রাজশাহী , সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

চীন-ভারতের দ্বন্দ্বে কী করবে বাংলাদেশ

  • আপডেটের সময় : ০৯:০৫:২৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৪ জানুয়ারী ২০১৯
  • ৫৫ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ঢাকা প্রতিনিধি: বিশ্বের ৬০টি দেশের সঙ্গে চীনের ভূখণ্ডকে যুক্ত করার মহাপরিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছে বেইজিং। ২০১৩ সালে ‘ওয়ান বেল্ট ওয়ান রোড’ নামে ওই পরিকল্পনা উপস্থাপন করেন চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিং পিং। পরিকল্পনা অনুযায়ী দু’টি সড়ক নির্মাণ করা হবে; যা মধ্য এশিয়া ও ইউরোপের সঙ্গে সংযুক্ত হবে। এই সড়কের সঙ্গে থাকবে রেলপথ ও তেলের পাইপলাইন।

ওই পরিকল্পনা অনুযায়ী চীন দু’টি ‘ইকোনমিক করিডর’ তৈরি করবে। এর একটি হবে কুনমিং শহর থেকে বাংলাদেশের চট্টগ্রাম পর্যন্ত সড়ক ও রেলপথ। অন্যটিকে জিনজিয়াং থেকে পাকিস্তানের বেলুচিস্তানের সমুদ্রবন্দর গাওদার পর্যন্ত সড়ক ও রেলপথ। দ্বিতীয়টি পাকিস্তান-শাসিত কাশ্মীরের ভেতর দিয়ে যাচ্ছে। একারণে ভারত কয়েক বছর আগেই এ পরিকল্পনা প্রত্যাখ্যান করেছে।

Trulli

তবে ভারতের আপত্তি থাকলেও বাংলাদেশ ইতিমধ্যেই এই পরিকল্পনায় যোগ দিয়েছে। চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিং পিং এর ২০১৬ সালের ঢাকা সফরের সময় ‘ওয়ান বেল্ট, ওয়ান রোড’ উদ্যোগে আনুষ্ঠানিকভাবে যোগ দেয় বাংলাদেশ।

বাংলাদেশের ‘ওয়ান বেল্ট, ওয়ান রোড’-এ যোগ দেয়া নিয়ে ভারতের পক্ষ থেকে এখনো সরাসরি কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। তবে পুরো পরিকল্পনা নিয়ে দেশটির আপত্তির কথা ভারতীয় গণমাধ্যমে প্রকাশ করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারতীয় টেলিভিশন চ্যানেল সিএনএন নিউজ এইটিনকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ‘ওয়ান বেল্ট, ওয়ান রোড’-এ বাংলাদেশের যোগ দেয়ার বিষয়ে নিজেদের অবস্থান পরিষ্কার করেছেন। এর পরই বিষয়টি আবার আলোচনায় এসেছে।

তবে চীনের ‘ওয়ান বেল্ট ওয়ান রোডে’ বাংলাদেশের যোগ দেয়া নিয়ে ভারতের চিন্তিত হবার কোনো কারণ নেই বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী।?

Adds Banner_2024

চীন-ভারতের দ্বন্দ্বে কী করবে বাংলাদেশ

আপডেটের সময় : ০৯:০৫:২৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৪ জানুয়ারী ২০১৯

ঢাকা প্রতিনিধি: বিশ্বের ৬০টি দেশের সঙ্গে চীনের ভূখণ্ডকে যুক্ত করার মহাপরিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছে বেইজিং। ২০১৩ সালে ‘ওয়ান বেল্ট ওয়ান রোড’ নামে ওই পরিকল্পনা উপস্থাপন করেন চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিং পিং। পরিকল্পনা অনুযায়ী দু’টি সড়ক নির্মাণ করা হবে; যা মধ্য এশিয়া ও ইউরোপের সঙ্গে সংযুক্ত হবে। এই সড়কের সঙ্গে থাকবে রেলপথ ও তেলের পাইপলাইন।

ওই পরিকল্পনা অনুযায়ী চীন দু’টি ‘ইকোনমিক করিডর’ তৈরি করবে। এর একটি হবে কুনমিং শহর থেকে বাংলাদেশের চট্টগ্রাম পর্যন্ত সড়ক ও রেলপথ। অন্যটিকে জিনজিয়াং থেকে পাকিস্তানের বেলুচিস্তানের সমুদ্রবন্দর গাওদার পর্যন্ত সড়ক ও রেলপথ। দ্বিতীয়টি পাকিস্তান-শাসিত কাশ্মীরের ভেতর দিয়ে যাচ্ছে। একারণে ভারত কয়েক বছর আগেই এ পরিকল্পনা প্রত্যাখ্যান করেছে।

Trulli

তবে ভারতের আপত্তি থাকলেও বাংলাদেশ ইতিমধ্যেই এই পরিকল্পনায় যোগ দিয়েছে। চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিং পিং এর ২০১৬ সালের ঢাকা সফরের সময় ‘ওয়ান বেল্ট, ওয়ান রোড’ উদ্যোগে আনুষ্ঠানিকভাবে যোগ দেয় বাংলাদেশ।

বাংলাদেশের ‘ওয়ান বেল্ট, ওয়ান রোড’-এ যোগ দেয়া নিয়ে ভারতের পক্ষ থেকে এখনো সরাসরি কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। তবে পুরো পরিকল্পনা নিয়ে দেশটির আপত্তির কথা ভারতীয় গণমাধ্যমে প্রকাশ করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারতীয় টেলিভিশন চ্যানেল সিএনএন নিউজ এইটিনকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ‘ওয়ান বেল্ট, ওয়ান রোড’-এ বাংলাদেশের যোগ দেয়ার বিষয়ে নিজেদের অবস্থান পরিষ্কার করেছেন। এর পরই বিষয়টি আবার আলোচনায় এসেছে।

তবে চীনের ‘ওয়ান বেল্ট ওয়ান রোডে’ বাংলাদেশের যোগ দেয়া নিয়ে ভারতের চিন্তিত হবার কোনো কারণ নেই বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী।?