি) ও আনজুমান আরা বেগম জোর তৎপরতা চালাচ্ছেন।

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর হিসেবে দায়িত্ব পালন করার অভিজ্ঞতা আছে তাদের, রাজপথের আন্দোলন-সংগ্রামেও তারা ছিলেন সরব। চারজনই এবার মনোনয়ন পাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী বলে জানিয়েছেন।

Trulli

রেখা আলম চৌধুরী চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে লোকপ্রশাসনে মাস্টার্স ও এমফিল করেছেন। চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সাবেক প্যানেল মেয়র, চিটাগাং উইম্যান চেম্বারের সাবেক পরিচালক, এফবিসিসিআইর সাবেক সদস্য ছিলেন। বর্তমানে তিনি আগ্রাবাদ মা ও শিশু হাসপাতাল, চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস্থাসহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনের সঙ্গে জড়িত। ভ্রাম্যমাণ ‘রেখা সরিষার তৈল’ কারখানার উদ্যোক্তাও রেখা আলম।

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সাবেক কাউন্সিলর রেহানা বেগম রানু চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজতত্ত্ব বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। বঙ্গবন্ধু ল’ টেম্পল থেকে আইন বিষয়ে ডিগ্রি লাভ করেন। বর্তমানে তিনি চট্টগ্রাম আদালতে আইন পেশায় নিয়োজিত আছেন।

রেহানা বেগম রানু ২০০৭ সালে ওয়ান ইলেভেনের পরবর্তী সময়ে রাজপথে সরব ছিলেন। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার মুক্তির দাবিতে করেছেন আন্দোলন-সংগ্রাম। ২০০০ সাল থেকে পরপর তিনবার কাউন্সিলর নির্বাচিত হন রানু। তিন বছর পালন করেছেন চসিক শিক্ষা স্ট্যান্ডিং কমিটির সভাপতির দায়িত্ব।

১৯৮৯ সালে আগ্রাবাদ মহিলা কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি গঠনের মধ্যদিয়ে রাজনীতিতে সক্রিয় হন তিনি। ১৯৯০ সালে স্বৈরাচারবিরোধী গণআন্দোলনে অংশগ্রহণ করেন। ১৯৯৪ সালে মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগে যোগ দেন। ১৯৯৮ সালে পেয়েছেন দলের মহানগর শাখার দপ্তর সম্পাদকের পদ। ২০০১-২০১৬ সাল পর্যন্ত ছিলেন ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক পদে। ডবলমুরিং থানা মহিলা লীগের সভাপতিও ছিলেন। বর্তমানে তিনি যুব মহিলা লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য। নারীর প্রতি সহিংসতা রোধ, বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে কাজ করে প্রশংসিত হয়েছেন তিনি। এজন্য ২০০৪ সালে যুক্তরাষ্ট্র তাকে আরলি রাইজিং লিডার অ্যাওয়ার্ড দেয়।

সংসদে সংরক্ষিত আসনের প্রার্থী ফেরদৌস বেগম (মুন্নি) ২০০০ সাল থেকে টানা তিনবার চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর নির্বাচিত হন। মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান মুন্নি সপ্তম ও নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচন, ২০০৭ সালের ১১ জানুয়ারি তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় গৃহবন্দী থাকা বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর মুক্তির দাবিতে আন্দোলন সংগ্রামে ছিলেন রাজপথে। একাদশ সংসদ নির্বাচনের সময়ও নৌকার প্রার্থীর পক্ষে ভোট চেয়ে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গেছেন।

স্কুল জীবন থেকে ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত মুন্নি ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট ঢাকায় আওয়ামী লীগের জনসভায় যোগ দিয়েছিলেন। সেদিনের ভয়াবহ গ্রেনেড হামলায় তিনি অলৌকিকভাবে প্রাণে রক্ষা পান। বর্তমানে তিনি বায়েজিদ থানা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

আনজুমান আরা বেগমও পর পর তিনবার চসিকের নির্বাচিত কাউন্সিলর। এছাড়া তিনি চট্টগ্রাম লিগ্যাল এইড কমিটির সদস্য, জাতীয় মহিলা সংস্থা জেলা শাখার সদস্য, দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমবায় সম্পাদিকা, ২০ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের মহিলা সম্পাদিকা, জেলা মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সহ-সভাপতি, চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালের আজীবন সদস্য সহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সাথে যুক্ত।

চার প্রার্থীর প্রত্যাশা, জনপ্রতিনিধির দায়িত্ব পালনকালে সাধ্যমতো এলাকার উন্নয়নকাজে অংশীদার হয়েছেন। স্বাধীনতার স্বপক্ষে জনমত গঠনে রাজপথে ছিলেন। তাদের বৃহৎ পরিসরে কাজ করার সুযোগ দিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিরাশ করবেন না।