রাজশাহী , মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

নৌ-ক্ষেপণাস্ত্র কিনছে কাতার

  • আপডেটের সময় : ১০:৫৪:৪৬ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৫ জানুয়ারী ২০১৯
  • ১৫৯ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

বিদেশ ডেস্ক: জার্মানির কাছ থেকে চারটি আরএএম নৌ-ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা কিনছে কাতার। এই ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি করেছে জার্মানি ও যুক্তরাষ্ট্র। এক চিঠিতে জার্মানির অর্থমন্ত্রী পিটার আলতেমায়ার দেশটির সংসদ সদস্যদের একথা জানিয়েছে। ওই চিঠির বরাত দিয়ে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এখবর জানিয়েছে।

খবরে বলা হয়েছে, ২৩ জানুয়ারির ওই চিঠিতে অস্ত্রচুক্তির অর্থ মূল্যের কথা উল্লেখ করা হয়নি। কারণ দেশটির আদালতের ২০১৪ সালের একটি রুল অনুসারে, এধরনের তথ্য প্রকাশে আন্তর্জাতিক বাজারে কোম্পানির প্রতিযোগিতার সামর্থ্যের ক্ষতি করতে পারে।

Trulli

সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যাকাণ্ডকে কেন্দ্র করে জার্মানি যখন কাতারের প্রতিদ্বন্দ্বি সৌদি আরবের কাছে অস্ত্রবিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে তখন এই অস্ত্রবিক্রির খবরটি সামনে আসলো।

আরএএম জাহাজে বসানো যায় ঘুর্ণায়মান ক্ষেপণাস্ত্র যা শত্রুর ছোড়া ক্ষেপণাস্ত্র, জঙ্গিবিমান, হেলিকপ্টার ও অন্যান্য জাহাজ থেকে সুরক্ষা দেয়।

কাতারের সঙ্গে স্বাক্ষরিত চুক্তি অনুসারে, ৮৫টি ডুয়েল-মোট রাডার ও ইনফ্রারেড বিক্রি করবে জার্মানি। এগুলো ক্ষেপণাস্ত্রের লক্ষ্যবস্তু নির্ধারণে প্রয়োজন হয়।

ইতালি হয়ে কাতারে পৌঁছাবে এসব ক্ষেপণাস্ত্র।

এই নৌ-ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থাটি তৈরি করেছে আরএএম-সিস্টেম জিএমবিএইচ। এটি জার্মানি, ইউরোপ ও মার্কিন কোম্পানির যৌথ অস্ত্র কোম্পানি।

গত বছর কাতারের সঙ্গে সম্পর্কোন্নয়নের ঘোষণা দেয় জার্মানি। কাতার দেশটিতে ১০ বিলিয়ন ইউরো বিনিয়োগের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

Adds Banner_2024

নৌ-ক্ষেপণাস্ত্র কিনছে কাতার

আপডেটের সময় : ১০:৫৪:৪৬ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৫ জানুয়ারী ২০১৯

বিদেশ ডেস্ক: জার্মানির কাছ থেকে চারটি আরএএম নৌ-ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা কিনছে কাতার। এই ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি করেছে জার্মানি ও যুক্তরাষ্ট্র। এক চিঠিতে জার্মানির অর্থমন্ত্রী পিটার আলতেমায়ার দেশটির সংসদ সদস্যদের একথা জানিয়েছে। ওই চিঠির বরাত দিয়ে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এখবর জানিয়েছে।

খবরে বলা হয়েছে, ২৩ জানুয়ারির ওই চিঠিতে অস্ত্রচুক্তির অর্থ মূল্যের কথা উল্লেখ করা হয়নি। কারণ দেশটির আদালতের ২০১৪ সালের একটি রুল অনুসারে, এধরনের তথ্য প্রকাশে আন্তর্জাতিক বাজারে কোম্পানির প্রতিযোগিতার সামর্থ্যের ক্ষতি করতে পারে।

Trulli

সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যাকাণ্ডকে কেন্দ্র করে জার্মানি যখন কাতারের প্রতিদ্বন্দ্বি সৌদি আরবের কাছে অস্ত্রবিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে তখন এই অস্ত্রবিক্রির খবরটি সামনে আসলো।

আরএএম জাহাজে বসানো যায় ঘুর্ণায়মান ক্ষেপণাস্ত্র যা শত্রুর ছোড়া ক্ষেপণাস্ত্র, জঙ্গিবিমান, হেলিকপ্টার ও অন্যান্য জাহাজ থেকে সুরক্ষা দেয়।

কাতারের সঙ্গে স্বাক্ষরিত চুক্তি অনুসারে, ৮৫টি ডুয়েল-মোট রাডার ও ইনফ্রারেড বিক্রি করবে জার্মানি। এগুলো ক্ষেপণাস্ত্রের লক্ষ্যবস্তু নির্ধারণে প্রয়োজন হয়।

ইতালি হয়ে কাতারে পৌঁছাবে এসব ক্ষেপণাস্ত্র।

এই নৌ-ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থাটি তৈরি করেছে আরএএম-সিস্টেম জিএমবিএইচ। এটি জার্মানি, ইউরোপ ও মার্কিন কোম্পানির যৌথ অস্ত্র কোম্পানি।

গত বছর কাতারের সঙ্গে সম্পর্কোন্নয়নের ঘোষণা দেয় জার্মানি। কাতার দেশটিতে ১০ বিলিয়ন ইউরো বিনিয়োগের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।